বিশেষ নিবন্ধ
 

আমেরিকায় এখনও কৈশোর বিবাহ বন্ধ হয়নি

আলোলিকা মুখোপাধ্যায়: উত্তর নিউজার্সির প্যাটারসন শহরে বহু সংখ্যক বাংলাদেশির বসবাস। আঞ্জুমন মাসুদ সেখানকার এক টিন-এজ মাদার। ১৪ বছর বয়সে বিয়ে হয়ে এখন দুই ছেলে-মেয়ের মা। না শেষ হয়েছে তার স্কুলের পড়াশোনা, না মিটেছে তার কিশোরী বয়সের কোনও আশা, আকাঙ্ক্ষা। বাবা-মার জোর জবরদস্তির চাপে বাংলাদেশে গিয়ে ২৫ বছরের ফজলুলকে সে বিয়ে করতে বাধ্য হয়েছে। এরকম ঘটনা আমেরিকার অধিবাসী মুসলমান পরিবারে নতুন নয়। আমেরিকায় গোঁড়া ইহুদি ‘হ্যাসিডিক জিউ’দের মধ্যেও কিশোরী বিবাহের প্রচলন আছে। প্রশ্ন হচ্ছে, তবে কি এদেশে বিয়ের সর্বনিম্ন বয়স নিয়ে কোনও কঠোর আইন নেই?
গত নব্বই বছর ধরে এদেশের প্রায় চল্লিশটি রাজ্যে ষোলো বছর বা তার কমবয়সি মেয়েদের বিয়ে দেওয়া আইনবিরুদ্ধ নয়। ১৯২৯ সালের বিবাহ আইন অনুযায়ী অভিভাবক এবং কোর্টের অনুমতি নিয়ে ১৪/১৫ বছরের মেয়ের বিয়ে হতে পারে, আর ১৬/১৭ বছর বয়সে বাবা-মার সম্মতিই যথেষ্ট। যেখানে কোর্ট হস্তক্ষেপ করতে পারে না। আঞ্জুমন মাসুদের ক্ষেত্রে সেটা সম্ভব হয়েছিল। প্রথমত: তাদের পরিবারের রক্ষণশীলতা। দ্বিতীয়ত: সে নিউজার্সি স্টেটের বাসিন্দা বলে। নিউইয়র্ক, নিউজার্সিতে এখনও নব্বই বছরের পুরানো বিবাহ আইনের সুযোগ নিয়ে কিশোরী বিবাহ সম্ভব হচ্ছে। আবার এমন কিছু রাজ্য আছে, যেখানে আইনত মেয়েদের বিয়ের সর্বনিম্ন বয়স বলে কোনও কঠোর নির্দেশ নেই। গত পনেরো বছরে নিউইয়র্ক রাজ্যে প্রায় চার হাজার মেয়েরই অল্প বয়সে বিয়ে হয়েছে। যদিও অধিকাংশ ‘শুভবিবাহ’ সম্পন্ন হয়েছে বাংলাদেশ, পাকিস্তান, নয়তো মিডল-ইস্টে। শুধু যুবক নয়, আধবুড়ো বরও ‘গ্রিনকার্ডের’ দৌলতে এদেশে চলে আসতে পেরেছে। নিউইয়র্কের ব্রুকলিন অঞ্চলের মেয়ে সাইদা আশির দশকে সেখানকার হাইস্কুলে খুব ভালো ছাত্রী ছিল। তখন তার পনেরো বছর বয়স। তার স্বপ্ন ছিল কলেজে ডাক্তারি পড়বে। কিন্তু গোঁড়া মুসলমান পরিবার তাকে ২১ বছরের খুড়তুতো দাদাকে বিয়ে করতে বাধ্য করল। সে দাদা থাকত কুয়েতে। সাইদার বাবা আর কুয়েতের কাকা (তাঁর ছেলের গ্রিনকার্ডের জন্য) মিলে তাঁদের ধর্মের দোহাই দিয়ে কাজটি করলেন। সাইদা বুঝেছিল বিয়েতে রাজি না হলে হয় তাকে ঘরে তালাবন্ধ করে রাখা হবে, নয়তো মিডল ইস্টে নিয়ে গিয়ে বিয়ে দেওয়া হবে। যখন কোর্টে জজের সামনে নিজের বিয়ের সম্মতি দেওয়ার আগে কেঁদে ফেলেছে, তখন তার মা সাইদার পায়ে নিজের জুতোর চাপ দিয়ে ভয় দেখাচ্ছেন— রাজি হও। নয়তো তোমার বাবা প্রচণ্ড মারবে। বাকি জীবন ঘরে তালাবন্ধ করে রাখবে। এতই নিচু গলায় সেই শাসানি। ব্রুকলিন কোর্টের সাহেব জজ তা বুঝতেও পারেননি।
