Bartaman Patrika
হ য ব র ল
 

‘চিন্তার জগৎকে বড় করে পৃথিবীটা বদলে দিন...’ 

আর্নল্ড শোয়ার্জেনেগারকে পৃথিবী চেনে ‘টার্মিনেটর’ হিসেবে। তিনি একজন অভিনেতা, পেশাদার বডিবিল্ডার। রাজনীতিও করেছেন। ছিলেন ক্যালিফোর্নিয়ার গভর্নর। এসব পরিচয় ছাপিয়েও তরুণদের কাছে তিনি একজন অনুপ্রেরণাদায়ী বক্তা। সম্প্রতি স্পিকোলা ডটকম-এ প্রকাশিত হয় অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতে দেওয়া তাঁর এক বক্তৃতা। সেই বক্তৃতা তোমাদের জন্য তুলে দিলেন মৃণালকান্তি দাস।

মানুষ আমার কাছে সব সময় জানতে চায়,  সাফল্যের সূত্র কী?  আমি সব সময় বলি,  আপনার ২২ ইঞ্চি চওড়া বাইসেপ থাকতে হবে। এটা অবশ্য সাফল্যের সূত্রের সংক্ষিপ্ত সংস্করণ। সঙ্গে এটাও বলি, খালি হাতে শত্রুকে খতম করার হিম্মত থাকতে হবে আপনার এবং অবশ্যই শ্রুতিমধুর অস্ট্রিয়ান ধাঁচের উচ্চারণে কথা বলতে হবে। এই হল আমার পরামর্শ। আর সাফল্যের সূত্রের দীর্ঘ সংস্করণটি হল, আমি সব সময় পাঁচটি নিয়ম মেনে চলেছি। আপনাকে বডিবিল্ডিং চ্যাম্পিয়ন হতে হবে না। অ্যাকশন হিরো বা তেমন কিছু হওয়ার চেষ্টা না করলেও চলবে। যা-ই করুন না কেন,  তাতে যদি সবচেয়ে ভালো করতে চান, তাহলে এই নিয়মগুলো আপনার জন্যই।
আমার প্রথম নিয়ম হল, লক্ষ্য খুঁজে বের করুন এবং তার পিছনে লেগে থাকুন। উদ্দেশ্য না থাকলে, লক্ষ্যহীন হলে আপনি শুধু ভাসতে থাকবেন এবং সুখের মুখ দেখবেন না কোনও দিন। আমি বেড়ে উঠেছি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর। সে যুদ্ধে জার্মানির সঙ্গে অস্ট্রিয়াও পরাজিত হয়েছিল। সে সময় হতাশা ছিল, অর্থনৈতিক পরিস্থিতি ছিল ভয়ানক। আমি তা থেকে রেহাই চেয়েছিলাম,  খুঁজছিলাম পালানোর পথ। ভাগ্য ভালো, একদিন স্কুলে আমেরিকা নিয়ে একটি তথ্যচিত্র দেখলাম। আমি জানতাম, ওই আমেরিকাই আমার গন্তব্য। প্রশ্ন ছিল, কী করে আমেরিকায় যাব?
একদিন কপালগুণে বডিবিল্ডিং বিষয়ক একটি ম্যাগাজিন চোখে পড়ল। প্রচ্ছদে ছিল দারুণ পেশিবহুল এক লোকের ছবি। তাঁর নাম ছিল রেগ পার্ক। মিস্টার ইউনিভার্স থেকে যিনি হয়ে উঠেছিলেন হারকিউলিসখ্যাত তারকা। লেখাটি রীতিমতো গোগ্রাসে গিলে ফেললাম। জানলাম, ইংল্যান্ডের লিডসে ভীষণ দারিদ্র্যের সঙ্গে কতটা লড়াই করে বেড়ে উঠেছিলেন তিনি এবং শরীর গঠনের জন্য কীভাবে দিনে পাঁচ ঘণ্টা খাটতেন। রোজ নিজেকে ঝালিয়ে নিতেন। ঝালাতেই থাকতেন... ঝালাতেই থাকতেন। ফলে শেষে তাঁর নামের আগে যুক্ত হল মিস্টার গ্রেট ব্রিটেন।
