বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
রাজ্য
 

টোকাটুকি রুখতে পাশের বিদ্যালয়
থেকে পর্যবেক্ষক আনার সুপারিশ

কলকাতা: এ বছর ছাত্রছাত্রীরা উচ্চ মাধ্যমিক দেবে নিজের স্কুলেই। ফলে পরীক্ষা কেন্দ্র অনেকগুলি বেড়েছে। আর এর জন্যই ঢেলে সাজতে হবে গোটা পরীক্ষা ব্যবস্থাই। এর মধ্যে সবচেয়ে মাথাব্যথার বিষয় হল গণ টোকাটুকি রোখা। সেই কারণে অন্য স্কুল থেকে দু’জন পর্যবেক্ষক শিক্ষক আনার প্রস্তাব দিয়েছে পশ্চিমবঙ্গ তৃণমূল মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতি। উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা সংসদের কাছে সেই প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে বলে জানান সংগঠনের রাজ্য সভাপতি দিব্যেন্দু মুখোপাধ্যায়।
মাধ্যমিক এবং উচ্চ মাধ্যমিকের মতো পরীক্ষাগুলিতে শাসক দলের শিক্ষক সংগঠনের নেতৃত্ব দেওয়া পুরনো রেওয়াজ। পরীক্ষার সঙ্গে যুক্ত আহ্বায়ক বা অন্যান্য শিক্ষক-আধিকারিকদের বাছাইয়ের ক্ষেত্রে আলাদা গুরুত্ব পায় সরকার ঘনিষ্ঠ সংগঠনের সুপারিশ। সেই কারণেই বিষয়টি কার্যকর হওয়ার সম্ভাবনা বেশি বলে মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল। দিব্যেন্দুবাবু বলেন, মাধ্যমিকের চেয়েও বেশি গুরুত্বপূর্ণ উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা। কারণ, এই পরীক্ষার মাধ্যমে ছাত্রছাত্রীদের কেরিয়ারের দিশা তৈরি হয়। কে, কী নিয়ে পড়বে, পেশাগত বা গবেষণামূলক কোন কোর্স করবে, তা এই পরীক্ষার পরেই ঠিক হয়। ছাত্রছাত্রীরা নিজের স্কুলে পরীক্ষা দিতে পারলে, তা একদিকে ভালো। চেনা পরিবেশে, চেনা শিক্ষকদের সামনে তারা এই গুরুত্বপূর্ণ পরীক্ষা দেবে। তাতে তারা অন্য কিছু নিয়ে অহেতুক নার্ভাস না হয়ে পরীক্ষায় মনোযোগ দিতে পারবে। তার ইতিবাচক প্রভাব পড়বে পরীক্ষাতেও। তবে, নিজের পরীক্ষা বলে টোকাটুকি যাতে না হয়, সেটাও দেখা দরকার। না হলে প্রকৃত মেধাবীরা বঞ্চিত হবে। সেই কারণেই এই সুপারিশ।
সরকারের অধীন উচ্চ মাধ্যমিক স্কুলের সংখ্যা সাত হাজারের কাছাকাছি। অর্থাৎ, এতগুলি স্কুলেই পরীক্ষা হবে। সংসদের তরফে মনোনীত শিক্ষকরা পরীক্ষা কেন্দ্রগুলিতে নজরদারিতে যান প্রতিবারই। তবে, এবার সেটা বিরাট সংখ্যায় প্রয়োজন। প্রতিবার একটি থানার অধীনে একটি বা বড় জোর দু’টি প্রধান ভেন্যু থাকে। তার অধীনে থাকে ছ’-সাতটি পরীক্ষা কেন্দ্র। আর এবার থানা পিছু ৩২টি কেন্দ্র হওয়ারও সম্ভাবনা রয়েছে। অর্থাৎ প্রধান ভেন্যুর সংখ্যাও বাড়বে। সেই কারণে, এবার পার্শ্ববর্তী মাধ্যমিক স্কুলগুলি থেকে পর্যবক্ষেক হিসেবে শিক্ষকদের নিয়ে আসার সুপারিশ দেওয়া হয়েছে। তাঁরা যে কোনও অনভিপ্রেত ঘটনার উপর নজর রাখবেন। 
পরীক্ষার সঙ্গে যুক্ত ব্যক্তিরা বলছেন, এবার উচ্চ মাধ্যমিক আয়োজকদের জন্যও কঠিন পরীক্ষা। এত বেশি কেন্দ্র হওয়ার জন্য প্রয়োজন হবে প্রচুর লোকবল। এছাড়াও, প্রায় সাত হাজার স্কুলে নির্বিঘ্নে প্রশ্নপত্র পৌঁছনোর বিষয়টি নিশ্চিত করতে প্রয়োজন হবে অনেক বেশি গাড়ির। থাকবে, সময়ের সঙ্গে যুদ্ধও। প্রধান ভেন্যুর সংখ্যা আরও বাড়াতে হবে। পুলিস-প্রশাসনকেও থাকতে হবে অনেক বেশি সতর্ক। প্রসঙ্গত, মঙ্গলবারই ৫০ নম্বরের টেস্ট নেওয়ার কথা ঘোষণা করেছে উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা সংসদ। ডিসেম্বরের মধ্যেই তা শেষ করে ফেলতে হবে। তারপরেই বাজবে উচ্চ মাধ্যমিকের দামামা।

3rd     December,   2021
 
 
কলকাতা
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
 
হরিপদ
 
31st     May,   2021
30th     May,   2021