প্রচ্ছদ নিবন্ধ

বাস্তবের সাইবর্গরা
কল্যাণ কুমার দে

মেরিন কর্পে কাজ করতেন ক্লডিয়া মিশেল। মোটরবাইক দুর্ঘটনায় একটি হাত হারিয়ে ফেলেন। সেখানে স্থাপন করা হয় একটি বায়োনিক হাত। সেটিকে যুক্ত করা হয় শরীরের নার্ভাস সিস্টেম বা স্নায়ুতন্ত্রের সঙ্গে। এখন এই যান্ত্রিক হাতে তিনি এতটাই সাবলীল যে ফলের খোসা ছাড়াতেও কোনও অসুবিধা হয় না।
ইলেকট্রিক্যাল লাইন্সম্যান হিসেবে কর্মরত ছিলেন জোসি সুলিতান। ২০০১ সালের মে মাসে এক মর্মান্তিক দুর্ঘটনায় তাঁকে দু’টি হাতই হারাতে হয়। চিকিৎসকরা প্রচলিত রবারের হাত লাগানোর পরামর্শ দেন। ঠিক তখনই বায়োনিক হাত লাগানোর প্রস্তাব পান জোসি। স্বাভাবিক হাতের মতোই সে দু’টিকে মস্তিষ্কের মাধ্যমে নিয়ন্ত্রণ করা যায়। শুধু তা-ই নয়, এই কৃত্রিম হাতের সাহায্যে কোনও জিনিসের তাপমাত্রা কত, তাও বুঝতে পারেন তিনি।
উপরের দু’টি ঘটনা রোবোকপ, টার্মিনেটরের মতো কোনও সিনেমা বা কল্পবিজ্ঞানের গল্প নয়। ঘোর বাস্তব। এই প্রযুক্তির পোশাকি পরিচয় সাইবারনেটিক অর্গানিজম। সংক্ষেপে সাইবর্গ। অর্থাৎ মানব শরীর এবং আধুনিক প্রযুক্তিতে তৈরি যন্ত্রের সমন্বয়ের মানুষ। এই সাইবর্গদের মানুষ ও রোবটের মিশ্রণ বলা চলে। এর ফলে তারা হয়ে উঠছেন স্বাভাবিক মানুষের চেয়ে আরও উন্নত।
বদলে যাওয়া দুনিয়ায় টিকে থাকার জন্য এই সাইবর্গের পক্ষেই সওয়াল করেছেন নিউরোলিঙ্ক কর্তা ইলন মাস্ক। সম্প্রতি একটি প্রযুক্তি সম্মেলনে তিনি বলেন—‘আগামী দিনে মানুষকে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার সঙ্গে টিকে থাকতে হলে আরও কিছু সক্ষমতার প্রয়োজন। মানুষকে আরও উন্নত হতে হবে।’ তাঁর এই মন্তব্যের পরেই শুরু হয়েছে বিতর্ক। এটা কীভাবে সম্ভব? কারণ বিবর্তন বিরামহীন হলেও এর গতি অত্যন্ত মন্থর। সুতরাং ইলনের কথা অনুযায়ী মানুষকে দ্রুত কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার পর্যায়ে সক্ষম হতে গেলে বিবর্তনের ভরসায় থাকা যাবে না। তাতে বহু বছর লেগে যাবে। আর বিবর্তন ছাড়াই প্রযুক্তির সঙ্গে তাল মিলিয়ে মানুষকে আরও উন্নত হতে গেলে সাইবর্গই ভবিষ্যৎ।
বাস্তব জগতের সাইবর্গদের সম্পর্কে বলতে গেলে সবার প্রথম যার নাম উঠে আসে, তিনি নিল হার্বিসন। বিশ্বের প্রথম আইন স্বীকৃত সাইবর্গ। ৩২ বছর বয়সি হার্বিসন ‘অ্যাক্রোম্যাটোপসিয়া’ নামক এক বর্ণান্ধতা নিয়ে জন্মগ্রহণ করেন। পৃথিবীর সবকিছু দৃশ্যমান হলেও সাদা-কালো ছাড়া আর কোনও রং দেখতে পেতেন না। ছোটবেলা থেকে তিনি এই জগতের সঙ্গে খাপ খাইয়ে নেওয়ার চেষ্টা করতেন। ২০০৪ সালে এসে এই সমস্যার সমাধানের পথ খোঁজা শুরু করেন হার্বিসন। সেই সময়ে ডাটিংটর্ন কলেজ অফ আর্টসে মিউজিক নিয়ে পড়াশুনা করছিলেন। সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেন কম্পিউটার বিজ্ঞানী অ্যাডাম মন্টানডন। হার্বিসনের জন্যে মন্টানডন কম্পিউটারের সঙ্গে সংযোগকারী একটি অ্যান্টেনা বানিয়ে দেন। সব মিলিয়ে যার ওজন ছিল ৫ কিলোগ্রাম। অ্যান্টেনাটি ৩৬০টি পৃথক শব্দতরঙ্গের মাধ্যমে ভিন্ন ভিন্ন রঙের অনুবাদ করত। আর হেডফোনের মাধ্যমে তা শুনে কোনটির কী রং, বোঝার চেষ্টা করতেন হার্বিসন। মন্টানডন ও হার্বিসন ওই যন্ত্রের নাম দেন ‘আইবর্গ’। যদিও আইবর্গের সাহায্যে রঙিন পৃথিবীতে যে হার্বিসন খুব সহজেই যাত্রা শুরু করতে পেরেছিলেন, তেমনটা নয়। বিষয়টির সঙ্গে খাপ খাইয়ে নিতে পাঁচ সপ্তাহের বেশি সময় ধরে মাথাব্যথা সহ্য করতে হয়েছিল হার্বিসনকে। এরপর প্রায় পাঁচ মাস ধরে কোন শব্দতরঙ্গ কোন রঙের ব্যাপারে বলছে, তা বোঝার চেষ্টা করেন। ধীরে ধীরে হার্বিসনের চোখে ধরা দিতে থাকে বর্ণময় রঙিন পৃথিবী। কিন্তু রঙের সমস্যা দূর হলেও আসল সমস্যা রয়েই গেল। তা হল পাঁচ কেজির কম্পিউটার সব সময় বয়ে বেড়ানো। এই সমস্যার সমাধানে নামলেন হার্বিসন নিজেই। বেশ কিছু বিকল্প উপায় অবলম্বন করার পর সিদ্ধান্ত নিলেন, সরাসরি মাথার খুলির সঙ্গে যোগ করবেন ওই অ্যান্টেনা। শুরু হল ডাক্তারদের কাছে ধরনা দেওয়া। প্লাস্টিক সার্জন থেকে শুরু করে ডজনখানেক চিকিৎসক না বলার পর, নাম গোপন রাখতে হবে এমন শর্তে অপারেশন করতে রাজি হলেন এক ডাক্তার। মাসখানেক পর দেখা গেল দিব্যি ঘুরে বেড়াচ্ছেন হার্বিসন। অ্যান্টেনাটি তাঁর কাছে শরীরের একটি অঙ্গের মতোই। যাঁরা এই ধরণের প্রযুক্তিকে আক্ষরিক অর্থেই নিজের শরীরের সঙ্গে আত্মস্থ করে নিতে চান, টেক-স্যাভিদের কাছে তাঁরাই ‘বায়োহ্যাকার্স’ নামে পরিচিত। কারণ, শরীরের ‘বায়োলজি’কে হ্যাক করে তাঁরা নিজেদের শরীর বা মস্তিষ্ক যাতে আরও ভালোভাবে কাজ করতে পারে, সেই চেষ্টাই চালাচ্ছেন।
লেখার শুরুতে উল্লেখ করা ক্লডিয়া মিশেল বা জোসি সুলিতানের মতোই দুর্ঘটনার কবলে পড়েছিলেন জেরি জালাভাও। নতুন বাইক কিনে মহাআনন্দে চালাচ্ছিলেন। কিন্তু বিধি বাম। মাত্র এক সপ্তাহের মাথায় দুর্ঘটনার শিকার হন তিনি। রক্তাক্ত অবস্থায় লাইটার বের করে সিগারেট ধরাতে গিয়ে দেখেন, উড়ে গিয়েছে মধ্যমা আঙুলের অর্ধেকটা। দুর্ঘটনায় আঙুল হারানোর পর সেখানে কৃত্রিম আঙুল লাগিয়ে নেন নিজেই। আর সেই আঙুলের মধ্যে বসিয়ে নেন দুই গিগাবাইটের ইউএসবি ড্রাইভ। আমি-আপনি যে পেনড্রাইভ পকেটে করে নিয়ে ঘুরে বেড়াই, জেলাভার ওই আঙুলই সেই কাজ করে দেয়।
