Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

তাহলে, হাওয়া
এবার কোন দিকে?
মোশারফ হোসেন

দেখতে দেখতে মোট সাত দফা ভোটগ্রহণের পাঁচটি দফাই সম্পূর্ণ হয়ে গেল। গোটা দেশে। আমাদের রাজ্যেও। বাকি দুটি দফায় মাত্র ১১৮টি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ হওয়ার কথা। যদিও ওইসব কেন্দ্রের ভোট বেশ কয়েকটি সর্বভারতীয় রাজনৈতিক গুরুত্বের বিচারে অত্যন্ত সংবেদনশীল। ক্ষমতাসীন পক্ষের স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি থেকে শুরু করে বিরোধীপক্ষের বেশ কয়েকজন হেভিওয়েট প্রার্থীর ভাগ্য নির্ধারিত হবে শেষের এই দুটি পর্বে। তবুও গত পাঁচটি পর্বের ভোটের চেহারা দেখে ইতিমধ্যেই দেশজুড়ে ফলাফল নিয়ে গুঞ্জন শুরু হয়ে গিয়েছে। শাসক দলের নেতানেত্রীরা যা দাবি করছেন তার সরল অর্থ হল, এবারও দেশবাসী তাঁদের পক্ষেই ‘রায়দান’ করছেন। ইভিএমের অন্ধকার প্রকোষ্ঠে আপাত বন্দি সেই ‘রায়’কে প্রকাশ্যে আনলেই স্পষ্ট হবে দেশে ফের একবার মোদি সরকার প্রতিষ্ঠিত হচ্ছে। অন্যদিকে, বিরোধীপক্ষের দাবি সম্পূর্ণ বিপরীত খাতে বইছে। এবারে নরেন্দ্র মোদির সামনে প্রধান দুই চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়ানো ব্যক্তিত্ব রাহুল গান্ধী ও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সাফ কথা, মানুষের মনের ভাষা তাঁরা পড়তে পারছেন। সিংহভাগ ভারতবাসী এবার মোদি ও তাঁর সাঙ্গোপাঙ্গদের রাজনৈতিক নির্বাসন দেওয়ার ব্যবস্থা করছেন। এই ভোটে মোদি-রাজের অবসান হচ্ছেই।
আবার, অধিকাংশ সাধারণ মানুষ বিশেষত দিন আনা দিন খাওয়া দরিদ্র ভারতবাসী তো বটেই, মধ্যবিত্তদের বড় অংশও এটুকু বোঝেন, ক্ষমতায় যে-ই আসুক না কেন তাঁদের দৈনন্দিন দিনলিপিতে আহামরি কোনও পরিবর্তন হবে না। ভোটের আগে যারা যেমন প্রতিশ্রুতিই দিক না কেন, ভোটের পরে তার অধিকাংশই বিস্মৃতি গভীরে তলিয়ে যায়। বহুক্ষেত্রেই নেতানেত্রীরাও প্রাক-ভোটপর্বে দেওয়া সেই প্রতিশ্রুতিগুলিকে খুব একটা মনে রাখতে চান না। এসবের উদাহরণের অভাব খুব একটা নেই। হাতে গরম উদাহরণ হলেন আমাদের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। পাঁচবছর আগে ভোটভিক্ষার পাত্র হাতে দাঁড়ানো ওই মানুষটি কত রকমের প্রতিশ্রুতিই তো দিয়েছিলেন! বিদেশে পাচার হওয়া রাশি রাশি কালো টাকা ফিরিয়ে এনে প্রতিটি ভারতীয়ের অ্যাকাউন্টে পনেরো লক্ষ করে ভরে দেওয়া থেকে শুরু করে বছরে দু’কোটি চাকরি, সব কা সাথ সব কা বিকাশ, আচ্ছে দিন—তালিকাটি দীর্ঘ। গণতান্ত্রিক ব্যবস্থার টানাপোড়েনে মাঝখানে কোনও অঘটন ঘটেনি। ফলে পুরো পাঁচ বছরের মেয়াদই পূরণ করার সুযোগ পেয়েছিল মোদি সরকার। ফলে গতবার ভোটের আগে দেওয়া প্রতিশ্রুতিগুলি পূরণের যথেষ্ট সুযোগ ছিল তাঁর হাতে। শুধু তাই নয়, সরকার এবং নিজের দলে মোদি এমন একটি অবস্থানে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে সক্ষম হয়েছিলেন যাতে তিনি কোনও কাজ করতে চাইলে তাঁকে বাধা দেওয়ার মতো কোনও শক্তি ছিল না। কিন্তু বাস্তবে তিনি কেবল নিজের এবং নিজের পছন্দের