Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

সন্ত্রাসের মুদ্রা তৈরির নেপথ্যে
মৃণালকান্তি দাস

গোপন খবর ছিল সিবিআইয়ের কাছে। সেই সূত্র ধরেই ভারত-নেপাল সীমান্তের বিভিন্ন ব্যাঙ্কের প্রায় ৭০টি শাখায় আচমকা হানা। উদ্ধার বিপুল পরিমাণ জাল নোট। সালটা ২০০৯-১০।
গোয়েন্দাদের রিপোর্ট, শুধু ২০১০ সালেই ৩২০০ কোটির বেশি মূল্যের জাল নোট ছড়িয়ে পড়েছিল গোটা দেশে। পাক গোয়েন্দা শাখা আইএসআই চাইছিল, ভারতের অর্থনীতি তছনছ করে দিতে। খোলা বর্ডারের সুযোগ নিয়ে নেপাল হয়ে উঠেছিল আইএসআইয়ের জাল নোট প্রবাহের কেন্দ্রস্থল। সিবিআই তদন্তে জানা যায়, এই চক্রের সঙ্গে জড়িত বিহারের চম্পারন জেলার ছয় মহিলা এবং নেপালের চারজন। যাদের কাজ ছিল, দু’টি রুট দিয়ে নেপাল থেকে সরাসরি উত্তরপ্রদেশে এবং নেপাল থেকে বিহার হয়ে জাল নোট পাচার করা। যে যত পরিমাণ পাচার করতে পারবে, তার উপর ২ শতাংশ কমিশন। সেই সময় উত্তরপ্রদেশের সিদ্ধার্থনগর এবং মহারাজগঞ্জ রুট হয়ে উঠেছিল নোট পাচারের সেফ প্যাসেজ। রাজস্থান এবং পাঞ্জাব সীমান্তও হয়ে উঠেছিল পাকিস্তানি এজেন্টদের করিডোর। আইএসআই ‘সন্ত্রাসের মুদ্রা’ পাচারের নেটওয়ার্ক তুলে দিয়েছিল দাউদ ইব্রাহিমের ক্রাইম সিন্ডিকেট ডি-কোম্পানির হাতে। দুবাই থেকে ডি-কোম্পানির জাল নোট পাচারের কাজ দেখাশোনা করত দুই শাকরেদ— আফতাব ভক্তি এবং বাবু গাইথান। আকাশপথ, জলপথ, রেলপথ, স্থলপথ— সব রুট ধরে ভারতের মাটিতে আছড়ে পড়েছিল জাল নোট। সেই সময় সিবিআই, র-সহ দেশের গোয়েন্দা সংস্থাগুলি একযোগে জানিয়েছিল, প্রতি ৪টি ১০০০ টাকার নোটের মধ্যে একটি জাল!
বিভিন্ন ব্যাঙ্কের কর্তাদের জেরা করে সিবিআই জানতে পারে, ফেক নোট রিজার্ভ ব্যাঙ্ক থেকেও ঢুকেছে। খবরের সত্যতা যাচাইয়ের পর সিবিআই রিজার্ভ ব্যাঙ্কের ভল্ট রেড করে। সবাইকে চমকে 
দিয়ে ভারতের রিজার্ভ ব্যাঙ্কের ভল্টে বিপুল পরিমাণ জাল ৫০০ও ১০০০ টাকার নোট পাওয়া যায়। মাথায় হাত গোয়েন্দাদের! ঠিক একই কোয়ালিটির জাল টাকা তো আইএসআই বিভিন্ন রুটে ভারতের বাজারে ঢুকিয়েছে। প্রশ্ন ওঠা স্বাভাবিক, বিপুল পরিমাণ ফেক ৫০০ ও ১০০০ টাকার নোট রিজার্ভ ব্যাঙ্কের ভল্টে ঢুকল কী করে?
সিবিআই তদন্তের রিপোর্ট যায় সংসদীয় কমিটির হাতে। কমিটি অব পাবলিক আন্ডারটেকিং (সিওপিইউ) আবিষ্কার করে, দেশের অর্থনৈতিক সার্বভৌমত্বকে চূড়ান্ত অবহেলা করে ভারত সরকার ১৯৯৭-৯৮ সালে ১ লক্ষ কোটি টাকার ৫০০ ও ১০০ টাকার নোট ছাপার কাজ আউটসোর্সিং 
