বিশেষ নিবন্ধ
 

আমেরিকায় এখনও কৈশোর বিবাহ বন্ধ হয়নি

আলোলিকা মুখোপাধ্যায়: উত্তর নিউজার্সির প্যাটারসন শহরে বহু সংখ্যক বাংলাদেশির বসবাস। আঞ্জুমন মাসুদ সেখানকার এক টিন-এজ মাদার। ১৪ বছর বয়সে বিয়ে হয়ে এখন দুই ছেলে-মেয়ের মা। না শেষ হয়েছে তার স্কুলের পড়াশোনা, না মিটেছে তার কিশোরী বয়সের কোনও আশা, আকাঙ্ক্ষা। বাবা-মার জোর জবরদস্তির চাপে বাংলাদেশে গিয়ে ২৫ বছরের ফজলুলকে সে বিয়ে করতে বাধ্য হয়েছে। এরকম ঘটনা আমেরিকার অধিবাসী মুসলমান পরিবারে নতুন নয়। আমেরিকায় গোঁড়া ইহুদি ‘হ্যাসিডিক জিউ’দের মধ্যেও কিশোরী বিবাহের প্রচলন আছে। প্রশ্ন হচ্ছে, তবে কি এদেশে বিয়ের সর্বনিম্ন বয়স নিয়ে কোনও কঠোর আইন নেই?
গত নব্বই বছর ধরে এদেশের প্রায় চল্লিশটি রাজ্যে ষোলো বছর বা তার কমবয়সি মেয়েদের বিয়ে দেওয়া আইনবিরুদ্ধ নয়। ১৯২৯ সালের বিবাহ আইন অনুযায়ী অভিভাবক এবং কোর্টের অনুমতি নিয়ে ১৪/১৫ বছরের মেয়ের বিয়ে হতে পারে, আর ১৬/১৭ বছর বয়সে বাবা-মার সম্মতিই যথেষ্ট। যেখানে কোর্ট হস্তক্ষেপ করতে পারে না। আঞ্জুমন মাসুদের ক্ষেত্রে সেটা সম্ভব হয়েছিল। প্রথমত: তাদের পরিবারের রক্ষণশীলতা। দ্বিতীয়ত: সে নিউজার্সি স্টেটের বাসিন্দা বলে। নিউইয়র্ক, নিউজার্সিতে এখনও নব্বই বছরের পুরানো বিবাহ আইনের সুযোগ নিয়ে কিশোরী বিবাহ সম্ভব হচ্ছে। আবার এমন কিছু রাজ্য আছে, যেখানে আইনত মেয়েদের বিয়ের সর্বনিম্ন বয়স বলে কোনও কঠোর নির্দেশ নেই। গত পনেরো বছরে নিউইয়র্ক রাজ্যে প্রায় চার হাজার মেয়েরই অল্প বয়সে বিয়ে হয়েছে। যদিও অধিকাংশ ‘শুভবিবাহ’ সম্পন্ন হয়েছে বাংলাদেশ, পাকিস্তান, নয়তো মিডল-ইস্টে। শুধু যুবক নয়, আধবুড়ো বরও ‘গ্রিনকার্ডের’ দৌলতে এদেশে চলে আসতে পেরেছে। নিউইয়র্কের ব্রুকলিন অঞ্চলের মেয়ে সাইদা আশির দশকে সেখানকার হাইস্কুলে খুব ভালো ছাত্রী ছিল। তখন তার পনেরো বছর বয়স। তার স্বপ্ন ছিল কলেজে ডাক্তারি পড়বে। কিন্তু গোঁড়া মুসলমান পরিবার তাকে ২১ বছরের খুড়তুতো দাদাকে বিয়ে করতে বাধ্য করল। সে দাদা থাকত কুয়েতে। সাইদার বাবা আর কুয়েতের কাকা (তাঁর ছেলের গ্রিনকার্ডের জন্য) মিলে তাঁদের ধর্মের দোহাই দিয়ে কাজটি করলেন। সাইদা বুঝেছিল বিয়েতে রাজি না হলে হয় তাকে ঘরে তালাবন্ধ করে রাখা হবে, নয়তো মিডল ইস্টে নিয়ে গিয়ে বিয়ে দেওয়া হবে। যখন কোর্টে জজের সামনে নিজের বিয়ের সম্মতি দেওয়ার আগে কেঁদে ফেলেছে, তখন তার মা সাইদার পায়ে নিজের জুতোর চাপ দিয়ে ভয় দেখাচ্ছেন— রাজি হও। নয়তো তোমার বাবা প্রচণ্ড মারবে। বাকি জীবন ঘরে তালাবন্ধ করে রাখবে। এতই নিচু গলায় সেই শাসানি। ব্রুকলিন কোর্টের সাহেব জজ তা বুঝতেও পারেননি।
