Bartaman Patrika
সাম্প্রতিক
 

ইতিহাসের সন্ধানে... 
সেন্ট পিটার্সবার্গে
(রাশিয়া থেকে ফিরে সন্দীপন বিশ্বাস)

জুন, জুলাই মাসের এই সময়টায় সেন্ট পিটার্সবার্গে সূর্যের আলস্য দেখার মতো। অস্ত যেতে যেন মন চায় না তার। সারাদিন মাথার উপর জ্বলছে তো জ্বলছেই। ঘড়িতে তখন সাড়ে এগারোটা বেজে গেল। সেটাকে রাত বলব কিনা বুঝতে পারছি না! তখন পশ্চিমের আকাশে সূয্যিমামার অনিচ্ছার ডুব। সমস্ত আকাশ রাঙিয়ে সে যেন বলছে। ‘যাচ্ছি বটে, আবার এক্ষুণি আসব।’ ঠিক তাই। আবার কিন্তু সাড়ে তিনটের মধ্যেই বরুণদেবকে পূবের আকাশে উঁকি দিতে দেখা যাবে। সে এক অবাক করা রাত। রাতই বা বলি কী করে। সূর্য ডোবার পরেও থেকে যায় আকাশজোড়া এক অদ্ভুত আলো। পূবের আকাশের আলোর সঙ্গে পশ্চিমের আকাশের ঘনিয়ে আসা আঁধারের সে কী ঐশ্বরিক খেলা! সেই আকাশ থেকে উৎসারিত একখণ্ড আলো এসে পড়ে নেভা নদীর নীল জলে। সেই আলো প্রবেশ করে তার গভীরে। দুপাশের শহরে ব্যস্ততার জ্বলে ওঠা আলোর খেলাও যেন মিশে যায় তার সঙ্গে। সে না দেখলে বুঝি বিশ্বাস করা কঠিন। এই সময়টাকে ওরা তাই বলে হোয়াইট নাইট। সে রাত্রিকে মনে হয় আলোর অধিক। মনে হয় যেন এক রূপকথার জগতে ঢুকে পড়েছি। চারিদিকে ইতিহাসের গন্ধ মাখা। বিপ্লবের মধ্য দিয়ে যে জার শাসনের অবসান ঘটেছিল, যে ইতিহাস মুছে দিতে তৎপর হয়েছিলেন বলশেভিকরা, তা কিন্তু মুছে ফেলা যায়নি। প্রতিটি গির্জা, প্রাসাদ, বাড়ি, শহরের রাজপথে ছড়িয়ে আছে সেই হারানো ইতিহাসের গন্ধ।
কলকাতার সঙ্গে কয়েকটা ব্যাপারে সেন্ট পিটার্সবার্গের একটা মিল খুঁজে পেলাম। কলকাতার পত্তন হয়েছিল ১৬৯০ খ্রিস্টাব্দে। আর সেন্ট পিটার্সবার্গের পত্তনের বছর হল ১৭০৩। কলকাতা থেকে রাজধানী দিল্লিতে সরে গিয়েছিল ১৯১১ খ্রিস্টাব্দে এবং সেন্ট পিটার্সবার্গ থেকে রাজধানী মস্কোতে সরে গিয়েছিল ১৯১৮ সালে। তবে কলকাতাও বহু ইতিহাসের সাক্ষী। সব ইতিহাস আমরা ধরে রাখতে পারিনি। তার কারণ বাঙালি সেরকম ইতিহাস সচেতন জাতি নয়।
