Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

সংবিধান ৭০
সমৃদ্ধ দত্ত

ঠিক কেমন সম্পর্ক ছিল তখন জওহরলাল নেহরু আর মহম্মদ আলি জিন্নার? ১৯৪৬ সালের কলকাতা দাঙ্গার পর, নোয়াখালি, তারপর বিহার, তারপর পাঞ্জাব। রক্তগঙ্গা বইছে। ঠিক সেই সময় ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী অ্যাটলি ভারতীয় নেতাদের ডেকেছিলেন একটি মিটিংয়ে। মাল্টা হয়ে লন্ডন। ‘ইয়র্ক’ নামক সেই ফোর ইঞ্জিন বিমানে ‘নো স্মোকিং’ লাইট নিভে যাওয়ার পর জিন্না একটা ‘স্টেট এক্সপ্রেস ফাইভ ফাইভ ফাইভ’ সিগারেট ধরিয়ে বই খুললেন। বইয়ের নাম ছিল ‘আ নেশন বিট্রেড’। অবশ্যই প্রস্তাবিত পাকিস্তান সম্পর্কে। ঠিক পিছনের সিটে যিনি বসেছিলেন তিনি সাধারণত কুর্তা পরেন। কিন্তু সেদিন পরেছিলেন স্যুট আর টাই। জওহরলাল নেহরু। কিছুদিন ধরে তাঁর পিঠে ব্যাথা। স্যুট পরতে সুবিধা। সঙ্গে দুটি বই নিয়েছেন। রোজামন্ড লেহম্যানের লেখা ‘দ্য ব্যালাড অ্যান্ড দ্য সোর্স’। আর একটি বই পাশেই রাখা। সিনক্লেয়ার লিউইসের ’কাস টিম্বারলেন’। গোটা পথ দুজনে বই পড়লেন। একটিও বাক্য বিনিময় হল না। প্লেন যখন ল্যান্ড করল মাল্টায়, তখন নামার সময় কথা না বলা অত্যন্ত অশোভন। তাই জিন্না প্রশ্ন করলেন, ‘ওয়েল, আজকাল কী করছেন আপনি মিস্টার নেহরু?’ নেহরু মৃদু হেসে জবাব দিয়েছিলেন, ‘তেমন কিছু না। এই একটু পড়ছি, একটু ঘুমোচ্ছি, একটু হাঁটাহাঁটি করছি। ব্যস!’ আর কোনও আলাপচারিতা নয়। দুজনে দুদিক থেকে এয়ারপোর্ট লাউঞ্জে চলে যান।
কলকাতায় সদর দপ্তর থাকা হিন্দু সংগঠন অল ইন্ডিয়া বর্ণশর্মা স্বরাজ সংঘ লিখিতভাবে প্রস্তাব পাঠিয়ে দাবি করেছিল সংবিধান যেন প্রাচীন হিন্দু পুঁথিপত্রে যেসব বিধি, নিয়ম ও নীতি বর্ণিত হয়েছে তার ভিত্তিতেই তৈরি হয়। নচেৎ তারা ওই সংবিধান মেনে নেবে না। উইনস্টন চার্চিল কটাক্ষ করে বলেছিলেন, ভারতের সংবিধান যারা তৈরি করছে সেই সভায় তো কংগ্রেসের সদস্যদেরই আধিক্য। তার মানে ভারতের প্রতিনিধিত্ব কোথায় হল? ওটা তো বর্ণহিন্দুদের স্বার্থই সুরক্ষা করবে। কংগ্রেস তো সংখ্যাগুরুদের দল। সংযুক্ত প্রদেশের এক সংসদ সদস্য আর ভি ধূলেকর ১৯৪৬ সালের ১০ ডিসেম্বর সংবিধান সভায় দাঁড়িয়ে একটি সংশোধনী পেশ করেছিলেন। এবং সেটির সমর্থনে ‘হিন্দুস্তানি’ ভাষায় বক্তৃতা দিচ্ছিলেন। সংবিধান সভার সভাপতি ডঃ রাজেন্দ্র প্রসাদ তাঁকে বলেছিলেন, এখানে বহু সদস্য কিন্তু হিন্দুস্তানি ভাষা জানেন না। ধূলেকর জবাব দিয়েছিলেন, যাঁরা হিন্দুস্তানি ভাষা জানেন না তাঁদের ভারতে থাকার কোনও অধিকারই নেই। এই সভায় উপস্থিত সদস্যরা সংবিধান