Bartaman Patrika
সম্পাদকীয়
 

কড়া হাতে দমন 

স্মৃতি সতত সুখের হয় না। কিছু কিছু পুরনো স্মৃতি পীড়াদায়ক, উদ্বেগও বাড়ায়। সোমবারের ঘটনা সেরকমই একটা পুরনো স্মৃতিকে উস্কে দিল। মনে পড়ে যায় সেই দৃশ্যটি যেখানে প্রাণ বাঁচাতে পুলিসকে আশ্রয় নিতে হয়েছে টেবিলের নীচে। আইনরক্ষকরাই যদি নিরাপত্তাহীনতায় ভোগেন সেখানে সাধারণ মানুষের নিরাপত্তারক্ষার বিষয়টি নিয়ে সমস্যা দেখা দেওয়াটাই স্বাভাবিক। বেশ কিছুদিন ধরে দেখা যাচ্ছে পুলিসের উপর চড়াও হওয়ার ঘটনা উদ্বেগজনকভাবে বাড়ছে। হেনস্তার শিকার হচ্ছেন এক শ্রেণীর পুলিসকর্মী। পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে এমনটা ঘটলে আইনশৃঙ্খলা বজায় থাকবে কী করে সে নিয়ে প্রশ্ন উঠতে পারে। তাই এই প্রশ্নটি যাতে কোনোভাবেই না-উঠতে পারে সেজন্য কড়া হাতে পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে হবে সেই পুলিসকেই। দেখতে হবে যাতে কোনও অপরাধী ছাড় পেয়ে না-যায়। এর জন্য সবার আগে দরকার পুলিসের নিরপেক্ষ ভূমিকা। অপরাধী কোন দলভুক্ত বা কাদের আশ্রয়ে লালিত পালিত, অর্থাৎ রং না-দেখে পুলিসকে সেই দায়িত্বটি পালন করতে হবে, আর পুলিসকে সেই দায়িত্ব ঠিকমতো পালন করতে দেওয়ার ক্ষেত্রে রাজনৈতিক দলগুলির নেতাদের বিশেষ করে শাসক দলের বিশেষ ভূমিকা রয়েছে। তাঁদের ছত্রছায়ায় থাকার সুবাদে অপরাধ করে অপরাধী যাতে পার পেয়ে না-যায় সে বিষয়ে স্পষ্ট বক্তব্য তাঁদের রাখতে হবে। দুর্নীতি ও অপরাধকে প্রশ্রয় দিলে তা যে উত্তরোত্তর বাড়ে এই সহজ সত্যটি কারও না-জানার কথা নয়। কিন্তু প্রায়শ এর উল্টোটা ঘটে। রাজনৈতিক দলের ছত্রছায়ায় থাকা অপরাধীকে ছাড়াতে অনেক সময়ই নেতাদের কেউ কেউ পুলিসকে ফোন করেন, নির্দেশও দেন। হয়তো বা থাকে অলিখিত বোঝাপড়া। এটা বন্ধ হওয়া দরকার।
এমনটা নয় পুলিস একেবারে ধোওয়া তুলসীপাতা। পুলিসের ভূমিকা বা তাদের নিরপেক্ষতা নিয়ে বারবার অভিযোগ ওঠে। যদিও দায়িত্বকর্তব্যসচেতন পুলিসকর্মীরও অভাব নেই। তবু, দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে পুলিস মার খাবে, এটা কখনওই কাম্য নয়। তা মেনে নেওয়াও যায় না। পুলিসকে মারধর করা চরমতম অপরাধ। এই সাহস যারা দেখাচ্ছে সেই অপরাধীদের চিহ্নিত করে শাস্তি দিতেই হবে এবং সেটা রাজনীতির রং না-দেখেই। আর পুলিসের আচরণ নিয়ে যদি জনতার ক্ষোভ থাকেও তাহলেও সেই ক্ষোভ মেটানোর জায়গা নিশ্চয়ই থানা