তারপর মিস্টার ইউনিভার্স। তারপর দ্বিতীয়বারের মতো মিস্টার ইউনিভার্স এবং তৃতীয় খেতাবটিও জিতে নিলেন। তারপর হঠাৎ একদিন ইতালির রোমে পা রাখলেন। ইউরোপের সবচেয়ে বড় স্টুডিও সিনেসিতায় গিয়ে অভিনয় করলেন হারকিউলিস ছবিতে। তাঁর কথা যত পড়লাম, ততই আমার লক্ষ্য স্পষ্ট হল। তখন থেকে ঠিক করলাম, যত পরিশ্রমই করতে হোক না কেন, যত যুদ্ধই করতে হোক না কেন, তা আমি করব। কোনও কিছুই তখন বাধা নয়। কারণ, ততক্ষণে জেনে গিয়েছি আমার লক্ষ্য কী, ভালো লাগাটাই বা কী। তাই সব সময় লক্ষ্য খুঁজে বের করুন,  বাকিটা হল লেগে থাকা।
দ্বিতীয় নিয়ম হল। নিজেকে কখনও ছোট ভাববেন না। আপনাকে পথ পাড়ি দিতে হবে লক্ষ্য অর্জনের জন্য। আমি শুধু ছবিতে অভিনয় করার কথাই ভাবিনি, আমি শুধু মুভি স্টার হতে চাইনি। আমি ছবির নামের চেয়েও বড় কিছু হতে চেয়েছি। আমি আসলে জন ওয়েইন (জনপ্রিয় মার্কিন অভিনয়শিল্পী) হতে চেয়েছি। এতে ভুলটা কোথায়? কখনওই নিজেকে ছোট ভাববেন না, বিশাল ভাবুন।
তৃতীয় নিয়মটি হল, নিন্দুকদের থোড়াই কেয়ার করুন। এটা খুবই স্বাভাবিক, আপনার লক্ষ্য যখন বিশাল, স্বপ্ন আকাশছোঁয়ার এবং উদ্দেশ্য বৃহৎ, তখন পাছে লোকে কিছু বলবেই। তারা বলবে, এ তো অসম্ভব। আমার বয়স যখন ১৫ এবং যখন আমি বডিবিল্ডার হয়ে উঠলাম, তখন থেকেই এর শুরু। বডিবিল্ডার হওয়ার পর বললাম, আমি বিশ্বচ্যাম্পিয়ন হতে চাই, আমি মিস্টার ইউনিভার্স হতে চাই। আমার কথা মাটিতে পড়তে না পড়তেই নিন্দুকরা বলতে শুরু করল, মাথা ঠিক আছে? বডিবিল্ডিং হল আমেরিকান খেলা। যত সব পাগলের প্রলাপ,  ওসব ভুলে যাও। তারপর আমি বডিবিল্ডিংয়ে ১৩ বার বিশ্বচ্যাম্পিয়ন হলাম। তখন চাইলাম,  বিনোদনের ময়দানে কিছু করব। সবাইকে বলে বেড়ালাম, আমি রেগ পার্কের মতো হতে চাই। আমি চাই  ‘হারকিউলিস’ হতে। আর ছবিতে নাম লেখাতে।
আমি যখন এজেন্ট আর ম্যানেজারদের সঙ্গে কথা বললাম, তখন তাদের প্রতিক্রিয়া ছিল এ রকম: ওহ্ আর্নল্ড,  তোমার কথা বড় হাস্যকর শোনাচ্ছে! তুমি এই লাইনে সেরা হতে চাইছ? প্রথমে তোমার দেহটার দিকে তাকাও। তুমি তো অতিকায়, রীতিমতো দৈত্য! তোমার উচ্চারণও তো জঘন্য। জীবনে কোনও ছবি দেখেছ, যেখানে তারকারা জার্মান উচ্চারণে কথা বলে? তুমি এবার আসতে পারো। হবে না। সব ভুলে যাও। তোমার নামটা যেন কী?  শোয়ার্টজেন,  শ্নিটজেল বা এ রকম কিছু তো?  দর্শক যখন শুনবে শোয়ার্টজেন-শ্নিটজেল নামের এক লোক ছবিতে অভিনয় করছে, তখন তো সিনেমা হলে তুলকালাম বাধাবে!
