Bartaman Patrika
চাষ আবাদ
 

 হারিয়ে যাওয়া দেশি সুগন্ধী ‘হরিণখুড়ি’ ধান ফিরিয়ে নজর কাড়লেন সাগরের কৃষকরা

ব্রতীন দাস : হারিয়ে যাওয়া দেশি সুগন্ধী ধান ‘হরিণখুড়ি’ ফিরিয়ে নজির গড়লেন সাগরের কৃষকরা। বহু বছর আগে সাগরের বিভিন্ন এলাকায় এই ধানটি চাষ হতো। কিন্তু বারবার প্রাকৃতিক বিপর্যয় ও ঠিকমতো ফলন না মেলায় ধীরে ধীরে এর চাষ কমতে থাকে। দীর্ঘ কয়েক দশক পর বিধানচন্দ্র কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগিতায় ফের এই ধানটি ফিরিয়ে রীতিমতো সাড়া ফেলে দিয়েছেন সাগরের চাষিরা। এ বছর খরিফ মরশুমে সাগরের বিভিন্ন গ্রামে প্রায় দেড়শো বিঘা জমিতে চাষ হচ্ছে হরিণখুড়ি ধানের। সাগরের সুমতিনগর, খাসরাম, কমলপুর, বিষ্ণুপুর, হরিণবাড়ি, গঙ্গাসাগর, দক্ষিণ হারাধনপুর, উত্তর হারাধনপুর এলাকায় হরিণখুড়ি ধানের চাষ করছেন কৃষকরা। অবন্তী মান্না, অমিয় নাগ, নারায়ণ জানা, শিবশঙ্কর পাণ্ডা, সুব্রত দাসের মতো চাষিরা দেশি সুগন্ধী এই ধানটি চাষে এগিয়ে এসেছেন। তাঁদের পাশে দাঁড়িয়েছে সাগরের স্বামী বিবেকানন্দ ইউথ কালচারাল সোসাইটি। এই সংগঠনের উদ্যোগেই মূলত হারিয়ে যাওয়া হরিণখুড়ি ধানটি ফের সাগরের বুকে চাষ শুরু হয়েছে।
হরিণখুড়ি ধানের বিশেষত্ব হল, লবণাক্ত জমিতেও এই ধানটি চাষ করা যায়। বিঘায় ১২-১৩ মণ ফলন পাওয়া যায়। জমিতে জল জমা সহ্য করতে পারে। এই ধানের চিড়ে দারুণ সুস্বাদু। খই ভালো হয়। ধানের দুই মাথা কালচে। দেখতে অনেকটা হরিণের চোখের মতো। চাল মাঝারি সরু। ছোট দানা। সাগরের প্রবীণ কৃষকরা জানিয়েছেন, অনেক বছর আগে ওই এলাকায় এই ধানটি চাষ হতো। নদীর জল ঢুকে অনেক জমি নষ্ট হয়ে যায়। তারপরও কিছু জমিতে এই ধানটি টিকে ছিল। পরে তা ধীরে ধীরে হারিয়ে যায়। স্বামী বিবেকানন্দ ইউথ কালচারাল সোসাইটির সম্পাদক শুকদেব নাথ জানিয়েছেন, বেশ কয়েক বছর আগে স্থানীয় কমলপুর গ্রামের এক কৃষকের কাছে প্রথম ধানটি পাওয়া যায়। তখন ধানটির পরিচয় জানা যায়নি। