বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
বিনোদন
 

অভিনেতা কালো হওয়ায় অনেক লড়তে হয়েছে : দিবাকর

২০১০ সালে মুক্তি পেয়েছিল ‘লাভ সেক্স অউর ধোঁকা’ ছবিটি। ঠিক ১৪ বছর পর আসতে চলেছে এর সিক্যুয়েল। দিবাকর বন্দ্যোপাধ্যায় পরিচালিত ছবিটি সে সময় হইচই ফেলেছিল। ‘লাভ সেক্স অউর ধোঁকা টু’ ছবিতেও বর্তমান সময়কে তুলে ধরা হয়েছে। পরিচালক ভাগ করে নিলেন সেই ভাবনা।
 
মুক্তির পর
‘খোসলা কা ঘোসলা’, ‘ওয়ে লাকি লাকি ওয়ে’, ‘এলএসডি’ সহ আরও নানা ব্যতিক্রমী ছবির কারিগর দিবাকর। ‘এলএসডি টু’কে ঘিরে কতটা আশাবাদী? হাল্কা হেসে দিবাকর জবাব দেন, ‘মুক্তির আগে আমার কোনও ছবি নিয়ে চর্চা হয় না। কিন্তু মুক্তির পর হইচই শুরু হয়ে যায়। আমার ছবিতে সাধারণত কোনও বড় তারকা থাকেন না, বড় বাজেটের হয় না, আর কোনও সামাজিক ইস্যুও থাকে না। তাই এক্ষেত্রেও সময় কথা বলবে।’ দিবাকরের দাবি, ‘এলএসডি টু’ বর্তমান প্রজন্মের ছবি। তাঁর কথায়, ‘দশ-বারো বছর ধরে সমাজে যে পরিবর্তন এসেছে, তা এই ছবিতে রয়েছে। এটা আজকের ছবি।’

ভণ্ডামি
‘এলএসডি টু’ ছবিতে এক ঝাঁক নতুন মুখের পাশে কিছু চেনা মুখও দেখা যাবে। এই ছবির অন্যতম চরিত্রে রয়েছেন রূপান্তরিত অভিনেত্রী বনিতা রাজপুরোহিত। এই প্রথম কোনও রূপান্তরিত শিল্পী ছবির মূল চরিত্রে অভিনয় করলেন। একটু আক্ষেপের সুরে দিবাকর বলেন, ‘আসলে এই ছবিতে দু’জন ট্রান্সজেন্ডার শিল্পীকে নেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু দু’জন ট্রান্স শিল্পী হলে আপনারা এই ছবিটাকে তখন ‘তথ্যচিত্র’ বলতেন। আসলে আমরা সকলেই ভণ্ডামির নাটক করছি। ‘এলএসডি টু’ সেই ভণ্ডামির খেলাকে জনসমক্ষে আনার চেষ্টা করবে।’ এই ছবির চরিত্রায়নের ক্ষেত্রেও ভণ্ডামির আশ্রয় নিতে হয়েছে বলে জানান দিবাকর। হতাশার সুরে পরিচালক বলেন, ‘আমাদের সমাজ বর্ণবাদী। তাই ছবির চরিত্রের জন্য ফর্সা, টিকালো নাক, এমন অভিনেতা আমাকে নিতে হয়েছে। এই ছবির এক মূল অভিনেতার রং কালো বলে আমাকে অনেক লড়াই করতে হয়েছে।’

ফলোয়ারের বিচারে কাস্টিং
‘এলএসডি টু’ ছবির মাধ্যমে ইনফ্লুয়েন্সার উরফি জাভেদের বড় পর্দায় অভিষেক হতে চলেছে। উরফিকে কাস্ট করা প্রসঙ্গে দিবাকর বলেন, ‘উরফিকে নিয়েছি কারণ উনি অনেক বড় ইনফ্লুয়েন্সার। ওঁর প্রচুর ফলোয়ার্স। উরফির জন্য লোকে ছবি দেখতে আসবেন। এখন অনেক ছবিতে কাস্টিংয়ের ক্ষেত্রে অভিনেতার ফলোয়ার্স সংখ্যা বিচার্য।’ 

শিকড় থেকে বিচ্ছিন্ন
হিন্দি ছবি শিকড় থেকে বিচ্ছিন্ন হচ্ছে বলে অনেকেই হাহুতাশ করেছেন। এই প্রসঙ্গ উঠতেই দিবাকর বললেন, ‘আসলে ছবির নির্মাতারা অধিকাংশই মুম্বইয়ের অভিজাত শ্রেণীর মানুষ। ওঁদের কাজের নির্দিষ্ট ধারা রয়েছে। এর বাইরে ওঁরা বের হতে চান না। ফলে হিন্দি ছবিতে বৈচিত্রের অভাব দেখা দিচ্ছে। আর গল্প একদমই জঘন্য।’

বাংলা ছবি
দিবাকরের বাংলা ছবি পরিচালনার কোনও পরিকল্পনা নেই। স্পষ্ট বললেন, ‘বাংলা ছবিতে পয়সা নেই। মুম্বইতে কাজ করে এখন আমার পয়সার অভ্যেস হয়ে গিয়েছে। এক্ষেত্রে আমি ভণ্ডামি করতে চাই না। বেঁচে থাকার জন্য যতটা সম্ভব অর্থ উপার্জন করতে চাই। তবে বাংলা সাহিত্য আমাদের দেশের সবচেয়ে সমৃদ্ধ।’
দেবারতি ভট্টাচার্য • মুম্বই

16th     April,   2024
অক্ষয় তৃতীয়া ১৪৩১
 
কলকাতা
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