নয়। সেখানে তাণ্ডব চালিয়ে, ভাঙচুর করে বা পুলিসকে মারধর করে কোনও সমস্যারই সুরাহা হতে পারে না। প্রতিটি দায়িত্বশীল নাগরিকেরই এটা স্মরণে রাখা প্রয়োজন। রবিবার গভীর রাতে টালিগঞ্জ থানায় যে ঘটনাটি ঘটেছে তা আলিপুরের সেই পুরনো স্মৃতিকেই উস্কে দিল। এদিন উত্তেজিত জনতার তাণ্ডবের সামনে কার্যত আত্মসমর্পণ করতে বাধ্য হয়েছেন কর্তব্যরত পুলিসকর্মীরা। তাঁদের মারধর করা থেকে শুরু করে ভাঙচুর, ইটপাটকেল ছোড়া, এমনকী পুলিস-মেসে হামলা চালানো—কোনও কিছুই বাদ যায়নি! এমন অভিযোগও উঠেছে, অভিযুক্তরা শাসক দলের এক নেতার পাড়ার বাসিন্দা ও ওই দলের সমর্থক হওয়ার কারণেই নাকি পুলিস ব্যবস্থা নিতে কড়া হতে পারেনি। এক শ্রেণীর পুলিসকর্মী
নাকি আপস করারও আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়েছিলেন। আরও অভিযোগ, দ্বিধাগ্রস্ত পুলিসকর্মীরা প্রথমে পাল্টা ব্যবস্থা নিতে পারেননি। অনেক
পরে বিরাট ফোর্স গিয়ে পরিস্থিতি আয়ত্তে আনে। তাই গোটা ঘটনাটি লালবাজারে জানাতে থানার তরফে কেন দেরি হল তা খতিয়ে দেখারও বিশেষ প্রয়োজন আছে।
এদিনের ঘটনা প্রসঙ্গে পুলিসের বিরুদ্ধে স্থানীয়দের তরফে কিছু অভিযোগ তোলা হয়েছে। তাঁদের অভিযোগটিও গুরুত্বসহকারে যাচাই করা দরকার। তবে, শহরের বুকে থানায় ঢুকে কেউ তাণ্ডব চালিয়ে ভাঙচুর করবে—এটা ভাবাও কষ্টসাধ্য! কোনও মদ্যপকে ছাড়াতে পুলিসের উপর চড়াও হওয়ার ঘটনাটিকে ছোটখাটো অপরাধ হিসেবে দেখা ঠিক হবে না। কারণ, এই ঘটনায় নিরাপত্তা ব্যবস্থার ত্রুটিটিও সামনে এসেছে। আইনশৃঙ্খলার রক্ষক উর্দিধারীরাই যদি আইনভঙ্গকারীদের হাতে প্রহৃত হন তাহলে তা সাধারণ মানুষের পক্ষে যথেষ্ট উদ্বেগজনক। কারণ, বিপদে আপদে তাঁরা এই পুলিসেরই দ্বারস্থ হন। তাঁদের নিরাপত্তার জন্য এঁদের উপরেই ভরসা রাখেন। পুলিসেরই কোনও নিরাপত্তা নেই—এমন একটা ধারণা জনমানসে তৈরি হলে তা সমাজের পক্ষে মঙ্গলজনক নয়। এমন বার্তাটি যাতে মানুষের কাছে না-যায়, সেজন্য প্রশাসনকেই সতর্ক থেকে যথোচিত পদক্ষেপ করতে হবে, যাতে পুলিস তার নিজস্ব দায়িত্বটি নিরপেক্ষভাবে পালন করতে পারে এবং নিরাপত্তাহীনতায় না-ভোগে। প্রাণ বাঁচাতে টেবিলের নীচে পুলিসের লুকনো বা আত্মসমর্পণ করার ঘটনা অবশ্যই লজ্জাজনক। এমন পরিস্থিতির পুনরাবৃত্তি বাঞ্ছনীয় নয়। তাই আইনভঙ্গকারীদের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নিতে হবে প্রশাসনকে। 
জালনোট: মূল উপড়ানো দরকার 