বিয়ের পর তিন বছর অনেক দুর্ভোগ, অশান্তি সহ্য করে সাইদা তার ঠাকুমার কাছে পালিয়ে গিয়েছিল। সেই বৃদ্ধা তাঁর দুই ছেলেকে ত্যাগ করার হুমকি দিয়ে সাইদার বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটিয়েছিলেন। তখন তার মাত্র আঠারো বছর বয়স। বছর না শেষ হতে বাবা-মা আবার তার বিয়ে দিলেন। স্কুল পাশ করে সাইদার কলেজে পড়া হল না। চার ছেলে-মেয়ে মানুষ করতেই যৌবন এল, ফিরে গেল। তাও কিছু কিছু কোর্স পাশ করে সে উত্তর নিউজার্সির একটি অফিসে কাজ করে। সাইদা তার ছেলে-মেয়েদের বলে— কলেজের পড়াশোনা শেষ করো। যে প্রফেশনে যেতে চাও, তার জন্যে চেষ্টা করো। সময় এলে, নিজের পছন্দের মানুষকে বিয়ে করবে। এই নিয়ে স্বামীর সঙ্গে মতবিভেদ। সাইদার দাম্পত্যজীবনে সুখ শান্তি কোনওদিনই আসেনি।
নিউইয়র্ক শহরের ব্রুকলিন এলাকা আর নিউজার্সি ও নিউইয়র্ক রাজ্যের সীমান্তে রকল্যান্ড কাউন্টির ছোট ছোট শহরে বহুদিন থেকে মাথায় কালো টুপি আর লম্বা কালো কোটপরা দাড়িওয়ালা ‘হ্যাসিডিক’ ইহুদি সম্প্রদায়ের বাস। এদের ধর্মের গোঁড়ামির মধ্যে এমন রীতি আছে যে, ষোলো বছরের মধ্যে মেয়ের বিয়ে দিতে হবে। সুতরাং সেখানেও মাঝে মাঝে এমন বিয়ে হচ্ছে। কিন্তু, এদেশের মূল সমাজেও পারিবারিক চাপে নয়, নিজের ইচ্ছেমতো অসময়ে বিয়ে করে মেয়েরা ভুলের খেসারত দিচ্ছে। সমীক্ষা থেকে জানা গিয়েছে, ১৮ বছরের নিচে যাদের বিয়ে হয়, তাদের মধ্যে শতকরা সত্তর ভাগের বিবাহ বিচ্ছেদ হয়ে যায়। প্রধান কারণ মেয়েদের হাইস্কুল, কলেজের শিক্ষার অভাব, অর্থকষ্ট এবং কখনও স্বামীর কাছ থেকে মানসিক ও দৈহিক নির্যাতন। শিশু সন্তান থাকলে আরও দুর্গতি। বিবাহ বিচ্ছেদ পেতে সময় লাগে। চোদ্দোবছরে বিয়ে হলেও আইন অনুযায়ী ১৮ বছরের আগে ডিভোর্স পাওয়া যায় না। নির্যাতিতা মেয়েদের জন্যে যেসব ‘শেলটার হোম’ আছে, সেগুলি যদি সরকারি হয়, তবে সেখানেও ১৮ বছর না হলে অনেক সময় আশ্রয় পাওয়া যায় না। সেক্ষেত্রে বাবা, মারও যদি সহানুভূতি না থাকে, মেয়েটি যাবে কোথায়? এদেশের নারী সংগঠনগুলি তখন তাদের শেলটারে আশ্রয় দেয়। বেশ কিছু সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠান থেকে এই মেয়েদের লেখাপড়া শেষ করার সুযোগ, চাকরি ও স্বনির্ভরতার জন্য সাহায্য করে।
