বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
সিনেমা
 

নাটকের আলোচনা: আবার গর্জে উঠুক

• কান পেতে শুনুন। চারদিকে ঢক্কানিনাদ। দেশ স্বাধীন হয়েছে বিনা রক্তপাতে, অহিংস সংগ্রামের দৌলতে। দেশ নাকি স্বাধীন হয়েছে খদ্দর পরার ফলে, আমরা একমনে চরকা কেটেছি বলে!
সত্যিই কি বিনা রক্তপাতে স্বাধীনতা এসেছে অহিংসার পথ ধরে? এত মৃত্যু, এত রক্ত সব মিথ্যে?  শাসকদের নিজেদের জয়ধ্বজা উড়িয়ে ক্ষমতার ঢক্কানিনাদ করাই কালের নীতি। এই ক্ষমতা অর্জনের পশ্চাতে কত মানুষের সংগ্রাম, কত প্রাণের বিনিময় সব ম্লান হয়ে যায়  ক্ষমতা মুষ্টিগত হওয়ার পর। রাজনৈতিক ক্ষমতা চরিতার্থ করতে কালোকে সাদা, সাদাকে কালো বলতে ঠোঁট কাঁপে না রাজনীতির কারবারিদের। ক্ষমতার আসন ধরে রাখতে ভিন্ন মতাদর্শে দীক্ষিত সন্তানকে ত্যাগ করতে এক মিনিটও সময় নেয় না ক্ষমতালোভীরা। এটাই রাজনীতি। 
১৯৪৭-এর স্বাধীনতা কি সত্যি স্বাধীনতা? মানতে পারেননি বামপন্থী মনোভাবাপন্ন অভিনেতা উৎপল দত্ত। তাঁর মনে হয়েছিল দেশ স্বাধীন নয়, হয়েছিল ক্ষমতার হস্তান্তর। ৩০-৪০ দশকের সময়কালে লেখা তাঁর ‘রাইফেল’ নাটকে ধরা পড়ে গান্ধীবাদী মতাদর্শের সঙ্গে বিপ্লবীদের মতাদর্শের দ্বন্দ্ব। সম্প্রতি রবীন্দ্র সদনে সাউথ কলকাতা স্রাইনের প্রযোজনায় মঞ্চস্থ হল সেই  নাটক। 
ঘটনাস্থল বহরমপুর। স্বাধীনতার মন্ত্রে বিপ্লবীরা একজোট হয়ে সাম্রাজ্যবাদী ব্রিটিশ শাসকের বিরুদ্ধে আন্দোলন গড়ে তুলছে। থানায় থানায় আক্রমণ,  পুলিস হত্যা, লড়াইয়ের জন্য অস্ত্র সংগ্রহের  জোরদার অভিযান। দলের নেতা অবিনাশ (দেবরূপ সেন)। তার  সহযোগী কল্যাণ ঘোষ (সৃজিত বসু)। কংগ্রেস সভাপতি ভবনী ঘোষের পুত্র। অবিনাশ, কল্যাণের নেতৃত্বে তরুণ তরুণীরা যোগ দিচ্ছে বিপ্লবী দলে। বিপ্লবীদের নিয়ে বিভ্রান্ত ব্রিটিশ পুলিস। কোনও ভাবেই এদের সন্ধান পাওয়া যাচ্ছে না। ব্রিটিশ রাজের তাঁবেদার রায় বাহাদুর যুগল চৌধুরীর (দেবাশীষ মুখোপাধ্যায়) সহায়তায় তাদের তল্লাশির  একটা দিশা খুঁজে পায় পুলিস। দলের সদস্য লোভী বীরেন (পিকন ঘোষ) অর্থের বিনিময়ে ব্রিটিশ পুলিসের ইনফর্মার হয়ে ওঠে। বিশ্বাসঘাতক বীরেনের বদান্যতায় একদিন বিপ্লবীদের সব স্বপ্ন শেষ হয়ে যায়। 
দেবরূপ সেন, সৃজিত বসু, স্বাগতা সেন, দেবাশীষ মুখোপাধ্যায়, ধ্রুব মুখোপাধ্যায়, আনন্দ বসু, অমিত ভট্টাচার্যর অভিনয় এই নাটকের সম্পদ। বিশেষ নজর কাড়ে সৌদামিনীর চরিত্রে তৃষা চক্রবর্তীর অভিনয়। নাটকের সম্পাদনা ও নির্দেশনা অভিনেতা নির্দেশক অমিত ভট্টাচার্যের। আলোর দায়িত্বে ছিলেন বাবলু সরকার। আবহ করেছিলেন ত্রিদিবেশ স্যানাল। মঞ্চ ভাবনার ভার ছিল নীল কৌশিকের। সকলের সমবেত প্রয়াসে পরিপূর্ণ হয়ে ওঠে এই নাটক। 
তাপস কাঁড়ার 

9th     February,   2024
কলকাতা
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