দেশ

এনজেপি ছাড়তেই পিছন থেকে ধাক্কা মালগাড়ির, দুর্ঘটনার কবলে কাঞ্চনজঙ্ঘা, মৃত ১১, জখম ৪৪

নিজস্ব প্রতিনিধি ও সংবাদদাতা: কেউ যাচ্ছিলেন চিকিৎসা করাতে। দীর্ঘদিন পর আত্মীয়ের সঙ্গে দেখা করতে রওনা হয়েছিলেন অনেকে। পেটের দায়ে ‘ঘরছাড়া’ যাত্রীর সংখ্যাও কম ছিল না। আপ কাঞ্চনজঙ্ঘা এক্সপ্রেসের জেনারেল কামরায় ঠাসাঠাসি ভিড়। এক লহমায় সব ওলটপালট হয়ে গেল। সোমবার সকাল ৮টা ৫৫। নিউ জলপাইগুড়ি স্টেশন ছাড়িয়ে রাঙাপানি স্টেশন পেরিয়ে দাঁড়িয়ে থাকা কাঞ্চনজঙ্ঘা এক্সপ্রেসের পিছনে প্রচণ্ড গতিতে ধাক্কা মারল একটি মালগাড়ি। ছিটকে গেল কাঞ্চজঙ্ঘার একের পর এক বগি। জেনারেল কামরার একাংশ কার্যত দলা পাকিয়ে যায়। ঘটনার অভিঘাত এতটাই ছিল যে, একটি বগি লাইন থেকে উঠে যায় প্রায় ৩০ ফুট। রেললাইনে ছড়িয়ে পড়ে অসমাপ্ত রেলযাত্রার স্মৃতি। আর একইসঙ্গে এই দুর্ঘটনা ফের প্রশ্ন তুলে দিল রেলযাত্রার নিরাপত্তা নিয়ে। দুর্ঘটনার কারণ তদন্তসাপেক্ষ। তবে রেল সূত্রে খবর, অটোমেটিক সিগন্যালিং সিস্টেম খারাপ ছিল। গলদ থেকে গিয়েছে পেপার লাইন ক্লিয়ার (পিএলসি) ব্যবস্থাতেও। আর সেক্ষেত্রে রেলের বিরুদ্ধে গাফিলতির অভিযোগই স্পষ্ট হচ্ছে। যদিও রেলবোর্ডের চেয়ারপার্সন জয়া ভার্মা সিনহা দাবি করেছেন, ‘মালগাড়ির চালক সিগন্যাল না মানাতেই এই দুর্ঘটনা’। 
এনজেপি থেকে প্রায় ১০ কিমি দূরে রাঙাপানি স্টেশনের কাছে নির্মলজোত। সেটাই ঘটনাস্থল। সরকারি বিবৃতিতে ১১ জনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করা হলেও বেসরকারি হিসেবে মৃতের সংখ্যা কমপক্ষে ১৫। আহত অন্তত ৪৪ জন। জখম ব্যক্তিদের উত্তরবঙ্গ মেডিক্যালে ভর্তি করা হয়েছে। রেলবোর্ডের চেয়ারপার্সন অবশ্য বলেছেন, ‘মালগাড়ির চালক, অ্যাসিস্ট্যান্ট লোকো পাইলট, কাঞ্চনজঙ্ঘা এক্সপ্রেসের গার্ড সহ আটজনের মৃত্যু হয়েছে।’ ২১ বগির ট্রেনটির তিনটি কামরা পুরোপুরি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তাই ১৮টি কামরায় যাত্রীদের নিয়ে বেলা দেড়টা নাগাদ ট্রেনটি ফের কলকাতার দিকে রওনা হয়। ভিড় সামাল দিতে মালদহ স্টেশনে পৌঁছে রাতে আরও দু’টি বগি জুড়ে দেওয়া হয়।
রবিবার সকাল ৮টা ১৫ মিনিটে আগরতলা থেকে ছাড়ে কাঞ্চনজঙ্ঘা এক্সপ্রেস। সোমবার সকালে পৌঁছয় এনজেপি। সেখান থেকে শিয়ালদহের উদ্দেশে রওনা দেয় সকাল ৮টা ৩ মিনিটে। ঝিরঝিরে বৃষ্টির মাঝে ট্রেনটি রাঙাপানি স্টেশন পার হয়ে নিজবাড়ি স্টেশনের দিকে খুব ধীরগতিতে এগচ্ছিল। সিগন্যালিংয়ের সমস্যার জেরে নির্মলজোত এলাকায় সেটি থেমে যায়। তখন ট্রেনটির পিছনে প্রচণ্ড গতিতে