কিন্তু এসব তো পুনর্বাসনের কথা। প্রধান সমস্যার সৃষ্টি হচ্ছে অসময়ে বিয়ে হওয়ার জন্যে। নিউইয়র্ক স্টেটের রাজ্যপাল অ্যান্ড্রিউ কোমো বিবাহ আইন সংশোধনের জন্য নতুন বিল অনুমোদনের উদ্যোগ নেওয়ার ফলে সম্প্রতি নিউইয়র্ক স্টেট সেনেটে সংশোধিত বিবাহ আইন পাশ হয়েছে। এক্ষেত্রে ডেমোক্র্যাটিক অ্যাসেম্বলি ওম্যান এমি পলিন ও রিপাবলিকান সেনেটর অ্যান্ড্রিউ ল্যানজা প্রস্তাবটি লিখেছিলেন। কিন্তু নিউইয়র্কের গভর্নরের পক্ষে কাজটি সহজ হয়নি। গত বছর নিউইয়র্কের অ্যাসেম্বলি ম্যানদের জুডিশিয়ারি কমিটির মধ্যেই মতবিভেদ হয়েছিল। বাধা এসেছিল এক ইহুদি অ্যাসেম্বলি ম্যানের কাছ থেকে। কারণ তিনি নির্বাচিত হয়েছেন ব্রুকলিনের হ্যাসিডিক ইহুদিদের বিশেষ এলাকা বোরোপার্ক থেকে। তাঁর বক্তব্য ছিল— ষোলো বছরেই মেয়েরা বিয়ের উপযুক্ত হয়। আজ পর্যন্ত এ নিয়ে কোথাও আপত্তি ওঠেনি। তাহলে আইন সংশোধনের দরকার কী?
তবে তাঁদের বক্তব্য ধোপে টেকেনি। গত মাসে নিউইয়র্ক স্টেট সেনেটে বিল পাস হওয়ার পরে এখন নিউইয়র্ক রাজ্যের অ্যাসেম্বলিতে পাঠানো হয়েছে। গভর্নর কোমোর চেষ্টায় এ বছরের মধ্যেই লেজিসলেশন পাশ হয়ে যাবে। সংশোধিত বিবাহ আইন অনুযায়ী—নিউইয়র্ক রাজ্যে ছেলে-মেয়েদের বিয়ের সর্বনিম্ন বয়স হতে হবে ১৮ বছর। তবে ১৭ বছরেও অভিভাবক ও কোর্টের সম্মতি নিয়ে বিয়ে করা যেতে পারে। সেক্ষেত্রে জজের বিশেষ দায়িত্ব থাকবে। তাঁকে বুঝে নিতে হবে যে, এরা স্বেচ্ছায় বিয়ে করছে, নাকি বাবা, মায়ের হুকুমে বিয়ে করতে বাধ্য হচ্ছে। কিন্তু জজ কি মনস্তত্ত্ব বোঝেন? এখানেই তো নারী সংগঠনগুলির আপত্তি। যে মেয়ে বিয়েতে সম্মতি না দিলে, বাড়ি ফিরে গিয়ে মার খেয়ে মরবে, নয়তো অন্য দেশে গিয়ে বিয়ে করতে বাধ্য হবে, তার কোর্টে দাঁড়িয়ে ‘‘নিজের ইচ্ছেয় বিয়ে করছি’’ বলা ছাড়া আর কী উপায় থাকে?
‘ন্যাশনাল অর্গানাইজেশন ফর উইমেন’-এর পক্ষ থেকে কিশোরী বিবাহের আইন পরিবর্তনের জন্য ওয়াশিংটনে অনেকদিন আগেই আবেদন জানানো হয়েছে। ‘ফ্যামিলি ল’ অর্থাৎ পারিবারিক আইন বিশেষজ্ঞদের তথ্য অনুযায়ী ষোলো বছর বা তার কমবয়সি মেয়েদের বিয়ের পরে প্রায় ৮০ শতাংশ ক্ষেত্রে ডিভোর্স হয়ে যায়। তাঁদের বক্তব্য— নতুন আইন অনুযায়ী ছেলে-মেয়েদের বিয়ের সর্বনিম্ন বয়স একুশ বছর হওয়া উচিত। পরিণত মন এবং স্বনির্ভর হওয়ার মতো স্কুল কলেজের শিক্ষা প্রভৃতির উপর ভিত্তি করেই জীবনের এমন গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেওয়া দরকার।