এই সময়টা ওদের কার্নিভালের সময়। এখন ওদের উৎসবের মাস। নাচ, গান, ব্যালে, অপেরার কত যে শো এই সময় হয়, তার ইয়ত্তা নেই। হয় বাজি পোড়ানো। ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল। আবার বিয়েরও ধুম পড়ে যায় এই সময়ে। দু’ একটা বিয়ের সাক্ষী আমরাও থেকেছি। আমাদের বিয়ের জাঁকজমকের সঙ্গে তা একটুও মেলে না। খুবই সাদামাঠা মনে হয়। তার সঙ্গে এবার মিশেছে ফুটবলের কার্নিভ্যাল। এবারে বিশ্বকাপ ফুটবলের আয়োজক রাশিয়া। সেই উৎসবের ধাক্কায় তাই এবারে ওদের নিজস্ব উৎসবে যেন খানিক ভাটার টান। পুরো জাতটাই এখন মেতে আছে ফুটবলে। বিশেষ করে রাশিয়া এবার ভালো খেলছিল বলে রুশরা সব ভুলে ফুটবলের আবেগে ভাসছিল। রাশিয়ার ১১টি শহরে তার আয়োজন। মস্কো, সেন্ট পিটার্সবার্গ, ভলগোগ্রাদ, একাতেরিনবার্গ, কালিনিনগ্রাদ, কাজান, নিঝনি নভগোরোদ, রোস্তাভ অন ডন, সামারা, সারানস্ক, সোচি। সব মিলিয়ে এবার পাঁচ লক্ষেরও বেশি ভিনদেশি ফুটবলপ্রেমী রাশিয়ায় গিয়েছিলেন। তাঁদের আপ্যায়নে এবং ব্যবস্থাপনায় কোনও ত্রুটি রাখেনি রাশিয়া। সব ক’টি স্টেডিয়ামই ছিল অনবদ্য। তবে বলতেই হয় মস্কোর লুঝনিকি এবং সেন্ট পিটার্সবার্গের ক্রেস্তোভস্কি স্টেডিয়ামের কথা। ফিনল্যান্ড উপসাগরের তীরে ১১০ কোটি ডলার দিয়ে তৈরি ক্রেস্তোভস্কি স্টেডিয়ামটিকে বলা হয় বিশ্বের অন্যতম সেরা স্টেডিয়াম। নোভোক্রেস্তাভস্কায়া স্টেনের অদূরে এটি। দূর থেকে স্টেডিয়ামটি দেখে মনে হচ্ছিল, যেন একটি দুরন্ত পাখি উড়ে যাওয়ার আগে ডানা মেলেছে।
নেভা নদীর চঞ্চল স্রোতেও যেন সেই আনন্দের উচ্ছ্বাস। কিছুদিন আগে পর্যন্ত নেভা নদীর জল জমে বরফ হয়ে গিয়েছিল। শীতের পর গ্রীষ্ম এলেই তার নাচ দেখার মতো। নদীর ছুটে চলা যেন যেন রুশ ব্যালে। সেই আনা পাভলোভার মতো। পাভলোভা তো এই শহরেরই মেয়ে। ব্যালের জাদুতে বিশ্বজয় করেছিলেন। নাচতে নাচতে সেই নদী গিয়ে মিশছে ফিনল্যান্ড উপসাগরে। দিনের আলোয় রোদের বিচ্ছুরণে নদীর ঘন নীল জল যেন রূপসীর মতো। আবার রাতের মায়াবী আলোয় তার অন্য রূপ। নদীর উপর নাইট ক্রুজ দেখার মতো। আস্তে আস্তে জাহাজ এগোয়। আর নদীর উপরের সেতু একটা একটা করে খুলে যায়। প্যালেস ব্রিজ, ত্রোয়িৎস্কি ব্রিজ, লিতেইনি ব্রিজ। পাখির মতো যেন ডানা মেলছে ব্রিজগুলো। অপূর্ব