সম্প্রতি লোকসভায় কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র দপ্তরের রাষ্ট্রমন্ত্রী যে পরিসংখ্যান দিয়েছেন, তাতে নোটবাতিলের পর থেকে চলতি বছরের জুলাইয়ের মাঝামাঝি সময় পর্যন্ত বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সীমান্তে ভারতীয় জালনোট উদ্ধারের পরিমাণ ২ কোটি ৫৫ লক্ষ টাকা। 
বিশদ

13th  August, 2019
খট্টর-মন্তব্য এবং নারীসমাজ

 হরিয়ানার মুখ্যমন্ত্রী মনোহরলাল খট্টর একটি মন্তব্য করেছেন এবং তার সাফাইও দিয়েছেন। বিষয়বস্তু, ‘কাশ্মীরি বধূ’। ভাবটা খুব পরিষ্কার, সংবিধানের ৩৭০ ধারা কাশ্মীরের উপর আর কার্যকর না থাকায় এবার কাশ্মীর থেকেও ভারতের অন্য রাজ্য বা প্রদেশের পুরুষরা সুন্দরী বধূ নিয়ে আসতে পারবেন। মাননীয় মুখ্যমন্ত্রীর কাছে খুব মজাদার বিষয় বটে।
বিশদ

12th  August, 2019
ব্যালট বনাম প্রযুক্তি

ভারতের মুখ্য নির্বাচন কমিশনার সুনীল অরোরা স্পষ্ট জানিয়ে দিলেন, ব্যালটে ফিরে যাওয়ার কোনও প্রশ্নই নেই। কলকাতায় একটি অনুষ্ঠানে এসে তিনি এই কথা জানিয়েছেন। এই প্রসঙ্গে সুপ্রিম কোর্টের রায় উল্লেখ করার পাশাপাশি মুখ্য নির্বাচন কমিশনার বুঝিয়ে দিয়েছেন, ভারত আর অতীতের দিকে ফিরে তাকাতে চায় না।
বিশদ

11th  August, 2019
ভারতের যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামোয় আঘাত এবং মমতার লড়াই

 যে যায় লঙ্কায়, সেই হয় রাবণ। দিল্লির তখত-এ-তাউসের মর্মবাণী এই যে, এখান থেকে গোটা ভারতটাকে নিজের পায়ের তলায় দমিয়ে রাখ। যে বা যারা তার বিরোধিতায় যাবে, তাদের ছলে-বলে-কৌশলে জয় করো, অথবা নাম ও নিশান মিটিয়ে দাও।
বিশদ

10th  August, 2019
ব্যর্থ কৌশল ছাড়ুক পাকিস্তান

  জম্মু ও কাশ্মীর রাজ্যের বিশেষ মর্যাদা খারিজ হওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে পাকিস্তানের ভারত-নীতি কী হবে—এই দুই বৈঠকে সেটাই আলোচনা করা হয়েছে। পার্লামেন্টের বিশেষ যৌথ অধিবেশনেও কাশ্মীর বিষয়ে গরমাগরম প্রতিক্রিয়া দিয়েছেন নেতৃস্থানীয়রা।
বিশদ

09th  August, 2019
দার্জিলিং: এক অবান্তর প্রসঙ্গ

 কাশ্মীর সমস্যার সমাধানে মোদি সরকার প্রশংসনীয় পদক্ষেপ করতেই দেশাভ্যন্তরের অন্যকিছু অঞ্চল নিয়ে অবান্তর প্রশ্ন তুলতে শুরু করেছেন কেউ কেউ। সাত দশক যাবৎ জম্মু ও কাশ্মীর বিশেষ অধিকার ভোগ করেছে ভারতের সংবিধানের ৩৭০ এবং ৩৫এ ধারায়। আমরা জানি, ৫ আগস্ট ৩৭০ ধারা খারিজ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ওই ভূখণ্ডের অঙ্গরাজ্যের তকমাও কেড়ে নেওয়া হয়েছে। বিশদ

08th  August, 2019
ঐতিহাসিক সাহসী পদক্ষেপ 

মোদি সরকার দ্বিতীয় দফায় ক্ষমতায় এসে একের পর এক সাহসী পদক্ষেপ করছে। স্বাধীন ভারতের ইতিহাসে যা ঐতিহাসিক সিদ্ধান্ত। অতীতের বিভিন্ন সরকারের তুলনায় এই সরকার যে অনেক বেশি আগ্রাসী এবং সক্রিয় তা রাজ্যসভায় বিল পাসের মাধ্যমে ৩৭০ ধারাটি খারিজ করে প্রমাণ করে দিল।  বিশদ