নির্মাণের কাজে যুক্ত হয়েছেন অথচ হিন্দুস্তানি জানেন না, তাঁদের এই সভার সদস্য হওয়ারই যোগ্যতা নেই। সবথেকে ভালো হয় আপনারা অন্যত্র চলে যান। ভারত ছেড়ে। চরম উত্তেজনা ছড়িয়েছিল বাংলা ও দক্ষিণ ভারতীয় সদস্যদের মধ্যে। জওহরলাল নেহরু উঠে দাঁড়িয়ে ওই ধূলেকরকে ধমক দিয়ে বিরত করেন। বলেছিলেন, ‘শুনুন, এটা ঝাঁসির ময়দান নয় যে ভাইয়ো অর বহেনো বলে গলা ফুলিয়ে লেকচার দেবেন।’ সংবিধানের প্রস্তাবনা নিয়ে আলোচনা শুরু হওয়ার পরই কিছু সদস্য দাবি করেন ব্রিটিশ নাগরিকতাকে বর্জন করতে হবে। ভারতের সংবিধান আর প্রশাসন নির্মিত হোক গ্রামভিত্তিক। গান্ধীজির আদর্শকে সামনে রেখে। পঞ্চায়েত রাজ হোক ভারত। গ্রামীণ কাউন্সিল দেশ চালাবে। সংবিধান রচনা কমিটির চেয়ারম্যান বি আর আম্বেদকর বলেন, এটা কিছুতেই হতে দেওয়া যাবে না। গ্রাম মানেও এক প্রাদেশিকতা। স্থানীয় স্বার্থ, অজ্ঞতা, সংকীর্ণ মনোভাব আর সাম্প্রদায়িকতা। এভাবে একটি রাষ্ট্র চলে না। রাষ্ট্রকে প্রাদেশিকতার ঊর্ধ্বে উঠতে হবে। তাই একটি শক্তিশালী কেন্দ্রীয় সরকার শক্তিশালী রাজ্যগুলিকে নিয়ে গড়ে তোলা হোক নয়া ভারত। কৃষক নেতা এন সি রাঙ্গা গর্জে উঠেছিলেন। তিনি বললেন, আম্বেদকর ভারতের ঐতিহ্য কিছুই জানেন না। দক্ষিণ ভারতে এসে একটু দেখে যান সেখান শতাব্দীর পর শতাব্দী ধরে কীভাবে গ্রামীণ পঞ্চায়েত ব্যবস্থা সমাজকে উন্নত করেছে। চার্চিল যা বলেছিলেন সেটা সত্যি প্রমাণ করতে মুসলিম লিগ সংবিধান সভা প্রথমদিকে বয়কট করেছিল। যাতে প্রতিষ্ঠিত হয় যে সত্যিই এটা আসলে হিন্দুদের স্বার্থই দেখবে এবং সেইভাবেই তৈরি হবে ভারতের সংবিধান। আর তাহ঩লেই পাকিস্তানের দাবি আরও জোরদার হবে।
এসব প্রসঙ্গ উত্থাপন করার কারণ কী? কারণ হল ১৯৪৬ সালের ৯ ডিসেম্বর থেকে ১৯৪৯ সালের ২৫ নভেম্বর পর্যন্ত ভারতের সংবিধান রচনার কাজটি কী প্রবল সামাজিক ও রাজনৈতিক অস্থিরতার মধ্যে দিয়ে হয়েছিল তা বিশ্বের ইতিহাসে সম্ভবত একমাত্র উদাহরণ। আর এই দুয়েকটি উদাহরণ থেকে স্পষ্ট যে কতরকম মতবাদ পাল্টা মতবাদের ঢেউ আছড়ে পড়েছিল সংবিধান রচনাকারীদের সামনে। সেসব সামলাতে হয়েছে তাঁদের। সেই সংবিধান গ্রহণের ৭০ বছর হতে চলেছে এই বছর। ১৯৪৯ সালের ২৬ নভেম্বর সংবিধান সভায় অনুমোদিত তথা পাশ হয়েছিল ভারতের সংবিধান। স্থির হয়েছিল ঠিক দু’মাস পর অর্থাৎ ১৯৫০ সালের ২৬ জানুয়ারি থেকে সেই নয়া সংবিধান অনুযায়ী ভারত হবে নয়া সাধারণতন্ত্র। সুতরাং এই ২০১৯ সাল ভারতের সংবিধান অনুমোদন তথা গ্রহণের ৭০ তম বর্ষ। আর আজ আমাদের পারিপার্শ্বিক সামাজিক, রাজনৈতিক, নৈতিক আবট তথা নিত্যদিনের