সে দৃশ্য। রাত দেড়টা থেকে শুরু হয় সেই ব্রিজ খোলা। মাঝখান থেকে সেতুর দুটো পাল্লা দু’দিকে উঠে যায়। তখন সেখান দিয়ে জাহাজ যাতায়াত করে। রাতের এই সময়টুকুই শুধু খোলা হয় ব্রিজ। দর্শকরা উল্লাসে মেতে ওঠেন। রকমারি আলোয় ঝলমল করে ওঠে নদীর জল। নদীর পারে দাঁড়িয়ে থাকা প্রাসাদ, হার্মিটেজ মিউজিয়াম, উইন্টার প্যালেস সাক্ষী থাকে। সারারাত মনে হয় রূপকথার ভিতরে জড়িয়ে পড়েছি।
সেন্ট পিটার্সবার্গকে এখানের লোকেরা বলেন সাঙ্কৎ পিতার্সবুর্গ। এই শহরের ইতিহাস বহু পুরনো। প্রথম পিটার দ্য গ্রেটের নামে এই শহরের নামকরণ হয়েছে। তাঁর জন্ম মস্কোতে ১৬৭২ খ্রিস্টাব্দে। আর মৃত্যু সেন্ট পিটার্সবার্গে ১৭২৫-এ। এই জায়গাটা এক সময় ছিল সুইডেনের অধিকারে। ১৭০৩ খ্রিস্টাব্দে গ্রেট পিটার সুইডিশদের পরাজিত করে এই স্থানটি দখল করে নতুন নামকরণ করেন সেন্ট পিটার্সবার্গ। মস্কো ছিল পিটারের না পসন্দ। তাই তিনি সেখান থেকে সরিয়ে এনে এখানেই তাঁর রাজধানী স্থাপন করলেন। জার্মানি এবং হল্যান্ড থেকে ইঞ্জিনিয়ার এনে শহরটিকে তিনি ভালোবাসা দিয়ে নতুন করে গড়ে তুললেন। এখানে গড়ে তুললেন বড় বন্দর। ইউরোপে পিটার পড়াশোনা করতেন। তাই তাঁর ইচ্ছে ছিল ইউরোপের মতোই শহরটার রূপটান দেবেন। শহরের ভিতরে খাল খনন করে তিনি শহরটাকে আংশিক ভেনিসের রূপ দিতে চেয়েছিলেন। এখন সেখানে চলে পর্যটক ভ্রমণের ভেসেল। সবটা তিনি করে উঠতে পারেননি। পিটারের মৃত্যুর পর তাঁর মেয়ে এলিজাবেথ ক্ষমতায় আসেন। তিনি বাবার অসমাপ্ত কাজ সমাপ্ত করেন। বহু সৌধ ও প্রসাদ তিনি নির্মাণ করেন।
একসময় এই শহরের নাম হয় পেত্রোগ্রাদ। পরে নাম বদলে হয় লেনিনগ্রাদ। আবার একসময় আবার ফিরে আসে সেন্ট পিটার্সবার্গ নামটি। ১৯১৭ সালের রুশ বিপ্লবের পর লেনিনের ‘রেড টেরর’ বাহিনী শহরটাকে লন্ডভন্ড করে দিয়েছিলেন। তাঁরা যাদের শত্রু মনে করতেন, তাঁদেরই নির্বিচারে হত্যা করা হতো। স্তালিনের আমলে সেই গণহত্যা আরও ভয়ঙ্কর রূপ ধারণ করেছিল। তখন দলে দলে সবাই শহর থেকে আতঙ্কে পালাতে শুরু করেছিলেন। তাই রুশ বিপ্লবের পরের সময়টুকু ছিল এক নৈরাজ্যের কাল। কমিউনিস্ট শাসকরা