07th  August, 2019
বন্দুকবাজদের এই উগ্রপন্থা আমেরিকা আটকাবে কীভাবে

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র আজ যেন বন্দুকবাজদের এক আখড়া। প্রায়ই সেখানে বন্দুকবাজদের এলোপাথাড়ি গুলি চলছে আর মৃত্যু হচ্ছে অসংখ্য নিরীহ মানুষের। যার মধ্যে রয়েছে বহু নিষ্পাপ শিশুও। কোনও দোষ ছিল না তাদের। আজ বন্দুকবাজদের নিয়ে মহা সঙ্কট মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে। মানসিক ক্লেদ এবং হিংসার বিষ অনুভূতি বয়ে নিয়ে চলেছে এই ঘাতকরা।
বিশদ

06th  August, 2019
ভূস্বর্গ পুনরায় ভয়ঙ্কর

 মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সফরে গিয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান জঙ্গিদমনের যতই গল্প শুনিয়ে আসুন না কেন, ফের কাশ্মীর উপত্যকার মাটিতে সন্ত্রাস ছড়ানোর অভিযোগে বিদ্ধ তাঁর দেশ, পাকিস্তান। ফের একবার কাশ্মীরে পাকিস্তান সন্ত্রাস তৈরিতে মদত দেয়, এই তথ্য প্রমাণিত হল।
বিশদ

05th  August, 2019
 জঙ্গি তকমার আইন

ইউএপিএ সংশোধনী বিলটি রাজ্যসভায় পাশ হওয়া মাত্র বিরোধীরা সরব হয়েছে একটিই কারণ দেখিয়ে। তাদের দাবি, এর ফলে ভারতবাসীর মৌলিক অধিকার খর্ব হবে। প্রত্যেক মানুষের মত প্রকাশের অধিকার রয়েছে। আজ যদি কারও ভাবধারার প্রতি সহমত হওয়া বা সোশ্যাল মিডিয়ায় কোনও পোস্ট ফরওয়ার্ড করার জন্য একজন ভারতবাসীকে জঙ্গি তকমা পেতে হয়, তা মোটেই সংবিধানকে মান্যতা দেয় না।
বিশদ

04th  August, 2019
ব্যাধির উৎস শিকড়ে 

একটির পর একটি। তারপর আরও একটি। নারী নির্যাতনের যেন বিরাম নেই। একেকবার এক-একটি ঘটনাকে কেন্দ্র করে উত্তাল হয় দেশ। কিছুদিন তর্ক-বিতর্ক চলে, রাজনৈতিক বেনিয়ারা মুনাফা তোলার চেষ্টা করে—তারপর আবার যে কে সেই।   বিশদ

03rd  August, 2019
নিঃসঙ্গ প্রবীণ ভাবনা প্রশংসনীয়

 রাজ্যের অন্যসকল অঞ্চলের তুলনায় কলকাতায় শিক্ষার হার বেশি। এখানকার উচ্চ শিক্ষিতদের একটি বড় অংশ দিল্লি, মুম্বই, বেঙ্গালুরু, হায়দরাবাদ, চেন্নাই প্রভৃতি স্থানে কর্মরত। যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড, সিঙ্গাপুর এবং আরব ও ইউরোপের নানা দেশে গবেষণা, চাকরি অথবা বাণিজ্য সূত্রে বসবাস করেন। অনেকের পক্ষে বছরের পর বছর দেশে ফেরা সম্ভব হয় না। তাঁদের বৃদ্ধ বাবা-মা কলকাতা অথবা শহরতলির বাড়িতে বা ফ্ল্যাটে কার্যত নিঃসঙ্গ জীবনযাপন করেন। বিশদ