চর্চা, মনোভাব ও আচরণ বহু ক্ষেত্রে কিন্তু সংবিধানের লক্ষ্য, আদর্শ ও স্পিরিটের সম্পূর্ণ বিপরীত। ওরকম এক প্রবল ঘুর্ণিঝড়ের আবহে যে রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বরা নিবিষ্টমনে এরকম একটি নিপুণ সংবিধান রচনা করে গেলেন তাকে নস্যাৎ করে সম্পূর্ণ বিপরীত আচরণ করে আমরা কি আমাদের অতীত ঐতিহ্য আর গৌরবকেই অপমান করছি না? ধর্ম নিয়ে হানাহানি বেড়েছে, জাতপাত নিয়ে রাজনীতি বিদ্যমান, ভাষার আগ্রাসন সমানভাবে চলছে। আজ সবথেকে বেশি আমরা আলোচনা করি, ঝগড়া করি, চর্চা করি আর পরস্পরকে আক্রমণ করি প্রধানত দুটি বিষয়ে। ধর্মীয় বিভেদ এবং রাজনৈতিক ভিন্নমত। অথচ সংবিধান রচনাকারীরা সবার আগে যেটা ধ্বংস করতে চেয়েছিলেন সেটি হল এই দুই বিভেদ। অস্পৃশ্যতা, জাতপাত, সম্প্রদায়গত এবং ধনী দরিদ্র বিভাজনের পাশাপাশি ধর্মীয় ও রাজনৈতিক শত্রুতার অবসান চেয়েছিলেন তাঁরা। সেই কারণে সবথেকে শক্তিশালী দল কংগ্রেসের প্রথম সারির যোগ্য নেতারা থাকা সত্ত্বেও গান্ধীজি থেকে নেহরু, সকলের চরম সমালোচক বি আর আম্বেদকরকে করা হয়েছিল সংবিধান রচনা কমিটির চেয়ারম্যান। সংবিধান সভার প্রথম সারিতে নেহরু ও প্যাটেলের পাশেই আসন নির্ধারিত করা হয়েছিল কংগ্রেসের অন্যতম বিরোধী নেতা শরৎচন্দ্র বসুর। জয়পাল সিং লাগাতার বলেছিলেন, মুসলিম লিগ যোগ না দিলে এই সভার কোনও গুরুত্ব নেই। সেই জয়পাল সিংকে তথ্য আর যুক্তি দিয়ে বোঝানোর দায়িত্ব নিয়েছিলেন আর কেউ নয়, স্বয়ং শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়। ৩০০ জন সদস্য ছিলেন। অসংখ্য মতবাদ। তার থেকে বাছাই করে, জোরজবরদস্তি নয়, সকলের মন জয় করে সংবিধান রচনার কাজটি এগিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল।
১৯৪৬ থেকে ১৯৪৯, ভারতের এই তিনটি বছরের ইতিহাস বস্তুত আধুনিক ভারতের সবথেকে অস্থির, সবথেকে বেদনাদায়ক, সবথেকে সন্ত্রাসকবলিত, সবথেকে অমানবিক আর সবথেকে লড়াইয়ের সময় হিসেবেই পরিগণিত। দাঙ্গার ঘা শুকানোর আগেই ঝড়ের মতো এসেছিল দেশভাগ। কাশ্মীরে যুদ্ধ। লক্ষ লক্ষ উদ্বাস্তুকে নিয়ে দিশাহারা নতুন সরকার। তার সঙ্গে চলছে রক্তের উৎসব। ১৯৪৮ সালের জুন মাসে ব্রিটিশরা ভারত ছেড়ে চলে যাবে স্থির হয়েছিল। কিন্তু আচমকা ৩ জুন ১৯৪৭ সালে ভাইসরয় মাউন্টব্যাটেন একটি বৈঠক ডাকলেন। এবং বললেন, আর মাত্র আট সপ্তাহ। ১৫ আগস্ট ব্রিটিশ চলে যাবে এবং দেশভাগ হচ্ছেই। পরদিন ৪ জুন সেটি আনুষ্ঠানিক ঘোষণাও হয়ে গেল। মাথায় আকাশ ভেঙে পড়ল অখণ্ড ভারতের। কোনও মানসিক, প্রশাসনিক প্রস্তুতিই ছিল না। লক্ষ লক্ষ মানুষ জানে