যাঁকেই পথের কাঁটা বলে মনে করতেন, তাঁকেই নির্বিচারে খুন করতেন। তখন বলশেভিকদের স্লোগানই ছিল, ‘হু ইজ নট উইথ আস, দে এগেনস্ট আস’। সুতরাং সেই শত্রুদের বাঁচার কোনও অধিকারই নেই। লেনিন তো বলেইছিলেন, ‘গানস গিভ আস দ্য পাওয়ার’। সত্তরের দশকের নকশালরা সেই সুরেই বলতেন, বন্দুকের নলই শক্তির উৎস। ১৯১৭ থেকে ১৯৩০ এর মধ্যে এই শহর থেকে ২০ লক্ষেরও বেশি মানুষ পালিয়ে গিয়েছিলেন। শিক্ষিত, পণ্ডিত মানুষেরা অনেকেই ইউরোপ, আমেরিকায় চলে গিয়েছিলেন। আবার রুশ বিপ্লবের পর যখন রাজধানী ফের মস্কোতে স্থানান্তরিত করা হল, তখন অনেকেই এখান থেকে মস্কোতে চলে গেলেন। এই সময় বহু হত্যা ও রক্তপাতের সাক্ষী থেকেছে সেন্ট পিটার্সবার্গ। ১৯৩৪ সালে হত্যা করা হল এখানকার গভর্নর সের্গেই কিরোভকে। কিরোভের প্রভাব দিনদিন বাড়ছে দেখে স্তালিন শঙ্কিত হয়ে পড়েছিলেন। তাই নিকোলায়েভ বলে একজন ঘাতক কিরোভকে হত্যার জন্য সুপারি পেয়েছিল। একদিন দুপুরে কিরোভ তাঁর অফিস ঘর থেকে বেরিয়েছেন। লাঞ্চে যাবেন। সঙ্গে রয়েছেন বরিশভ নামে তাঁর এক বন্ধু। বারান্দার এককোণে দাঁড়িয়ে ছিল নিকোলায়েভ। সেখানেই গুলি চালিয়ে হত্যা করা হল কিরোভকে। আর তারপর! এই হত্যাকাণ্ডের প্লটের সঙ্গে যাঁরা যাঁরা জড়িয়ে ছিলেন, তাঁরা কেউই রেহাই পাননি। সমস্ত সাক্ষী এবং প্রমাণ লোপাট করতে স্তালিন প্রত্যেককে খুন করেছিলেন। সেন্ট পিটার্সবার্গের কামেনুস্ত্রোভস্কি প্রসপেক্টে রয়েছে সের্গেই কিরোভ মিউজিয়াম। সেখানে অনেক দলিলই রক্ষিত আছে।
সেন্ট পিটার্সবার্গের ইতিহাস অনেক রক্তপাত দেখেছে। দেখেছে বিপ্লব, গুপ্তহত্যা আর প্রেম। সমস্ত কিছুর মধ্যে সে বেঁচে আছে। তার নিজস্ব চরিত্র সে একটুও বদলায়নি বলে মনে হয়। সময়ের ছাপ পড়েছে। আধুনিকতার মোড়কে শহরটা অনেকটা জড়িয়ে পড়েছে। কিন্তু কোথাও সে তার স্বকীয়তা হারায়নি। নেভা নদীর ধারে বসে পড়ন্ত সন্ধ্যায় সে কথাই বলেছিল কলেজ ছাত্রী তাতিয়ানা। তার সঙ্গে কথা বলে সেন্ট পিটার্সবার্গ শহরটা নিয়ে অনেক কিছুই জেনেছিলাম। স্প্যাসিবো তাতিয়ানা। তোমাকে ধন্যবাদ।
15th  July, 2018
কোলিন্দার ‘সুন্দর’ মুখের আড়ালে! 