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, তিনি মন্দিরতলা এলাকার কৃষক দেবাশিস বেরার কাছ থেকে ওই ধান সংগ্রহ করেছেন। দেবাশিসবাবুর কাছে জানা যায়, পূর্ব মেদিনীপুরেও এই ধান চাষ হয়। এর পর ধানটির নমুনা নিয়ে বিধানচন্দ্র কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগাযোগ করেন তাঁরা। সেখানে বিজ্ঞানীরা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে জানান, ধানটির নাম হরিণখুড়ি। বিধানচন্দ্র কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় চাষ করে এই দেশি সুগন্ধী ধানটির বীজের পরিমাণ বাড়ায়। তার পর তা সাগরের কৃষকদের হাতে তুলে দেওয়া হয় চাষের জন্য। ২০১২ সাল থেকে সাগরে নতুন করে হরিণখুড়ি ধানটির চাষ শুরু হয়েছে। প্রতি বছর এলাকা বাড়ছে। হরিণখুড়ি জাতটি ছাড়াও বিবেকানন্দ ইউথ কালচারাল সোসাইটির কাছে অনেক প্রজাতির ধানের বীজ রয়েছে। যেগুলির অধিকাংশই একসময় বিভিন্ন এলাকায় চাষ হলেও এখন হারিয়ে গিয়েছে কিংবা অবলুপ্তপ্রায়। শুকদেববাবু জানিয়েছেন, এই মুহূর্তে তাঁদের কাছে ২১২ ভ্যারাইটির ধানের বীজ রয়েছে। দেশি ধানের বীজ সংরক্ষণের জন্য ২০১৬ সালে ভারত সরকারের বীজ সংরক্ষণ বিভাগ থেকে ১০ লক্ষ টাকা পুরস্কারও পেয়েছে তাঁদের সোসাইটি। ওই টাকায় ধান ভাঙানোর আধুনিক মেশিন বসানোর পরিকল্পনা রয়েছে তাঁদের।
বিধানচন্দ্র কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. মৃত্যুঞ্জয় ঘোষ জানিয়েছেন, সাগরে চাষের জন্য আমরা হরিণখুড়ি ধানের বীজ দিয়েছি। খরিফে ওই ধানটি চাষের জন্য প্রযুক্তি দেওয়া হবে চাষিদের। চাষের বিভিন্ন খুঁটিনাটি নিয়ে প্রশিক্ষণও দেওয়া হয়েছে। আমরা চাই, হারিয়ে যেতে বসা দেশি সুগন্ধী ধানগুলি এভাবেই বাঁচিয়ে রাখুন কৃষকরা। কৃষকরা জানিয়েছেন, হরিণখুড়ি ধানটি মাঝারি জমিতে ভালো হয়। গাছের উচ্চতা ৫ ফুটের মতো হয়। রোগপোকা সহনশীল। ১৩৫-১৪০ দিনে ফলন পাওয়া যায়। ধৈঞ্চা ও জৈবসার দিয়ে চাষের কথা বলছেন কৃষি আধিকারিকরা। বিধানচন্দ্র কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে হরিণখুড়ি ধানের ৪০ কেজি বীজ দেওয়া হয়েছে। বাকিটা দিয়েছে বিবেকানন্দ ইউথ কালচারাল সোসাইটি। একেবারে বিনামূল্যে না দিয়ে তারা কেজি প্রতি বীজের জন্য ৫ টাকা করে নিচ্ছে।
ড. মৃত্যুঞ্জয় ঘোষ জানিয়েছেন, আমাদের রাজ্যে প্রায় এক লক্ষ হেক্টর জমিতে দেশি সুগন্ধী ধানের চাষ হয়। মোট ৩ লক্ষ টন ধান উৎপাদন হয়ে থাকে। যার বেশিরভাগটাই এ রাজ্যে বিক্রি হয়ে যায়। কিছুটা দক্ষিণ ভারতে যায়।