করেছে জার্মানি, আমেরিকা এবং ব্রিটেনের তিনটি কোম্পানির কাছে। যে তিনটি কোম্পানিকে এই টাকা ছাপার অধিকার দেওয়া হয়েছিল তারা হল: মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ‘আমেরিকান ব্যাঙ্কনোট কোম্পানি’, ব্রিটেনের ‘টমাস দে-লা-রু’ এবং জার্মানির ‘গিসেক ডেভরিয়েন্ট কনসোর্টিয়াম’।
আরবিআইয়ের গভর্নর তখন বিমল জালান। রিজার্ভ ব্যাঙ্কের ভল্টে ফেক কারেন্সি উদ্ধার এবং সংসদীয় কমিটির রিপোর্টের তদন্তে আরবিআইয়ের অফিসারদের টিম পাঠানো হয় ব্রিটেনের টমাস দে-লা-রু’র হ্যাম্পশায়ারের ছাপাখানায়। তখন ভারতীয় রিজার্ভ ব্যাঙ্কের সিকিউরিটি পেপার, নোট ছাপার কাগজের ৯৫ শতাংশ সাপ্লাই করত এই কোম্পানি। টমাস দে-লা-রু কোম্পানির লাভের এক তৃতীয়াংশ আসত ভারতীয় রিজার্ভ ব্যাঙ্ককে নোট ছাপার কাগজ বেচে আর কিছুটা নোট ছেপে। প্রমাণ মেলে, একই কাগজ পাকিস্তান ফেক কারেন্সি ছাপাতেও ব্যবহার করছে। এই হাই সিকিউরিটি পেপার পাকিস্তানের হাতে গেল কী করে?
অভিযোগ অস্বীকার করলেও টমাস দে-লা-রু কোম্পানিকে তৎকালীন ইউপিএ সরকার ব্ল্যাক লিস্টেড করতে বাধ্য হয়। ২০১০-এর ১২ আগস্ট টমাস দে-লা-রু কোম্পানির সিইও জেমস পি হ্যাসি রহস্যজনকভাবে পদত্যাগ করেন। কোম্পানির শেয়ার তলানিতে এসে ঠেকে এবং অন্যতম প্রধান কাস্টমার আরবিআইকে হারিয়ে কোম্পানি প্রায় দেউলিয়া অবস্থায় পৌঁছয়। এই সময়ে টমাস দে-লা-রু’র প্রতিদ্বন্দ্বী ফরাসি কোম্পানি ওবার্থুর টেকনোলজিস সমস্ত দেনা সমেত গোটা কোম্পানিকে কিনে নেওয়ার প্রস্তাব দিলেও দে-লা-রু বিভিন্ন উপায়ে নিজেদের মালিকানা কোনওরকমে টিকিয়ে রাখে। ২০১৫ সালে ভারত সরকার জানতে পারে, জার্মানির লুইসেনথাল পাকিস্তানকে ব্যাঙ্ক নোটের কাগজ সরবরাহ করে। এই সত্য আবিষ্কারের পরে ২০১৫ সাল থেকে ভারত সরকারকে ব্যাঙ্ক নোটের কাগজ সরবরাহকারী হিসেবে জার্মানির লুইসেনথাল পেপার মিলের নাম বাদ যায়।