কখনও টিমের জন্য গলা ফাটাচ্ছেন, কখনও ফুটবলারদের সঙ্গে মেতে উঠছেন উদ্দাম সেলিব্রেশনে। দেখে কে বলবে তিনিই ছোট্ট দেশটার প্রথম নাগরিক। প্রেসিডেন্ট কোলিন্দা গ্রাবার কিতারোভিচ। পাপারাৎজিরা কেন তাঁর পিছু ছাড়ে না? তিনি নাকি প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের সঙ্গেও খুনসুঁটি করতে ছাড়েন না! র‌্যাকিটিচ, মডরিচদের ফুটবল স্কিলে যখম সম্মোহিত ক্রীড়া দুনিয়া, তখন ক্রোটদের সুন্দরী প্রেসিডেন্টের প্রাণোচ্ছলতায় মজেছে নেট দুনিয়া।
বিশদ

22nd  July, 2018
ভালোবাসার শহর সেন্ট পিটার্সবার্গ
রাশিয়া থেকে ফিরে
সন্দীপন বিশ্বাস

সেন্ট পিটার্সবার্গ যেমন ইতিহাসের শহর, তেমনই ভালোবাসারও শহর। এই শহরের প্রাসাদে, নদীতে, গির্জায়, মেট্রোয়, পথে পথে মিশে আছে এক রোমান্টিসিজম। তাকে দেখা যায়, অনুভব করা যায়। প্রেমের শহর সেন্ট পিটার্সবার্গ। জার শাসকদের সময় ছুঁয়ে আজ পর্যন্ত এই শহর দেখেছে বহু প্রেম। সেই প্রেম কখনও সফল, কখনও রক্তাক্ত, কখনও ব্যর্থ, কখনও বা সেই প্রেম এনে দিয়েছে মৃত্যুর গন্ধ।
বিশদ

22nd  July, 2018
থাই শিশুদের নিয়ে চলচ্চিত্র নির্মাণে আগ্রহী হলিউড 

ঘটনা অবিশ্বাস্য হলেও সত্যি। ১৭ দিন পর থাইল্যান্ডের বিপজ্জনক গুহায় আটকে পড়া কিশোরদের উদ্ধার করেছেন দুঃসাহসী ডুবুরিরা। চিয়াং রাই হাসপাতালের বেডে মুখে মাস্ক ও হাসপাতালের গাউন পরা অবস্থায় রয়েছে তারা।
বিশদ

15th  July, 2018
হেরে গিয়েও জিতে যাওয়া বোধহয় একেই বলে 

হেরে গিয়েও জিতে যাওয়া বোধহয় একেই বলে!
বিশ্বকাপের দ্বিতীয় রাউন্ডের লড়াইয়ে বেলজিয়ামের সঙ্গে মুখোমুখি হয় জাপান। দুর্দান্ত খেলে দু’গোলে এগিয়েও যায় তারা। কিন্তু শেষরক্ষা হয়নি। ম্যাচ শেষ হওয়ার আগেই তিনটে গোল দিয়ে জাপানকে হারিয়ে বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে পৌঁছে যায় বেলজিয়াম।
বিশদ

08th  July, 2018
ভলগা নদীর তীরে... 
রাশিয়া থেকে সোমনাথ বসু

উলিৎসা সেমাশকো থেকে হাঁটাপথেই গোর্কি মিউজিয়াম। সেখানে সংরক্ষিত রয়েছে ‘মা’ উপন্যাসের খসড়া। এমনকী প্রথম মুদ্রিত বইও। দুই খণ্ডে লেখা ‘মা’ বিপ্লবের আগমনি বার্তা ছড়িয়ে দিয়েছিল গোটা রাশিয়ায়। সরল মানবিকতা থেকে গোর্কি উত্তীর্ণ হন শ্রেণী-মানবিকতায়। উৎপল দত্ত এ‌ই উপন্যাসের একটি অংশকে নিয়ে লিখেছিলেন ‘মে দিবস’ নাটক...
বিশদ

08th  July, 2018
বিশ্বকাপের ম্যাসকট
জাবিভাকার জন্মকথা
সন্দীপন বিশ্বাস

পশ্চিম সাইবেরিয়ার একটা ছোট্ট শহর কিদরোভি। মস্কো থেকে অনেক দূর। প্রায় সাড়ে তিন হাজার কিলোমিটার। সেখানকার মেয়ে একাতেরিনা বোচারোভা আজ সারা বিশ্বে এক পরিচিত নাম। সে তো ওই জাবিভাকার দৌলতেই। জাবিভাকা একাতেরিনার কল্পনাপ্রসূত সৃষ্টি। সেই জাবিভাকা এবারের বিশ্বকাপের ম্যাসকট। বিশদ