কিছু মানুষের বিকাশ ও সমৃদ্ধি ঘটানোর কাজেই আত্মনিয়োগ করেছিলেন। একদা গরিব চাওয়ালা মোদি প্রধানমন্ত্রীর আসনে বসেই ন’লাখ টাকা দামের পোশাকে নিজেকে সজ্জিত করেছেন। স্বাধীন ভারতের অন্য সমস্ত প্রধানমন্ত্রীর সমস্ত রেকর্ডকে ম্লান করে দিয়ে মাত্র সাড়ে চার বছরে প্রায় একশোবার বিদেশ ভ্রমণ করেছেন। তাঁর ওইসব সফরের মূল্য চোকাতে হয়েছে দেশবাসীকেই। কয়েক হাজার কোটি টাকা। তিনি বারে বারে বিদেশে গিয়েছেন, কিন্তু বিদেশ থেকে একটি কালো টাকাও ফিরিয়ে আনতে পারেননি। কারা সেইসব কালো টাকা বিদেশে পাচার করেছিল তাদের নামের তালিকাটুকু পর্যন্ত দেশবাসীর সামনে তুলে ধরতে সক্ষম হননি। বরং নাম জানা বেশ কয়েকজন রাঘব বোয়ালের হাত ধরে দেশের আরও হাজার হাজার কোটি টাকা হাওয়া হয়ে গিয়েছে। মোদিজি ওই অপরাধীদেরও টিকি পর্যন্ত ছুঁতে পারেননি। এগুলো তো বটেই, ভারতের মানুষ নরেন্দ্র মোদির মুখে গত তিন-চার বছরে আরও অনেক প্রতিশ্রুতি, আশ্বাস, আস্ফালন শুনেছেন। কিন্তু সেইসব আশ্বাস, আস্ফালন, প্রতিশ্রুতি কেবল কথার কথা হয়েই রয়ে গিয়েছে। কাজে আসেনি। অন্যদিকে, বহু আশা করে মোদিকে ক্ষমতায় আসতে সাহায্য করা কোটি কোটি সাধারণ খেটে খাওয়া মানুষের জীবন আরও দুর্বিষহ হয়ে উঠেছে।
এতসব সত্ত্বেও মানুষ আশা ছাড়ছে না। কারণ, আশাই তো বাঁচিয়ে রাখে! সেকারণেই এবারের ভোটপর্ব নিয়েও আলাপ আলোচনা, হিসেব নিকেশ চলছে। রাজনৈতিক অরাজনৈতিক দুই আঙিনাতেই। চায়ের ঠেক থেকে অফিস আদালত চত্বরে, ট্রেন বাসে, ঘরোয়া সমাবেশে। বিয়েবাড়ি থেকে যে কোনও সামাজিক অনুষ্ঠানে গোটাকতক মাথা এক হলেই, একটু ফুরসত মিললেই একটাই আলোচনা—তাহলে এবার রেজাল্ট কেমন হতে পারে? না। স্কুল-কলেজে ছেলেমেয়ের পরীক্ষার রেজাল্ট নয়। ভোটের ফল। এবার এনডিএ মোট কতগুলো আসন পেতে পারে? আমাদের রাজ্যে বিজেপি কি আট-দশটা পাবে? কংগ্রেসের ক’টা থাকবে? সিপিএম কি একেবারেই জিরো হয়ে যাবে? দিদির দল কি তাঁর কথা মতো বিয়াল্লিশে বিয়াল্লিশই পাচ্ছে? তাহলে তো দিল্লি দিদির মুঠোয় এসে যাচ্ছে। রাহুলের বদলে বিরোধীরা দিদিকেই সামনে এগিয়ে দিতে চাইবে। হাজার হোক, মহিলার ক্যারিশ্মার ধারে কাছে আর কেউ আসে না। অতবার কেন্দ্রে মন্ত্রী তো হয়েছিলেন! মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার পর রাজ্যটার ভোলও তো বদলে দিয়েছেন! আর, দাপটটা দেখছেন তো? একা বুক চিতিয়ে লড়ে যাচ্ছেন। একটা রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী হয়ে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিচ্ছেন মোদির মতো লোককে! উল্টোদিক থেকে কেউ বলে, কিন্তু ওনার কেবল ওইদিকটাই দেখলেন! এই যে এখানে এমন নির্লজ্জের মতো তোষণ করে যাচ্ছেন, এর কোনও মানে হয়! তাছাড়া পাকিস্তানকে সমঝে দেওয়ার ক্ষমতা মোদির মতো আর কার আছে? আর পাঁচটা বছর ক্ষমতা পেলে সবাইকে ঢিট করে দেবে। পাকিস্তান হয়েছে, হিন্দুস্থান হবে না কেন? দেশজুড়ে এবার দেশভক্তির পালে জোর হাওয়া। সেই হাওয়াতেই মোদিজি তরী পার করে দেবেন। পরের বাক্যটি শুরু করার আগেই বক্তাকে থামিয়ে দেন কেউ। বলেন, আরে থামুন থামুন। পাঁচ বছর কোনও কাজ না করে কেবল পাকিস্তানের জুজু দেখিয়ে আর ক’টা অর্ধসত্য, অসত্য বস্তাপচা কাহিনী ফেঁদেই লোকটা পার পেয়ে যাবে! তা কি হয়! যুক্তি-পাল্টা যুক্তি, মন্তব্য আরও এগিয়ে চলে। মন্তব্যের শেষ নেই। প্রশ্নেরও সীমা নেই। বিশেষত বাঙালির ভাণ্ডারে আর যা কিছুরই অভাব থাক না কেন, যুক্তি-পাল্টা যুক্তির কোনও অভাব থাকে না।