এখনও দৃশ্যগুলো চোখে ভাসে। কল্পনা করুন, যেখানে যাই, সেখানেই লোকজন বলে, তোমাকে দিয়ে হবে না। সব ভুলে যাও। ভাগ্যিস, আমি ওসব কানে তুলিনি। আমি অভিনয়ের ক্লাসে ভর্তি হলাম, ইংরেজি শিখতে শুরু করলাম, এমনকি আমার উচ্চারণ ভুলে যাওয়ার ক্লাসও করলাম। সারা দিন বিড়বিড় করতে লাগলাম, ‘আ ফাইন ওয়াইন গ্রোজ অন আ ভাইন।’
একদিন দুম করে একটা সুযোগ পেয়ে গেলাম আমি। সুযোগ হল টেলিভিশন শোতে অংশ নেওয়ার। ছোট্ট একটা পার্ট,  তারপর আরও একটি ছোট পার্ট। তারপর নাম হল পাম্পিং আয়রন আর স্টে হাংরি ছবিতে কাজ করে। অবশেষে বড় পরিসরে নাম ফাটল কোনান দ্য বারবারিয়ান ছবিতে অভিনয়ের মধ্য দিয়ে। সবচেয়ে মজার ব্যাপার হল,  সাংবাদিক সম্মেলনে এর পরিচালক অকপটে স্বীকার করলেন, ‘পেশিবহুল শোয়ার্জেনেগারকে না পেলে অন্য কাউকে নিয়ে ওর মতো পেশি বানিয়ে নিতে হতো।’  টার্মিনেটর ছবিতে অভিনয় করার পর জেমস ক্যামেরন বললেন, এই ছবির  ‘আই উইল বি ব্যাক’  সংলাপটি সিনেমার ইতিহাসে বিখ্যাত হয়েছে শোয়ার্জেনেগারের অদ্ভুত উচ্চারণের কারণে। ও সংলাপটি উচ্চারণ করেছিল একদম যন্ত্রের মতো! বুঝতেই পারছেন,  নিন্দুকেরা যেসব নিয়ে নিন্দা করেছিল,  সেসবই কেমন মূলধন হয়ে উঠল। উন্নাসিক নিন্দুকদের ছায়াও মাড়াবেন না।
আমার চতুর্থ নিয়ম হল,  চোখ-কান বুজে কাজ করুন। আপনি কখনওই ব্যর্থ হতে চাইবেন না, যখন আপনি কঠোর পরিশ্রম করবেন। আপনি কোন পেশায় কী কাজ করছেন, তা কোনও ব্যাপারই নয়। নো পেইন,  নো গেইন। শুনুন, আমি আমেরিকায় যাওয়ার পর দিনে পাঁচ ঘণ্টা প্রশিক্ষণ নিতাম। একটা নির্মাণ-ব্যবসা চালাতাম। রাজমিস্ত্রির কাজ করতাম। আবার কলেজেও যেতাম। অভিনয়ের ক্লাসে ঢুকতাম রাত ৮টায়। ছুটি হতো রাত ১২টায়। কাজগুলো চালিয়ে যেতাম প্রতিদিন। তাই চোখ-কান বুজে কাজ করুন। সব সময় বিশ্বাস করে এসেছি, কোন পেশায় আছেন সেটা বড় কথা নয়—পরিশ্রম করুন, পরিশ্রম করুন, পরিশ্রম করুন।
আমার পঞ্চম এবং শেষ নিয়মটি হল,  শুধু নেওয়া নয়, কিছু দিতেও শিখুন। যে আয়নায় শুধু আপনাকেই দেখায়, তা ভেঙে ফেলুন। তা করতে পারলে আয়নার ওপাশেও নজর রাখতে পারবেন। দেখতে পাবেন, লাখ লাখ মানুষ আপনার সহযোগিতার অপেক্ষায় আছে। এ কারণে আমি কিছু দেওয়ার সুযোগ পেলে লুফে নিই। আমি স্পেশাল অলিম্পিকে অংশগ্রহণকারীদের প্রশিক্ষণ দিয়েছি। মাদক,  গ্যাং আর মারামারিতে মত্ত শিশু-কিশোরদের নিয়ে কাজ করেছি। আমরা চাইলেই সমাজ কিংবা আশপাশের স্কুল নিয়েও কাজ করতে পারি। কারণ,  দিনের শেষে এর দায় তো আমাদের কাঁধেই বর্তায়। লক্ষ্য ঠিক করুন। চিন্তার জগৎ বড় করুন। নিন্দুকদের এড়িয়ে চলুন। চোখ-কান বুজে কাজ করুন এবং দিতে শিখুন। পৃথিবীটা বদলে দিন।