কারেন্সি ব্যবসায় বিশ্বের মাত্র ডজন খানেক কোম্পানির মৌরুসিপাট্টা। এদের মধ্যে প্রায় প্রত্যেকেই পঞ্চদশ শতাব্দী থেকে ব্যবসা করছে। ভারতে কালো তালিকায় থাকা ‘দে-লা-রু’ প্রায় দু’শো বছরের পুরনো। দে-লা-রু একসময় ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের ক্রাউন এজেন্ট ছিল। ক্রাউন এজেন্ট কারা? যারা স্ট্যাম্প, কোর্ট পেপার থেকে শুরু করে ব্যাঙ্ক নোট পর্যন্ত ছাপত। টেকনিক্যাল, ইঞ্জিনিয়ারিং এবং অর্থনৈতিক সার্ভিস সরবরাহ করত। বিভিন্ন কলোনির প্রাইভেট ব্যাঙ্কার হিসেবে কাজ করত। ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের সেনাবাহিনীকে অস্ত্র সরবরাহ, অস্ত্র সংগ্রহ থেকে শুরু করে সেনাবাহিনীর মাইনে দেওয়ারও ব্যবস্থা করত। এক কথায় ক্রাউন এজেন্ট গোটা ব্রিটিশ সাম্রাজ্য এবং তার সমস্ত কলোনির নিয়ন্ত্রকের ভূমিকা পালন করত। আজও তারা ব্যাঙ্ক অব ইংল্যান্ডের নোট ছাপে। কেনিয়া, মাল্টা এবং শ্রীলঙ্কার মতো ১৪০টি দেশের সঙ্গে এরা যুক্ত।
১৮৮৪ সাল পর্যন্ত কোনও ব্রিটিশ কলোনিকে নোট ছাপার অধিকার দেওয়া হয়নি। কলোনিগুলি তাদের স্থানীয় নোট সরকার নির্দিষ্ট এজেন্টদের কাছ থেকে সংগ্রহ করত। আর এজেন্টরা এই নোট পেত সাম্রাজ্যের ক্রাউন এজেন্ট দে-লা-রু’র ছাপাখানা থেকে। ১৯২৮ সালে নাসিকে নোট ছাপার প্রথম কারখানা গড়ে ভারত সরকার। ভারতের স্বাধীনতার ৫০ বছর পরেও সমস্ত টাকা ছাপার মেশিন এবং টেকনোলজি সরবরাহকারী ছিল দে-লা-রু কোম্পানিই। ১৯৬৫ সাল থেকে যার মালিক ইতালির গিওরি পরিবার।
১৯৯৯-র ২৪ ডিসেম্বর যে ভারতীয় বিমান হাইজ্যাক হয়েছিল, সেই বিমানেই ছিলেন রবার্টো গিওরি। বিশ্বের কারেন্সি প্রিন্টিং ব্যবসার কিং। সেই রবার্টোর মুক্তির জন্য সুইজারল্যান্ড সহ বিশ্বের বিভিন্ন লবি ভারত সরকারকে চাপ দিতে থাকে। ঘটনার সাতদিন পরে ভারত সরকার অপহরণকারীদের দাবি মেনে নেয়। মাসুদ আজহার সহ তিন সন্ত্রাসবাদীকে মুক্তি দিতে হয়। রবার্টোর মুক্তিপণ হিসেবে সেদিন 
কত কোটি টাকা ভারত সরকার দিয়েছিল, তা 
আজও রহস্য...।
ভারতের মাটিতে রবার্টোর কারবার ২০১০ সাল পর্যন্ত বেশ ভালোই চলছিল। কিন্তু নেপাল-ভারত সীমান্তে সিবিআই রেড সব তালগোল পাকিয়ে দিয়েছিল। কেঁচো খুঁড়তে গিয়ে বেরিয়ে এসেছিল কেউটে! ভারত সরকার জানতে পেরেছিল, বিদেশি কোম্পানিগুলির হাত ধরে নোট ছাপানোর কাগজ, কালি সব পৌঁছে গিয়েছে পাক গোয়েন্দাসংস্থা আইএসআইয়ের কাছে। সেটা ছিল গভীর চক্রান্ত। যার খেসারত আজও গুনতে হচ্ছে ভারতকে। আরবিআই জানিয়েছে, ২০২১-২২ সালে দেশে মোট জাল নোট মিলেছে ২,৩০,৯৭১টি। যা তার আগের বছরে ছিল ২,০৮,৬২৫টি। এর মধ্যে ২০০০ টাকার জাল নোট ধরা পড়েছে ১৩,৬০৪টি। সব থেকে বেশি জাল হচ্ছে ১০০ টাকার নোট। তবে ২০২০-২১ সালের ১,১০,৭৩৬টির চেয়ে তা কমে হয়েছে ৯২,২৩৭টি। আর ৫০০ টাকার নতুন নোটের ক্ষেত্রে তা ২০২০-২১ সালের ৩৯,৪৫৩টির থেকে গত বছরে এক ধাক্কায় পৌঁছে গিয়েছে ৭৯,৬৬৯টিতে।