না তাঁদের দেশ কোনটা হবে। কারণ দেশ কাটার কাঁচি ভারতের হাতে নেই। তার জন্য আসবেন একজন ব্রিটিশ । সিরিল র‌্যাডক্লিফ। দাঙ্গা বেড়ে গেল। উদ্বাস্তুর সমুদ্র আছড়ে পড়ছে প্রতিদিন। সেরকম এক মুহূর্তে চলছে সংবিধান রচনা। এবং গান্ধী হত্যা। ৩০ জানুয়ারি ১৯৪৮ সালে ওই খবরের পর রেডিওতে শান্তিরক্ষা করার আহ্বান জানাতে গিয়ে নেহরু কেঁদে ফেলেছিলেন। প্যাটেল বলেছিলেন, আমাদের এবার সব বিভেদ ভুলে একজোট হয়ে বাপুর স্বপ্ন পূরণ করতে হবে। এবং ওই প্রচণ্ড আঘাতের মধ্যেই প্যাটেল কয়েকদিন পরই মর্নিং ওয়াকের সময় ডেকে পাঠাতেন সংবিধান সভার কিছু সদস্যকে। তাঁদের সঙ্গে মর্নিং ওয়াক করতে করতে তিনি তাঁদের সংবিধানের খসড়া নিয়ে আপত্তি ও প্রতিবাদের কথা শুনতেন। এবং বোঝাতেন ধৈর্য ধরে। নিষ্পত্তি হতো সমস্যার। এগিয়ে যেত সংবিধান রচনার কাজ।
১৯৪৯ সালের ২৫ নভেম্বর সংবিধান সভার কাজ সমাপ্ত হওয়ার প্রাক্কালে বি আর আম্বেদকর শেষ বক্তৃতায় সতর্ক করেছিলেন কয়েকটি বিষয়ে। তার মধ্যে দুটি সতর্কবার্তা আমরা ৭০ বছর পর স্বচ্ছন্দে ভুলে গিয়েছি। তিনি বলেছিলেন, ১) ‘পৃথিবীর যে কোনও দেশের তুলনায় রাজনীতিতে ভক্তিবাদ ভারতে সবথেকে বেশি। ধর্মে ভক্তি আত্মাকে শান্তিপ্রদান করে। কিন্তু রাজনীতিতে ভক্তি অথবা একজন নেতাকেই হিরো হিসাবে বন্দনা করা চরম বিপজ্জনক। কারণ সেটি নিশ্চিতভাবে অগ্রসর হয় স্বৈরতন্ত্রের দিকে।’ ২) ‘২৬ জানুয়ারি ১৯৫০ থেকে ভারত চরম এক বৈপরীত্য ও দ্বিচারিতা নিয়ে অগ্রসর হবে। রাজনীতিতে আমাদের মধ্যে সাম্য থাকবে, অথচ আর্থিক ও সামাজিকভাবে থেকে যাবে চরম বৈষম্য। রাজনীতিতে আমরা স্বীকৃতি দেব একটি ভোট একটি মূল্য। প্রতিটি ভারতবাসীর ক্ষেত্রে যা প্রযোজ্য। কিন্তু সামাজিক ও আর্থিকভাবে সব মানুষের মূল্য সমান হবে না। কতদিন এই বৈষম্য আর দ্বিচারিতা নিয়ে ভারত চলবে? ভারতবাসীর মধ্যে সামাজিক আর আর্থিক বৈষম্যের যদি অবসান না হয় তাহলে আমরা রাজনৈতিক গণতন্ত্রকেও আসলে হত্যা করব।’
সংবিধান রচনার ৭০ বছর পরও আম্বেদকরের সতর্কবার্তা ধ্রুব সত্য হিসেবে রয়ে গিয়েছে। এটাই আমাদের কাছে সবথেকে বড় অগৌরব। তাই সংবিধানের ৭০ বছরে পা দিয়ে আজ আমাদের কী উচিত নয় অন্তত প্রতিটি মৌলিক অধিকারকে সযত্নে করে রক্ষা করার শপথ গ্রহণ? ধর্ম ও সংস্কৃতির অধিকার, স্বাধীনতার অধিকার, সাম্যের অধিকার, ভাষার অধিকার ... জীবনের অধিকার! সোজা কথা হল, যে দল সংবিধানকে রক্ষা করবে, আমরা সেই দলের সমর্থক হব। সে দলের নেতানেত্রীর নাম যাই হোক না কেন!
04th  January, 2019
বিধানসভা ভোট কিন্তু হবে মমতাকে দেখেই
শান্তনু দত্তগুপ্ত 

