দেশ

নয়া নিয়মে সুরাহা মধ্যবিত্তের, পেনশন ফান্ডের টাকা তোলা যাবে মাসের হিসেবেই

বাপ্পাদিত্য রায়চৌধুরী, কলকাতা: পিএফের পেনশন ফান্ডের টাকা তোলার নিয়মে আমূল পরিবর্তন আনল কেন্দ্র। যাঁরা চাকরির মেয়াদ ১০ বছর হওয়ার আগেই কাজ ছাড়বেন, বা ১০ বছরের আগেই অন্য সংস্থায় যোগদান করবেন, তাঁরা পেনশন ফান্ডে জমা টাকা তুলতে চাইলে এবার থেকে মানতে হবে নয়া নিয়ম। এ ব্যাপারে গত ১৪ জুন গেজেট বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে কেন্দ্র। এই নিয়মের ফলে উপকৃত হতে চলেছেন অধিকাংশ চাকরিজীবী মধ্যবিত্তই।
পিএফে যে টাকা জমা হয়, তার একটা অংশ চলে যায় পেনশন ফান্ডে। একে বলা হয় এমপ্লয়িজ পেনশন স্কিম বা ইপিএস। এই ফান্ডে জমা টাকার উপর ভিত্তি করে পেনশন পেয়ে থাকেন পিএফ গ্রাহক। তবে শর্ত একটাই, টাকা তোলার জন্য চাকরির মেয়াদ ১০ বছরের মধ্যে থাকতে হবে। ১০ বছর পেরিয়ে গেলে পেনশন ফান্ডের উপর অধিকার থাকে না গ্রাহকের। চাকরি জীবনের শেষে ওই টাকা মাসে মাসে পেনশন হিসেবে পাওয়া যায়। কিন্তু ১০ বছরের আগে যদি কেউ টাকা তুলে নিতে চান, সেই সুযোগ তাঁকে দেয় কেন্দ্র। তবে তিনি কত টাকা পাবেন, তার হিসেবের জন্য নির্দিষ্ট ফর্মুলা ধার্য রয়েছে। 
কী সেই ফর্মুলা? কেন্দ্রীয় সরকার একটি টেবিল বা তালিকা প্রকাশ করে। সেখানে ১ থেকে ১০ বছর পর্যন্ত সময়ে গ্রাহক কবে টাকা তুলছেন, তার উপর নির্ভর করে একটি গুণিতকের তালিকা প্রকাশ করা হয়। মূল বেতনের সঙ্গে ওই অঙ্ক গুণ করে সেই টাকা পান গ্রাহক। আগে প্রতি বছরের জন্য আলাদা আলাদা গুণিতক ছিল। অর্থাৎ, কেউ যদি ৫ বছর ৩ মাস চাকরি করার পর টাকা তুলতে চাইতেন, ৫ বছরের গুণিতকের হিসেবে পেনশন ফান্ডের টাকা তিনি তুলতে পারতেন। নয়া নিয়মে সেই হিসেবই বদলে যাচ্ছে। এখন গুণিতক মাসের হিসেবে। অর্থাৎ, যেদিন গ্রাহক টাকা তুলছেন, সেই দিন তাঁর মূল বেতন যা হবে, তার সঙ্গে গুণিতকটির গুণফলের সম পরিমাণ টাকা অ্যাকাউন্টে আসবে। সোজা কথায়, নিজের উপার্জন ও পরিশ্রমের টাকা চোখের সামনে আর জলে যেতে দেখবেন না তিনি। 
হিসেবটি সহজ করা যাক। ধরা যাক, কেউ চার বছর কাজ করে চাকরি ছাড়ছেন। সেই সময় তাঁর মূল বেতন ছিল ১০ হাজার টাকা। চার বছরের জন্য কেন্দ্রের স্থির করা গুণিতকটি হল ৩.৯৯। এক্ষেত্রে ওই ব্যক্তি পাবেন ৩৯ হাজার ৯০০ টাকা। ধরা যাক কেউ ৬ বছর ৪ মাস চাকরি করেছেন। তাঁর হিসেব কত হবে? পুরনো নিয়ম অনুযায়ী, ‘ভাঙা’ বছরে চাকরির মেয়াদ ছ’মাসের কম হলে, তার গুণিতক আগের বছর অনুযায়ী হতো। অর্থাৎ, ৬ বছরে ৬.০৭ গুণিতকের হিসেবে তাঁর প্রাপ্য ছিল ৬০ হাজার ৭০০ টাকা। তবে গ্রাহক ৬ বছর ৮ মাস চাকরি করলে, তাঁর গুণিতক কিন্তু ধরা হবে ৭ বছরের। সেক্ষেত্রে ৭.১৩ হিসেবে তাঁর প্রাপ্য হতো ৭১ হাজার ৩০০ টাকা। নয়া নিয়মে আর সেই প্রাপ্তি-অপ্রাপ্তির সুযোগ নেই। কারণ, এখন গুণিতক প্রতি মাসের হিসেবে। তাই ৬ বছর ৮ মাসের গুণিতক ৬.৭৮। আর প্রাপ্য? ৬৭ হাজার ৮০০ টাকা। যদি মেয়াদ ৬ বছর ৪ মাস হয়, তাহলে গুণিতক ৬.৪২। এক্ষেত্রে প্রাপ্য ৬৪ হাজার ২০০ টাকা। হিসেব থেকে বোঝা যাচ্ছে, নয়া নিয়মে ৬ বছর ৪ মাস চাকরি করলে আগের তুলনায় প্রাপ্য বাড়ছে গ্রাহকের। 
26d ago
কলকাতা
রাজ্য
বিদেশ
খেলা
বিনোদন
ব্ল্যাকবোর্ড
শরীর ও স্বাস্থ্য
বিশেষ নিবন্ধ
সিনেমা
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
আজকের দিনে
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
mesh

মাতুলকূলের সম্পত্তি প্রাপ্তির যোগ আছে। সব কাজকর্মে বাধার মধ্যে অগ্রগতি। শরীর-স্বাস্থ্য চলনসই।...

বিশদ...

এখনকার দর
ক্রয়মূল্যবিক্রয়মূল্য
ডলার৮২.৮১ টাকা৮৪.৫৫ টাকা
পাউন্ড১০৬.৫৫ টাকা১১০.০৬ টাকা
ইউরো৮৯.৫৫ টাকা৯২.৭১ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
*১০ লক্ষ টাকা কম লেনদেনের ক্ষেত্রে
দিন পঞ্জিকা