03rd  July, 2019
 আমনে ভালো ফলন পেতে নিয়ম মেনেই বীজ শোধন জরুরি

 অলোক বন্দ্যোপাধ্যায়: আমন ধান চাষে রোগপোকার আক্রমণ রোধ করার সঙ্গে ভালো উৎপাদন পেতে হলে সঠিক নিয়ম মেনে বীজ শোধন করে নিয়ে ভালো পুষ্ট বীজ ধান থেকে চারা তৈরি করতে হবে। বীজে অনেক সময় ফসলের ঝলসা, ধসা ও চিটে ইত্যাদি নানা ধরনের রোগের জীবাণু থাকে।
বিশদ

03rd  July, 2019
ধানচাষের ‘সুধা’ পদ্ধতি নিয়ে প্রশিক্ষণ

 সংবাদদাতা: এ বছর বর্ষা দেরিতে। অনেক জায়গায় বীজতলা তৈরির কাজ শুরু করতে পারেননি কৃষকরা। কোথাও বীজতলা তৈরি হলেও জলের অভাবে মার খাচ্ছে। কৃষি বিশেষজ্ঞদের বক্তব্য, বীজতলা ভালো না হলে চারা দুর্বল হবে। আবার বীজতলা তৈরির সময় পিছিয়ে গেলে ফলন কমতে পারে।
বিশদ

03rd  July, 2019
 ‘গাড়োল’ভেড়া পালনে লাভ বেশি

 নবজ্যোতি সরকার: উত্তর ২৪ পরগনার সুন্দরবন অঞ্চল অর্থাৎ হাসনাবাদ, হিঙ্গলগঞ্জ এবং সন্দেশখালি ১ ও ২ নম্বর ব্লকে গাড়োল প্রজাতির ভেড়া পালন হচ্ছে। প্রাণী বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, বাণিজ্যিক উপায়ে এই ভেড়ার চাষ করে পালকদের আয় অনেকগুণ বাড়বে। এজন্য বৈজ্ঞানিক উপায় অবলম্বন করতে হবে।
বিশদ

03rd  July, 2019
 বর্ষাকালীন বরবটি লাভ দেবে চাষিকে

 সংবাদদাতা: বর্ষাকালীন সব্জি চাষের মধ্যে বরবটির চাষ করলে কৃষকরা ভালো আয় করতে পারবেন। বরবটি চাষের জন্য এখন থেকে প্রস্তুতি শুরু করতে হবে। বর্ষাকালীন বরবটি লাগানোর উপযুক্ত সময় আষাঢ়-শ্রাবণ মাস। উন্নত জাতের মধ্যে কল্যাণপুর ভ্যারাইটি ভালো।
বিশদ

03rd  July, 2019
দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলায় বাড়ছে হাইব্রিড বেগুন চাষ

 সংবাদদাতা: দক্ষিণ-পূর্ব সুন্দরবন অর্থাৎ দক্ষিণ ২৪ পরগনার বাসন্তী, গোসাবা, ক্যানিং ১ ও ২, কুলতলি, জয়নগর ১ ও ২ ব্লকে ব্যাপক হারে হাইব্রিড বেগুনের চাষ চলছে। চাষিরা জানিয়েছেন, শীতকালে সুন্দরবনে মাটির উপরিভাগে নুন উঠে আসে। কৃষি বিজ্ঞানীদের পরামর্শমতো চৈত্র মাসের প্রথমে তাঁরা বর্ষাকালীন বেগুনের জন্য জমিতে লাঙল দিয়েছেন।
বিশদ

26th  June, 2019
হাসনাবাদে ৩০০ বিঘা জমিতে এবার মেশিনে বোনা হবে ধানের চারা

 নিজস্ব প্রতিনিধি: উত্তর ২৪ পরগনার হাসনাবাদ ব্লকে যন্ত্রের সাহায্যে এবার ৩০০ বিঘা জমিতে আমন ধান চাষের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। ব্লকের সহ কৃষি অধিকর্তা জাহাঙ্গীর আলম জানিয়েছেন, প্রতীক্ষা, গোটরা বিধান-৩, অজিত, জয়া প্রভৃতি ভ্যারাইটির ধান চাষ করানো হবে। এছাড়াও কৃষকরা নিজেদের পছন্দমতো ভ্যারাইটির ধান চাষ করতে পারেন।
বিশদ

26th  June, 2019
কোচবিহারে ৬ হাজার বিঘা জমিতে যন্ত্রের সাহায্যে আমন ধানচাষ হচ্ছে

 নিজস্ব প্রতিনিধি: কোচবিহার জেলায় এবার ৬ হাজার বিঘা জমিতে যন্ত্রের সাহায্যে আমন ধান বোনার লক্ষ্যমাত্রা নেওয়া হয়েছে। এজন্য ৪০টি স্বনির্ভর গোষ্ঠী ও বেশকিছু ফার্মার্স প্রোডিউস অর্গানাইজেশন (এফপিও)-কে ধানের চারা তৈরি করার বরাত দেওয়া হয়েছে। তারা ট্রে ও পলিথিন শিটের উপর ধানের চারা তৈরি করছে।
বিশদ

26th  June, 2019
উত্তর ২৪ পরগনায় চিতল ও তেলাপিয়ার যৌথ চাষ চলছে

নবজ্যোতি সরকার: চিতল মাছের সঙ্গে তেলাপিয়ার যৌথ চাষ করলে আশাতীত উৎপাদন মিলবে। এতে লাভও বাড়বে অনেকটাই। উত্তর ২৪ পরগনার কৃষি বিজ্ঞান কেন্দ্রের মৎস্য বিভাগের বিষয়বস্তু বিশেষজ্ঞ অনিন্দ নায়েক জানিয়েছেন, চিতল খুবই দামি মাছ।
বিশদ

26th  June, 2019
ফসলে সাদা মাছি ঠেকাতে কোনও ব্যবস্থাই কাজ করছে না
উদ্বিগ্ন কৃষি দপ্তর

শ্যামল সেন, হলদিয়া: প্রচণ্ড গরমের কারণে নারকেল, পান সহ বিভিন্ন অর্থকরী বাগিচা ফসলে মেক্সিকান সাদা মাছির উপদ্রব ঠেকাতে কোনও প্রতিকারমূলক ব্যবস্থাই কাজ করছে না। ফলে, উদ্বিগ্ন পূর্ব মেদিনীপুর জেলা কৃষি দপ্তর।
বিশদ

26th  June, 2019
বিদেশে যাচ্ছে বাঁকুড়ার আম, ফলছে মোসম্বি
জেলায় চাষ হচ্ছে বেদানা, স্ট্রবেরি, ড্রাগন ফ্রুট, ফলচাষ বাড়াতে উদ্যোগী উদ্যানপালন দপ্তর

ব্রতীন দাস: রাজ্যের গণ্ডি ছাড়িয়ে দেশে সমাদৃত হয়েছে আগেই। এখন বিদেশেও রপ্তানি হচ্ছে বাঁকুড়ার আম। বিশেষ করে বাঁকুড়ার আম্রপালি আম যাচ্ছে দুবাইতে। সেখান থেকে কাতার। বিদেশে আম রপ্তানি হওয়ায় মিলছে ভালো দাম।
বিশদ

26th  June, 2019
 অল্প খরচেই কম্পোস্ট সার

 অলোক বন্দ্যোপাধ্যায়: অল্প খরচে কম সময়ে কম্পোস্ট সার তৈরি করে চাষিরা তাঁদের চাষের কাজে ব্যবহার করতে পারেন। একইসঙ্গে অতিরিক্ত কম্পোস্ট সার বিক্রি করে তাঁরা আর্থিকভাবে লাভবানও হতে পারেন।
বিশদ

19th  June, 2019
 বাজারে সারাবছরই চাহিদা, মুগ ডাল চাষে মিলবে লাভ

  সংবাদদাতা: মুগ ডালের চাষ খুবই লাভজনক। বাজারে মুগডালের চাহিদা সবচেয়ে বেশি থাকে। সেইসঙ্গে দামও বেশি থাকে। রাজ্যের বিভিন্ন জেলায় মুগডালের চাষ কম হওয়ায় অন্য রাজ্য থেকে মুগ নিয়ে আসা হয় আমাদের রাজ্যে মুগডালের চাহিদা মেটানোর জন্য।
বিশদ

19th  June, 2019
 তেহট্টে শুঁয়োপোকার দাপটে পাটে ক্ষতির শঙ্কা

 সৌরভ ভট্টাচার্য : তেহট্ট মহকুমাজুড়ে পাটগাছে ব্যাপকভাবে শুঁয়োপোকার আক্রমণ ঘটেছে। এলাকার বহু পাটের জমিতে শুঁয়োপোকা ভরে গিয়েছে। চাষিরা বলেন, শুঁয়োপোকার উপদ্রব না কমলে আগামীদিনে পাটচাষে ব্যাপক ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা থাকছে। গোটা জেলার সঙ্গে তেহট্ট মহকুমাতেও ভালো পাটচাষ হয়।
বিশদ