ইন্দিরা গান্ধীর টার্গেট ছিল একটাই। যেভাবে হোক সিপিএমের কোমর ভেঙে দিতে হবে। তিনি মনে করতেন, সিপিএম আসলে সিআইএ’র মদতপুষ্ট। ঠিকঠাক সুযোগ পেলে পূর্ববঙ্গ এবং পশ্চিমবঙ্গে সশস্ত্র আন্দোলন করিয়ে বৃহত্তর বাংলা গঠন করে ফেলবে। কাজেই বাংলা কংগ্রেস এবং সিপিআই পছন্দের তালিকায় থাকলেও সিপিএমকে মোটে বরদাস্ত করতে পারতেন না ইন্দিরা।
বিশদ

18th  June, 2019
ডাক্তারবাবুদের গণ-ইস্তফা নজিরবিহীন,
কিন্তু তাতে কি হাসপাতাল সমস্যা মিটবে?

 এ-কথাও তো সত্যি যে, হাসপাতালের পরিকাঠামোগত উন্নয়নে বা ডাক্তারবাবুদের যথাযথ নিরাপত্তা বিধানে তাঁর সদিচ্ছা আছে এবং ইতিমধ্যেই তার যথেষ্ট প্রমাণ মিলেছে। এই অচলাবস্থা কাটাতে প্রবীণদের বৈঠকে ডেকে মুখ্যমন্ত্রী সমাধানসূত্র খুঁজছেন— সেটাও কি ওই সদিচ্ছারই নামান্তর নয়? বিশদ

16th  June, 2019
নরেন্দ্র মোদির মালদ্বীপ সফর এবং ভারত মহাসাগরে ভারতের নতুন রণনীতি
গৌরীশঙ্কর নাগ

 মোদিজির এই দ্বীপপুঞ্জ-সফর কেবলমাত্র হাসি বিনিময় ও করমর্দনের রাজনীতি হবে না, বরং এর প্রধান অ্যাজেন্ডাই হল প্রতিরক্ষা ও নিরাপত্তা ব্যবস্থাকে মজবুত করা। তবে সেটা করতে গিয়ে ভারত যেন দ্বীপপুঞ্জের অভ্যন্তরীণ রাজনীতিতে অযথা হস্তক্ষেপ না করে বসে। কিন্তু তার অর্থ এই নয় যে, ভারত মালদ্বীপকে সন্ত্রাসবাদের নয়া ‘আঁতুড়ঘর’ হতে দেবে। কারণ ইতিমধ্যেই আমরা দেখেছি পাকিস্তান, আফগানিস্তান এমনকী মধ্যপ্রাচ্য থেকেও জেহাদি নেটওয়ার্কের কারবার মালদ্বীপেও পৌঁছে গিয়েছে। এই র‌্যাডিক্যালিজমের একমাত্র দাওয়াই হল অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও তার সহায়ক শক্তি হিসেবে রাজনৈতিক স্থিরতা।
বিশদ

15th  June, 2019
সতর্কতার সময়
সমৃদ্ধ দত্ত

 ভারতীয় সংস্কৃতির সনাতন ধারাটি হল দিবে আর নিবে, মিলিবে মেলাবে। কিন্তু সেই সংস্কৃতি থেকে আমাদের সরিয়ে এনেছে অসহিষ্ণুতা আর স্বল্পবিদ্যা। আর সবথেকে বেশি জায়গা করে নিয়েছে বিদ্বেষ। রাজনৈতিক প্রতিপক্ষের প্রতি বিদ্বেষ।
বিশদ