প্রশ্ন হল, এই ব্ল্যাক লিস্টেড দে-লা-রু’র সঙ্গে ভারত সরকারের সম্পর্ক কী? নোটবন্দির সময় অরবিন্দ কেজরিওয়ালের ‘আপ’ অভিযোগ তুলেছিল, দে-লা-রু কোম্পানিকে আবার নতুন ২০০০ ও ৫০০ টাকা ছাপানোর বরাত দেওয়া হয়েছে। শোরগোল শুরু করেছিল কংগ্রেসও। যদিও অর্থমন্ত্রক জানিয়ে দেয়, দে-লা-রু ২০১০ সাল পর্যন্ত ব্যাঙ্ক নোটের জন্য কাগজ সরবরাহ করেছে। ২০১৩ সালে নেওয়া সিদ্ধান্তের ভিত্তিতে কোম্পানিটিকে ২০১৫-র ডিসেম্বর পর্যন্ত ব্যাঙ্ক নোটের সুরক্ষা সংক্রান্ত সামগ্রী সরবরাহ করার অনুমতি দেওয়া হয়েছিল। এরপর দে-লা-রু’র সঙ্গে আর কোনও চুক্তি হয়নি। এই কোম্পানি ভারতে একটি ফ্যাক্টরি খোলার অনুমতি চেয়েছিল। সেই ‌আবেদনও এখনও টেবিলে পড়ে রয়েছে। দে-লা-রু অবশ্য মনে করে, তাদের বিরুদ্ধে ওঠা যাবতীয় অভিযোগ ভিত্তিহীন।
২০১৩-১৫ সাল পর্যন্ত দে-লা-রু’র বার্ষিক রিপোর্টে ভারতের সঙ্গে কোনও লেনদেনের তথ্য পাওয়া যায়নি। কিন্তু ২০১৬ সালের বার্ষিক প্রতিবেদনে স্পষ্টভাবে দে-লা-রু ক্যাস প্রসেসিং সলিউশানস ইন্ডিয়া প্রাইভেটের ভারতের কাজকর্মের উল্লেখ রয়েছে। এক সাক্ষাৎকারে, দে-লা-রুয়ের শীর্ষকর্তা মার্টিন সাদারল্যান্ড বলেছিলেন, দিল্লিতে তাঁরা অফিস খুলেছেন। তাঁদের কোম্পানি ভারতের শিল্প নীতি ও প্রচার বিভাগ (ডিআইপিপি)-এর সঙ্গে যুক্ত। ‘মেক ইন ইন্ডিয়া’-য় তাদেরও ভূমিকা রয়েছে। এর প্রমাণ, ২০১৬-র ১১ এপ্রিলের পর দে-লা-রুয়ের শেয়ারের মূল্য ৩৩.৩৩ শতাংশ বেড়ে গিয়েছে। সেই বছর ভারত-ব্রিটেন টেক সামিটে প্ল্যাটিনাম পার্টনারও ছিল এই কোম্পানি। দে-লা-রু ইন্ডিয়ার ওয়েবসাইট খুললেই ভারতের মাটিতে তাদের অস্তিত্ব টের পাবেন। যে কোম্পানির বিরুদ্ধে ভয়ঙ্কর অভিযোগ রয়েছে, সন্ত্রাসবাদীদের হাতে নোট ছাপানোর কাগজ তুলে দিয়ে দেশের অর্থনীতিকে ভেঙে চুরমার 
করে দিতে চেয়েছিল, সেই দে-লা-রু ভারতের মাটিতে বহাল তবিয়তে ব্যবসা করে কী করে? এই প্রশ্ন তোলা কি অন্যায়?
আসলে সন্ত্রাসের মুদ্রা তৈরির নেপথ্যে আরও যে কত অজানা কাহিনি রয়েছে, কে জানে!
24th  November, 2022
মোদিজির রাজধর্ম শুধু বাংলার জন্য!
হিমাংশু সিংহ