03rd  June, 2018
সিলভিও গাজ্জানিগা
বিশ্বকাপের নকশার কারিগর
অরূপ দে

১৯৭১ সালের ৫ এপ্রিল জুরিখে ফিফা প্রেসিডেন্ট স্যার স্ট্যানলি রিউসের নেতৃত্বে একটি বিশেষ কমিটি তৈরি করা হয় নতুন ট্রফির জন্য নকশা নির্বাচনের উদ্দেশ্যে। সেই কমিটি আহ্ববান করে নকশা প্রতিযোগিতার। খবর পেয়েই সিলভিও গাজ্জানিগা শুরু করলেন কাজ।
বিশদ

03rd  June, 2018
লেডি ডন

হেঁসেলের অন্ধকারে যাঁদের জীবন কাটিয়ে দেওয়ার কথা ছিল। সন্তান পালন, স্বামীর সেবাই ছিল যাঁদের জীবনের আদর্শ। সেই তাঁরাই একদিন ঘোমটা ছেড়ে হাতে তুলে নিয়েছিলেন আগ্নেয়াস্ত্র। তাঁদের অঙ্গুলি হেলনে চলেছে বিরাট অপরাধের সাম্রাজ্য। এক ফোনে মুহূর্তে চলে গিয়েছে কারও প্রাণ।
বিশদ

13th  May, 2018
তারাপীঠ
মহাপীঠের ২০০ বছর 

তারাপীঠের মন্দিরের ইতিহাসকে দুশো বছরের মধ্যে আটকানো যায় না। তার ইতিহাস প্রাচীন, আবছায়া, অস্পষ্ট এক অতীতের মধ্যে মিশে আছে। একদিকে পুরাণ আর একদিকে ইতিহাস। একদিকে লোককথা, অন্যদিকে দলিল। সব মিলেই তারাপীঠের মন্দির এবং তারামায়ের কাহিনী একাকার হয়ে গিয়েছে... 
বিশদ

13th  May, 2018
তারামায়ের ছেলে বামাক্ষ্যাপা 

বহু সিদ্ধ পুরুষের সাধনক্ষেত্র তারাপীঠ। কিন্তু তারাপীঠের কথা উঠলেই যে সাধক পুরুষের নামটি মনে আসে, তিনি হলেন বামাক্ষ্যাপা। তারামায়ের ক্ষ্যাপা ছেলে বামাক্ষ্যাপা। নানা লৌকিক এবং অলৌকিক কাহিনী ছড়িয়ে আছে তাঁকে ঘিরে। তারাপীঠের অদূরে আটলা গ্রামে তাঁর জন্ম।
বিশদ

13th  May, 2018
রহস্যময়ী রিতা কাৎজ 
মৃণালকান্তি দাস

রিতা কাৎজ। বাংলাদেশের দুই বিদেশি নাগরিক খুন হওয়ার পর ৫২ বছরের এই মহিলাই প্রথম ট্যুইটারে দাবি করেছিলেন, এই হত্যাকাণ্ড আইএস (ইসলামিক স্টেট) ঘটিয়েছে। ঢাকার গুলশানের হোলি আর্টিজান বেকারিতে হামলা চালিয়ে ২০ জনকে জবাই করে হত্যা করার পর হামলাকারীদের ছবিও প্রথম প্রকাশ করেছিল রিতা কাৎজের ‘সাইট ইন্টেলিজেন্স গ্রুপ’ ওয়েবসাইট।
বিশদ

06th  May, 2018
কলঙ্কিত দেশ 
কল্যাণ বসু

ন্যাশনাল ক্রাইম রেকর্ড ব্যুরোর পরিসংখ্যান বলছে ২০১২ সালে গোটা দেশে নথিভুক্ত ধর্ষণের সংখ্যা ছিল ২৪,৯২৩ আর ২০১৬ সালে সেটা ৩৮,৯৪৭! অর্থাৎ হ্রাস তো দূরের কথা, পাঁচ বছরে ধর্ষণের ঘটনা ৫৬ শতাংশ বেড়েছে!
বিশদ