নিউইয়র্কে ‘আনচেইনড অ্যাটলাস্ট’ নামে একটি মহিলা সংগঠনের কাজ হচ্ছে — যেসব মেয়েকে জোর করে বিয়ে দেওয়া হয়েছে এবং যারা নির্যাতিত হয়ে কোথাও আশ্রয় চাইছে, তাদের সাহায্য করা। এদের শেলটারে এমন মেয়েরাও আসে, যারা বিয়ে করতে রাজি না হওয়ায় বাবা-মার নির্যাতন ভোগ করছে। কোনও মতে বাড়ি থেকে পালিয়ে ওই শেলটারে আশ্রয় নিলে, বাবা-মার জোর জবরদস্তি খাটবে না। সন্তানের উপর মানসিক ও শারীরিক নিগ্রহের অপরাধে অভিযুক্ত হতে পারেন।
আমেরিকায় এখনও প্রায় চল্লিশটি রাজ্যে কিশোরী বিবাহের আইন সংশোধনের কাজ বাকি আছে। তার মধ্যে নিউজার্সি থেকে শুরু করে মিসৌরি পর্যন্ত বেশ কয়েকটি রাজ্যে ইতিমধ্যেই নতুন আইন প্রণয়নের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।
নতুন আইন জারি হলেও নিউজার্সির প্যাটারসন শহরের আঞ্জুমনদের কি বেশিদিন ‘অরক্ষিতা’ রাখা হবে? এই শব্দটাই ব্যবহার করছি। কারণ যে দুশ্চিন্তা থেকে মুক্তি পেতে অল্পবয়সে ওদের বিয়ে দেওয়া হয়, তার একটি কারণ হয়তো ওই শহরের পরিবেশ ও অপরাধের পরিসংখ্যান। প্যাটারসন এক সময় ছিল কলকারখানার শহর। পূর্ব উপকূলের টেক্সটাইল মিলের শহর। সে সব কাপড়ের কল বহু আগেই বন্ধ হয়ে গিয়েছে। কালো আর ইতালিয়ানরা বংশ পরম্পরায় থাকলেও ক্রমশ হিসপ্যানিক আর মিডল-ইস্টার্নদের বসবাস বেড়েছে। নিম্নবিত্ত এলাকায় আছে আরও নানা দেশের আইনি-বেআইনি বাসিন্দা। খুন, জখম, ড্রাগের ব্যাবসা, প্রস্টিটিউশন। সব কিছু নিয়ে ওই শহর, বিশেষত রাতের প্যাটারসন কোনও কালেই নিরাপদ ছিল না। তখন ছিল শুধু কালো গুন্ডার আতঙ্ক। এখন তাদের ক্ষমতার দখল নিচ্ছে হিসপ্যানিক দল। তারই মধ্যে মধ্যবিত্ত পাড়ায় রয়েছে অজস্র বাংলাদেশি পরিবার। যাদের প্রধান ব্যাবসা গ্রোসারি স্টোর, মাছ, মাংসের দোকান। তাদের প্রতিবেশী বলতে খেটে খাওয়া পর্টুরিক্যান ও অন্যান্য হিসপ্যানিক পরিবার।
আঞ্জুমনদের বাবা, মায়ের মনে নানা আশঙ্কা। তেমন ভদ্র, শিক্ষিত পরিবেশ তো নয়। ছেলে-মেয়ে সবাই এক স্কুলে পড়ে। ছুটির পরেও পাড়ায় পাড়ায় ঘুরে বেড়ায়। রাতে বাড়ি ফেরার কোনও বাঁধাধরা টাইম নেই। তাদের প্রতিবেশীদের আজ বিয়ে হচ্ছে। এক গাদা বাচ্চা-কাচ্চা রেখে বর পালিয়ে যাচ্ছে। পাড়ায় পাড়ায় স্টেপ ফাদার, স্টেপ মাদার, মায়ের বয়ফ্রেন্ড, বাবার গার্লফ্রেন্ড, দিদিটার বিয়ের আগেই দুটো বাচ্চা। এই যদি আদর্শ পরিবেশ হয়, বাংলাদেশি কিশোরীরও মতিভ্রম হতে পারে। অজাত, কুজাত কার খপ্পরে যে পড়ে যাবে, কে বলতে পারে? সুদর্শন সাহেব ছেলেদের আকর্ষণেই হয়তো নিজের জাতপাত ভুলে গেল। তার আগে, বাংলাদেশ থেকে ‘দুলহা’ আনিয়ে সৎ পাত্রে সমর্পণ করো। কিশোরী কন্যার ভবিষ্যৎ সুরক্ষিত হোক।
20th  May, 2017
পদ্মাবতীর মুণ্ডচ্ছেদ ফতোয়া: অন্ধকারের শক্তিসাধনা আর কতদিন
মেরুনীল দাশগুপ্ত