মণিপুর জ্বলছে মাসের পর মাস। কয়েক দফায় ভারত ভ্রমণে বেরলেও প্রধানমন্ত্রী যাওয়ার সময় পাননি। বিশেষ বাক্যও খরচ করেননি উত্তর-পূর্বের এই অগ্নিগর্ভ রাজ্যের জন্য। সেখাকার নারীর সম্ভ্রম লুট নিয়ে, প্রকাশ্যে খুনখারাপি নিয়ে একটা বাক্য খরচ করার সময় হয়নি। বিশদ

সঙ্কটকালে তিনিই ‘ত্রাতা’
তন্ময় মল্লিক

কৃষকবন্ধুর টাকা দ্বিগুণ করা হবে, চালু হবে লক্ষ্মীর ভাণ্ডার, স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ড। রেশন পৌঁছে যাবে মানুষের দুয়ারে। একুশের ভোটে এমনই ছিল মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রতিশ্রুতি। বিরোধীরা বলেছিল, সব ধাপ্পা। এত টাকা আসবে কোথা থেকে? মানুষের মধ্যেও ছিল সংশয়। বিশদ

02nd  March, 2024
অমৃতকালে আত্মহত্যা বাড়ছে কেন?
সমৃদ্ধ দত্ত

রাজস্থানের বারমেড় অঞ্চলের গ্রামীণ এলাকার হতাশ, জীবনের প্রতি বিমুখ, পারিবারিক অত্যাচারে বিপর্যস্ত, সন্তানহীনতার কারণে নিরন্তর দোষারোপ শুনে আত্মগ্লানিতে নিমজ্জিত মহিলারা আজকাল কুয়ো খুঁজছেন। কিন্তু পাচ্ছেন না। এতদিন ধরে তারা যে সহজ পদ্ধতিতে এইসব সমস্যা থেকে মুক্তি পেতেন, সেই ব্যবস্থা কমে যাচ্ছে। বিশদ

01st  March, 2024
৩৭০ আসনের মনস্তাত্ত্বিক যুদ্ধ!
মৃণালকান্তি দাস

লোকসভা ভোটের নির্ঘণ্ট প্রকাশের আগেই এনডিএ জোট কত আসন পাবে, কত আসনে বিজেপি জয়ী হবে, তা সংসদে দাঁড়িয়ে ঘোষণা করে দিয়েছেন প্রধামন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। তাঁর ভবিষ্যদ্বাণী, ‘আমি দেশের মেজাজ দেখে বলছি, এনডিএ ৪০০ পার করবে। আর ভারতীয় জনতা পার্টিকে ৩৭০ সিট অবশ্যই দেবে জনগণ।’
বিশদ

29th  February, 2024
বিজেপি আর দুর্গ নয়, নিছকই কাচের ঘর
হারাধন চৌধুরী

বিখ্যাত রাষ্ট্রবিজ্ঞানী, হিউম্যারিস্ট স্টিফেন লিকক বলেছিলেন, প্রবাদগুলো নতুন করে লেখা উচিত। কারণ এগুলো প্রাসঙ্গিকতা হারিয়েছে। এমনকী, কিছু প্রবাদ সাম্প্রতিক বাস্তবের বিপরীত ব্যাখ্যাই বহন করছে। প্রবাদ: কাচের ঘরের বাসিন্দাদের কখনওই অন্যের দিকে ঢিল ছোড়া উচিত নয়। বিশদ

28th  February, 2024
বাংলা চুলোয় যাক, কাঁকড়ানীতি জিন্দাবাদ
শান্তনু দত্তগুপ্ত

বাংলায় বসে যাঁরা রাজ্য সরকারের বিরোধিতা করেন, তাঁদের অবস্থা মনিবের প্যান্টে মুখ ঘষা মার্জারের মতো। যদি মনিব মাথাটা একটু থাবড়ে দেন, তাতেই স্বর্গপ্রাপ্তি। চুলোয় যাক বাংলা। উচ্ছন্নে যাক বাঙালি। তাতে তাদের কিছুই আসে যায় না। তাঁরা বিশ্বের দরবারে বাংলাকে জুতো মারতে বেশি আগ্রহী। কেন? কারণ একটাই—তাঁদের 
পার্টি এই রাজ্যে সরকার চালায় না। সন্দেশখালি নামে একটি দ্বীপে তিনটি ব্যক্তিকে ঘিরে বিক্ষোভের আঁচে তাঁরা গোটা বাংলাকে সেদ্ধ করতে মরিয়া। একটি দ্বীপ, দু’টি ব্লক, ১৬টা গ্রাম পঞ্চায়েত, মেরেকেটে সাড়ে চার লক্ষ মানুষ। সমগ্র বাংলার বিচার এর নিরিখে হতে পারে? নাকি হওয়া উচিত?
বিশদ

