বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
শরীর ও স্বাস্থ্য
 

ঘামাচি নিয়ে অস্বস্তিতে পড়েছেন!
হোমিওপ্যাথি চিকিৎসা করালেই মিলবে মুক্তি

পরামর্শে ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব হোমিওপ্যাথির প্রাক্তন অধিকর্তা ডাঃ গৌতম আশ।

আমাদের ত্বকের নীচে থাকা ঘর্মগ্রন্থিতে ঘাম তৈরি হয়। তারপর ঘর্মনালী  হয়ে ঘাম ত্বকের উপরে এসে শরীরের বাইরে বেরিয়ে যায়। এবার কোনও কারণে এই ঘর্মনালী বন্ধ হয়ে গেলে চামড়ার উপর দিকটা ফুলে যায়। এই সমস্যার নামই ঘামাচি বা প্রিকলি হিট (prickly heat)।
মোটামুটি চার ধরনের ঘামাচি হয়—
 মিলিরিয়া ক্রিস্টালিনা— এক্ষেত্রে খুবই ছোট জলভরা দানার মতো ত্বকের উপরে ফুটে ওঠে। এই অবস্থায় ত্বকের উপর পিঁপড়ে চলে যাওয়ার মতো অনুভূতি, সামান্য অস্বস্তি ইত্যাদি হতে পারে। তবে সাধারণত চুলকায় না।
 মিলিরিয়া রুব্রা— আকারে সামান্য বড় এই ঘামাচির রং লাল। ঘর্মগ্রন্থি বন্ধ হয়ে যাওয়ার পাশাপাশি সেখানে প্রদাহ হলে মিলিরিয়া রুব্রা তৈরি হয়। খুব সহজেই এক অংশ থেকে অন্য অংশে ছড়িয়ে পড়ে। জ্বালা করা, চুলকানির মতো সমস্যা থাকে।
 মিলিরিয়া পাসচুলা— এক্ষেত্রে ঘামাচির ভিতরে প্রদাহ হয়ে পুঁজ জমে। এই ধরনের ঘামাচি সাদা বা হলুদ রঙের হয়। সামান্য চুলকানি এবং ব্যথা থাকতে পারে।
 মিলিরিয়া প্রোফান্ডা— বারবার ঘামাচি হলে ত্বকের উপরিভাগ থেকে প্রদাহ ত্বকের নীচের স্তরে পৌঁছে যায়। এই অবস্থায় ঘামাচিগুলি ছোট ফোসকার মতো আকার ধারণ করে। এই সমস্যা বেশ জটিল। জ্বালা করা, ব্যথা, চুলকানির মতো সমস্যা থাকতে পারে।
কাদের বেশি হয়? কখন হয়?
১. ছোটদের ঘর্মগ্রন্থি সঠিকভাবে তৈরিই হয় না। তাই বহু ক্ষেত্রে ঘাম ঠিকমতো বেরতে পারে না। ফলস্বরূপ ঘামাচি হয়। এছাড়া বাচ্চাদের আঁটসাঁট জামাকাপড় পরিয়ে, ঢেকেঢুকে রাখা হয়। তাদের পাউডার, ক্রিম, লোশন মাখিয়ে রাখার প্রবণতাও বেশি। এবার এই ধরনের প্রসাধনী ব্যবহারে ঘর্মনালীর মুখ আটকে গেলেই ঘামাচি হয়। ২. দীর্ঘদিন ধরে শয্যাশায়ী থাকা বয়স্ক মানুষের এই সমস্যা বেশি হয়। ৩. মারাত্মক গরম থাকার পাশাপাশি আর্দ্রতাও বেশি থাকলে ঘামাচি বেশি হয়। আমাদের পশ্চিমবঙ্গেও ঠিক এমনই আবহওয়া থাকে। ৪. বেশি চাপা জামাকাপড় বা সিন্থেটিক জামাকাপড় পরার কারণে শরীরে ঘাম জমে ঘামাচি হতে পারে।
চিকিৎসা
মিলিরিয়া ক্রিস্টালিনার ক্ষেত্রে তেমন কোনও চিকিৎসার প্রয়োজন নেই। ত্বক পরিষ্কার রাখা, আক্রান্ত জায়গাটায় বরফ দেওয়া, হাওয়ার মধ্যে থাকা, সুতির ঢিলেঢালা জামাকাপড় পরা, ঘাম যাতে কম হয় তা নিশ্চিত করার মতো নিয়মগুলি মেনে চলতে হয়। ব্যস, তাহলেই সমস্যা কয়েক ঘণ্টা থেকে তিন-চার দিনের মধ্যে সেরে যায়। ওষুধ সাধারণত লাগে না। তবে কয়েকটি ক্ষেত্রে ওষুধ দরকার। এমনই কয়েকটি হোমিওপ্যাথিক (homeopathy for prickly heat) ওষুধ হল—
 লাল রঙের ঘামাচি বেরচ্ছে, জায়গাটাতে গরম অনুভূতি হচ্ছে, অল্প চুলকাচ্ছে— এমন অবস্থায় বেলেডোনা ৩০ ওষুধটি দিনে দুইবার এক ফোঁটা করে খেলে উপকার মেলে। এই অবস্থায় বাচ্চাদের মধ্যে বেশি অস্থিরতা থাকলে কামোমিলা ২০০ ওষুধটি বেশি কার্যকরী। 
 হঠাৎ ঘামাচি হয়েছে, খুব অস্বস্তি লাগছে— এই অবস্থায় একোনাইট ৩০ ওষুধটি দিনে দুইবার এক ফোঁটা করে খেলে কার্যকরী। এছাড়া যে কোনও ঘামাচির প্রথমাবস্থায় এই ওষুধটি খেলে ভালো ফল মেলে।
 খুব জ্বালা করছে, ঠান্ডা বস্তুর স্পর্শে আরাম মিলছে— এই লক্ষণে এপিস মেল ৩০ দিনে দুইবার এক ফোঁটা করে খেলে উপকার মেলে।
 খুব গরমে কাজ করে, ব্যায়াম করে ঘামাচি বেরলে ন্যাট্রাম মিউর ৩০ ওষুধটি দিনে দুইবার এক ফোঁটা করে খাওয়া যায়।
 রান্না ঘরে গরমের মধ্যে কাজ  করে ঘামাচি হলে ন্যাট্রাম কার্ব ৩০ ওষুধটি দিনে দুইবার এক ফোঁটা করে খেতে পারেন। 
 খুব চুলকাচ্ছে, চুলকাতে ভালো লাগছে, চুলকানোর পর জ্বালা করছে— এই উপসর্গে সালফার ৩০ ওষুধটি দিনে দুইবার এক ফোঁটা করে খেলে দারুণ কাজ করে।
** এই ওষুধগুলি খাওয়ার আগে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।
প্রতিরোধ
 অসহ্য গরম, রোদ থেকে দূরে থাকুন।
 খোলামেলা জায়গা বা বাতাস চলাচল করে এমন জায়গায় থাকুন। এসিতেও থাকতে পারেন।
 সুতির জামাকাপড় পরুন। সিন্থেটিক এড়িয়ে চলুন।
 গরমে এক্সারসাইজ না করাই ভালো।
 গরমে ঠান্ডা জলে সাবান দিয়ে বারবার গা ধোয়া বা স্নান করা দরকার।     লিখেছেন সায়ন নস্কর

4th     June,   2021
 
 
কলকাতা
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
কিংবদন্তী গৌতম
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
 
হরিপদ
 
31st     May,   2021
30th     May,   2021