বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
কলকাতা
 

জলমগ্ন ক্যানিংয়ের ১৭টি
গ্রাম, বিপর্যস্ত জনজীবন

নিজস্ব প্রতিনিধি, দক্ষিণ ২৪ পরগনা: আগামী মঙ্গল এবং বুধবার ভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস দিয়েছে আবহাওয়া দপ্তর। কিন্তু তার আগে চরম দুশ্চিন্তায় ক্যানিং-২ ব্লকের মানুষজন। প্রশাসনের কাছেও যথেষ্ট উদ্বেগের বিষয়। কারণ এই ব্লকের ১৭টির বেশি গ্রাম পুরোপুরি জলমগ্ন। আরও ১২-১৪টি গ্রামের ৫০ শতাংশ এলাকা প্লাবিত। প্রায় সাতদিন হতে চলেছে, কার্যত গৃহবন্দি অবস্থা গ্রামবাসীদের। ইতিমধ্যে ২৭০টির বেশি কাঁচাবাড়ি ভেঙে পড়েছে। পুকুর, রাস্তাঘাট, মাঠ সব মিলেমিশে এক হয়ে গিয়েছে। আর তার মধ্যেই রবিবার হাঁটুজল ডিঙিয়ে শিশুদের পোলিও খাওয়ানোর কাজ সারলেন স্বাস্থ্যকর্মীরা। 
এই জেলার মধ্যে এই ব্লকটাই এখন জমা জল নিয়ে মাথাব্যথার মূল কারণ। নিচু জায়গায় জল অবশ্যই জমেছে। কিন্তু উত্তর ২৪ পরগনা লাগোয়া দক্ষিণ ২৪ পরগনার গ্রামগুলিতে পাশের জেলার জল নেমে এসেছে। সে জল যেন নামতেই চাইছে না। আশপাশের নদীনালাও টইটুম্বুর। দেউলি-১ ও ২, সারেঙ্গাবাদ, মঠেরদিঘি প্রভৃতি গ্রামের হাল খুব খারাপ। বাড়িঘরে কোথাও গোড়ালি ভেজা তো কোথায় হাঁটুসমান জল দাঁড়িয়ে রয়েছে। বেশিরভাগ এলাকায় টিউবওয়েল চলে গিয়েছে জলের নীচে। পানীয় জলের সঙ্কট দূর করতে সেখানে জলের বোতল ও পাউচ পাঠানো হয়েছে। অনেকেই অন্যত্র আশ্রয় নিয়েছেন। এমন বিপর্যয় এই ব্লকে এর আগে হয়েছে বলে কেউ মনে করতে পারছেন না। এক মহকুমা আধিকারিক বলেন, এই গ্রাম ছাড়াও বাকি গ্রাম পঞ্চায়েতের কিছু কিছু এলাকাতেও জল জমে রয়েছে। সেরকম কয়েকটি পাড়ায় ঢোকাই যাচ্ছে না। পাম্প বসিয়ে জল নামানোর ব্যবস্থা করা হয়েছে। কিন্তু জল সেভাবে নামছে না। বিদ্যাধরী নদীর জলস্তর না-নামা পর্যন্ত এই পরিস্থিতির উন্নতি হবে না। এদিকে জমা জলের কারণে একাধিক রোগ সংক্রমণের আশঙ্কা করছেন আধিকারিকরা। সে-কথা মাথায় রেখে স্বাস্থ্যকর্মীরা বাড়ি বাড়ি ওষুধ বিলি করেছেন। তবে ক্যানিং-২ ব্লক ছাড়াও সোনারপুর ব্লকের সাতটি অঞ্চলেও বেশকিছু জায়গায় জল দাঁড়িয়ে আছে। কালিকাপুর-১ ও ২, সোনারপুর-২, প্রতাপনগর, খেয়াদহ-১ ও ২ এবং কামরাবাদের যেসব এলাকা জলমগ্ন হয়ে আছে, সেখান থেকে খুব ধীরে জল নামছে। মূলত উত্তিরভাগ দিয়ে এই জল বের করা হয়। সেখানে ১৬টি পাম্পের সাহায্যে সেই কাজ করা হলেও আশপাশের খাল, ঝিল ভর্তি থাকায় দ্রুত জল নামছে না। ফলে সমস্যায় পড়েছেন সাধারণ মানুষ। যদিও জল দ্রুত বের করার সবরকম চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন সেচদপ্তরের আধিকারিকরা। পাশাপাশি রাজপুর-সোনারপুর পুরসভার ৩৫ নম্বর ওয়ার্ডের মিলনপল্লিতে এখনও হাঁটুসমান জল রয়েছে। খুব প্রয়োজন ছাড়া বাড়ির বাইরে বেরচ্ছেন না বাসিন্দারা।  ক্যানিং ২ ব্লকে ভেঙে গিয়েছে বাড়ি। -নিজস্ব চিত্র

27th     September,   2021
 
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
 
হরিপদ
 
31st     May,   2021
30th     May,   2021