14th  June, 2019
ক্ষমতার ‘হিন্দি’ মিডিয়াম
শান্তনু দত্তগুপ্ত

 উত্তর ভারতের সঙ্গে দক্ষিণের সীমারেখা। আর তার কারিগর আমরাই। আমাদের কাছে সাউথ ইন্ডিয়ান মানে মাদ্রাজি। দক্ষিণ ভারতের লোকজন নারকেল তেল খায়, অদ্ভুত ওদের উচ্চারণ, লুঙ্গি পরে বিয়েবাড়ি যায়... হাজারো আলোচনা। উত্তর ভারত মানে বিষম একটা নাক উঁচু ব্যাপার। আর দক্ষিণ মানেই রসিকতার খোরাক। তাই ওদের একটু ‘মানুষ’ করা দরকার। কীভাবে সেটা সম্ভব? হিন্দি শেখাতে হবে। বিশদ

13th  June, 2019
বারুদের স্তূপের উপর পশ্চিমবঙ্গ
হিমাংশু সিংহ

সংসদীয় রাজনীতিতে কিছুই চিরস্থায়ী নয়। কারও মৌরসিপাট্টাই গণতন্ত্রে বেশিদিন টেকে না। সব সাজানো বাগানই একদিন শুকিয়ে যায় কালের নিয়মে। ইতিহাস কয়েক বছর অন্তর ফিরে ফিরে আসে আর ধুরন্ধর শাসককে চরম শিক্ষা দিয়ে তাঁকে, তাঁর ক্ষমতাকে ধুলোয় লুটিয়ে দিয়ে আবার ফকির করে দিয়ে যায়। সব ক্ষমতা এক ভোটে বিলীন। ধূলিসাৎ। আর এখানেই মহান গণতন্ত্রের জিত আর চমৎকারিত্ব। আর সেই দিক দিয়ে ২৩ মে-র ফল এই পশ্চিমবঙ্গের রাজনীতিকেও আবার এক মহান সন্ধিক্ষণের দিকেই যেন ঠেলে দিয়েছে। ‘বিয়াল্লিশে বিয়াল্লিশ’ হয়নি, ‘২০১৯ বিজেপি ফিনিশ’—তাও হয়নি। উল্টে সারাদেশে বিজেপি থ্রি-নট-থ্রি (অর্থাৎ ৩০৩টি) আসন জিতে তাক লাগিয়ে দিয়েছে ভোট-পণ্ডিতদের।
বিশদ

11th  June, 2019
মোদিজি কি ‘সবকা বিশ্বাস’ অর্জন করতে পারবেন?
পি চিদম্বরম

 নরেন্দ্র মোদি এবার যে জনাদেশ পেয়েছেন তা অনস্বীকার্যভাবে বিপুল। যদিও, অতীতে লোকসভা নির্বাচনে একটি পার্টি ৩০৩-এর বেশি আসন জেতার একাধিক দৃষ্টান্ত আছে। যেমন ১৯৮০ সালে ইন্দিরা গান্ধী ৩৫৩ এবং ১৯৮৪ সালে রাজীব গান্ধী ৪১৫ পেয়েছিলেন।
বিশদ

10th  June, 2019
 বিজেপি এ রাজ্যের বিধানসভা ভোটকে
কঠিন চ্যালেঞ্জ মনে করছে কেন?
শুভা দত্ত

 কয়েকদিনের মধ্যে বেশ কয়েকটি মর্মান্তিক খুনের ঘটনা ঘটে গেল রাজ্যের উত্তর থেকে দক্ষিণে। তাই আজও একই প্রসঙ্গ দিয়ে এই নিবন্ধ শুরু করতে হচ্ছে। গত সপ্তাহেই লিখেছিলাম, ভোটফল প্রকাশের পর রাজ্যের বেশ কিছু এলাকায় যেন একটা হিংসার বাতাবরণ তৈরি হয়েছে।
বিশদ