এই প্রসঙ্গে আরও একটি ঘটনার কথা উল্লেখ করা যাক। বছর ষাটেকের ডঃ পিটার স্কট মরগ্যানের শরীরে ধরা পড়ে ‘মাসল ওয়েস্টিং ইলনেস’। এই রোগে ধীরে ধীরে দেহের সমস্ত মাংসপেশি নষ্ট হয়ে যেতে শুরু করে। ২০১৭ সালে রোগ ধরা পড়ার সঙ্গে সঙ্গেই তাঁকে জানিয়ে দেওয়া হয়, এই পৃথিবীর বুকে পিটারের আয়ু আর মাত্র এক বছর। হুইলচেয়ারেই কাটছিল জীবন। ওই হুইলচেয়ারের সাহায্যেই সোজা হয়ে বসতেন। শারীরিকভাবে দুর্বল হয়ে পড়লেও মানসিক দিক দিয়ে যথেষ্ট সজাগ ছিলেন পিটার। কী করা যেতে পারে, তা নিয়ে হরেক চিন্তাভাবনা ঘুরছিল তাঁর মাথায়। এরপরেই তিনি দ্বারস্থ হন আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স বিশেষজ্ঞ একটি দলের। স্টিফেন হকিংয়ের সঙ্গে কাজের অভিজ্ঞতাসম্পন্ন এই দলটি তৈরি করে এমন এক অবতার, যা চলবে পিটারের চোখের ইশারায়। কথা বলবে তাঁর নিজস্ব গলার স্বরে। কিছুদিন পরে ওই দলটি তৈরি করে চার্লি ২.০ হুইলচেয়ার, যার সঙ্গে যুক্ত রয়েছে একটি ল্যাপটপ এবং একটি আই ট্র্যাকার। এই নতুন হুইলচেয়ারের সঙ্গে খাপ খাওয়াতে বিজ্ঞানীর শরীরে করা হয় একাধিক পরিবর্তন। শরীরে কোথায় খাবারের নল থাকবে আর কোথায় ক্যাথিটার থাকবে, তাও নির্দিষ্ট করে দেওয়া হয়। সম্প্রতি ওই বিজ্ঞানীর শরীরে এমন এক অপারেশন করা হয়েছে, যার ফলে শ্বাসযন্ত্রের বিভিন্ন অংশগুলি এখন আলাদা আলাদা। সম্প্রতি এক্স হ্যান্ডলে পিটার জানিয়েছেন, তিনি এখনই মারা যাচ্ছেন না। বরং হতে চলেছেন এক সাইবর্গ।
পৃথিবীতে যতজন সাইবর্গ বা বায়োহ্যাকার্স হয়েছেন, সবাই কোনও না কোনও শারীরিক সীমাবদ্ধতা দূর করতেই এই পথে পা বাড়িয়েছেন। ব্যতিক্রম কেভিন ওয়ারউইক। ‘ক্যাপ্টেন সাইবর্গ’ নামে পরিচিত ইউনিভার্সিটি অব রিডিং-এর এই প্রফেসর তৈরি করেছিলেন শরীরে স্থাপনযোগ্য মাইক্রোচিপ। ১৯৯৮ সাল থেকে নিজের শরীরে নানারকম মাইক্রোচিপ বসিয়ে ঘরের লাইট, ফ্যান, টিভি সহ নানারকম ইলেকট্রনিক যন্ত্রপাতি নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন তিনি। এমনকী, নিজের শরীরকে যুক্ত করতে পারেন ইন্টারনেটের সঙ্গেও।
স্টেলিওস আর্কাডিওর বিষয়টি অবশ্য আরও চমকপ্রদ। ‘স্টেলার্ক’ নামে পরিচিত এই পারফরমেন্স আর্টিস্ট নিজের বাহুতে বসিয়েছিলেন তৃতীয় একটি কান। পরবর্তীতে এই কানটির মধ্যে শিরা-উপশিরা বিস্তার করিয়ে তা হয়ে ওঠে তাঁর শরীরের একটি অংশ। স্টেলার্কের পরিকল্পনা ছিল, কানটির মধ্যে ছোট একটি মাইক্রোফোন বসানোর, যা ওয়াই-ফাই হটস্পটের মাধ্যমে যুক্ত হবে ইন্টারনেটের সঙ্গে। আর চালু থাকবে ২৪ ঘণ্টা। এই কানের মাধ্যমে পৃথিবীর যে কেউ তাঁকে ইন্টারনেটে ২৪ ঘণ্টাই শুনতে পারবেন। স্টেলার্কের কথায়—‘এই কানটি আমার জন্যে নয়। শোনার জন্যে জন্ম থেকে আমার দু’টি কান রয়েছে। তৃতীয় কানটি একটি রিমোট লিসনিং ডিভাইস, যা দিয়ে বিভিন্ন জায়গায় মানুষ আমাকে শুনতে পাবে।’