19th  June, 2019
 একাঙ্গী চাষে খরচ কম, বিঘায় আয় লাখ টাকা

ব্রতীন দাস: একাঙ্গী একটি লাভজনক চাষ। এ রাজ্যের যেকোনও অঞ্চলে এটি চাষ করা যায়। একাঙ্গী কন্দযুক্ত ভেষজ উদ্ভিদ। কন্দ মাটির নীচে হয়। এটি চন্দ্রমূলি নামেও পরিচিত। দেখতে অনেকটা কচুরিপানার মতো। সবুজ রঙের বড় পাতা হয়। গাছের গোড়া থেকে একসঙ্গে ৮-১০টি পাতা বের হয়। সাত থেকে নয় মাসে ফসল তোলা যায়।
বিশদ

19th  June, 2019

Pages: 12345

একনজরে
 ম্যাঞ্চেস্টার, ১০ জুলাই: জেমস নিসামের বল যুজবেন্দ্র চাহালের ব্যাটের কানা ছুঁয়ে উইকেটরক্ষক টম লাথামের দস্তানায় জমা পড়তেই অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন বুকে টেনে নিলেন মার্টিন গাপটিলকে। ...

 কুলগাঁও, ১০ জুলাই (পিটিআই): বছরের অন্য সময়ে যেখানে অনবরত গুলির শব্দ সন্ত্রাসের আবহ তৈরি করে, মঙ্গলবার সেখানেই শোনা গেল শঙ্খধ্বনি, বৈদিক মন্ত্র। দক্ষিণ কাশ্মীরের কুলগাঁওয়ে তিনটি প্রাচীন মন্দিরে জঙ্গি সন্ত্রাসকে উপেক্ষা করেই কাশ্মীরি পণ্ডিতরা আয়োজন করলেন যজ্ঞানুষ্ঠান। ...

 অভিজিৎ চৌধুরী  মালদহ, বিএনএ: গৌড়বঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়ে লাগাতার নানান অশান্তি এবং অভিযোগের প্রেক্ষিতে এবার উপাচার্যকে ডেকে পাঠালেন রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী। আগামী ১৪ই জুলাই কলকাতায় উপাচার্যকে বৈঠকে থাকার জন্য বলেছেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। ...

  সংবাদদাতা, খড়্গপুর: নারায়ণগড়ের কুশবসান পঞ্চায়েতের গেনুয়া রেড়িপুর গ্রামে বুধবার তৃণমূল নেতাদের বাড়িতে হামলার অভিযোগ উঠল বিজেপির বিরুদ্ধে। এই ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়ায়। তৃণমূলের অভিযোগ, ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

আবেগের বশে কোনও কাজ না করাই ভালো। দাম্পত্য জীবনে বনিবনার অভাবে সংসারে অশান্তি বাড়বে। কর্মে ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

বিশ্ব জনসংখ্যা দিবস
১৮২৩ সালের এই দিনে ভারতের তৈরি প্রথম জাহাজ ডায়না কলকাতা বন্দর থেকে আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু করে।
১৮৮৯ সালের এই দিনে অবিভক্ত ভারতের কলকাতায় প্রথম প্রতিযোগিতামূলক ফুটবল টুর্নামেন্ট শুরু হয়।
১৯২১: মঙ্গোলিয়ায় গণপ্রজাতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করল লাল ফৌজ
১৯৩০ সালের এই দিনে অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটার ডন ব্রাডম্যান এক দিনে ৩০৯ রান করার রেকর্ড করেন, পরে টেস্ট ম্যাচে তা ৩৩৪ রানের সর্বোচ্চ রেকর্ড হয়েছিল।
১৯৫৬: সাহিত্যিক অমিতাভ ঘোষের জন্ম
১৯৬২: প্রথম ট্রান্সআতলান্তিক স্যাটেলাইট টেলিভিশনের সম্প্রচার শুরু হল
১৯৬৭: সাহিত্যিক ঝুম্পা লাহিড়ির জন্ম
১৯৭২: বিশ্ব দাবা চ্যাম্পিয়নশিপে প্রথম খেলা ববি ফিশার ও বরিস স্পাসকির মধ্যে শুরু হল
১৯৭৯: মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রথম মহাকাশ স্টেশন স্কাইল্যাব পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলে প্রবেশ করে। সেটিকে ভারত মহাসাগরে ফেলে ধ্বংস করা হয়।
২০০৬: মুম্বইয়ে ধারাবাহিক বিস্ফোরণে ২০৯জনের মৃত্যু
২০১২: আবিষ্কার হল প্লুটোর পঞ্চম উপগ্রহ এস/২০১২ পি ১