02nd  August, 2019
বৃদ্ধিযোগের ভালো-মন্দ

 পশ্চিমবঙ্গে হঠাৎ বৃদ্ধিযোগ। সরকারের রাজকোষের সঙ্গে প্রত্যক্ষ ও নানা ভাবে যুক্ত মানুষের পাওনাগণ্ডা অনেকখানি বাড়িয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাজ্য। যেমন গত ২৫ জুলাই প্রাথমিক শিক্ষকদের বেতন একলাফে অনেকটাই বাড়ানোর সিদ্ধান্ত ঘোষণা করা হয়েছে।
বিশদ

01st  August, 2019
মানুষের কাছে চলো

বদলা নয় বদল চাই। বলেছিলেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ৩৪ বছরের বাম জমানার রাজ্যপাট বদল করে তাঁর নেতৃত্বে এখন রাজ্যে সরকার চলছে। ২০২১ সালের নির্বাচনকে পাখির চোখ করে এবার তিনি বদল আনতে চাইছেন দলের অভ্যন্তরে। জননেত্রী তিনি। মর্মে মর্মে উপলব্ধি করেন জনসংযোগের গুরুত্ব।
বিশদ

31st  July, 2019
রেশন এবং ই-পস

 ইপিওস বা ইলেকট্রনিক পয়েন্ট অব সেলস। সংক্ষেপে বলা হয় ই-পস। ছোট্ট যন্ত্র। সরকারি বাসে যে যন্ত্রে টিকিট কাটা হয় বা বিভিন্ন বিক্রয় কেন্দ্রে যে যন্ত্রে ডেবিট বা ক্রেডিট কার্ড সোয়াইপ করা হয়, কতকটা সেরকম। অথচ এটি নিয়েই বিগত কয়েক বছর ধরে কেন্দ্র-রাজ্যের মধ্যে চূড়ান্ত টানাপোড়েন চলছে।
বিশদ

30th  July, 2019
কালো টাকা কত জানেই না কেন্দ্র

 প্রথমবার ক্ষমতায় আসার আগেই কালো টাকার বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেওয়া হবে বলে সরব হয়েছিল মোদি সরকার। ২০১৪ সালে বিজেপির নেতৃত্বাধীন এনডিএ সরকারের অন্যতম প্রধান প্রতিশ্রুতি ছিল বিদেশে গচ্ছিত রাখা কালো টাকা দেশে ফিরিয়ে আনা।
বিশদ

29th  July, 2019
একনজরে
সংবাদদাতা রায়গঞ্জ: নানা অনিয়মের অভিযোগ তুলে উত্তর দিনাজপুর জেলাজুড়ে সমস্ত ভূমি ও ভূমি সংস্কার দপ্তরের বিরুদ্ধে আন্দোলনে নামছে কংগ্রেস। অভিযোগ, জেলা ও ব্লক স্তরের ভূমি সংস্কার দপ্তরগুলিতে নানা বেআইনি কাজ হচ্ছে। অনৈতিক ভাবে টাকা নিয়ে গরিব মানুষদের নামে থাকা জমি ...

বিএনএ, কৃষ্ণনগর: ঘূর্ণির শিল্পী সুবীর পাল ‘লিমকা বুক অব রেকডর্সে’ নাম তুলে ফেললেন। সুবীরবাবুর ঝুলিতে অনেক আগেই এসেছে রাষ্ট্রপতি পুরস্কার। একইসঙ্গে বৃহৎ মূর্তি(লার্জার দ্যান লাইফ) এবং ক্ষুদ্র ভাস্কর্য তৈরি করে তিনি ঠাঁই পেয়েছেন লিমকা বুকে। ভেঙে ফেলেছেন আগের রেকর্ডও। সম্প্রতি ...