সত্যের জন্য ইতিহাস পড়ো, আনন্দের জন্য আইভ্যানহো পড়ো। একটি প্রবন্ধে এমনই পরামর্শ দিয়েছিলেন রবীন্দ্রনাথ। অনেক বছর আগে, এক শতাব্দীরও বেশি আগে। ইতিহাসভিত্তিক উপন্যাস ও ইতিহাসের তফাৎ বোঝাতেই ছিল তাঁর এই পরামর্শ। তাতে উদাহরণ হিসেবে তিনি বিশ্ববিশ্রুত ঔপন্যাসিক স্যার ওয়াল্টার স্কটের ইতিহাসভিত্তিক উপন্যাস ‘আইভ্যানহো’র উল্লেখ করেছিলেন।
বিশদ

মুডিজের মুড—ভারতের ক্রেডিট রেটিংয়ের উত্তরণ
অতনু বিশ্বাস

২০১৫-র একদম শেষের হলিউড ম্যুভি ‘দ্য বিগ শর্ট’। অভিনয়ে রায়ান গোসলিং, ব্র্যাড পিট, ক্রিশ্চিয়ান বালে, স্টিভ ক্যারেল। অ্যাডাপ্টেড স্ক্রিন প্লে-র জন্যে অস্কারও পেয়েছিল ম্যুভিটি। নিউ ইয়র্ক টাইমস এই ম্যুভিটিকে বলেছে বিশ্বব্যাপী আর্থিক সংকটের সব চাইতে জোরদার ফিল্মি ব্যাখ্যা। তিনটি সহগামী গল্পকে এক সুতোয় বেঁধে ২০০৭-০৯-এর গৃহঋণ আর বন্ধক নিয়ে মার্কিন অর্থনীতিতে ধ্বস আর তার কার্য-কারণের বিশ্লেষণই এই ছবিটির প্রতিপাদ্য। আর সেই সঙ্গে মুডিজ, এস অ্যান্ড পি বা ফিচ-এর মতো ক্রেডিট রেটিং সংস্থাগুলি সম্পর্কে আমাদেরও হয়ে যায় এক সহজ পাঠ।
বিশদ

লুক ইস্ট থেকে অ্যাক্ট ইস্ট: কী পেলাম
বিশ্বনাথ চক্রবর্তী

২০১৪ সালে ক্ষমতায় এসে ওই বছরই ১২ নভেম্বর আসিয়ান-ভারত যৌথ সম্মেলনের বক্তৃতায় নরেন্দ্র মোদি উল্লেখ করেছিলেন দেশের অভ্যন্তরে অর্থনৈতিক বিকাশ, শিল্পায়ন এবং বাণিজ্যের ক্ষেত্রে যেমন নতুন জোয়ার এসেছে তেমনি ভারতের বিদেশনীতিতে ‘লুক ইস্ট’ পলিসি ‘অ্যাক্ট ইস্ট’ পলিসিতে রূপান্তরিত হয়েছে।
বিশদ

21st  November, 2017
বাংলার রসগোল্লা—মেড ইন চায়না
হারাধন চৌধুরী

আলী সাহেব বাঙালিকে শুনিয়েছিলেন তাঁর ঝান্ডুদার গল্প। পাঠক জানেন, ঝান্ডুদা মস্ত ব্যবসায়ী। যাচ্ছিলেন লন্ডন। বিলেতবাসী এক বন্ধুকন্যার জন্য সঙ্গে এনেছিলেন বাংলার টিনজাত কিছু রসগোল্লা। পথে ইতালির ভেনিস বন্দরে নামতে হয়। এরপর সেখানকার কাস্টমস অফিসে চেকিংয়ের সময় সেই কয়েক পাউন্ড রসগোল্লার জন্য যে আক্কেলগুড়ুম হবে তা তাঁর কল্পনায় ছিল না।
বিশদ

21st  November, 2017
গুম-নিখোঁজ ও পরমানন্দ মন্ত্রণালয়
সৌম্য বন্দ্যোপাধ্যায়

বাংলাদেশে ‘লিট ফেস্ট’ শুরু ও শেষ হল। সেই কারণে কি না জানি না, অরুন্ধতী রায়ের দ্বিতীয় উপন্যাস ‘দ্য মিনিস্ট্রি অব আটমোস্ট হ্যাপিনেস’ হুট করে সংবাদপত্রে চর্চার কেন্দ্রে উঠে এল। এই মুহূর্তে বাংলাদেশের অত্যন্ত জনপ্রিয় সাহিত্যিক ও সাংবাদিক, আমার অতি ঘনিষ্ঠ ও প্রিয় আনিসুল হক এই উপন্যাসের বাংলা নাম দিয়েছেন ‘পরমানন্দ মন্ত্রণালয়’।
বিশদ