বিয়ের পর তিন বছর অনেক দুর্ভোগ, অশান্তি সহ্য করে সাইদা তার ঠাকুমার কাছে পালিয়ে গিয়েছিল। সেই বৃদ্ধা তাঁর দুই ছেলেকে ত্যাগ করার হুমকি দিয়ে সাইদার বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটিয়েছিলেন। তখন তার মাত্র আঠারো বছর বয়স। বছর না শেষ হতে বাবা-মা আবার তার বিয়ে দিলেন। স্কুল পাশ করে সাইদার কলেজে পড়া হল না। চার ছেলে-মেয়ে মানুষ করতেই যৌবন এল, ফিরে গেল। তাও কিছু কিছু কোর্স পাশ করে সে উত্তর নিউজার্সির একটি অফিসে কাজ করে। সাইদা তার ছেলে-মেয়েদের বলে— কলেজের পড়াশোনা শেষ করো। যে প্রফেশনে যেতে চাও, তার জন্যে চেষ্টা করো। সময় এলে, নিজের পছন্দের মানুষকে বিয়ে করবে। এই নিয়ে স্বামীর সঙ্গে মতবিভেদ। সাইদার দাম্পত্যজীবনে সুখ শান্তি কোনওদিনই আসেনি।
নিউইয়র্ক শহরের ব্রুকলিন এলাকা আর নিউজার্সি ও নিউইয়র্ক রাজ্যের সীমান্তে রকল্যান্ড কাউন্টির ছোট ছোট শহরে বহুদিন থেকে মাথায় কালো টুপি আর লম্বা কালো কোটপরা দাড়িওয়ালা ‘হ্যাসিডিক’ ইহুদি সম্প্রদায়ের বাস। এদের ধর্মের গোঁড়ামির মধ্যে এমন রীতি আছে যে, ষোলো বছরের মধ্যে মেয়ের বিয়ে দিতে হবে। সুতরাং সেখানেও মাঝে মাঝে এমন বিয়ে হচ্ছে। কিন্তু, এদেশের মূল সমাজেও পারিবারিক চাপে নয়, নিজের ইচ্ছেমতো অসময়ে বিয়ে করে মেয়েরা ভুলের খেসারত দিচ্ছে। সমীক্ষা থেকে জানা গিয়েছে, ১৮ বছরের নিচে যাদের বিয়ে হয়, তাদের মধ্যে শতকরা সত্তর ভাগের বিবাহ বিচ্ছেদ হয়ে যায়। প্রধান কারণ মেয়েদের হাইস্কুল, কলেজের শিক্ষার অভাব, অর্থকষ্ট এবং কখনও স্বামীর কাছ থেকে মানসিক ও দৈহিক নির্যাতন। শিশু সন্তান থাকলে আরও দুর্গতি। বিবাহ বিচ্ছেদ পেতে সময় লাগে। চোদ্দোবছরে বিয়ে হলেও আইন অনুযায়ী ১৮ বছরের আগে ডিভোর্স পাওয়া যায় না। নির্যাতিতা মেয়েদের জন্যে যেসব ‘শেলটার হোম’ আছে, সেগুলি যদি সরকারি হয়, তবে সেখানেও ১৮ বছর না হলে অনেক সময় আশ্রয় পাওয়া যায় না। সেক্ষেত্রে বাবা, মারও যদি সহানুভূতি না থাকে, মেয়েটি যাবে কোথায়? এদেশের নারী সংগঠনগুলি তখন তাদের শেলটারে আশ্রয় দেয়। বেশ কিছু সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠান থেকে এই মেয়েদের লেখাপড়া শেষ করার সুযোগ, চাকরি ও স্বনির্ভরতার জন্য সাহায্য করে।
