বিদেশ

ব্রিটেনে ভোটগ্রহণ শেষ, শুরু গণনা সুনাক না স্টারমার, জানা যাবে আজ

রূপাঞ্জনা দত্ত, লন্ডন: বড়সড় রাজনৈতিক পালাবদলের সম্ভাবনাকে সঙ্গে নিয়ে বৃহস্পতিবার সাধারণ নির্বাচন হল ব্রিটেনে। এদিন স্থানীয় সময় সকাল সাতটায় খুলে যায় সব ভোটগ্রহণ কেন্দ্র। ভোট চলবে স্থানীয় সময় রাত দশটা পর্যন্ত। তারপর শুরু হবে গণনা। মোট ৬৫০ আসনে প্রার্থীদের ভাগ্য নির্ধারিত হবে। সকালেই নির্দিষ্ট কেন্দ্রে গিয়ে ভোট দেন বিদায়ী প্রধানমন্ত্রী ঋষি সুনাক। একইসঙ্গে ভোট দিতে দেখা যায় লেবার নেতা কিয়ার স্টারমারকে। রাজনৈতিক সমীক্ষা অনুযায়ী, এবার নির্বাচনে কনজারভেটিভদের ১৪ বছরের দীর্ঘ শাসনকাল শেষ হতে চলেছে। সব ঠিকঠাক থাকলে টোরিদের বড় ব্যবধানে হারিয়ে সরকার গড়বে লেবার পার্টি। প্রধানমন্ত্রীর গদি হারাবেন সুনাক। তাঁর পরিবর্তে মসনদে বসবেন বর্তমান বিরোধী দলনেতা স্টারমার। সমীক্ষা অনুযায়ী, এবার মূলত তিন দলের মধ্যে নির্বাচনী লড়াই হতে চলেছে। কনজারভেটিভ, লেবার এবং লিবারেল ডেমোক্র্যাট। সেক্ষেত্রে বিরোধীদের মধ্যে ভোট ভাগাভাগি হলে লাভবান হবে সুনাকের দল। গত নির্বাচনেও লিবারেল ডেমোক্র্যাটদের ভোটে ভাগ বসিয়েছিল লেবার পার্টি। প্রসঙ্গত, হাউস অব কমনসে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতার জন্য দরকার ৩২৬ আসন। 
প্রাক্তন প্রধানমপ্ত্রী লিজ ট্রাসের পদত্যাগের পর থেকেই নির্বাচনে এগিয়ে রয়েছে স্টারমারের দল। বর্তমানে প্রায় ২০ পয়েন্টে এগিয়ে রয়েছে লেবার পার্টি। এই ব্যবধান কমার নয়। দিনক্ষণ ঘোষণার পরেই ভোটের সম্ভাব্য ফলাফল নিয়ে পূর্বাভাস দিয়েছে একাধিক সমীক্ষক সংস্থা। 
জুনের শেষে এবিষয় সমীক্ষা চালিয়েছিল ব্রিটেনের অন্যতম সংবাদপত্র দ্য ডেইলি টেলিগ্রাফ। সেখানে দেখা যাচ্ছে, সংবাদপত্রের ৪৯ শতাংশ পাঠক টোরিদের সমর্থক। যদিও ২০১৯ সালে কনজারভেটিভ নেতা বরিস জনসনের পক্ষে ছিলেন ৭৮ শতাংশ পাঠক। সাভান্তা নামক একটি সমীক্ষক সংস্থার সাহায্যে ভোটারদের মতামত জানার চেষ্টা করেছিল ডেইলি টেলিগ্রাফ। সেখানে জানা গিয়েছে, ৫০ বছরের কম বয়সিরা লেবার পার্টিকেই সমর্থন করছেন। ২০১৯ সালেই স্টারমারের পক্ষে গিয়েছিলেন তাঁরা। 
লিজ ট্রাস প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর থেকেই টোরিদের উপর আস্থা হারিয়েছেন ৫০ থেকে ৬৪ বছর বয়সি নাগরিকরা। এক্ষত্রে স্টারমারের দলের পক্ষেই ভোট দেবেন তাঁরা। ২০১৯ সালে মহিলারা মূলত লেবার পার্টিকেই বেছে নিয়েছিলেন। পুরুষদের ভোট গিয়েছিল কনজারভেটিভদের পক্ষে। তবে এবার তেমন কোনও বিভেদ নেই। নারী-পুরুষ নির্বিশেষে সকলেই লেবার পার্টির পক্ষেই মতামত দেবেন বলে জানা গিয়েছে। 
গত নির্বাচনে অন্যতম ইস্যু ছিল ব্রেক্সিট। বিপুল পরিমাণে আসনে জিতে একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়েছিল বরিস জনসনের কনজারভেটিভ পার্টি। বিতর্কের জেরে প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে ইস্তফা দেন বরিস। ১০ ডাউনিং স্ট্রিটের দায়িত্ব নেন লিজ ট্রাস। কিন্তু সেই মেয়াদ একমাসের বেশি স্থায়ী হয়নি। ট্রাসকে সরিয়ে গদিতে বসেছিলেন ব্রিটেনের প্রথম ভারতীয় বংশোদ্ভূত প্রধানমন্ত্রী ঋষি সুনাক। গত ১৮ মাস ধরে পূর্বসূরিদের ভুল ঠিক করার আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়েছেন তিনি। মুল্যবৃদ্ধি ১১ থকে কমিয়ে ২ শতাংশ করেছেন। তবে দলের মধ্যে বাড়তে থাকা গোষ্ঠীকোন্দল থামাতে পারেননি। এসব কারণে কনজারভেটিভটিভদের প্রতি ধীরে ধীরে বিশ্বাস হারিয়েছেন ব্রিটেনবাসী। 
এবারের নির্বাচনে ২৫০ প্রার্থী দক্ষিণ এশীয় বংশোদ্ভূত। তাঁদের মধ্যে প্রায় ৯০ জন ভারতীয় বংশোদ্ভূত। ন্যাশনাল হেলথ সার্ভিস কর্মীদের ১৯ শতাংশ অভিবাসী। ১২ শতাংশ চিকিৎসক ভারতীয় বংশোদ্ভূত। সেক্ষেত্রে লেবার পার্টি ক্ষমতায় এলে প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী স্টারমারের সামনে থাকবে একাধিক বড় চ্যালেঞ্জ। যার মধ্যে অন্যতম, ভারত-বিরোধী মনোভাব দূর করা। একইসঙ্গে রয়েছে ব্রিটেন-ভারত মুক্ত বাণিজ্য চুক্তির বাস্তবায়ন। আজ বিকেলের মধ্যেই নিশ্চিত হয়ে যাবে সুনাক ও স্টারমারের ভবিষ্যৎ।
16d ago
কলকাতা
রাজ্য
দেশ
খেলা
বিনোদন
ব্ল্যাকবোর্ড
শরীর ও স্বাস্থ্য
বিশেষ নিবন্ধ
সিনেমা
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
আজকের দিনে
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
mesh

বিকল্প উপার্জনের নতুন পথের সন্ধান লাভ। কর্মে উন্নতি ও আয় বৃদ্ধি। মনে অস্থিরতা।...

বিশদ...

এখনকার দর
ক্রয়মূল্যবিক্রয়মূল্য
ডলার৮৩.২৩ টাকা৮৪.৩২ টাকা
পাউন্ড১০৬.৮৮ টাকা১০৯.৫৬ টাকা
ইউরো৯০.০২ টাকা৯২.৪৯ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
*১০ লক্ষ টাকা কম লেনদেনের ক্ষেত্রে
21st     July,   2024
দিন পঞ্জিকা