19th  November, 2017
লন্ডন, এডিনবরা এবং মমতা
শুভা দত্ত

দুর্গাপুজোর দিন যত এগিয়ে আসে, আনন্দটা তার সঙ্গে সমানুপাতিক হারে বাড়ে। এ আমাদের বাঙালি সংস্কৃতির চিরন্তন সত্য। আর মা দুর্গাকে ঘিরে সেই উৎসবের রামধনু রং ফিকে হতে শুরু করে নবমীর সন্ধ্যা থেকেই। আজ বাদে কাল দশমী। মায়ের ফিরে যাওয়ার পালা।
বিশদ

19th  November, 2017
চীনের প্রেসিডেন্ট বনাম ভারতের ডিফেন্স রিসার্চ
প্রশান্ত দাস

জিনপিং দেশের বিখ্যাত বিজ্ঞানীদের বললেন—আমাদের সমাজতন্ত্র দেশকে তরতর করে এগিয়ে নিয়ে চলেছে। এগিয়ে চলেছে আমাদের অর্থনীতি। কিন্তু গত পাঁচ বছরে আপনারা ক’টি অবিশ্বাস্য অস্ত্র দিতে পেরেছেন সেনাদের? ভারতের ডিআরডিও কী করে পৃথিবীতে দু’নম্বর রিসার্চ সেন্টার হল? কী নেই আপনাদের? যা যা চাই, তালিকা পাঠান। যতদিন না আমরা ডিআরডিও-কে ছাপিয়ে যেতে পারছি, ততদিন আমরা নিজেদের এশিয়ার মধ্যে এক নং বলতে পারব না।
বিশদ

18th  November, 2017
রাজ্যের লাইব্রেরিগুলিকে বাঁচাতেই হবে
পার্থজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়

মনে পড়ছে গত ডিসেম্বরের কথা। বীরভূম জেলার সরকারি বইমেলার আয়োজন হয়েছিল সিউড়িতে, ইরিগেশন কলোনির মাঠে। আমি উদ্বোধক, মঞ্চে জেলার মন্ত্রীরা, সঙ্গত কারণেই উপস্থিত ছিলেন গ্রন্থাগারমন্ত্রীও। মঞ্চে বসেই সিদ্দিকুল্লা চৌধুরীর সঙ্গে পরিচয়, আলাপচারিতা।
বিশদ

18th  November, 2017
মোদির আমলে শিশুদের খিদের যন্ত্রণা তীব্র, কারণ শিশু ও মহিলা উন্নয়নে গুরুত্ব কম
দেবনারায়ণ সরকার

কেন্দ্রীয় সরকারের গত ৩ বছরের বাজেটের তথ্য সার্বিকভাবে বিচার করলে দেখা যাচ্ছে কেন্দ্রীয় বাজেটে মোট ব্যয় যেখানে ২১ শতাংশের বেশি বেড়েছে (টাকার অঙ্কে অতিরিক্ত প্রায় ৩ লক্ষ ৫১ হাজার কোটি টাকা), সেখানে মহিলা ও শিশু উন্নয়নে ব্যয় কপর্দকও বাড়েনি, বরং প্রায় ১ শতাংশ কমেছে। একইভাবে মহিলা ও শিশু উন্নয়ন ব্যয় বাজেটের মোট ব্যয়ের ১ শতাংশের অনেক নীচে নেমেছে। মোদ্দা কথা হল, যে দেশের কেন্দ্রীয় বাজেটে মহিলা ও শিশু উন্নয়নের ব্যয় বাজেটে মোট ব্যয়ের ১ শতাংশেরও কম এবং এই ব্যয় মোদির জমানায় যেহেতু আরও কমছে, সেই দেশে রোজ রাতে খালি পেটে শুতে যাওয়া শিশুদের সংখ্যা ক্রমশ বৃদ্ধিটাই স্বাভাবিক। তাই ভারতে পাল্লা দিয়ে বেড়েছে অপুষ্টিও।
বিশদ