এগিয়ে যাচ্ছে দিন। এগিয়ে যাচ্ছে প্রযুক্তি। আগে কোনও মানুষ দুর্ঘটনায় শরীরের কোনও অংশ হারালে ঠাঁই হতো বিছানায়। সমাজ-পরিবারের চোখে হয়ে উঠতেন বোঝার মতো। কিন্তু প্রযুক্তির এই অগ্রগতির ফলে আজ মানুষ সেই বাধাকে অতিক্রম করেছে। শরীরের সঙ্গে যন্ত্রের যোগের ফলে বিবর্তনের গতির তোয়াক্কা না করেই উন্নত হচ্ছেন দ্রুত। পাল্লা দিয়ে বাড়ছে বুদ্ধিমত্তা এবং কার্যক্ষমতা। মানুষের বিবর্তনের ইতিহাসে লেখা হচ্ছে এক নয়া বিপ্লবের অধ্যায়।
এতদিন যা বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনিতে ছিল, আজ তাই ঘোর বাস্তব। মাথার মধ্যে চিপসেট বসিয়ে মস্তিষ্ককে ক্ষুরধার বানানো হচ্ছে। নানা রোগ-নিরাময়ে প্রযুক্তির দ্বারস্থ হচ্ছে মানুষ। সাম্প্রতিক সমীক্ষা বলছে, সাইবর্গ হতেও ইচ্ছুক অনেকে। অ্যান্টিভাইরাস নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ক্যাসপারস্কির হয়ে এনিয়ে একটি সমীক্ষা চালিয়েছে মার্কিন সমীক্ষক সংস্থা দ্য ওপিনিয়ান রিসার্চ। তাতে দেখা গিয়েছে, পশ্চিম ইউরোপের একাধিক দেশের বহু মানুষ নিজেদের জীবনযাপন উন্নত করতে প্রযুক্তি ব্যবহারে আগ্রহী। মানবদেহের সঙ্গে প্রযুক্তি যুক্ত করার বিষয়টিও বিবেচনা করতে প্রস্তুত তাঁরা। তবে অধিকাংশ ক্ষেত্রেই সাইবর্গে তাঁদের আগ্রহ উন্নত স্বাস্থ্যের কারণে। কেউ কেউ অবশ্য সাইবর্গ প্রযুক্তিকে সমাজের জন্য বিপজ্জনক বলে চিহ্নিত করেছেন। তাঁদের মতে, এটি অসৎ উদ্দেশ্যে কাজে লাগাতে পারে হ্যাকাররা।
একটা বিষয় ঠিকই, রক্তমাংসের মানুষের সব খামতি ঢেকে দিতে পারে এই প্রযুক্তি। কিন্তু এরপর কি? সেই প্রশ্ন থাকছেই। মানুষ শরীরে চিপ বসাবে, বায়োইলেক্ট্রনিক হার্ট, কিডনি লাগাবে। বায়ো-ইলেক্ট্রো-মেকানিক্যাল হাত-পা লাগিয়ে হয়ে উঠবে সুপারহিউম্যান। বিবেক, চেতনা, উপলব্ধিও কি যন্ত্রচালিত হয়ে পড়঩বে? রক্তমাংসের মানুষের সময় কি তবে শেষ হয়ে আসছে ?  
(লেখক প্রেসিডেন্সির প্রাক্তন অধ্যাপক)
গ্রাফিক্স : সোমনাথ পাল
1Month ago
কলকাতা
রাজ্য
দেশ
বিদেশ
খেলা
বিনোদন
ব্ল্যাকবোর্ড
শরীর ও স্বাস্থ্য
বিশেষ নিবন্ধ
সিনেমা
আজকের দিনে
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
mesh

চল্লিশের ঊর্ধ্ব বয়সিরা সতর্ক হন, রোগ বৃদ্ধি হতে পারে। অর্থ ও কর্ম যোগ শুভ। পরিশ্রম...

বিশদ...

এখনকার দর
ক্রয়মূল্যবিক্রয়মূল্য
ডলার৮৩.১৭ টাকা৮৪.২৬ টাকা
পাউন্ড১০৬.৯৩ টাকা১০৯.৬০ টাকা
ইউরো৯০.০০ টাকা৯২.৪৪ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
*১০ লক্ষ টাকা কম লেনদেনের ক্ষেত্রে
দিন পঞ্জিকা