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৭.৮৩ টাকা ৬৯.৫২ টাকা
পাউন্ড ৮৩.৯৪ টাকা ৮৭.০৭ টাকা
ইউরো ৭৫.৪৬ টাকা ৭৮.৩৮ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৪,৭৬৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩২,৯৮৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৩,৪৮০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৩৮,০৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৩৮,১৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

২৬ আষা‌ঢ় ১৪২৬, ১১ জুলাই ২০১৯, বৃহস্পতিবার, দশমী ৫০/০ রাত্রি ১/৩। স্বাতী ২৭/১১ দিবা ৩/৫৫। সূ উ ৫/২/৪৯, অ ৬/২১/১, অমৃতযোগ দিবা ৩/৪১ গতে অস্তাবধি। রাত্রি ৭/৪ গতে ৯/১২ মধ্যে পুনঃ ১২/৩ গতে ২/১২ মধ্যে পুনঃ ৩/৩৮ গতে উদয়াবধি, বারবেলা ৩/১ গতে অস্তাবধি, কালরাত্রি ১১/৪২ গতে ১/২ মধ্যে।
২৫ আষাঢ় ১৪২৬, ১১ জুলাই ২০১৯, বৃহস্পতিবার, নবমী ০/১৫/১৭ প্রাতঃ ৫/৮/৪৭ পরে দশমী ৫৬/১২/২১ রাত্রি ৩/৩১/৪০। স্বাতীনক্ষত্র ৩৫/৩৮/১৯ রাত্রি ৭/১৮/৪, সূ উ ৫/২/৪৪, অ ৬/২৩/১০, অমৃতযোগ দিবা ৩/৪২ গতে ৬/২৩ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/৪ গতে ৯/১৩ মধ্যে ও ১২/৪ গতে ২/১২ মধ্যে ও ৩/৩৭ গতে ৫/৩ মধ্যে, বারবেলা ৪/৪৩/৬ গতে ৬/২৩/১০ মধ্যে, কালবেলা ৩/৩/৩ গতে ৪/৪৩/৬ মধ্যে, কালরাত্রি ১১/৪২/৫৭ গতে ১/২/৫৪ মধ্যে।
৭ জেল্কদ
এই মুহূর্তে
আজকের রাশিফল
মেষ: খেলাধুলায় বিশেষ সাফল্য। বৃষ: কর্মসূত্রে বিদেশ সফরের সুযোগ। মিথুন: সৃষ্টিশীল কাজে ...বিশদ

07:11:04 PM

ইতিহাসে আজকের দিনে

বিশ্ব জনসংখ্যা দিবস১৮২৩ সালের এই দিনে ভারতের তৈরি প্রথম জাহাজ ...বিশদ

07:03:20 PM

 বিশ্বকাপ: অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে ফাইনালে ইংল্যান্ড

09:49:59 PM

 বিশ্বকাপ: ইংল্যান্ড ২১০/২ (৩০ ওভার)

09:41:16 PM

 বিশ্বকাপ: ইংল্যান্ড ১৪৭/২ (২০ ওভার)

08:55:51 PM

বিশ্বকাপ: ইংল্যান্ড ৫০/০ (১০ ওভার)

08:00:01 PM