কিন্তু এসব তো পুনর্বাসনের কথা। প্রধান সমস্যার সৃষ্টি হচ্ছে অসময়ে বিয়ে হওয়ার জন্যে। নিউইয়র্ক স্টেটের রাজ্যপাল অ্যান্ড্রিউ কোমো বিবাহ আইন সংশোধনের জন্য নতুন বিল অনুমোদনের উদ্যোগ নেওয়ার ফলে সম্প্রতি নিউইয়র্ক স্টেট সেনেটে সংশোধিত বিবাহ আইন পাশ হয়েছে। এক্ষেত্রে ডেমোক্র্যাটিক অ্যাসেম্বলি ওম্যান এমি পলিন ও রিপাবলিকান সেনেটর অ্যান্ড্রিউ ল্যানজা প্রস্তাবটি লিখেছিলেন। কিন্তু নিউইয়র্কের গভর্নরের পক্ষে কাজটি সহজ হয়নি। গত বছর নিউইয়র্কের অ্যাসেম্বলি ম্যানদের জুডিশিয়ারি কমিটির মধ্যেই মতবিভেদ হয়েছিল। বাধা এসেছিল এক ইহুদি অ্যাসেম্বলি ম্যানের কাছ থেকে। কারণ তিনি নির্বাচিত হয়েছেন ব্রুকলিনের হ্যাসিডিক ইহুদিদের বিশেষ এলাকা বোরোপার্ক থেকে। তাঁর বক্তব্য ছিল— ষোলো বছরেই মেয়েরা বিয়ের উপযুক্ত হয়। আজ পর্যন্ত এ নিয়ে কোথাও আপত্তি ওঠেনি। তাহলে আইন সংশোধনের দরকার কী?
তবে তাঁদের বক্তব্য ধোপে টেকেনি। গত মাসে নিউইয়র্ক স্টেট সেনেটে বিল পাস হওয়ার পরে এখন নিউইয়র্ক রাজ্যের অ্যাসেম্বলিতে পাঠানো হয়েছে। গভর্নর কোমোর চেষ্টায় এ বছরের মধ্যেই লেজিসলেশন পাশ হয়ে যাবে। সংশোধিত বিবাহ আইন অনুযায়ী—নিউইয়র্ক রাজ্যে ছেলে-মেয়েদের বিয়ের সর্বনিম্ন বয়স হতে হবে ১৮ বছর। তবে ১৭ বছরেও অভিভাবক ও কোর্টের সম্মতি নিয়ে বিয়ে করা যেতে পারে। সেক্ষেত্রে জজের বিশেষ দায়িত্ব থাকবে। তাঁকে বুঝে নিতে হবে যে, এরা স্বেচ্ছায় বিয়ে করছে, নাকি বাবা, মায়ের হুকুমে বিয়ে করতে বাধ্য হচ্ছে। কিন্তু জজ কি মনস্তত্ত্ব বোঝেন? এখানেই তো নারী সংগঠনগুলির আপত্তি। যে মেয়ে বিয়েতে সম্মতি না দিলে, বাড়ি ফিরে গিয়ে মার খেয়ে মরবে, নয়তো অন্য দেশে গিয়ে বিয়ে করতে বাধ্য হবে, তার কোর্টে দাঁড়িয়ে ‘‘নিজের ইচ্ছেয় বিয়ে করছি’’ বলা ছাড়া আর কী উপায় থাকে?
‘ন্যাশনাল অর্গানাইজেশন ফর উইমেন’-এর পক্ষ থেকে কিশোরী বিবাহের আইন পরিবর্তনের জন্য ওয়াশিংটনে অনেকদিন আগেই আবেদন জানানো হয়েছে। ‘ফ্যামিলি ল’ অর্থাৎ পারিবারিক আইন বিশেষজ্ঞদের তথ্য অনুযায়ী ষোলো বছর বা তার কমবয়সি মেয়েদের বিয়ের পরে প্রায় ৮০ শতাংশ ক্ষেত্রে ডিভোর্স হয়ে যায়। তাঁদের বক্তব্য— নতুন আইন অনুযায়ী ছেলে-মেয়েদের বিয়ের সর্বনিম্ন বয়স একুশ বছর হওয়া উচিত। পরিণত মন এবং স্বনির্ভর হওয়ার মতো স্কুল কলেজের শিক্ষা প্রভৃতির উপর ভিত্তি করেই জীবনের এমন গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেওয়া দরকার।