27th  February, 2024
নির্বাচনী বন্ড নিয়ে ভীত দাতা, গ্রহীতা দু’পক্ষই
হুমায়ুন কবীর

‘না খাউঙ্গা না খানে দুঙ্গা’—বহুল চর্চিত জুমলাটি রাজনীতির অঙ্গন ছাড়িয়ে সমস্ত নাগরিকের মস্তিষ্কে বাসা বেঁধেছে। আমেদাবাদ থেকে আদানির চার্টার্ড ফ্লাইটে তাঁর দিল্লি উড়ে আসা আমরা ভুলিনি। ভুলিনি দূষিত দিল্লির আকাশ-বাতাসে প্রচারের ঢক্কানিনাদ, সঙ্গে প্রতিশ্রুতির বন্যা।
বিশদ

26th  February, 2024
প্রধানমন্ত্রীর নীরবতা কৌশলী, ভাঙা জরুরি
পি চিদম্বরম

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি নিজেকে বোঝাতে ‘আমি’ বা ‘আমার’ শব্দ দুটি এড়িয়ে চলেন এবং সেই জায়গায় বরাবর ব্যবহার করেন উত্তম পুরুষ।
বিশদ

26th  February, 2024
সন্দেশখালি দিয়ে গোটা বাংলার বিচার!
হিমাংশু সিংহ

গেল গেল রব উঠেছে চারদিকে। একজনেরও প্রাণ যায়নি। এক রাউন্ডও গুলি চলেনি। আদালত কোনও রায় দেয়নি। ঠিক একুশ সালের বিধানসভা ভোটের আগের রিপ্লে যেন।
বিশদ

25th  February, 2024
আধার বন্ধ কি ঝড়ের পূর্বাভাস?
তন্ময় মল্লিক

বিপুল সরকার থাকেন পূর্ব বর্ধমান জেলার জামালপুরের জুহিহাটি গ্রামে। নিজের কোনও ঘরবাড়ি নেই। থাকেন আত্মীয়ের ঘরে। সংসারে অভাব লেপ্টে থাকে ছায়ার মতো। সর্বক্ষণ। ভরসা বলতে খেতমজুরি আর বিনাপয়সার রেশন। অভাব থাকলেও স্বপ্নটাকে বাঁচিয়ে রেখেছেন। বিশদ

24th  February, 2024
দ্বিতীয় মণ্ডল: কংগ্রেসকে বদলে দিচ্ছেন রাহুল?
সমৃদ্ধ দত্ত

রাহুল গান্ধী শুধু নিজের রাজনৈতিক কেরিয়ারে নয়, স্বাধীনতার পর কংগ্রেসের ইতিহাসেও সম্ভবত সবথেকে বড় এক সিদ্ধান্ত এবং ঝুঁকিপূর্ণ বাজি নিয়েছেন ঠিক লোকসভা ভোটের আগে। নিজের দলের ইতিহাসের ঘোষিত অথবা অঘোষিত অবস্থানের ঠিক বিপরীত অবস্থানে গিয়ে রাহুল গান্ধী সরাসরি জাতিগত রাজনীতিতে প্রবেশ করছেন। বিশদ

23rd  February, 2024
হিন্দুত্ববাদী পপস্টারদের এজেন্ডা
মৃণালকান্তি দাস

হিন্দুত্ববাদীদের জন্য এই ‘ভক্তিমূলক’ গান রচেছেন প্রেম কৃষ্ণবংশী। যার বাংলা তর্জমা: ‘তুমি মানুষ নও, তুমি কসাই; যথেষ্ঠ হয়েছে হিন্দু-মুসলিম ভাই ভাই।’ বিদ্বেষমূলক রাজনীতির টানে কৃষ্ণবংশীর এই গান এখন গোবলয়ে নতুন গণসংস্কৃতির অংশ। বিশদ

22nd  February, 2024
একনজরে
এনায়েতপুরের শেখপুরার পর উত্তর চণ্ডীপুর গ্রাম পঞ্চায়েত। ১০০ দিনের কাজের টাকা ঢোকার পর ফের কাটমানি নেওয়ার অভিযোগ উঠল। ...

