রাজ্য

বাংলার জল বিক্রি! গঙ্গা-তিস্তা নিয়ে তোপ

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে গত শনিবারই দিল্লিতে বৈঠক করেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। সেই বৈঠকের পরেই জলবণ্টন চুক্তি পুনর্নবীকরণ সিদ্ধান্তের কথা ঘোষণা করা হয়েছে। তবে রাজ্যের সঙ্গে কোনও আলোচনা করা হয়নি। অথচ পশ্চিমবঙ্গে সেচ, পানীয় জল সরবরাহ, ভাঙনের মতো বিষয়ের সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িত এই চুক্তি। স্বাভাবিকভাবেই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের রোষের মুখে পড়ল মোদি সরকার। সোমবার এই ইস্যুতে গর্জে উঠেছেন তিনি, ‘বাংলার জল বিক্রি করে দেওয়া হচ্ছে। বাংলার স্বার্থ বিঘ্ন করেই একতরফা এই সিদ্ধান্ত নিচ্ছে কেন্দ্র।’ চুক্তি পুনর্নবীকরণের আগে এরাজ্যের অসুবিধার কথা না শুনলে বৃহত্তর আন্দোলনে যাওয়ার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন মমতা। পাশাপাশি বাংলার কথা না ভেবে এই চুক্তি হলে কী ভাবে সমস্যার মুখে পড়বে রাজ্যবাসী, সেকথা বিস্তারিতভাবে জানিয়ে এদিন তিনি চিঠিও লিখেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে। 
এদিন নবান্ন সভাঘরে পুর-বৈঠকে কেন্দ্রের এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে সুর চড়ান মুখ্যমন্ত্রী। তিনি সাফ বলেন, ‘বাংলাদেশের সঙ্গে আমাদের যথেষ্ট সুসম্পর্ক রয়েছে। কিন্তু এরাজ্যের মানুষ সমস্যায় পড়বে, এটা হতে দেওয়া যায় না। পশ্চিমবঙ্গের কথা না শুনে মোদি সরকার একতরফা ভাবে সিদ্ধান্ত নিলে দেশ ও রাজ্য জুড়ে আন্দোলন গড়ে তুলব।’ প্রধানমন্ত্রীকে লেখা চিঠিতেও তিনি জানিয়েছেন, ১৯৯৬ সালে হওয়া বাংলাদেশ ফরাক্কা চুক্তির মেয়াদ শেষ হচ্ছে ২০২৬ সালে। সেটি পুনর্নবীকরনের পথে হাঁটছে কেন্দ্র। তবে এই চুক্তির বড় প্রভাব পড়ছে পশ্চিমবঙ্গে। ইতিমধ্যে পদ্মার সঙ্গে সংযোগ হারিয়েছে জলঙ্গী এবং মাথাভাঙ্গা নদী। গঙ্গা থেকে ভাগীরথীতে জলের স্বাভাবিক স্রোতেও যথেষ্ট প্রভাব পড়েছে। তার জেরে সুন্দরবনে লবণাক্ত জলের মাত্রা বাড়ছে। একইসঙ্গে কলকাতা পোর্ট ট্রাস্টের নাব্যতা ধরে রাখতে একটি ফিডার ক্যানাল কেটে ৪০ হাজার কিউসেক জল ছাড়ার প্রয়োজন পড়ছে।
তিস্তা নদী নিয়েও প্রধানমন্ত্রীকে লেখা চিঠিতে সরব হয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। তাঁর ব্যাখ্যা, সিকিমে তিস্তার উপর তৈরি হয়েছে একাধিক জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র। পাশাপাশি, প্রাকৃতিক কারণেও কমেছে তিস্তার নাব্যতা। বারবার অনুরোধ সত্ত্বেও পরিস্থিতি উন্নয়নে কোনও পদক্ষেপই নেয়নি কেন্দ্র। এই পরিস্থিতিতে বাংলাদেশের সঙ্গে তিস্তার জলবণ্টন চুক্তি হলে উত্তরবঙ্গে সেচের কাজে ব্যাপক জলসঙ্কট দেখা দেবে। তাই এই চুক্তি কোনওভাবে সম্ভব নয় বলে দাবি মমতার। বিশেষজ্ঞ মহলের মতে, বর্তমান পরিস্থিতিতে ফরাক্কা থেকে ৪০ হাজার কিউসেকেরও বেশি জল ছাড়ার প্রয়োজনীয়তা আছে। আর এই কারণেই চুক্তি পুনর্নবীকরণের আগে রাজ্যের সঙ্গে আলোচনা প্রয়োজন। না হলে আগামী দিনে ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে বাংলা।
25d ago
কলকাতা
দেশ
বিদেশ
খেলা
বিনোদন
ব্ল্যাকবোর্ড
শরীর ও স্বাস্থ্য
বিশেষ নিবন্ধ
সিনেমা
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
আজকের দিনে
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
mesh

গুরুজনের থেকে অর্থকড়ি লাভ হতে পারে। স্বার্থান্বেষী আত্মীয়-স্বজনের সঙ্গে দূরত্ব রেখে চলুন। মনে চাঞ্চল্য।...

বিশদ...

এখনকার দর
ক্রয়মূল্যবিক্রয়মূল্য
ডলার৮২.৮১ টাকা৮৪.৫৫ টাকা
পাউন্ড১০৬.৫৫ টাকা১১০.০৬ টাকা
ইউরো৮৯.৫৫ টাকা৯২.৭১ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
*১০ লক্ষ টাকা কম লেনদেনের ক্ষেত্রে
দিন পঞ্জিকা