ভোট পড়ার হারও এবার হিসেব নিকেশ, অনুমানের একটি বড় ফ্যাক্টর। ভোট পড়ছে ব্যাপক হারে। অধিকাংশ কেন্দ্রেই ৭৫- ৮০ শতাংশ ছাড়িয়ে যাচ্ছে। ভোটের লাইনে হাজার হাজার মহিলা পুরুষ, বৃদ্ধ বৃদ্ধা, তরুণ তরুণী। এমনকী বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন তথা তথাকথিত প্রতিবন্ধীরাও। আমাদের রাজ্যের বীরভূম জেলার বোলপুর কেন্দ্রে তো ৮৬ শতাংশ ভোট পড়ল। সারা ভারতে এটি এবার রেকর্ড। এত মানুষ ভোটের লাইনে। এর মানে কী? এপ্রশ্নেও পরস্পরবিরোধী মতের ছড়াছড়ি। কারও মতে, এ হল অ্যান্টি ইনকাম্বেন্সি অর্থাৎ প্রতিষ্ঠানবিরোধী মতদানের সুযোগের সদ্ব্যবহারের চেষ্টা। তাহলে তো গোটা দেশে মোদি ও তাঁর দলবলের পক্ষেও অশনিসঙ্কেত। একইভাবে এরাজ্যেও শাসকদলের বিরুদ্ধে ভোট দিতেই এত মানুষ বুথের সামনে লাইন দিয়েছিলেন! নাকি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের গত সাতবছরের অক্লান্ত পরিশ্রমকে স্বীকৃতি জানিয়ে, তাঁর উন্নয়নযজ্ঞে মুগ্ধ হয়ে বাংলার অগ্নিকন্যাকে আরও বড় দায়িত্বের দিকে এগিয়ে দিতেই বাংলার কোটি কোটি ভোটারের এমন সক্রিয় ভূমিকা? বাঙালি প্রধানমন্ত্রীর হাওয়া উঠেছে। মমতার কোনও বিকল্প হবে না। বাংলার দিদিই এবার দেশের প্রধানমন্ত্রী হচ্ছেন। কেউ আটকাতে পারবে না।
এসব প্রশ্নের সঠিক জবাব এখনই মেলার কোনও পথ নেই। তার জন্য অপেক্ষা করতে হবে আরও সপ্তাহদুয়েক। ফের একবার মোদি সরকার? নাকি মোদি-বিদায়ের পালা। অথবা দিল্লির তখতে রাহুল গান্ধীর অভিষেক, নাকি বাংলার অগ্নিকন্যার নেতৃত্বে দেশে তথাকথিত জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠিত হবে— এর ফয়সালা হবে আগামী ২৩ মে অথবা তার কয়েকদিনের মধ্যেই।
এপ্রসঙ্গে একটি ঘটনার কথা বলে লেখা শেষ করব। বেশ কয়েকবছর আগে একটি ভোটের মুখে কলকাতার কয়েকজন প্রবীণ সাংবাদিক রাজ্যেরই একটি মফস্‌সল এলাকায় পাড়ি দিয়েছিলেন। উদ্দেশ্য, ভোটের হাওয়া অনুধাবনের চেষ্টা করা। একটি চায়ের দোকানের সামনে বাঁশের বেঞ্চিতে বসে খানিক গল্পগুজবের পর এক সাংবাদিক ওখানে উপস্থিত স্থানীয় এক বৃদ্ধের দিকে প্রশ্ন ছুঁড়ে দিয়েছিলেন, বলুন তো কত্তা, হাওয়া এবার কোনদিকে? গাড়ি চড়ে আসা অপরিচিত সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাব দিতে সেই বৃদ্ধ এক মুহূর্তের বেশি সময় নেননি। তাঁর জবাবটি ছিল, বাবু, হাওয়া এবার চতুর্দিকে। এবার যা বুঝার বুঝে লিন।
এবারও বোধহয় হাওয়া চতুর্দিকেই বইছে। মানুষ খোলসা করে তাঁদের মনের কথা বলতে চাইছেন না। অতএব অপেক্ষা ছাড়া গতি নেই।
11th  May, 2019
ভোট গণনার সেকাল
একাল ও নতুন চ্যালেঞ্জ
বিশ্বনাথ চক্রবর্তী

