বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
রাজ্য
 

আলিপুর জেল মিউজিয়াম পরিদর্শন
করলেন রাজ্যের মন্ত্রী ও বিধায়করা
দীর্ঘ কারাবাসের স্মৃতিরোমন্থন মনোরঞ্জন ব্যাপারীর

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: জরুরি অবস্থার সময় গণ আন্দোলনে যোগ দিয়ে যুবা বয়সে আলিপুর সেন্ট্রাল জেলের মধ্যে ২৬টি মাস কাটিয়েছিলেন তিনি। ভারতীয় দণ্ডবিধির বেশ কয়েকটি ধারায় অভিযুক্ত হয়ে জেলের যে ৬ নম্বর ওয়ার্ডে সেইসময় দিন-রাত কাটত তাঁর, বুধবার বিকেলে তারই সামনে দাঁড়িয়ে পুরনো স্মৃতি রোমন্থন করছিলেন বলাগড়ের তৃণমূল বিধায়ক ও সাহিত্যিক মনোরঞ্জন ব্যাপারী। এদিন বিধানসভার শীতকালীন অধিবেশন শেষ হওয়ার পর মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে বিধায়কদের আলিপুর জেল মিউজিয়াম পরিদর্শনের ব্যবস্থা করা হয়। ফের জেল ঘুরে দেখার সুযোগ হাতছাড়া করেননি মনোরজ্ঞনবাবু।  
১৯৭৭ সালে জেল থেকে বেরনোর পর বহুবছর কেটে গেলেও জেলের স্মৃতি এখনও পুরোপুরি মনে রেখে দিয়েছেন মনোরঞ্জনবাবু। জেল চত্বরে সবুজ ঘাসে ভরা বাগানে দাঁড়িয়ে একটি নিমগাছের খোঁজ করেন তিনি। সেটির খোঁজ পেয়ে নিশ্চিত হলেন যে সেখানেই টেবিল-চেয়ার পেতে জেল কর্তৃপক্ষ ‘বিচারশালা’ বসাত। জেলের মধ্যে কোনও গোলমাল-গণ্ডগোল বাধানোর অপরাধে হাতে-পায়ে ডান্ডা-বেড়ি, শিকল পরানো বা সেলবন্দি করার শাস্তি ঘোষণা হতো সেখানে। এরকম শাস্তি অবশ্য তাঁকে কখনও পেতে হয়নি। তবে জেলের জীবন খুবই কষ্টের ছিল মনোরঞ্জনবাবুর। খুবই নিম্নমানের খাবার দেওয়া হতো। পড়াশোনা-লেখালিখির কাজ করেই সময় কাটাতেন জেলকক্ষে। অসীম চট্টোপাধ্যায়, কানু স্যানালের মতো নকশাল নেতারাও তখন বন্দি ছিলেন এই জেলে। তাঁদের সঙ্গে সময় কাটানোর স্মৃতি এখনও মনে রয়ে গিয়েছে মনোরঞ্জনবাবুর। 
বিধানসভা ভবন থেকে আলিপুর জেল মিউজিয়ামে যাওয়ার জন্য গোটা পাঁচেক সরকারি এসি বাসের ব্যবস্থা করা হয়। বিজেপি বিধায়করা ‘বয়কট’ করলেও গিয়েছিলেন আইএসএফ বিধায়ক নৌশাদ সিদ্দিকি। জেল মিউজিয়াম দেখার সুযোগ দেওয়া পান বিধানসভার কর্মীরাও। কয়েকজন মন্ত্রী-বিধায়ক ব্যক্তিগত গাড়িতেও সেখানে পৌঁছন। 
বিধায়কদের পরিদর্শনের বিষয়টির তদারকির দায়িত্বে ছিলেন পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম। সরকারি সংস্থা হিডকো এই মিউজিয়াম নির্মাণ ও রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্বে। অধ্যক্ষ বিমান বন্দ্যোপাধ্যায় এবং আরও কয়েকজন মন্ত্রী জেল পরিদর্শন করেন। এঁদের মধ্যে ছিলেন পরিষদীয় মন্ত্রী শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়, ক্ষুদ্রশিল্প মন্ত্রী চন্দ্রনাথ সিনহা, প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ, কৃষিবিপণন মন্ত্রী বেচারাম মান্না প্রমুখ। প্রবীণ মন্ত্রী ও বিধায়কদের কয়েকজন ব্যাটারি চালিত গাড়ি চেপে জেল চত্বর ঘুরে দেখেন। কিছুক্ষণ ঘোরার পর কয়েকজনকে বেঞ্চে বসে বিশ্রাম নিতে দেখা যায়। কিন্তু ৭৫ বছর বয়সি শোভনদেববাবু হেঁটেই ঘুরে দেখেন পুরো জেল। জেল পরিদর্শনে প্রথমবার এসে উৎসাহ নিয়ে দেখেন ফাঁসির মঞ্চ থেকে শুরু করে নেতাজি-নেহরুর সেলসহ অনেক কিছুই। জেল মিউজিয়ামের কফি হাউসে চা, জলখাবারেরও ব্যবস্থা ছিল। 

1st     December,   2022
 
 
কলকাতা
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