রাজ্য

আত্মহত্যা নয়, খড়্গপুর আইআইটির ছাত্রকে গুলি করে খুন করা হয়েছিল

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা ও মেদিনীপুর: আত্মহত্যা নাকি খুন? খড়্গপুর আইআইটির পড়ুয়া ফাইজান আহমেদের রহস্যমৃত্যু নিয়ে কম জল ঘোলা হয়নি। আইআইটি কর্তৃপক্ষ থেকে পুলিস— শুরু থেকে আত্মহত্যার তত্ত্বেই সিলমোহর দেওয়ার ‘চেষ্টা’ করেছিল। অবশেষে ঘটনার দু’বছর পর উঠে এল চাঞ্চল্যকর তথ্য। জানা যাচ্ছে, খুনই করা হয়েছে ফাইজানকে। প্রথমে তাঁর মাথায় একটি ভারী বস্তু দিয়ে আঘাত করা হয়েছিল। এমনকী ঘাড়ে ছুরি মারা হয়েছিল। তারপরও মৃত্যু নিশ্চিত করতে কানের নীচে পিছনের দিকে পয়েন্ট ব্ল্যাঙ্ক রেঞ্জ থেকে গুলি করা হয়েছিল। আগামী মঙ্গলবার হাইকোর্টে এই মর্মে রিপোর্ট জমা পড়তে চলেছে বলে খবর। হাইকোর্টের নির্দেশে কবর থেকে দেহ তুলে দ্বিতীয়বার ময়নাতদন্তে এই খুনের সত্য সামনে এসেছে। বিষয়টি জানাজানি হতেই শোরগোল পড়ে গিয়েছে। পুলিসি রিপোর্ট ও আইআইটি কর্তপক্ষের ভূমিকা নিয়ে বিস্তর প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। 
২০২২ সালের ১৪ অক্টোবর খড়্গপুর আইআইটির হস্টেল থেকে মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র ফাইজান আহমেদের (২৩) পচাগলা দেহ উদ্ধার হয়।  তাঁর বাড়ি অসমে। সহপাঠীরা দাবি করেছিলেন, ঘটনার কয়েকদিন আগে থেকেই তাঁকে দেখতে পাওয়া যাচ্ছিল না। ফোনও তোলেনি। পুলিসের দাবি, হস্টেলে ফাইজানের ঘরের ভিতর থেকে তালা লাগানো ছিল। পুলিস এসে ঘরের দরজা ভেঙে মৃতদেহ উদ্ধার করে। পচাগলা দেহটি মেঝেতেই পড়ে ছিল। পুলিস প্রথম থেকেই ঘটনাটিকে আত্মহত্যা বলে দাবি করলেও যুবকের পরিবারের অভিযোগ, র‌্যাগিং করেই খুন করা হয়েছে তাঁকে। এনিয়ে কলকাতা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হয় যুবকের পরিবার। 
গত বছর ফেব্রুয়ারিতে মামলার শুরু থেকেই আদালতে বেকায়দায় পড়ে পুলিস। রাজ্যের তরফে যুক্তি দেওয়া হয়, গরমের ছুটিতে ফাইজান বাড়ি না গিয়ে হস্টেলেই ছিলেন। চাকরি না পাওয়ার অবসাদ থেকেই তিনি আত্মহত্যা করে থাকতে পারেন। আদালতে পুলিস জানায়, ১০টি ট্যাবলেট কিনেছিলেন যুবক। চারটি খেয়েছিলেন। তবে শরীরে কোনও বিষ পাওয়া যায়নি। ফাইজানের দেহের দ্বিতীয়বার ময়নাতদন্তের নির্দেশ দেয় হাইকোর্ট। নতুন করে মতামত জানাতে অবসরপ্রাপ্ত অটোপসি সার্জেন অজয়কুমার গুপ্তকে দায়িত্ব দেন বিচারপতি। এর সঙ্গে আইপিএস অফিসার কে জয়রামনের নেতৃত্বে সিট গঠন করে তদন্তের নির্দেশও দেয় হাইকোর্ট।
এরইমধ্যে গত বছর মে মাসে দেহ কবর থেকে তুলে দ্বিতীয়বার ময়নাতদন্ত করা হয়। গত ২১ মে বিচারপতি জয় সেনগুপ্তের এজলাসে সেই রিপোর্ট জমা দিয়েছেন অজয়বাবু। তাতেই এই তথ্য সামনে এসেছে। অজয়বাবু সংবাদমাধ্যমে দাবি করেন, এটা কোনও সাধারণ মৃত্যু নয়। অস্ত্র ব্যবহার করা হয়েছে। সেইসঙ্গে গুলি করা হয়েছে। পড়ুয়ার চোয়ালের কাছে কানের নীচে প্রচুর রক্ত ​​ও ক্ষতচিহ্ন ছিল। এমনকী এইসব তথ্য পুলিসি রিপোর্টে উল্লেখ ছিল না বলেও দাবি করেন তিনি। ঘটনায় মুখে কুলুপ এঁটেছে আইআইটি কর্তৃপক্ষ। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক আধিকারিক বলেন, আমরা সবসময় চেয়েছি, সত্য সামনে আসুক। তদন্তে সবরকম সহযোগিতা করেছি। মঙ্গলবার মামলার শুনানি। সেখানেই হাইকোর্ট গঠিত সিটের তরফে রিপোর্ট জমা পড়ার কথা। 
1Month ago
কলকাতা
দেশ
বিদেশ
খেলা
বিনোদন
ব্ল্যাকবোর্ড
শরীর ও স্বাস্থ্য
বিশেষ নিবন্ধ
সিনেমা
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
আজকের দিনে
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
mesh

পারিবারিক সম্পত্তি সংক্রান্ত আইনি কর্মে ব্যস্ততা। ব্যবসা সম্প্রসারণে অতিরিক্ত অর্থ বিনিয়োগের পরিকল্পনা।...

বিশদ...

এখনকার দর
ক্রয়মূল্যবিক্রয়মূল্য
ডলার৮২.৮৫ টাকা৮৪.৫৯ টাকা
পাউন্ড১০৬.৪৩ টাকা১০৯.৯৫ টাকা
ইউরো৮৯.৬৩ টাকা৯২.৭৮ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
*১০ লক্ষ টাকা কম লেনদেনের ক্ষেত্রে
দিন পঞ্জিকা