পৃথিবীর বৃহত্তম গণতন্ত্রের নির্বাচনী রাজসূয় যজ্ঞের চূড়ান্ত পর্বে ভোট গণনা ও ফলাফলের দিকে তাকিয়ে রয়েছে সমগ্র ভারতবাসী তথা বিশ্ববাসী। বিগত কয়েক মাস ধরে চলা রাজনীতির ঘাত-প্রতিঘাত, চাপানউতোর, দাবি, পাল্টা দাবির সত্যতা উঠে আসবে গণনার মধ্য দিয়ে।
বিশদ

সবার উপরে ভোট সত্য
হারাধন চৌধুরী 

সিকি শতক আগের কথা। কর্মসূত্রে মেদিনীপুর শহরে থাকি। গ্রীষ্মের সকাল। ভোটের দিন। ভোটের খবর নিতে বেরনোর আগে চায়ের ভাঁড়ে চুমুক দেব। পঞ্চুরচকে চায়ের দোকানে এসেছি। এক ফেরিওয়ালার সঙ্গে দেখা।  
বিশদ

14th  May, 2019
অর্থনীতি ‘ডেঞ্জার জোন’-এ প্রবেশ করেছে
পি চিদম্বরম

 ২০১৪-র নির্বাচনে পাল্লা দিতে নেমে নরেন্দ্র মোদি অর্থনীতি বিষয়ে একটি হঠকারী মন্তব্য করে বসেছিলেন। প্রতিক্রিয়ায় আমি বলেছিলাম, ‘‘মোদিজির অর্থনৈতিক জ্ঞানটা একটি ডাক টিকিটের পিছনেই লিখে ফেলা যেতে পারে।’’ আমার মন্তব্যটি নির্দোষ ছিল, কিন্তু আমার বিশ্বাস, ওই মন্তব্যের কারণে মোদিজি আমাকে ক্ষমা করেননি!
বিশদ

13th  May, 2019
মমতার নেতৃত্ব মানতে কংগ্রেসি অনীহা কি আখেরে মোদিজির সুবিধে করে দিল?
শুভা দত্ত

প্রবল তাপে পুড়ছে রাজ্য। আকশে মেঘের চিহ্নমাত্র নেই। ঘূর্ণিঝড় ফণীর হাত থেকে এ যাত্রায় রেহাই মিললেও কাঠফাটা রোদ আর মাথা ঘোরানো গরমের হাত থেকে রেহাই মিলছে না। বাঁকুড়া-পুরুলিয়ার মতো রুখু জেলাগুলো ইতিমধ্যেই চল্লিশ ছাড়িয়েছে, মহানগরী কলকাতাও বসে নেই। সেও প্রায় চল্লিশের ঘরে!
বিশদ

