বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
উত্তরবঙ্গ
 

শ্রীকৃষ্ণপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষক একজন, পড়ুয়া ৬৪, লাটে পড়াশোনা

সংবাদদাতা, গাজোল: একের মাথায় ৬৪ জনের ভার! প্রথমে মিড ডে মিলের বাজার। তারপর স্কুলে ঢুকে রান্নার ব্যবস্থা করা। একে একে শ্রেণিকক্ষ খোলার পর পড়ানোর কথা আর ভাবার উপায় থাকে না  ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের।  চারটি ক্লাসের ৬৪ জন পড়ুয়াকে তিনি একা কীভাবে পড়াবেন? এভাবেই দু’বছর চলছে হবিবপুর ব্লকের শ্রীকৃষ্ণপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়। শিক্ষকের অভাবে পড়ুয়াদের পড়াশোনা লাটে উঠেছে। গ্রামবাসীও সন্তানদের ভবিষ্যত নিয়ে চিন্তিত। তাঁদের অভিযোগ, স্কুলে এসে পড়ুয়ারা কিছুই শিখতে পারছে না। শিক্ষকের অভাবে বেঞ্চে বসে থেকে তারা সময় কাটিয়ে মিড ডে মিল খেয়ে বাড়ি ফিরছে। 
হবিবপুরের আইহো সার্কেলের অবর বিদ্যালয় পরিদর্শক সম্পদ পাল বলেন, ওই স্কুলে শিক্ষকের সমস্যা রয়েছে। বিষয়টি আমরা জানি। স্কুলের তরফেও আমাদের জানানো হয়েছে। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে সব বলেছি। দ্রুত স্কুলের শিক্ষকের সমস্যা মেটানো হবে। শ্রীকৃষ্ণপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল ১৯৭০ সালে। প্রাক প্রাথমিক থেকে চতুর্থ শ্রেণি পর্যন্ত পঠনপাঠন হয়। বর্তমানে পড়ুয়ার সংখ্যা ৬৪ জন। কিন্ত মাত্র একজন শিক্ষক রয়েছেন। ২০১৭ সালে স্কুলে শিক্ষকের অভাব ছিল না। তখন চার জন শিক্ষক ছিলেন। ২০২১ সালে এক পার্শ্বশিক্ষক অন্যত্র চাকরি পেয়ে চলে যান। ওই বছর আরও এক শিক্ষক বদলি হয়ে যান। গত দু’বছর দু’জন শিক্ষক দিয়েই স্কুল চলছিল। গত অক্টোবরে ওই স্কুলের প্রধান শিক্ষক তপন কুমার সিংহ অবসর নেন। তারপর থেকে একজন শিক্ষক দিয়েই স্কুল চলছে। স্কুলের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক কর্ণ সাহা বলেন, আমার এবিষয়ে কোনও বক্তব্য নেই। যেটুকু পারছি, সাধ্য অনুযায়ী সবার ক্লাস নিচ্ছি। সার্কেলে শিক্ষক চেয়েছি। আগামী দিনে তারা দেবে বলে জানিয়েছে। মঙ্গলবার স্কুলে গিয়ে দেখা গেল একদল পড়ুয়া শিক্ষক ছাড়াই বসে পড়াশোনা করছে। তাদের মধ্যে চতুর্থ শ্রেণির পড়ুয়া কনিকা কিস্কু, সঙ্গীতা মার্ডির কথায়, আমরা এভাবেই পড়াশোনা করি। আমাদের পড়িয়ে স্যার অন্য ক্লাসে পড়াতে যান। তখন আমরা লিখি। আবার স্যার এসে সেগুলি দেখে অন্যকিছু পড়িয়ে লিখতে দেন।
শ্রীরামপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের উপপ্রধান স্বরমণি হাঁসদা বলেন, ওই স্কুল আমাদের গ্রামের মধ্যেই পড়ে। এখানে শিক্ষকের অভাব থাকায় সমস্যায় পড়েছে পড়ুয়ারা। আমরা আইহো সার্কেলে বিষয়টি জানাইনি। আগামী দিনে গ্রামের পড়ুয়াদের স্বার্থে একটা চিঠি দেব।

6th     December,   2023
 
 
কলকাতা
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