09th  June, 2019
ইচ্ছে-ডানায় নাচের তালে
অতনু বিশ্বাস

এ বছরের সিবিএসই পরীক্ষার ফল বেরতে দেখা গেল, প্রথম হয়েছে দু’টি মেয়ে। একসঙ্গে। ৫০০-র মধ্যে তারা পেয়েছে ৪৯৯ করে। দু’জনেই আবার আর্টসের ছাত্রী। না, পরীক্ষায় আজকাল এত এত নম্বর উঠছে, কিংবা আর্টস বিষয় নিয়েও প্রচুর নম্বর তুলে বোর্ডের পরীক্ষায় র‍্যাঙ্ক করা যায় আজকাল—এগুলোর কোনওটাই আমার আলোচনার বিষয়বস্তু নয়।
বিশদ

08th  June, 2019
ভারতের রাজনীতিতে ‘গেম মেকার’
মৃণালকান্তি দাস

মেধাবী হলেই যে পড়ুয়ার জন্য মোটা বেতনের চাকরি নিশ্চিত, তার কোনও গ্যারান্টি নেই। শুধু প্রতিভা থাকলে আর পরিশ্রমী হলেই হবে না, উপযুক্ত প্রশিক্ষণ এবং ঠিকঠাক ‘গাইড’ না পাওয়ায় পড়ুয়ারা আজ আর সরকারি চাকরির লক্ষ্যভেদ করতে পারেন না।
বিশদ

07th  June, 2019
অবিজেপি ভোটে বাজিমাত
বিজেপির, এবং তারপর...
মেরুনীল দাশগুপ্ত

আলোড়ন! নিঃসন্দেহে একটা জবরদস্ত আলোড়ন উঠেছে। লোকসভা ভোটফল প্রকাশ হওয়া ইস্তক সেই আলোড়নের দাপটে রাজ্য-রাজনীতি থেকে সাধারণের অন্দরমহল জল্পনা-কল্পনা, বিবাদ-বিতর্ক, আশা-আশঙ্কায় যাকে বলে রীতিমতো সরগরম! পথেঘাটে আকাশে বাতাসে যেখানে সেখানে ছিটকে উঠছে উৎকণ্ঠা নানান জিজ্ঞাসা।
বিশদ

06th  June, 2019
কর্ণাটক পুরনির্বাচন: আবার উল্টালো ভোটফল
শুভময় মৈত্র 

নির্বাচনে ভোটফল নিয়ে কখন যে কী ঘটছে তার ব্যাখ্যা পাওয়া যাচ্ছে না মোটেই। মানুষ অবশ্যই মত বদলাবেন। সে স্বাধীনতা তাঁদের আছে। সে জন্যেই তো ভোটফল বদলায়। নাহলে সংসদীয় গণতন্ত্রের কোনও অর্থই থাকে না।  
বিশদ

04th  June, 2019
একনজরে
জেনিভা, ১৯ জুন (এএফপি): সাংবাদিক জামাল খাসোগিকে খুনের ঘটনায় সৌদি আরবের যুবরাজের যোগ থাকার জোরালো প্রমাণ মিলেছে বলে জানালেন রাষ্ট্রসঙ্ঘের এক মানবাধিকার কর্মী। এই ঘটনায় আন্তর্জাতিক তদন্তের দাবিও তুলেছেন তিনি। ...

  বিজাপুর, ১৯ জুন: ছত্তিশগড়ের বিজাপুরে এক সমাজবাদী পার্টির নেতাকে অপহরণ করে খুন করল মাওবাদীরা। পুলিস জানিয়েছে, এসপি নেতা সন্তোষ পুনেম ওই এলাকায় কনট্রাক্টর হিসেবে কাজ করতেন। গতবছর তিনি বিধানসভা ভোটে দাঁড়িয়ে পরাজিত হন। ...

সংবাদদাতা, বালুরঘাট: প্রশাসনের কড়া হুঁশিয়ারিই সার, দক্ষিণ দিনাজপুর জেলাজুড়ে টোটোর বিরুদ্ধে কোনও অভিযানে নামতে পারছে না পরিবহণ দপ্তর। প্রশাসন নির্দেশ দিয়েছিল ৩১ মে’র পর রাস্তায় ...