12th  May, 2019
রাজনীতির পাঁকে সরকারের
উচ্চপদস্থ কর্মচারীরা
শুভময় মৈত্র

দেশের উচ্চপদস্থ সরকারি কর্মচারীরা রাজনৈতিক নেতাদের সঙ্গে কাজ করতে গিয়ে বিপদে পড়ছেন অনেক সময়। কেউ কেউ বড্ড বেশি যোগাযোগ রাখছেন ক্ষমতাশীল রাজনৈতিক দলের সঙ্গে। তারপর সেখানে তীব্র দ্বন্দ্বের সৃষ্টি হওয়ায় অনেক সময় চাকরিতে ইস্তফা দিতে হচ্ছে। নিজের অস্তিত্ব রক্ষায় যোগ দিতে হচ্ছে অন্য কোনও রাজনৈতিক দলে। ভোটপ্রচারে তাঁদের মুখ ফসকে বেরিয়ে যাচ্ছে এমন সব ভাষা যা একেবারে রাজনৈতিক নেতাদের কাছ থেকেই শেখা।
বিশদ

11th  May, 2019
মোদিময় রাজনীতিতে
নয়া পাঠ ‘বাণপ্রস্থ কথা’
মৃণালকান্তি দাস

তাঁর বাড়িতে পা দিলেই চন্দনকাঠের একটা মূর্তিতে চোখ পড়বেই। তাতে অর্জুনকে বিশ্বরূপ দেখাচ্ছেন শ্রীকৃষ্ণ। তার পিছনে মহাভারতের টুকরো নানা ছবি। শরশয্যায় শায়িত ভীষ্মও। বিজেপিতে আদবানিকে ভীষ্ম পিতামহের সঙ্গে তুলনা করা হয়। নিজের হাতে তৈরি দলে যেভাবে তিনি প্রত্যাখ্যাত হয়েছেন, তাকে কি তাঁকে আজ ভীষ্মের সেই শরশয্যার সঙ্গে তুলনা করা যায়?
বিশদ

10th  May, 2019
জনপ্রতিনিধিত্ব আইনের অনেক
সংশোধন প্রয়োজন 
বিশ্বনাথ চক্রবর্তী

 ভারতীয় সংবিধান রচয়িতারা অবাধ ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন পরিচালনা করবার জন্য জাতীয় নির্বাচন কমিশনকে সংবিধান প্রদত্ত পূর্ণ স্বাধিকার দিয়েছিল। সংবিধানের ৩২৪নং ধারা বলে লোকসভা নির্বাচনে তত্ত্বাবধান, নির্দেশ ও নির্বাচনের ওপর পূর্ণ কর্তৃত্ব রাখবার ক্ষমতা অর্পণ করা হয়েছে নির্বাচন কমিশনের হাতে।
বিশদ

10th  May, 2019
নরেন্দ্র মোদি মেজাজ হারাচ্ছেন কেন?
শুভা দত্ত

 নরেন্দ্র মোদির রাজনীতি নিয়ে অনেকের ভিন্নমত থাকতে পারে, কিন্তু তাঁর সৌজন্যবোধ নিয়ে এ যাবৎ কোনও প্রশ্ন ওঠেনি। ২০১৯-এর ভোটপর্ব যখন শেষ পর্যায়ে, তখন তিনি মেজাজ হারিয়ে একেবারে রাহুল গান্ধীর প্রয়াত পিতার নামে নিন্দা করে বসলেন। এভাবে তিনি ভদ্রতার সীমা ছাড়ালেন।
বিশদ

09th  May, 2019
কেন্দ্রে শক্তিক্ষয়, রাজ্যে শক্তিবৃদ্ধি—
সম্ভাবনার বিচিত্র জল্পনায় মুখর বঙ্গ
মেরুনীল দাশগুপ্ত

