কলকাতা

৪৫ দিনে ছোট শিল্পকে প্রাপ্য মেটাতে কড়া আইন নামেই,  খেলাপি কেন্দ্রই, বঞ্চনা ৩২০০ কোটির

বাপ্পাদিত্য রায়চৌধুরী, কলকাতা: কঠোর আইন, আর বিপুল প্রচার। ক্ষুদ্র, ছোট ও মাঝারি শিল্প বা এমএসএমই’র পাশে দাঁড়ানোর ব্যাপারে মোদি সরকারের ‘উদ্যোগ’ কি সত্যিই প্রশ্নের ঊর্ধ্বে? ধুঁকতে থাকা এই শিল্প এবং কেন্দ্রীয় বঞ্চনা কিন্তু বাস্তবে খাদের কিনারায় দাঁড় করিয়ে দিয়েছে এমএসএমই’কে। নরেন্দ্র মোদির দ্বিতীয় ইনিংসের সময়ই আইন করে কেন্দ্র জানিয়ে দিয়েছিল, কোনও বড় সংস্থা যদি অর্ডার রিলিজের ৪৫ দিনের মধ্যে ছোট সংস্থার বকেয়া না মেটায়, তাহলে তারা আয়কর আইনে ছাড় পাবে না। অথচ, আশ্চর্যের বিষয় হল, কেন্দ্র নিজেই ছোট শিল্প সংস্থা থেকে কোটি কোটি টাকার জিনিস কিনে তার বিল মেটাচ্ছে না। খেলাপ করছে আইনের। তথ্য বলছে, দেশের নানা প্রান্তে প্রায় ৪ হাজার ৩০০ ছোট শিল্প সংস্থার টাকা আটকে রেখেছে কেন্দ্রের বিভিন্ন মন্ত্রক বা তাদের অধীনে থাকা রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থা। সেই তালিকায় আছে রেলও। আটকে রাখা এই টাকার অঙ্ক ৩ হাজার ২০০ কোটিরও বেশি। শিল্পমহল বলছে, দিনের পর দিন প্রাপ্য না মিটিয়ে খোদ সরকারই যেখানে বকেয়ার পাহাড় তৈরি করেছে, সেখানে এই আইন প্রহসন ছাড়া কিছুই নয়।
ছোট শিল্পের টিকে থাকার অন্যতম শর্ত সুষ্ঠু বিপণন। অর্থাৎ, অল্প পুঁজির ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানগুলিকে প্রতিযোগিতার বাজারে তাদের মাল বিক্রি করতে হবে। সেই কাজ সহজ করতে এগিয়ে আসে সরকার। নিয়ম হয়, কেন্দ্র হোক বা রাজ্য, যারাই কোনও পণ্য কিনবে, তার একটি অংশ বাধ্যতামূলকভাবে কিনতে হবে ছোট শিল্প সংস্থাগুলির থেকে। নিলামের মাধ্যমেই সেই পণ্য কিনে থাকে তারা। কিন্তু গোল বাধে পেমেন্ট নিয়ে। বহু ক্ষেত্রেই দেখা যায়, বিভিন্ন রাজ্য সরকার হোক বা কেন্দ্র, নানা অজুহাতে তারা আটকে দেয় পেমেন্ট। তার ফলে নতুন করে লগ্নিতে টান পড়ে ছোট সংস্থাগুলির। কমতে থাকে কার্যকরী মূলধন। কখনও কখনও দেখা যায়, সরকারের তরফে পেমেন্ট আটকে আছে এক বছরেরও বেশি। খোদ সরকার বাহাদুরই যদি ছোট শিল্পের পাওনা মেটাতে টালবাহানা করে, তাহলে তার সুরাহা করবে কে? 
এই সমস্যার মোকাবিলায় দেশে চালু হয়েছে ‘সমাধান’ পোর্টাল। সময়ে পেমেন্ট না মিললে এখানে আবেদন করতে পারে এমএসএমই সংস্থাগুলি। সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি সংস্থা বা ব্যক্তিগত কারও বিরুদ্ধেও আবেদন করা যায় ‘সমাধানে’।
দেখা যাচ্ছে, কেন্দ্রের তরফে ছোট শিল্পগুলিকে বঞ্চনায় সবচেয়ে এগিয়ে কেন্দ্রীয় রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থাগুলিই। দীর্ঘ সময় ধরে তারা প্রায় ২ হাজার ২০০টি সংস্থার ২ হাজার ৩৩৪ কোটি টাকা আটকে রেখেছে। বিভিন্ন মন্ত্রকের তরফে আটকে রাখা হয়েছে ২৮৩ কোটি টাকা। তা পায়নি চারশোর বেশি সংস্থা। মন্ত্রকের আওতায় থাকা বিভিন্ন দপ্তর আটশোর বেশি সংস্থায় মেটায়নি ৪০০ কোটি টাকার বেশি বকেয়া। পিছিয়ে নেই রেলও। জানা গিয়েছে, ৩৬৮টি সংস্থায় তারা প্রায় ১০০ কোটি টাকার বিল মেটাচ্ছে না। 
1Month ago
রাজ্য
দেশ
বিদেশ
খেলা
বিনোদন
ব্ল্যাকবোর্ড
শরীর ও স্বাস্থ্য
বিশেষ নিবন্ধ
সিনেমা
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
আজকের দিনে
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
mesh

মাতুলকূলের সম্পত্তি প্রাপ্তির যোগ আছে। সব কাজকর্মে বাধার মধ্যে অগ্রগতি। শরীর-স্বাস্থ্য চলনসই।...

বিশদ...

এখনকার দর
ক্রয়মূল্যবিক্রয়মূল্য
ডলার৮২.৮১ টাকা৮৪.৫৫ টাকা
পাউন্ড১০৬.৫৫ টাকা১১০.০৬ টাকা
ইউরো৮৯.৫৫ টাকা৯২.৭১ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
*১০ লক্ষ টাকা কম লেনদেনের ক্ষেত্রে
দিন পঞ্জিকা