নিউইয়র্কে ‘আনচেইনড অ্যাটলাস্ট’ নামে একটি মহিলা সংগঠনের কাজ হচ্ছে — যেসব মেয়েকে জোর করে বিয়ে দেওয়া হয়েছে এবং যারা নির্যাতিত হয়ে কোথাও আশ্রয় চাইছে, তাদের সাহায্য করা। এদের শেলটারে এমন মেয়েরাও আসে, যারা বিয়ে করতে রাজি না হওয়ায় বাবা-মার নির্যাতন ভোগ করছে। কোনও মতে বাড়ি থেকে পালিয়ে ওই শেলটারে আশ্রয় নিলে, বাবা-মার জোর জবরদস্তি খাটবে না। সন্তানের উপর মানসিক ও শারীরিক নিগ্রহের অপরাধে অভিযুক্ত হতে পারেন।
আমেরিকায় এখনও প্রায় চল্লিশটি রাজ্যে কিশোরী বিবাহের আইন সংশোধনের কাজ বাকি আছে। তার মধ্যে নিউজার্সি থেকে শুরু করে মিসৌরি পর্যন্ত বেশ কয়েকটি রাজ্যে ইতিমধ্যেই নতুন আইন প্রণয়নের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।
নতুন আইন জারি হলেও নিউজার্সির প্যাটারসন শহরের আঞ্জুমনদের কি বেশিদিন ‘অরক্ষিতা’ রাখা হবে? এই শব্দটাই ব্যবহার করছি। কারণ যে দুশ্চিন্তা থেকে মুক্তি পেতে অল্পবয়সে ওদের বিয়ে দেওয়া হয়, তার একটি কারণ হয়তো ওই শহরের পরিবেশ ও অপরাধের পরিসংখ্যান। প্যাটারসন এক সময় ছিল কলকারখানার শহর। পূর্ব উপকূলের টেক্সটাইল মিলের শহর। সে সব কাপড়ের কল বহু আগেই বন্ধ হয়ে গিয়েছে। কালো আর ইতালিয়ানরা বংশ পরম্পরায় থাকলেও ক্রমশ হিসপ্যানিক আর মিডল-ইস্টার্নদের বসবাস বেড়েছে। নিম্নবিত্ত এলাকায় আছে আরও নানা দেশের আইনি-বেআইনি বাসিন্দা। খুন, জখম, ড্রাগের ব্যাবসা, প্রস্টিটিউশন। সব কিছু নিয়ে ওই শহর, বিশেষত রাতের প্যাটারসন কোনও কালেই নিরাপদ ছিল না। তখন ছিল শুধু কালো গুন্ডার আতঙ্ক। এখন তাদের ক্ষমতার দখল নিচ্ছে হিসপ্যানিক দল। তারই মধ্যে মধ্যবিত্ত পাড়ায় রয়েছে অজস্র বাংলাদেশি পরিবার। যাদের প্রধান ব্যাবসা গ্রোসারি স্টোর, মাছ, মাংসের দোকান। তাদের প্রতিবেশী বলতে খেটে খাওয়া পর্টুরিক্যান ও অন্যান্য হিসপ্যানিক পরিবার।
আঞ্জুমনদের বাবা, মায়ের মনে নানা আশঙ্কা। তেমন ভদ্র, শিক্ষিত পরিবেশ তো নয়। ছেলে-মেয়ে সবাই এক স্কুলে পড়ে। ছুটির পরেও পাড়ায় পাড়ায় ঘুরে বেড়ায়। রাতে বাড়ি ফেরার কোনও বাঁধাধরা টাইম নেই। তাদের প্রতিবেশীদের আজ বিয়ে হচ্ছে। এক গাদা বাচ্চা-কাচ্চা রেখে বর পালিয়ে যাচ্ছে। পাড়ায় পাড়ায় স্টেপ ফাদার, স্টেপ মাদার, মায়ের বয়ফ্রেন্ড, বাবার গার্লফ্রেন্ড, দিদিটার বিয়ের আগেই দুটো বাচ্চা। এই যদি আদর্শ পরিবেশ হয়, বাংলাদেশি কিশোরীরও মতিভ্রম হতে পারে। অজাত, কুজাত কার খপ্পরে যে পড়ে যাবে, কে বলতে পারে? সুদর্শন সাহেব ছেলেদের আকর্ষণেই হয়তো নিজের জাতপাত ভুলে গেল। তার আগে, বাংলাদেশ থেকে ‘দুলহা’ আনিয়ে সৎ পাত্রে সমর্পণ করো। কিশোরী কন্যার ভবিষ্যৎ সুরক্ষিত হোক।
20th  May, 2017
ছেলেবেলার দুর্গাপূজা—কিছু স্মৃতি কিছু বেদনা
ভগীরথ মিশ্র