 বিশেষ করে বিষয় যখন দেশের ক্ষমতা দখলের ভোট-মহারণ সঙ্গে বাংলায় জোড়া ফুলের ৪২-এ ৪২-এর ডাক, আর সে মহাসংগ্রামে দুই প্রধান প্রতিপক্ষের নাম মোদি-মমতা— তখন পায় কে! একেবারে রসিয়ে কষিয়ে গরমে নরমে যুক্তি অযুক্তি কুযুক্তির কড়া পাকে পাহাড় থেকে সাগর জঙ্গলমহল থেকে যাদবপুর যাকে বলে জল্পনা-কল্পনার একটা উৎসবই যেন শুরু হয়ে গেছে।
বিশদ

09th  May, 2019
তাহলে, হাওয়া এবার কোন দিকে?
মোশারফ হোসেন

দেখতে দেখতে মোট সাত দফা ভোটগ্রহণের পাঁচটি দফাই সম্পূর্ণ হয়ে গেল। গোটা দেশে। আমাদের রাজ্যেও। বাকি দুটি দফায় মাত্র ১১৮টি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ হওয়ার কথা। যদিও ওইসব কেন্দ্রের ভোট বেশ কয়েকটি সর্বভারতীয় রাজনৈতিক গুরুত্বের বিচারে অত্যন্ত সংবেদনশীল।
বিশদ

07th  May, 2019
রাজনীতির পাঁকে সরকারের উচ্চপদস্থ কর্মচারীরা
শুভময় মৈত্র

 দেশের উচ্চপদস্থ সরকারি কর্মচারীরা রাজনৈতিক নেতাদের সঙ্গে কাজ করতে গিয়ে বিপদে পড়ছেন অনেক সময়। কেউ কেউ বড্ড বেশি যোগাযোগ রাখছেন ক্ষমতাশীল রাজনৈতিক দলের সঙ্গে। তারপর সেখানে তীব্র দ্বন্দ্বের সৃষ্টি হওয়ায় অনেক সময় চাকরিতে ইস্তফা দিতে হচ্ছে।
বিশদ

07th  May, 2019
ইরান-মার্কিন দ্বন্দ্ব
তেলসংকটের মুখে ভারত 
গৌরীশঙ্কর নাগ

গত ২২ এপ্রিল ইরান থেকে তেল আমদানির ওপর আমেরিকার ট্রাম্প প্রশাসনের নিষেধাজ্ঞার ফলে ২ মে থেকে ভারতসহ ৬টি রাষ্ট্র (চীন, ইতালি, গ্রিস, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া, তাইওয়ান ও তুর্কি) ফের অসুবিধার মুখে পড়তে চলেছে।  বিশদ

06th  May, 2019
একনজরে
 ন্যাশনাল স্টক এক্সচেঞ্জে যেসব সংস্থার শেয়ার গতকাল লেনদেন হয়েছে শুধু সেগুলির বাজার বন্ধকালীন দরই নীচে দেওয়া হল। ...

 নয়াদিল্লি, ১৫ মে (পিটিআই): ষষ্ঠ দফা ভোটের মধ্যেই বিজেপি কেন্দ্রে সরকার গড়ার মতো সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে ফেলেছে। সপ্তম দফার ভোট সম্পন্ন হলে বিজেপির আসন ৩০০ অতিক্রম করে যাবে। বুধবার দিল্লিতে সাংবাদিক বৈঠকে এই মন্তব্য করেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ। ...

বীরেশ্বর বেরা, কলকাতা: বালিগঞ্জ ফার্ন রোডের অভিজাত এলাকায় সাদা রঙের দোতলা বাড়ির বাসিন্দা মিতা চক্রবর্তী। এবার তিনি কলকাতা দক্ষিণ কেন্দ্রের কংগ্রেস প্রার্থী। প্রথমবার নির্বাচনে দাঁড়ালেও ...