ছবি: সংশ্লিষ্ট সংস্থার সৌজন্যে 
24th  November, 2019
সারা বাংলা অঙ্কন প্রতিযোগিতার আয়োজন
করেছে ইনস্টিটিউট অব ফিজিক্যাল কালচার 

আজ তোমাদের একটা ভালো খবর দিই। তোমরা যারা ছবি আঁকতে ভালোবাসো তাদের কথা মাথায় রেখে সারা বাংলা অঙ্কন প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছে ইনস্টিটিউট অব ফিজিক্যাল কালচার। আগামী ১৫ ডিসেম্বর সংস্থার নির্দিষ্ট জায়গায় এই বিশেষ প্রতিযোগিতাটি হবে। 
বিশদ

24th  November, 2019
মার্কশিট

তোমাদের জন্য শুরু হয়েছে নতুন বিভাগ। এই বিভাগে থাকছে পরীক্ষায় নম্বর বাড়ানোর সুলুক সন্ধান। এবারের বিষয় ইংরেজি।
  বিশদ

24th  November, 2019
নোলকপুরের গোলকরাজা
প্রদীপ আচার্য

নোলকপুরের রাজার কান্না আর থামছে না। দিনরাত ভেউ ভেউ করে কেঁদেই চলেছে। ঘুম থেকে উঠেই রাজা কাঁদতে শুরু করে। আবার কাঁদতে কাঁদতেই ঘুমিয়ে পড়ে। তারই ফাঁকে ব্রেকফাস্টে গোটা দুয়েক আস্ত চিকেন রোস্ট, দিস্তা দিস্তা বাটার টোস্ট, কাটলেট, ওমলেট ভরপেট খাচ্ছে। 
বিশদ

24th  November, 2019
গোলাপি বিপ্লবের সন্ধিক্ষণে ইডেন

ছোট্টবন্ধুরা! তোমরা যারা ক্রিকেট খেলা দেখতে ভালোবাসো, বা যারা ক্রিকেটের খোঁজখবর একটু আধটু রাখো, তারা নিশ্চয়ই ইডেনে দিন-রাতের টেস্ট ম্যাচ হওয়ার খবর জানো। ভারত তাদের প্রথম দিন-রাতের টেস্ট ম্যাচটি খেলতে নামছে ২২ নভেম্বর, বাংলাদেশের বিরুদ্ধে। 
বিশদ

17th  November, 2019
অরণ্যে অ্যাডভেঞ্চার

গা ছমছমে গহিন অরণ্য। দূর থেকে শোনা যাচ্ছে জলপ্রপাতের গর্জন। পথে বন্য পশুর ভয়। কোথাও ভয়ঙ্কর নদী পেরতে হবে। এমনই কয়েকটি অরণ্যের কথা তোমাদের শুনিয়েছেন সায়ন নস্কর। 
বিশদ