 ছেলেবেলায় আমাদের গাঁয়ে কোনও বারোয়ারি দুর্গাপুজো হ’ত না। গোটা এলাকা জুড়ে কেবল আমাদের গাঁয়ের জমিদারবাড়িতেই হ’ত পারিবারিক দুর্গাপুজো। সত্যি কথা বলতে কী, দুর্গাপূজাটা গাঁয়ের অধিকাংশ মানুষের কাছেই কোনও সুখকর অভিজ্ঞতা ছিল না।
বিশদ

বদলে যাচ্ছি আমরা?
সমৃদ্ধ দত্ত

 থিমের পুজো করলেই তো পুরস্কার পাওয়া যায়। স্পনসর পাওয়া যায়। মিডিয়ায় ছবি বেরোয়। কিন্তু কই! তা তো সকলে করে না? কেন করে না? তাহলে সেই লোকগুলোর কী হবে? যাঁরা থিমের পুজো দেখতে মোটেই আগ্রহী নয়।
বিশদ

অভিযুক্তের গায়ে নারীঘটিত অপবাদের কাদা না ছেটালে কি শাস্তি অসম্পূর্ণ থাকত!
মেরুনীল দাশগুপ্ত

সোমনাথ চট্টোপাধ্যায়, ব্রতীন সেনগুপ্ত, লক্ষ্মণ শেঠ, রেজ্জাক মোল্লা, সইফুদ্দিন চৌধুরির মতো অনেক তাবড় নেতাকেই নানা সময় দল ছাড়তে হয়েছে। বহিষ্কারের অপমান বইতে হয়েছে। কিন্তু, কারও গায়ে এত কালি লাগাবার দরকার কি পড়েছিল? পড়েনি। বাদবাকি সকলের ক্ষেত্রেই শাস্তির ব্যাপারটা দলীয় নীতি-নৈতিকতার দ্বান্দ্বিক পরিসরেই সীমাবদ্ধ ছিল।
বিশদ

21st  September, 2017
মারের জবাব মার! এ কোন রাজনীতির কথা বলে গেলেন অমিত শাহ
শুভা দত্ত

 একটা পা ভাঙলে দুটো পা ভেঙে দিন। একটা হাত ভাঙলে দুটো হাত। কয়েকদিন আগে পুরুলিয়ার জয়পুরে এক জনসভায় এমনই নিদান দিয়েছেন রাজ্য বিজেপি’র সভাপতি দিলীপ ঘোষ। বলা বাহুল্য, ওই জনসভা ছিল আসলে বিজেপি’র স্থানীয় নেতা কর্মী সমর্থকদের সমাবেশ।
বিশদ

17th  September, 2017
কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ে সার্বিক শিক্ষাব্যবস্থার হাল-হকিকত
শমিত কর

সম্প্রতি দেশের মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রী প্রকাশ জাভড়েকর জানিয়েছেন, ২০১৬-এর ১ জানুয়ারি থেকে কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বেতনক্রম পুনর্বিন্যাসের জন্য যে সুপারিশ বকেয়া রয়েছে তা শীঘ্রই প্রকাশ করা হবে।
বিশদ

17th  September, 2017
আমেরিকায় অনিদ্রা রোগ ও চিকিৎসা 

আলোলিকা মুখোপাধ্যায়: অনিদ্রার উপসর্গকে তখনই রোগ বলা যায়, যখন রাতের ঘুমের জন্যে পর্যাপ্ত সময় থাকা সত্ত্বেও কারওর ঘুমের ব্যাঘাত ঘটে। প্রতি রাতে ঘুম আসতে দেরি হয়। মাঝরাতে ঘুম ভেঙে গেলে বাকি রাত প্রায় জেগেই কেটে যায়। রাতের পর রাত গভীর ঘুমের পরিবর্তে একরকম তন্দ্রাচ্ছন্ন ভাব থাকে, যার ফলে শরীর ও মস্তিষ্ক বিশ্রাম পায় না। পর্যাপ্ত ঘুমের অভাবে শরীর অসুস্থ হয়ে পড়ে। বিশদ