প্রসেনজিৎ কোলে, কলকাতা: জোর করে দরজা আটকে পাতাল পথের ট্রেনে ওঠার অভিযোগে এক মাসেই জরিমানা বাবদ আদায় হয়েছে ১০ হাজার টাকা। স্টেশনে চলছে প্রচারও। তবুও ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: দক্ষিণ ভারতে একের পর এক পুলিসি অভিযানে ধরা পড়েছে বেশ কয়েকজন জেএমবি জঙ্গি। তাই জায়গা পরিবর্তন করে মধ্য ভারতে ঘাঁটি বানাতে শুরু করেছিল এই জঙ্গি সংগঠনের সদস্যরা।  ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

কোনও কিছুতে বিনিয়োগের ক্ষেত্রে ভাববেন। শত্রুতার অবসান হবে। গুরুজনদের কথা মানা দরকার। প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় সুফল ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৯৪৭- পাকিস্তানের স্বাধীনতা দিবস
১৯৪৮- শেষ ইনিংসে শূন্য রানে আউট হলনে ডন ব্র্যাডম্যান
১৯৫৬- জার্মা নাট্যকার বের্টোল্ট ব্রেখটের মৃত্যু
২০১১- অভিনেতা শাম্মি কাপুরের মৃত্যু 



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭০.২৭ টাকা ৭১.৯৭ টাকা
পাউন্ড ৮৪.২৫ টাকা ৮৭.৩৭ টাকা
ইউরো ৭৮.০৭ টাকা ৮১.০৭ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৮,৪৩০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৬,৪৬০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৭,০০৫ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৪,৬০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৪,৭০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

২৮ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৪ আগস্ট ২০১৯, বুধবার, চতুর্দশী ২৬/১৩ দিবা ৩/৪৬। উত্তরাষাঢ়া ০/৫ প্রাতঃ ৫/১৯। সূ উ ৫/১৬/৩৫, অ ৬/৬/১৬, অমৃতযোগ দিবা ৬/৫৮ মধ্যে পুনঃ ৯/৩৩ গতে ১১/১৫ মধ্যে পুনঃ ৩/৩২ গতে ৫/১৫ মধ্যে। রাত্রি ৬/৫২ গতে ৯/৬ মধ্যে পুনঃ ১/৩৩ গতে উদয়াবধি, বারবেলা ৮/২৯ গতে ১০/৫ মধ্যে পুনঃ ১১/৪২ গতে ১/১৮ মধ্যে, কালরাত্রি ২/২৯ গতে ৩/৫২ মধ্যে। 
২৮ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৪ আগস্ট ২০১৯, বুধবার, চতুর্দশী ২৪/৩১/৩ দিবা ৩/৪/৩। উত্তরাষাঢ়ানক্ষত্র ২/১০/১৭ দিবা ৬/৭/৪৫, সূ উ ৫/১৫/৩৮, অ ৬/৮/৪২, অমৃতযোগ দিবা ৭/০ মধ্যে ও ৯/৩২ গতে ১১/১৪ মধ্যে ও ৩/২৮ গতে ৫/১০ মধ্যে এবং রাত্রি ৬/৪৬ গতে ৯/১ মধ্যে ও ১/৩২ গতে ৫/১৬ মধ্যে, বারবেলা ১১/৪২/১০ গতে ১/১৮/৪৮ মধ্যে, কালবেলা ৮/২৮/৫৪ গতে ১০/৫/৩২ মধ্যে, কালরাত্রি ২/২৮/৫৪ গতে ৩/৫২/১৬ মধ্যে। 
১২ জেলহজ্জ 

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
আজকের রাশিফল
মেষ: প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় সুফল হবে। বৃষ: কর্মপ্রার্থীদের কর্মলাভ হবে। মিথুন: ফাটকাতে ...বিশদ

07:11:04 PM

ইতিহাসে আজকের দিনে 
১৯৪৭- পাকিস্তানের স্বাধীনতা দিবস১৯৪৮- শেষ ইনিংসে শূন্য রানে আউট হলনে ...বিশদ

07:03:20 PM

তৃতীয় একদিনের ম্যাচ: বৃষ্টিতে ফের বন্ধ খেলা, ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১৫৮/২(২২ওভার)  

09:25:56 PM

তৃতীয় একদিনের ম্যাচ: ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১৩১/২(১৫ওভার)  

08:44:01 PM

তৃতীয় একদিনের ম্যাচ: ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১১৪/০(১০ ওভার)  

08:19:26 PM

 আগামীকাল কম ট্রেন মেট্রোয়
আগামীকাল ১৫ আগস্ট স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে ছুটি থাকায় ...বিশদ

08:12:59 PM