17th  November, 2019
ছোটদের রান্নাঘর 

তোমাদের জন্য চলছে একটি আকর্ষণীয় বিভাগ ছোটদের রান্নাঘর। এই বিভাগ পড়ে তোমরা নিজেরাই তৈরি করে ফেলতে পারবে লোভনীয় খাবারদাবার। বাবা-মাকেও চিন্তায় পড়তে হবে না। কারণ আগুনের সাহায্য ছাড়া তৈরি করা যায় এমন রেসিপিই থাকবে তোমাদের জন্য। এবার সেরকমই দুটি জিভে জল আনা রেসিপি দিয়েছেন দ্য পার্কিং লট রেস্তোরাঁর এক্সিকিউটিভ শেফ সুমিত রঘুবংশী। 
বিশদ

10th  November, 2019
জওহরলাল নেহরুর ছেলেবেলা 

আমাদের এই দেশকে গড়ে তোলার জন্য অনেকে অনেকভাবে স্বার্থত্যাগ করে এগিয়ে এসেছিলেন। এই কলমে জানতে পারবে সেরকমই মহান মানুষদের ছেলেবেলার কথা। এবার পণ্ডিত জওহরলাল নেহরু। লিখেছেন চকিতা চট্টোপাধ্যায়। 
বিশদ

10th  November, 2019
ছোটদের ভালোবাসতেন চাচা নেহেরু 

স্বাধীন ভারতের প্রথম প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহরু। শিশুদের কাছে তিনি চাচা নেহরু হিসেবে বেশি জনপ্রিয়। নেহরু ছোটদের খুব ভালোবাসতেন বলে তাঁর জন্মদিনটি অর্থাৎ ১৪ নভেম্বর দেশজুড়ে শিশুদিবস পালিত হয়। প্রিয় চাচা নেহরুকে নিয়ে লিখেছে বিভিন্ন স্কুলের ছাত্রছাত্রীরা।  
বিশদ

10th  November, 2019
মার্কশিট 

তোমাদের জন্য চলছে নতুন বিভাগ। এই বিভাগে থাকছে পরীক্ষায় নম্বর বাড়ানোর সুলুক সন্ধান। এবারের বিষয় বাংলা।
 
বিশদ

03rd  November, 2019
সে কি সত্যি হবে! 
আয়ূষী বন্দ্যোপাধ্যায়

পাইন আর দেওদার গাছের মধ্যে পাখির বাসা থাকে কি না তা ঠিক জানা নেই, তবে এক মিষ্টি পাখির কূজন কানে ভেসে আসে রোজই। গতকাল রাতে অমন ঝড়, বৃষ্টি, দম্ভোলি হয়েছে কে বলবে? ভোরের প্রভাকরের প্রকীর্ণ আভা যেন দুর্যোগকে নিশ্চিহ্ন করেছে। ঈশ্বরের দেশে সবই তো তাঁর লীলাখেলা, সেখানে যে নেই কোনও মোহ, মায়া, মাৎসর্য। শুধুই আছে মনকে দয়ার্দ্র করে তোলার পরিপূর্ণ রসদ। 
বিশদ

03rd  November, 2019
পুজোর ছুটি 

পুজোর ছুটিতে কে কী করবে তার পরিকল্পনা অনেক আগেই সেরে ফেলে ছোটরা। সেই তালিকায় ঠাকুর দেখা, খাওয়া-দাওয়া, বন্ধুদের সঙ্গে গল্পগুজব, মামার বাড়ি যাওয়া, বেড়ানো, গল্পের বই পড়া, খেলাধুলো সবই থাকে। এবারের পুজোর ছুটি কার কেমন কাটাল তোমাদের শোনাচ্ছে বৈঁচি বিহারীলাল মুখার্জি’স ফ্রি ইনস্টিটিউশনের ছাত্র-ছাত্রীরা। 
বিশদ