২০২৩-২৪ সালে পঞ্চদশ অর্থ কমিশনের দ্বিতীয় কিস্তির টায়েড ফান্ডের টাকা দিতে ঢিলেমি করছে কেন্দ্র। এমনই অভিযোগ উঠেছে। অন্যান্য বছরে জানুয়ারির শেষ কিংবা ফেব্রুয়ারির শুরুর দিকে এই টাকা রাজ্যকে পাঠিয়ে দেওয়ার নজির রয়েছে। ...

শেষ মুহূর্তে কোনও নাটকীয় পট পরিবর্তন না হলে রবিবার পাকিস্তানের ৩৩তম প্রধানমন্ত্রী হতে চলেছেন শাহবাজ শরিফ। ...

স্থায়ী শ্রমিক নিয়োগ না করে অ্যাপ্রেন্টিসশিপ ট্রেনিদের দিয়ে ঝুঁকিপূর্ণ কাজ করানো হচ্ছে। দুর্গাপুর স্টিল প্ল্যান্টে (ডিএসপি) দুর্ঘটনার দু’দিন পরও আইসিইউতে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছে কমবয়সি দু’জন ট্রেনি। ৪৮ ঘণ্টা পরও তাঁদের পরিস্থিতির উন্নতি হয়নি। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

দান ও ধর্মকর্মে আত্মিক প্রফুল্লতা। দাম্পত্য ক্ষেত্রে শুভ। খেলাধুলায় বিশেষ কৃতিত্ব ও সুনাম। ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

বিশ্ব বই দিবস
বিশ্ব বন্যপ্রাণী দিবস
বিশ্ব শ্রবণ দিবস
বিশ্ব জন্ম-ত্রুটি দিবস

১৫৮১ - চতুর্থ শিখ গুরু রামদাসের মৃত্যু
১৭০৭- মুঘল সম্ৰাট আওরঙ্গজেবের মৃত্যু হয়। যুবরাজ মুয়াজ্জম আওরঙ্গজেবের উত্তরাধিকারীর দায়িত্ব গ্রহণ করেন ও বাহাদুর শাহ (প্রথম) নাম ধারণ করেন
১৮৩৯ - বিশিষ্ট উদ্যোগপতি ও টাটা গ্রুপের সংস্থাপক জামশেদজী টাটার  জন্ম
১৮৪৭- টেলিফোনের আবিষ্কর্তা বিজ্ঞানী গ্রাহাম বেলের জন্ম
১৮৮৩- কবি কুমুদরঞ্জন মল্লিকের জন্ম
১৮৯৯ - বিশিষ্ট চরিত্রাভিনেতা তুলসী চক্রবর্তীর জন্ম
১৯৩১- শাস্ত্রীয় সঙ্গীত শিল্পী গুলাম মুস্তফা খানের জন্ম
১৯৩৯- ক্রিকেটার এম এল জয়সীমার জন্ম
১৯৫৫- অভিনেতা জশপাল ভাট্টির জন্ম
১৯৬৭- গায়ক শংকর মহাদেবনের জন্ম
১৯৬৮- অভিনেত্রী নীলমের জন্ম
১৯৬৯- ভারতে প্রথম দ্রুতগামী রাজধানী এক্সপ্রেস ট্রেন (হাওড়া ও নতুন দিল্লীর মধ্যে) চালু হয়
১৯৭১- "আমার সোনার বাংলা, আমি তোমায় ভালবাসি" বাংলাদেশের জাতীয় সঙ্গীত হিসাবে ঘোষণা করা হয়
১৯৮৭- অভিনেত্রী শ্রদ্ধা কাপুরের জন্ম
২০১৬- নিউজিল্যান্ডের ক্রিকেটার মার্টিন ক্রো-র মৃত্যু
২০২৩ - পাণ্ডব গোয়েন্দা খ্যাত  সাহিত্যিক ষষ্ঠীপদ চট্টোপাধ্যায়ের মৃত্যু