17th  November, 2017
ডেঙ্গু: রাজনীতি ছেড়ে হাত মিলিয়ে কাজের সময়
অনিরুদ্ধ কর

অবিলম্বে একটা স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং প্রসিডিওর বা নিয়মাবলী প্রকাশ করতে হবে সরকারের তরফে। সরকারি নির্দেশ মানতে বাধ্য সকল সরকারি বেসরকারি ও প্রাইভেট চিকিৎসা কেন্দ্র। অতীতের দিকে নজর দিলে দেখা যাবে বার্ড ফ্লু বা সোয়াইন ফ্লু-র সময় সরকারের তরফে এমন নিয়মাবলী প্রকাশ করা হয়েছিল। চিকিৎসাব্যবস্থায় কী কী থাকতে হবে এবং কোথায় থাকবে তাও বলে দেওয়া হয়েছিল। ফ্লু-র ওষুধ একমাত্র সরকার দিত। খোলাবাজারে মিলত না সেই ওষুধ। কারণ সেক্ষেত্রে ওষুধ নিয়ে কালোবাজারি এবং চড়া দামে ওষুধ বিক্রি হওয়ার আশঙ্কা থেকে যেত। এছাড়া একটি রাজ্যস্তরের কমিটি ছিল পর্যালোচনার জন্য।
বিশদ

17th  November, 2017
প্যারিস, পরিবেশ এবং উচ্চাকাঙ্ক্ষী ভারত
শান্তনু দত্তগুপ্ত

 পরিবেশ মানে হল যেখানে সেখানে থুতু না ফেলা। মন্তব্যটি আমারই এক ঘনিষ্ঠ বন্ধুর। এবং কী ভয়ঙ্কর সাবলীল স্বীকারোক্তি। যে দেশে ৩০ কোটি মানুষ এখনও দারিদ্রসীমার নীচে বসবাস করেন, যেখানে সাক্ষরতা বলতে বোঝানো হয় নিজের নাম সই করতে পারা, সেখানে সচেতনতার প্রাথমিক পাঠটা এমন একটা মন্তব্য দিয়ে শুরু করলে মন্দ কী!
বিশদ

16th  November, 2017
সার্ধশতবর্ষের শ্রদ্ধাঞ্জলি টেম্‌স থেকে গঙ্গা: ভগিনী নিবেদিতার দার্শনিক যাত্রা
জয়ন্ত কুশারী

 আয়ারল্যান্ডের স্বল্প জনবসতি শহর ডুং গানন। স্যামুয়েল রিচমন্ড নোবেল নামে এক ধর্মযাজক ও তাঁর ভক্তিমতী স্ত্রী মেরি ইসাবেল হ্যামিলটন বাস করেন এই শহরে। এঁরা সর্বশক্তিমান ঈশ্বরের কাছে করজোড়ে প্রার্থনা করেন সুখপ্রসবে প্রথম সন্তানটি হলে তাঁরা ঈশ্বরের চরণেই সদ্যোজাতকে সমর্পণ করবেন।
বিশদ

16th  November, 2017
একনজরে
 সংবাদদাতা, পুরুলিয়া: বুধবার পুরুলিয়া জেলার দু’টি পৃথক জায়গায় জেলা প্রাথমিক শিক্ষা সংসদের উদ্যোগে জোনাল স্পোর্টস অনুষ্ঠিত হয়। বরাবাজার থানার বামুনডিহাতে এবং বোরো থানার জামতোড়িয়ায় প্রাথমিক ছাত্রছাত্রীদের ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। ...

 হারারে, ২২ নভেম্বর: অবশেষে ক্ষমতা হারালেন জিম্বাবোয়ের প্রেসিডেন্ট রবার্ট মুগাবে। ৩৭ বছর ধরে দেশ শাসন করেছেন। তার নাম যেন হয়ে উঠেছিল জিম্বাবোয়ের প্রতিশব্দ। একসময় শ্বেতাঙ্গ ...

 সংবাদদাতা, কান্দি: কান্দি মহকুমা এলাকায় পাঁচটি কো-এড কলেজ রয়েছে। কিন্তু এলাকায় নেই কোনও গার্লস কলেজ। অথচ বহুবছর ধরে কান্দিতে একটি গার্লস কলেজের দাবি করে আসছেন এলাকার ছাত্রীরা। কলেজ ছাত্রীদের দাবি, এই মহকুমা এলাকার বহু ছাত্রী বহরমপুর গার্লস কলেজে পড়াশুনা করে। ...