03rd  November, 2019
 আলোর উৎসব
কা লী পু জো

 রং-বেরঙের আলো দিয়ে বাড়ি সাজানো, তুবড়ি, হাউই আর রংমশালের আলোর ছটা, মিষ্টিমুখ, রাত জেগে পুজো দেখা... এমনভাবেই কেটে যায় কালীপুজোর দিনটা। জানাল বিভিন্ন স্কুলের ছেলেমেয়েরা। বিশদ

27th  October, 2019
 ভগিনী নিবেদিতা

 আমাদের এই দেশকে গড়ে তোলার জন্য অনেকে অনেকভাবে স্বার্থত্যাগ করে এগিয়ে এসেছিলেন। এই কলমে জানতে পারবে সেরকমই মহান মানুষদের ছেলেবেলার কথা। এবার ভগিনী নিবেদিতা। লিখেছেন চকিতা চট্টোপাধ্যায়। বিশদ

27th  October, 2019
হ্যালোইন নাকি ভূত উৎসব

কার কতটা ভূতের ভয় তা আমার জানা নেই, আমার কিন্তু খুবই ভূতের ভয়, তাই রাতে আমি একা একা ঘরে শুতে পারি না, চোখ বুঝলেই ভূশুণ্ডির মাঠ থেকে হাজার হাজার ভূত উড়ে এসে আমাকে ঘিরে ধরে, কেউ আমার পা ধরে টানে কেউ বা আবার কাতুকুতু দিয়ে আমাকে নাজেহাল করে ছাড়ে, সে সব দুঃখের কথা আজ নয় ছেড়েই দিলাম। তাই ভূত নিয়ে কিছু লিখতে গেলে আমার হাত-পা ঠান্ডা হয়ে আসে, গায়ের লোম খাড়া হয়ে যায়। বিশদ

27th  October, 2019
একনজরে
বিএনএ, মেদিনীপুর: খড়্গপুরে এসে পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার উন্নয়নে ৩৬টি প্রকল্পের উদ্বোধন করবেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেইসঙ্গে ২৯টি নয়া প্রকল্পের শিলান্যাসও করবেন তিনি। বিধানসভা উপনির্বাচনে তৃণমূলের বিপুল সাফল্যে খড়্গপুরবাসীকে ধন্যবাদ জানাতে ৯ ডিসেম্বর আসছেন মুখ্যমন্ত্রী।  ...

হায়দরাবাদ, ৬ ডিসেম্বর (পিটিআই): হায়দরাবাদে তরুণী চিকিৎসককে গণধর্ষণ ও খুনের ঘটনায় শুক্রবার চার অভিযুক্তের মৃত্যু হল পুলিসি এনকাউন্টারে। যবনিকা পতন ঘটল এক বর্বরোচিত অপরাধের। একনজরে দেখে নেওয়া যাক, গত দশ দিনে কোন পথে এগিয়েছিল ঘটনাক্রম।  ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: সাইনি হুন্ডাইয়ের উদ্যোগে ২৯তম ফ্রি কার কেয়ার ক্লিনিকের আয়োজন করা হয়েছে। শুক্রবার থেকে সেই ক্লিনিক শুরু হয়েছে। তা চলবে ১৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত। ...

বিএনএ, মালদহ: উত্তর-পূর্ব ভারত থেকে বাংলাদেশে পাচার করা হচ্ছে মাদক ট্যাবলেট। আর সেই পাচারের রুট হিসেবে এখন দুষ্কৃতীদের পছন্দের তালিকায় উঠে এসেছে মালদহ সহ উত্তরবঙ্গের ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

মানসিক অস্থিরতা দেখা দেবে। বন্ধু-বান্ধবদের থেকে দূরত্ব বজায় রাখা দরকার। কর্মে একাধিক শুভ যোগাযোগ আসবে। ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮৭২: কলকাতায় প্রতিষ্ঠিত হল ন্যাশনাল থিয়েটার
১৯৪১: দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে পার্ল হারবারে বোমাবর্ষণ
১৯৮৪: বরুণ সেনগুপ্তের সম্পাদনায় আত্মপ্রকাশ করল ‘বর্তমান’  