এসে ধাক্কা মারে মালদহগামী মালগাড়িটি। সঙ্গে সঙ্গে লাইন থেকে ছিটকে পড়ে কাঞ্চনজঙ্ঘার তিনটি কামরা। তার মধ্যে ছিল একটি করে জেনারেল এবং বিশেষ চাহিদাসম্পন্নদের বগিও। মালগাড়ির ইঞ্জিনের উপরে উঠে যায় কাঞ্চনজঙ্ঘার একটি পার্সেল ভ্যান। রেললাইন থেকে সেটিরই উচ্চতা ছিল প্রায় ৩০ ফুট। পাশে পড়েছিল আর একটি পার্সেল ভ্যান ও জেনারেল কামরা। দুর্ঘটনার অভিঘাতে রেললাইনের একাংশ দুমড়েমুচড়ে যায়। লাইনচ্যুত হয় মালগাড়ির প্রায় ১২টি বগি। মালগাড়ির ইঞ্জিনের একাংশ মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। স্থানীয়রা জানালা ভেঙে ট্রেনের ভিতর থেকে যাত্রী ও রেলকর্মীদের উদ্ধার করেন।
খবর পেয়ে উত্তর-পূর্ব সীমান্ত রেলের অফিসার ও কর্মীরা ঘটনাস্থলে যান। রাজ্য পুলিসের পাশাপাশি আরপিএফ, এনডিআরএফ, বিএসএফ জওয়ানদের নামানো হয়। দার্জিলিং ও উত্তর দিনাজপুর জেলা প্রশাসনও ময়দানে নামে। ভিড় সামাল দেয় রাজ্য পুলিস। দড়ি দিয়ে গোটা এলাকা ঘিরে গ্যাস কাটারের সাহায্যে বগি কেটে যাত্রীদের উদ্ধার করা হয়। তখন কামরার ভিতরে শিশুদের খেলার পুতুল, ব্যাগ, জামাকাপড়, জুতো সহ বিভিন্ন সামগ্রী ছড়িয়ে।
দুর্ঘটনার খবর পেয়ে বিকেলেই ঘটনাস্থলে পৌঁছে যান মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি রেলের পরিকাঠামো এবং যাত্রী নিরাপত্তা নিয়ে রীতিমতো ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে গিয়ে আহতদের চিকিৎসার খোঁজও নেন মুখ্যমন্ত্রী। তড়িঘড়ি চলে আসেন রেলমন্ত্রী অশ্বিনী বৈষ্ণবও। তিনি বলেন, রেলের সেফটি ও সিকিউরিটি বিভাগ তদন্ত শুরু করেছে। মৃতদের পরিবার পিছু দু’লক্ষ এবং আহতদের ৫০ হাজার টাকা করে সাহায্য দেওয়ার ঘোষণা করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। রেলও মৃতদের ১০ লক্ষ টাকা করে দেবে। ত্রিপুরা সরকারও মৃতদের পরিবারকে ২ লক্ষ টাকা করে ক্ষতিপূরণের কথা ঘোষণা করেছে।
1Month ago
কলকাতা
রাজ্য
বিদেশ
খেলা
বিনোদন
ব্ল্যাকবোর্ড
শরীর ও স্বাস্থ্য
বিশেষ নিবন্ধ
সিনেমা
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
আজকের দিনে
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
mesh

পারিবারিক সম্পত্তি সংক্রান্ত আইনি কর্মে ব্যস্ততা। ব্যবসা সম্প্রসারণে অতিরিক্ত অর্থ বিনিয়োগের পরিকল্পনা।...

বিশদ...

এখনকার দর
ক্রয়মূল্যবিক্রয়মূল্য
ডলার৮২.৮৫ টাকা৮৪.৫৯ টাকা
পাউন্ড১০৬.৪৩ টাকা১০৯.৯৫ টাকা
ইউরো৮৯.৬৩ টাকা৯২.৭৮ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
*১০ লক্ষ টাকা কম লেনদেনের ক্ষেত্রে
দিন পঞ্জিকা