 সংবাদদাতা, বালুরঘাট: দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার সমস্ত প্রাথমিক, মাদ্রাসা এবং শিশু শিক্ষা কেন্দ্রের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতার চাঁদা নিয়ে শিক্ষকমহলে ক্ষোভ তৈরি হয়েছে। আগামী ২৮-৩০ নভেম্বর গঙ্গারামপুর স্টেডিয়ামে এই প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়েছে। ...


আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

পঠনপাঠনে আগ্রহ বাড়লেও মন চঞ্চল থাকবে। কোনও হিতৈষী দ্বারা উপকৃত হবার সম্ভাবনা। ব্যবসায় যুক্ত হলে ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮৮৩: লেখক প্যারীচাঁদ মিত্রের মৃত্যু
১৮৯৭: লেখক নীরদচন্দ্র চৌধুরির জন্ম
১৯৩৭: বিজ্ঞানী আচার্য জগদীশচন্দ্র বসুর মৃত্যু

ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৩.৯৮ টাকা ৬৫.৬৬ টাকা
পাউন্ড ৮৪.৪৫ টাকা ৮৭.৩৩ টাকা
ইউরো ৭৪.৭০ টাকা ৭৭.৩১ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ২৯,৯১০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ২৮,৩৭৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ২৮,৮০০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৩৯,৬০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৩৯,৭০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৭ অগ্রহায়ণ, ২৩ নভেম্বর, বৃহস্পতিবার, পঞ্চমী শেষ রাত্রি ঘ ৫/৩৫, নক্ষত্র-পূর্বাষাঢ়া দিবা ঘ ৬/৫৯, সূ উ ৫/৫৮/২৫, অ ৪/৪৭/৩৫, অমৃতযোগ দিবা ঘ ৭/২৪ মধ্যে পুনঃ ১/১১ গতে ২/৩৮ মধ্যে। রাত্রি ঘ ৫/৪০ গতে ৯/১১ মধ্যে পুনঃ ১১/৪৯ গতে ৩/২০ মধ্যে পুনঃ ৪/১৪ গতে উদয়াবধি, বারবেলা ২/৫ গতে অস্তাবধি, কালরাত্রি ১১/২৩ গতে ১/১ মধ্যে।
৬ অগ্রহায়ণ, ২৩ নভেম্বর, বৃহস্পতিবার, পঞ্চমী রাত্রি ঘ ১/৫৮/১১, উত্তরষাঢ়ানক্ষত্র অহোরাত্র, সূ উ ৫/৫৯/২৩, অ ৪/৪৬/৫, অমৃতযোগ দিবা ৬/৪৩/৪৫, ৭/২৬/৪৬-৯/৩৫/৩৮, ১১/৪৪/৪৯-২/৩৬/৫১, ৩/১৯/৫২-৪/৪৬/৫, রাত্রি ১২/৪২/৪৯-২/২৮/৪৭, বারবেলা ৩/২৫/১৫-৪/৪৬/৫, কালবেলা ২/৪/২৫-৩/২৫/১৫, কালরাত্রি ১১/২২/৪৪-১/১/৫৪।
৩ রবিঃআউঃ

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
শিলিগুড়ির সুভাষপল্লিতে এটিএম ভেঙে চুরি, ঘটনাস্থলে পুলিস

10:18:00 AM

শহরে ট্রাফিকের হাল tap here
আজ, বৃহস্পতিবার সকালে শহরের রাস্তাঘাটে যান চলাচল মোটের ...বিশদ

10:11:56 AM

এবার সপ্তাহে চারদিন দর্শনার্থীরা রাষ্ট্রপতি ভবনে প্রবেশ করতে পারবেন
এবার থেকে সপ্তাহে চারদিন সাধারণ দর্শনার্থীদের জন্য খোলা থাকবে রাষ্ট্রপতি ...বিশদ

10:07:37 AM

‘জগন্নাথ রসগোল্লা’ হিসাবে জিআই ট্যাগের আবেদনের সিদ্ধান্ত ওড়িশার
রসগোল্লা নিয়ে লড়াইয়ের ময়দান এখনই ছাড়তে প্রস্তুত নয় ...বিশদ

10:03:16 AM

সৌরভের দাদা ডেঙ্গুতে আক্রান্ত
ডেঙ্গুতে আক্রান্ত প্রাক্তন ভারতীয় অধিনায়ক সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের দাদা ...বিশদ

09:58:56 AM