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭০.৪৯ টাকা ৭২.১৯ টাকা
পাউন্ড ৯২.২০ টাকা ৯৫.৫৪ টাকা
ইউরো ৭৭.৭৫ টাকা ৮০.৭৪ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৮,৬৫০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৬,৬৭০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৭,২২০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৪,২৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৪,৩৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ৭ ডিসেম্বর ২০১৯, শনিবার, দশমী ১/৭ দিবা ৬/৩৪। রেবতী ৪৭/৫০ রাত্রি ১/২৮। সূ উ ৬/৭/৩৪, অ ৪/৪৮/২, অমৃতযোগ দিবা ৬/৫১ মধ্যে পুনঃ ৭/৩৩ গতে ৯/৪১ মধ্যে পুনঃ ১১/৪৯ গতে ২/৪০ মধ্যে পুনঃ ৩/২৩ গতে অস্তাবধি। রাত্রি ১২/৪৮ গতে ২/৩৫ মধ্যে, বারবেলা ৭/২৭ মধ্যে পুনঃ ১২/৪৭ গতে ২/৮ মধ্যে পুনঃ ৩/২৮ গতে অস্তাবধি, কালরাত্রি ৬/২৮ মধ্যে পুনঃ ৪/২৬ গতে উদয়াবধি। 
২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ৭ ডিসেম্বর ২০১৯, শনিবার, একাদশী ৬০/০/০ অহোরাত্র। রেবতী ৪৭/৫০/২৭ রাত্রি ১/১৭/৯, সূ উ ৬/৮/৫৮, অ ৪/৪৮/৩৬, অমৃতযোগ দিবা ৭/১ মধ্যে ও ৭/৪৩ গতে ৯/৫০ মধ্যে ও ১১/৫৭ গতে ২/৫২ মধ্যে ও ৩/২৭ গতে ৪/৪৯ মধ্যে এবং রাত্রি ১২/৫৬ গতে ২/৪৩ মধ্যে, কালবেলা ৭/২৮/৫৫ মধ্যে ও ৩/২৮/৩৮ গতে ৪/৪৮/৩৬ মধ্যে, কালরাত্রি ৬/২৮/৩৯ মধ্যে ও ৪/২৮/৫৬ গতে ৬/৯/৩৭ মধ্যে। 
৯ রবিয়স সানি

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
আজকের রাশিফল 
মেষ: কর্মে একাধিক শুভ যোগাযোগ আসবে। বৃষ: কর্মক্ষেত্রে সাফল্য আসবে। মিথুন: উপার্জন ভাগ্য ...বিশদ

07:11:04 PM

ইতিহাসে আজকের দিনে 
১৮৭২: কলকাতায় প্রতিষ্ঠিত হল ন্যাশনাল থিয়েটার১৯৪১: দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে পার্ল হারবারে ...বিশদ

07:03:20 PM

আলিপুরে ভেঙে পড়ল নির্মীয়মান বাড়ির একাংশ 
আলিপুর রোডে ভেঙে পড়ল নির্মীয়মাণ বহুতলের একাংশ। দুর্ঘটনায় এখনও পর্যন্ত ...বিশদ

05:05:00 PM

মালদহে মহিলার রহস্যমৃত্যুর ঘটনার তদন্তে অতিরিক্ত পুলিস সুপারকে ঘেরাও করে বিক্ষোভ বিজেপির 

03:51:00 PM

মালদা, বালুরঘাট, কোচবিহার বিমানবন্দর নবীকরণের উদ্যোগ নিয়েছে রাজ্য সরকার, জানালেন মুখ্যমন্ত্রী 
মালদা, বালুরঘাট, কোচবিহারের মতো অব্যবহৃত বিমানবন্দর ও বিমান স্ট্রিপগুলির নবীকরণের ...বিশদ

03:34:00 PM

একনজরে গতকালের ম্যাচের রেকর্ডগুলি 
গতকাল হায়দরাবাদে প্রথম টি-২০ ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে দারুণ জয় ...বিশদ

02:35:02 PM