16th  September, 2017
টানাপোড়েনের পুজো 

অনিতা অগ্নিহোত্রী: নিম্নমধ্যবিত্তের পুজোর দিনগুলোতে একটুখানি মনখারাপ মিশে থাকত কি আলো আর বাজনার পাশাপাশি বয়ে চলা তিরতিরে একটা খোলা জলের স্রোতের মতন? নাকি, আমরা ছোটবেলাতেও একটু বেশি বেশি ভাবতাম? অসচ্ছলতার উল্লেখ বাবা-মা যথাসাধ্য আমাদের কান এড়িয়েই করতেন, তবু স্প্লিনটারের টুকরো টাকরা তো গায়ে এসে পড়বেই, যদি কেউ দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে যুদ্ধ দেখতে চায়!
বিশদ

16th  September, 2017
ভুল স্বীকারের বিকল্প রাজনীতি
সমৃদ্ধ দত্ত

 আমাদের সবথেকে বেশি সমস্যা হয় প্রকাশ্যে দুটি কথা বলতে। ১) ‘‘আমার ভুল হয়েছে, হ্যাঁ, ওটা আমারই ভুল কিংবা আমি ভুল করেছি।’’ আর ২) ‘‘আমার ঠিক জানা নেই।’’ তাই আমরা প্রথমেই এককথায় ভুল স্বীকারের তুলনায় বরং অনেক বেশিক্ষণ ধরে চেষ্টা করি যা বলেছি বা করেছি সেটা শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত মরিয়া হয়ে জাস্টিফাই করে যেতে যে ঠিকই বলেছি বা ঠিকই করেছি। আবার একইভাবে কোনও প্রশ্নের জবাবে চট করে প্রথমেই জানি না বলতেও বাধো বাধো ঠেকে।
বিশদ

15th  September, 2017
একনজরে
 বিএনএ, কোচবিহার: কোচবিহার শহরের ১৩ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দাদের একাংশ পানীয় জলের সংকট মেটানোর দাবিতে বৃহস্পতিবার পুরসভার সামনে বিক্ষোভ দেখায়। তাদের দাবি ওয়ার্ডের বিভিন্ন জায়গায় জল পর্যাপ্ত পাওয়া যাচ্ছে না। ...

 মুম্বই, ২১ সেপ্টেম্বর (পিটিআই): টাটা সন্স-এর গায়ে এবার প্রাইভেট স্ট্যাম্প। বহিষ্কৃত চেয়ারম্যান সাইরাস মিস্ত্রির বিরোধিতা সত্ত্বেও প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানি হওয়ার জন্য বৃহস্পতিবার শেয়ার হোল্ডারদের সম্মতি ...

 রাহুল দত্ত, কলকাতা: বেড়াতে গিয়ে হোটেল নয়, এবার ইচ্ছেডানায় ভর করে পর্যটকরা থাকতে পারবেন ভ্রাম্যমাণ অতিথিশালায়। এই বিলাসবহুল গোটা অতিথিশালাকে পর্যটকরা নিয়ে যেতে পারবেন পছন্দসই জায়গায়। যেখান থেকে দিব্যি দেখা যাবে নীল সমুদ্র বা পোড়ামাটির দেশ বিষ্ণুপুরকে। ...

চণ্ডীগড়, ২১ সেপ্টেম্বর: তদন্ত যত এগচ্ছে, ততই প্রকাশ্যে আসছে একাধিক চাঞ্চল্যকর তথ্য। আদালতের নির্দেশে ডেরা সাচা সৌদার সম্পত্তির হিসাব করতে গিয়ে চোখ কপালে উঠেছে তদন্তকারীদের। ...


আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

প্রেম-প্রণয়ে নতুনত্ব থাকবে। নতুন বন্ধুলাভ, ভ্রমণ ও মানসিক প্রফুল্লতা বজায় থাকবে। কোনও কোনও ক্ষেত্রে কর্মস্থলে ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৫৩৯: পাঞ্জাবের শহর কর্তারপুরে প্রয়াত গুরু নানক
১৭৯১: ইংরেজ বিজ্ঞানী মাইকেল ফ্যারাডের জন্ম
১৮৮৮: ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক ম্যাগাজিন প্রথম প্রকাশিত
১৯৩৯: প্রথম এভারেস্ট জয়ী মহিলা জুনকো তাবেইয়ের জন্ম
১৯৬৫: শেষ হল ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধ। রাষ্ট্রসংঘের আহ্বানে সাড়া দিয়ে দু’দেশ যুদ্ধ বিরতি ঘোষণা করল
১৯৭০: লেখক শরদিন্দু বন্দ্যোপাধ্যায়ের মৃত্যু
১৯৮০: ইরান আক্রমণ করল ইরাক
১৯৯৫: নাগারকোভিল স্কুলে বোমা ফেলল শ্রীলঙ্কার বায়ুসেনা। মৃত্যু হয় ৩৪টি শিশুর। যাদের মধ্যে বেশিরভাগই তামিল
২০১১: ক্রিকেটার মনসুর আলি খান পতৌদির মৃত্যু

ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৫৩.৭০ টাকা ৬৫.৩৮ টাকা
পাউন্ড ৮৫.৬৮ টাকা ৮৮.৫৯ টাকা
ইউরো ৭৫.৩৩ টাকা ৭৭.৯৭ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩০,১০৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ২৮,৫৬০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ২৮,৯৯০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৩৯,৬০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৩৯৭০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৫ আশ্বিন, ২২ সেপ্টেম্বর, শুক্রবার, দ্বিতীয়া, নক্ষত্র-চিত্রা দং ৪৭/৫২ রাত্রি ঘ ১২/৩৮, সূ উ ৫/২৮/৫০, অ ৫/৩০/১০, অমৃতযোগ দিবা ঘ ৬/১৬ মধ্যে পুনঃ ৭/৪ গতে ৯/২৯ মধ্যে পুনঃ ১১/৫৪ গতে ৩/৬ মধ্যে পুনঃ ৩/৫৫ গতে অস্তাবধি। রাত্রি ঘ ৬/১৯ গতে ৯/৩০ মধ্যে পুনঃ ১১/৫৪ গতে ৩/৫ মধ্যে পুনঃ ৩/৫২ গতে উদয়াবধি, বারবেলা ঘ ৮/২৯ গতে ১১/৩০ মধ্যে, কালরাত্রি ঘ ৮/৩০ গতে ১০/০ মধ্যে।
৫ আশ্বিন, ২২ সেপ্টেম্বর, শুক্রবার, দ্বিতীয়া, চিত্রানক্ষত্র, সূ উ ৫/২৭/২৪, অ ৫/৩১/২৪, অমৃতযোগ দিবা ঘ ৬/১৫/৪০ মধ্যে ও ৭/৩/৫৬-৯/২৮/৪৪ মধ্যে ও ১১/৫৩/৩২-২/৪৬/৩৬ মধ্যে ও ৩/৩৪/৫২-৫/১১/২৪ মধ্যে। রাত্রি ঘ ৬/১৭/৩৯-৯/২৩/২৫ মধ্যে ও ১১/৪২/৩৭-২/৪৮/১৩ মধ্যে ও ৩/৩৪/৩৭-৫/২৭/৪২ মধ্যে, বারবেলা ৮/২৮/২৪-৯/৫৮/৫৪, কালবেলা ৯/৫৮/৫৪-১১/২৯/২৪, কালরাত্রি ৮/৩০/২৪-৯/৫৯/৫৪ মধ্যে।
১ মহরম

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
থানের ভিওয়ান্ডিতে একটি আবাসনে আগুন

11:47:10 AM

আজ মুক্তি tap here

ইয়েতি অভিযান: সৃজিত মুখোপাধ্যায় ...বিশদ

11:37:01 AM

রাজস্থানের ঝালওয়ারে ২৭ নম্বর জাতীয় সড়কে স্কুলবাস দুর্ঘটনা, জখম ১২ পড়ুয়া

11:03:14 AM

ছত্তিশগড়ের বীজপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় জখম ১৪ জন

10:56:00 AM

শহরে ট্রাফিকের হাল tap here
আজ, শুক্রবার সকালে শহরের রাস্তাঘাটে যান চলাচল মোটের ...বিশদ

10:17:37 AM

বেঙ্গালুরুতে অপহৃত ইনকাম ট্যাক্স অফিসারের ছেলের মৃতদেহ উদ্ধার, গ্রেপ্তার ৬ অভিযুক্ত

10:15:00 AM

রায়ান ইন্টারন্যাশানাল স্কুলে ছাত্র খুন: জিজ্ঞাসাবাদের জন্য স্কুলের কর্ণধারকে তলব করল গুরুগ্রাম পুলিশ

10:12:00 AM