 ব্রিস্টল, ১৫ মে: জাতীয় দলের জার্সিতেও আইপিএলের দুরন্ত ফর্ম বজায় রেখেছেন জনি বেয়ারস্টো। ব্রিস্টলে পাকিস্তানের বিপক্ষে সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ান ডে’তে তাঁর অনবদ্য সেঞ্চুরিতে ভর করে ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

উপস্থিত বুদ্ধি ও সময়োচিত সিদ্ধান্তে শত্রুদমন ও কর্মে সাফল্য। ব্যবসায় গোলযোগ। প্রিয়জনের শরীর-স্বাস্থ্যে অবনতি। উচ্চশিক্ষায় ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮৩১: বঙ্গ নাট্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা যতীন্দ্রমোহন ঠাকুরের জন্ম
১৯৭০: টেনিস খেলোয়াড় গ্যাব্রিয়েলা সাবাতিনির জন্ম
১৯৭৫: প্রথম মহিলা হিসেবে এভারেস্ট জয় করলেন জুঙ্কো তাবেই
১৯৭৮: অ্যাথলিট সোমা বিশ্বাসের জন্ম





ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৯.৪৯ টাকা ৭১.১৮ টাকা
পাউন্ড ৮৯.১৯ টাকা ৯২.৪৬ টাকা
ইউরো ৭৭.৩৪ টাকা ৮০.৩৩ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩২,৮১৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩১,১৩৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩১,৬০০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৩৭,৩৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৩৭,৪৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬, ১৬ মে ২০১৯, বৃহস্পতিবার, দ্বাদশী ৮/৮ দিবা ৮/১৬। চিত্রা ৫৮/১০ রাত্রি ৪/১৬। সূ উ ৫/০/৮, অ ৬/৫/৪৪, অমৃতযোগ দিবা ৩/২৮ গতে অস্তাবধি। রাত্রি ৬/৪৯ গতে ৯/০ মধ্যে পুনঃ ১১/৫৫ গতে ২/৬ মধ্যে পুনঃ ৩/৩৪ গতে উদয়াবধি, বারবেলা ২/৪৯ গতে অস্তাবধি, কালরাত্রি ১১/৩৩ গতে ১২/৫৫ মধ্যে।
১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬, ১৬ মে ২০১৯, বৃহস্পতিবার, দ্বাদশী ৫/৩২/৪৭ দিবা ৭/১৩/২৬। চিত্রানক্ষত্র ৫৭/১১/১৩ রাত্রি ৩/৫২/৪৮, সূ উ ৫/০/১৯, অ ৬/৭/১৫, অমৃতযোগ দিবা ৩/৩৪ গতে ৬/৭ মধ্যে এবং রাত্রি ৬/৫৮ গতে ৯/৪ মধ্যে ও ১১/৫৬ গতে ২/৪ মধ্যে ও ৩/৩০ গতে ৫/০ মধ্যে, বারবেলা ৪/২৮/৫৩ গতে ৬/৭/১৫ মধ্যে, কালবেলা ২/৫০/৩১ গতে ৪/২৮/৫৩ মধ্যে, কালরাত্রি ১১/৩৩/৪৭ গতে ১২/৫৫/২৫ মধ্যে।
১০ রমজান
এই মুহূর্তে
ঝড়-বৃষ্টিতে তার ছিঁড়ে অন্ধকারে ডুবল জলপাইগুড়ি
জলপাইগুড়ি শহরের বিস্তীর্ন অংশ ডুবে রয়েছে অন্ধকারে। সন্ধ্যা থেকে ঝড়-বৃষ্টির ...বিশদ

08:10:08 PM

ডায়মন্ডহারবারের এসডিপিও এবং আমহার্স্ট স্ট্রিট থানার ওসিকে সরিয়ে দিল নির্বাচন কমিশন

07:27:00 PM

বিমান সংস্থার উপর চটলেন শ্রেয়া
বিমানে বাদ্যযন্ত্র নিয়ে যেতে বাধা দেওয়া হয় সঙ্গীতশিল্পী শ্রেয়া ঘোষালকে। ...বিশদ

06:21:47 PM

ভোটের দিন গরম বাড়বে
উত্তর বঙ্গের পাঁচ জেলায় বৃষ্টির সম্ভাবনা থাকলেও ভোটের দিন কিন্তু ...বিশদ

06:10:39 PM

এবার কমিশনের তোপের মুখে খোদ সিইও দপ্তরের আধিকারিকরাই
রাজনৈতিক দল ও রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব নয়। এবার নির্বাচন কমিশনের তোপের ...বিশদ

05:49:03 PM

সল্টলেকে ৪০ লক্ষ টাকা সহ ধৃত ১
রবিবার ভোট। ঠিক তার মুখে আজ বৃহস্পতিবার সল্টলেকের এফ ই ...বিশদ

05:39:55 PM