সংবাদদাতা, ঘাটাল: চন্দ্রকোণা-১ ব্লকের ফুলমণি গ্রামে আন্ত্রিকের প্রকোপ দেখা দিয়েছে। রবিবার থেকে ওই গ্রামের বাসিন্দারা আন্ত্রিকে আক্রান্ত হতে শুরু করেন। মঙ্গলবার বিকেল থেকে ক্ষীরপাই ব্লক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে অনেকেই ভরতি হচ্ছেন। চন্দ্রকোণা-১ ব্লক মেডিক্যাল অফিসার নিরঞ্জন কুঁতি বলেন, প্রাথমিক চিকিৎসার পর কয়েকজনকে ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

শরীর-স্বাস্থ্যের আকস্মিক অবনতি। বিদেশ ভ্রমণের সুযোগ আসতে পারে। সম্পত্তি নিয়ে পারিবারিক বিবাদ। ব্যবসায় নতুন সুযোগ ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

বিশ্ব উদ্বাস্তু দিবস
১৯৩৯: ক্রিকেটার রমাকান্ত দেশাইয়ের জন্ম
১৯৫২: লেখক বিক্রম শেঠের জন্ম
১৯৭৯: ফুটবলার রেনেডি সিংয়ের জন্ম
২০০৭: অভিনেত্রী অনীতা গুহের মৃত্যু  

ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৭.৯৯ টাকা ৭১.০৫ টাকা
পাউন্ড ৮৫.৩২ টাকা ৮৯.৪৩ টাকা
ইউরো ৭৬.০২ টাকা ৭৯.৬৮ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৩,৪২৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩১,৭১০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩২,১৮৫ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৩৭,৩০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৩৭,৪০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৫ আষা‌ঢ় ১৪২৬, ২০ জুন ২০১৯, বৃহস্পতিবার, তৃতীয়া ৩০/৩০ অপঃ ৫/৯। উত্তরাষাঢ়া ২৬/৪৭ দিবা ৩/৩৯। সূ উ ৪/৫৬/২০, অ ৬/১৯/১৫, অমৃতযোগ দিবা ৩/৩৮ গতে অস্তাবধি। রাত্রি ৭/২ গতে ৯/৯ মধ্যে পুনঃ ১১/৫৯ গতে ২/৬ মধ্যে পুনঃ ৩/৩২ গতে উদয়াবধি, বারবেলা ২/৫৯ গতে অস্তাবধি, কালরাত্রি ১১/৩৮ গতে ১২/৫৮ মধ্যে। 
৪ আষাঢ় ১৪২৬, ২০ জুন ২০১৯, বৃহস্পতিবার, তৃতীয়া ২৭/২৪/১ দিবা ৩/৫৩/৬। উত্তরাষাঢ়ানক্ষত্র ২৫/৩৬/১১ দিবা ৩/৯/৫৮, সূ উ ৪/৫৫/৩০, অ ৬/২২/২১, অমৃতযোগ দিবা ৩/৩২ গতে ৬/২২ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/৫ গতে ৯/১২ মধ্যে ও ১২/২ গতে ২/১০ মধ্যে ও ৩/৩৫ গতে ৪/৫৬ মধ্যে, বারবেলা ৪/৪১/২৯ গতে ৬/২২/২১ মধ্যে, কালবেলা ৩/০/৩৮ গতে ৪/৪১/২৯ মধ্যে, কালরাত্রি ১১/৩৮/৫৬ গতে ১২/৫৮/৪ মধ্যে। 
মোসলেম: ১৬ শওয়াল 

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
১১ আইপিএস অফিসারকে বদলি করল রাজ্য 

05:19:00 PM

বিশ্বকাপ: অস্ট্রেলিয়া ১৭৭/১ (৩১ ওভার) 

05:10:37 PM

রোগীর পেট থেকে উদ্ধার গাঁজার ছিলিম
রোগীর পেটের ভিতর থেকে কাঁচি বা ছুরি উদ্ধারের ঘটনা নতুন ...বিশদ

05:08:37 PM

বিশ্বকাপ: অস্ট্রেলিয়া ১১৭/০ (২০ ওভার)

04:32:28 PM

বিশ্বকাপ: অস্ট্রেলিয়া ৫৩/০ (১০ ওভার)

03:50:40 PM

ভাটপাড়ার পরিস্থিতি সামলাতে বিশেষ দায়িত্ব সঞ্জয় সিংকে 
ভাটপাড়ার পরিস্থিতি সামলাতে এডিজি(দক্ষিণবঙ্গ) সঞ্জয় সিংকে বিশেষ দায়িত্ব দিল রাজ্য। ...বিশদ

03:28:00 PM