06th  May, 2018
জঙ্গিদের থেকেও রাশিয়ার ভয় পঙ্গপালের দলকে 

সন্দীপন বিশ্বাস: ১৯৯৮ সালের ফ্রান্স বিশ্বকাপে যে লোকটা পুলিশের হাড় পর্যন্ত কাঁপিয়ে দিয়েছিল, সে হল ফরিদ মেলুক। একজন আলজিরিয়ান ইসলামিক জঙ্গি। মেলুককে বলা হতো জঙ্গিদের ঠিকানা। সারা বিশ্বের জঙ্গিদের গতিবিধি, যোগাযোগের তথ্য ছিল তার নখের ডগায়।
বিশদ

29th  April, 2018
জোটের পথে... 

২০১৯-এর আগে বেশ কয়েকটি রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচন। এর মধ্যে রয়েছে বিজেপি শাসিত মধ্যপ্রদেশ, রাজস্থান ও ছত্তিশগড়ও। এই সব রাজ্যের ফল ২০১৯-এর সমীকরণ তৈরিতে অনেকটাই সাহায্যকরবে। কারণ বিধানসভায় বিজেপি ভালো ফল করলে, এখনকার মোদি বিরোধী হাওয়া আবার কমে যাবে। আর যদি বিজেপি হারে, তবে জোট রাজনীতির ঝড় উঠবে। লিখেছেন প্রীতম দাশগুপ্ত।
বিশদ

29th  April, 2018
একনজরে
সংবাদদাতা, কাঁথি: পটাশপুর থানার শৌলাভেড়ি গ্রামের এক নাবালিকার বিয়ে রুখল পুলিস-প্রশাসন। রবিবার ওই নাবালিকার সঙ্গে পাশের গ্রামের এক যুবকের বিয়ে হওয়ার কথা ছিল। ওই নাবালিকা স্থানীয় একটি হাইস্কুলে একাদশ শ্রেণীতে পড়াশোনা করে।  ...

 সংবাদদাতা, তারকেশ্বর: তারকেশ্বর মন্দিরের পুরোহিত মণ্ডলীর কার্যকরী সমিতির নির্বাচন ঘিরে শুরু হয়েছে জল্পনা। নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার জন্য মনোনয়নপত্র জমা দিয়েও ইতিমধ্যেই তা প্রত্যাহার করেছেন চারজন। আজ, মঙ্গলবার মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন। ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: সৌরভ গাঙ্গুলি বোর্ড সভাপতি হওয়ায় খুশির হাওয়া সিএবি’তে। তবে একই সঙ্গে শুরু হয়েছে অঙ্ক কষাও। কারণ, বোর্ড সভাপতি পদে বসতে গেলে সৌরভকে ...

নয়াদিল্লি, ১৪ অক্টোবর: পুলওয়ামায় হামলার পর পাক অধিকৃত কাশ্মীরের বালাকোটে ঢুকে জয়েশ-ই-মহম্মদের জঙ্গি প্রশিক্ষণ শিবির গুড়িয়ে দিয়েছিল বায়ুসেনা। তারপর আট মাস অতিবাহিত। বালাকোটের সেই সব ঘাঁটি পুনরুজ্জীবিত করে তুলেছে জয়েশ-ই-মহম্মদ। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

গুরুজনের চিকিৎসায় বহু ব্যয়। ক্রোধ দমন করা উচিত। নানাভাবে অর্থ আগমনের সুযোগ। সহকর্মীদের সঙ্গে ঝগড়ায় ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

বিশ্ব হাতধোয়া দিবস
১৫৪২: মোগল সম্রাট আকবরের জন্ম
১৯৩১: বিজ্ঞানী ও ভারতের একাদশ রাষ্ট্রপতি ডঃ এ পি জে আবদুল কালামের জন্ম
১৯৪৬: অভিনেতা ভিক্টর বন্দ্যোপাধ্যায়ের জন্ম  

ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭০.০৪ টাকা ৭১.১৪ টাকা
পাউন্ড ৮৭.৭৬ টাকা ৯০.৯৭ টাকা
ইউরো ৭৬.৭৩ টাকা ৭৯.৭০ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৮, ৯৫৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৬, ৯৬০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৭, ৫১৫ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৫, ৬০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৫, ৭০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

২৮ আশ্বিন ১৪২৬, ১৫ অক্টোবর ২০১৯, মঙ্গলবার, দ্বিতীয়া অহোরাত্র। অশ্বিনী ১৭/১৪ দিবা ১২/৩০। সূ উ ৫/৩৬/২৯, অ ৫/৮/৪৯, অমৃতযোগ দিবা ৬/২৩ মধ্যে পুনঃ ৭/৯ গতে ১০/৫৯ মধ্যে। রাত্রি ৭/৩৯ গতে ৮/২৯ মধ্যে পুনঃ ৯/১৮ গতে ১১/৪৮ মধ্যে পুনঃ ১/২৭ গতে ৩/৭ মধ্যে পুনঃ ৪/৪৭ গতে উদয়াবধি, বারবেলা ৭/৪ গতে ৮/৩০ মধ্যে পুনঃ ১২/৪৯ গতে ২/১৫ মধ্যে, কালরাত্রি ৬/৪১ গতে ৮/১৫ মধ্যে।
২৭ আশ্বিন ১৪২৬, ১৫ অক্টোবর ২০১৯, মঙ্গলবার, দ্বিতীয়া ৫৭/৩৩/৪৮ শেষরাত্রি ৪/৩৮/২৩। অশ্বিনী ১৭/৪৮/৫৩ দিবা ১২/৪৪/২৫, সূ উ ৫/৩৬/৫২, অ ৫/১০/১২, অমৃতযোগ দিবা ৬/৩০ মধ্যে ও ৭/১৪ গতে ১০/৫৮ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/৩০ গতে ৮/২১ মধ্যে ও ৯/১২ গতে ১১/৪৬ মধ্যে ও ১/২৮ গতে ৩/১১ মধ্যে ও ৪/৫৪ গতে ৫/৩৭ মধ্যে, বারবেলা ৭/৩/৩২ গতে ৮/৩০/১২ মধ্যে, কালবেলা ১২/৫০/১২ গতে ২/১৬/৫২ মধ্যে, কালরাত্রি ৬/৪৩/৩২ গতে ৮/১৬/৫২ মধ্যে।
১৫ শফর

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
কার্নিভালে সম্মানহানির অভিযোগ রাজ্যপালের 
কার্নিভাল নিয়ে রাজ্যের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনকার। ...বিশদ

04:36:31 PM

মন্তেশ্বরে বাস-বাইক মুখোমুখি সংঘর্ষ, মৃত ৩ 
বাইক ও যাত্রীবাহী বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষ। আজ দুপুর ২টো নাগাদ ...বিশদ

04:36:00 PM

কেতুগ্রামে গৃহবধূকে ধর্ষণের অভিযোগ পুলিস কর্মীর বিরুদ্ধে 
পূর্ব বর্ধমানের কেতুগ্রামে গৃহবধূকে হুমকি দিয়ে লাগাতার ধর্ষণের অভিযোগ উঠল ...বিশদ

03:58:12 PM

৪০০ পয়েন্ট উঠল সেনসেক্স 

03:39:36 PM

নারদ কাণ্ড: ৩০ অক্টোবর পর্যন্ত আইপিএস মির্জার জেল হেফাজত

03:34:00 PM

দঃ দিনাজপুরে মৎস্যজীবীদের জালে উঠল নরকঙ্কাল
দক্ষিণ দিনাজপুরের কুশমণ্ডি থানার কঙ্কন দীঘিতে মাছ ধরতে গিয়ে মৎস্যজীবীদের ...বিশদ

01:41:00 PM