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৮২.৩৮ টাকা ৮৩.৪৭ টাকা
পাউন্ড ১০৩.৬৪ টাকা ১০৬.২৮ টাকা
ইউরো ৮৮.৭৯ টাকা ৯১.২৪ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৬৩,৯৫০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৬৪,২৫০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৬১,১০০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৭১,১৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৭১,২৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

১৯ ফাল্গুন, ১৪৩০, রবিবার, ৩ মার্চ, ২০২৪। সপ্তমী ৬/৫৩ দিবা ৮/৪৫। অনুরাধা নক্ষত্র ২৪/৪৭ দিবা ৩/৫৫। সূর্যোদয় ৬/০/২, সূর্যাস্ত ৫/৩৭/২০। অমৃতযোগ দিবা ৬/৪৬ গতে ৯/৫২ মধ্যে। রাত্রি ৭/১৬ গতে ৮/৫৫ মধ্যে। মাহেন্দ্রযোগ দিবা ৬/৪৬ মধ্যে পুনঃ ১২/৫৮ গতে ১/৪৪ মধ্যে। রাত্রি ৬/২৭ গতে ৭/১৬ মধ্যে পুনঃ ১২/১২ গতে ৩/৩১ মধ্যে। বারবেলা ১০/২২ গতে ১/১৫ মধ্যে। কালরাত্রি ১/২১ গতে ২/৫৪ মধ্যে। 
১৯ ফাল্গুন, ১৪৩০, রবিবার, ৩ মার্চ, ২০২৪। অষ্টমী রাত্রি ৩/২৬। অনুরাধা নক্ষত্র দিবা ১১/২৩। সূর্যোদয় ৬/৩, সূর্যাস্ত ৫/৩৭। অমৃতযোগ দিবা ৬/২৭ গতে ৯/৪১ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/২০ গতে ৮/৫৫ মধ্যে। মাহেন্দ্রযোগ দিবা ৬/২৭ মধ্যে ও ১২/৪৪ গতে ১/৪২ মধ্যে এবং রাত্রি ৬/৩২ গতে ৭/২০ মধ্যে ও ১২/৫ গতে ৩/১০ মধ্যে। বারবেলা ১০/২৩ গতে ১/১৬ মধ্যে। কালরাত্রি ১/২৩ গতে ২/৫৬ মধ্যে। 
২১ শাবান।

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
আনুষ্ঠানিকভাবে এনডিএ-তে যোগ দিল আরএলডি

02-03-2024 - 10:26:00 PM

এক ঝলকে বাংলার ঘোষিত ২০ জন বিজেপি প্রার্থী তালিকা
১. বালুরঘাট- সুকান্ত মজুমদার ২. বনগাঁ- শান্তনু ঠাকুর ৩. হুগলি- লকেট চট্টোপাধ্যায় ৪. ...বিশদ

02-03-2024 - 07:34:43 PM

লোকসভা নির্বাচনের ১৯৫ আসনের প্রার্থী তালিকা প্রকাশ বিজেপির
আসন্ন লোকসভা নির্বাচনের প্রথম প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করল বিজেপি। আজ ...বিশদ

02-03-2024 - 07:10:39 PM

লোকসভা নির্বাচন: আজই প্রথম দফায় প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করতে পারে বিজেপি

02-03-2024 - 04:43:21 PM

সন্দেশখালি ইস্যুতে ডিওয়াইএফআই-এর এসপি অফিস ঘেরাও অভিযানের জেরে অবরুদ্ধ বসিরহাট-তেঁতুলিয়া রোড, দুর্ভোগ সাধারণ মানুষের

02-03-2024 - 04:40:50 PM

সন্দেশখালি ইস্যুতে বসিরহাটের এসপি অফিসে যেতে বাধা, রাস্তায় বসে বিক্ষোভ ডিওয়াইএফআই-এর নেত্রী মীনাক্ষী মুখোপাধ্যায়ের

02-03-2024 - 04:27:55 PM