বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
রাজ্য
 

দুর্নীতির হদিশ ৬০০টি ডিএলএড
কলেজে, বাতিল হচ্ছে অনুমোদন
প্রশ্নের মুখে হাজার হাজার পড়ুয়ার ভবিষ্যৎ

দীপঙ্কর মণ্ডল, কলকাতা: অগুনতি অযোগ্য প্রার্থীকে বিক্রি করা হয়েছে প্রশিক্ষণের সার্টিফিকেট। রাজ্যের সব বেসরকারি ডিএলএড কলেজের বিরুদ্ধে উঠেছে এই অভিযোগ। তদন্তে নেমে দুর্নীতির প্রমাণ হাতে এসেছে প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের। তার জেরেই শেষপর্যন্ত অনুমোদন বাতিল হতে চলেছে প্রায় ৬০০টি শিক্ষক প্রশিক্ষণ কলেজের। অন্তত এমনই ইঙ্গিত স্বয়ং পর্ষদ সভাপতির। ফলে অনিশ্চয়তার মুখে হাজার হাজার ছাত্রছাত্রীর ভবিষ্যৎ। তবে সূত্রের খবর, তাঁদের কথা ভেবে শুধু ২০২২-’২৪ শিক্ষাবর্ষের জন্য কোর্স চালানোর অনুমতি দিতে পারে পর্ষদ।
রাজ্যে মোট স্বীকৃত ডিএলএড কলেজের সংখ্যা ৬৫৬। এর মধ্যে ৬০টি সরকারি। বাকি ৫৯৬টি বেসরকারি কলেজের বিরুদ্ধে উঠেছে দুর্নীতির অভিযোগ। তদন্তে উঠে এসেছে, ওই প্রতিষ্ঠানগুলিতে নিয়ম ভেঙে অফলাইনে ভর্তি নেওয়া হয়। কোনও বাছবিচার নয়, গোটা প্রক্রিয়াটাই চলে অর্থের বিনিময়ে। এমনকী টাকা নিয়ে পরীক্ষায় পাশ পর্যন্ত করিয়ে দেওয়া হয়। এপ্রসঙ্গে পর্ষদ সভাপতি অধ্যাপক গৌতম পাল জানিয়েছেন, ‘বেনিয়ম দেখে পর্ষদ চুপ করে থাকতে পারে না। বেসরকারি যে যে কলেজে আমরা দুর্নীতির খোঁজ পেয়েছি, আইন অনুযায়ী সেগুলির অনুমোদন বাতিল হবে।’ তিন বছর অন্তর বেসরকারি কলেজগুলিকে পর্ষদ থেকে অনুমোদন নিতে হয়। অনুমতি লাগে ন্যাশনাল কাউন্সিল ফর টিচার এডুকেশনেরও। সেক্ষেত্রে পরিদর্শন বাধ্যতামূলক। কিন্তু বহু কলেজ সে সব ছাড়াই অনুমোদন পেয়েছে বলে প্রমাণ হাতে এসেছে পর্ষদের।
নিয়ম অনুযায়ী, স্কুল শিক্ষকের চাকরি পেতে প্রশিক্ষণ থাকা বাধ্যতামূলক। প্রাথমিকে নিয়োগের ন্যূনতম যোগ্যতা ‘ডিপ্লোমা ইন এলিমেন্টারি এডুকেশন’ (ডিএলএড)। বিএড থাকলে প্রাথমিক থেকে উচ্চমাধ্যমিক পর্যন্ত সব স্তরে শিক্ষক পদের জন্য আবেদন জানানো যায়। প্রশিক্ষণ বাধ্যতামূলক হওয়ার পর গত কয়েক বছরে রাজ্যে গজিয়ে উঠেছে প্রচুর বেসরকারি বিএড এবং ডিএলএড কলেজ। প্রাক্তন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় ও পর্ষদের প্রাক্তন সভাপতি মানিক ভট্টাচার্যের আমলেই বেনিয়ম হয়েছে বলে অভিযোগ। ইতিমধ্যেই গ্রেপ্তার করা হয়েছে দু’জনকে। সেই কলঙ্ক থেকে মুক্তি পেতে সচেষ্ট পর্ষদের বর্তমান কর্তারা। তাই বেনিয়ম দেখলেই ডিএলএড কলেজগুলির বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। 
ডিএলএড কোর্সটি দু’ বছরের। উচ্চমাধ্যমিক বা সমতুল পরীক্ষায় ৫০ শতাংশ নম্বর থাকলে এটি করা যায়। ভর্তির সর্বোচ্চ বয়স ৩৫ বছর। মেধা তালিকা অনুযায়ী ভর্তি প্রক্রিয়া চলার কথা। কিন্তু তা হয় না। নিয়োগ সংক্রান্ত মামলায় আদালতে পেশ করা রিমান্ড পেপারে একথা জানিয়েছিল ইডি। তাতে ৫৩০টি বেসরকারি ডিএলএড কলেজে দুর্নীতির হদিশ পাওয়া যায়। রাজ্যের অধীন স্বশাসিত সংস্থা পর্ষদও বহু বেনিয়ম ধরে ফেলেছে। এই কারণে অভিযুক্ত কলেজগুলির অনুমোদন আটকে দিয়েছে তারা। ডিএলএডের পরীক্ষা আগে হতো নিজেদের প্রতিষ্ঠানে। এবার সেই নিয়ম বদলে প্রায় ৪৬ হাজার প্রার্থীর ‘সিট’ পড়েছে শুধু সরকারি স্কুল বা কলেজে। বুধবারই শেষ হয়েছে পরীক্ষা। ফল প্রকাশের পর ২০১৪ ও ’১৭ সালে টেট উত্তীর্ণদের ইন্টারভিউ নেবে পর্ষদ। 

1st     December,   2022
 
 
কলকাতা
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