Bartaman Patrika
রঙ্গভূমি
 

দুটি চেয়ার কেন? 

 অগ্রজকে কীভাবে সম্মান জানাতে হয় তা শিখেছিলেন বিভাস চক্রবর্তীর থেকেই। তাঁর আসন্ন জন্মদিন উপলক্ষে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করলেন প্রকাশ ভট্টাচার্য।

শম্ভু মিত্র, উৎপল দত্ত, অজিতেশ বন্দ্যোপাধ্যায় … বাংলা থিয়েটারে এই সব দিকপালদের পরে যাদের নাম সগর্বে উচ্চারিত হয়, তাদের মধ্যে অন্যতম বিভাস চক্রবর্তী। আমার থিয়েটার জীবনের শুরুতে বিভাসদার কী অসাধারণ সব কাজ দেখেছি! মুগ্ধ হয়েছি আর চেষ্টা করেছি শিক্ষিত হতে। ‘রাজরক্ত’, ‘চাকভাঙ্গা মধু’, ‘নাজীর বিচার’, ‘পাঁচু ও মাসী’, ‘নরক গুলজার’ ইত্যাদি। সেসব ছিল শুধু দর্শক হিসাবে দেখা আর দূর থেকে তাঁকে শ্রদ্ধা করা। ‘শোয়াইক গেলো যুদ্ধে’-র সময় আমার সৌভাগ্য হলো বিভাসদার কাছে যাওয়ার। ঐ নাটকে মুখ্য ভুমিকায় অভিনয় করার আমন্ত্রণ পেলেন স্বাতীলেখা সেনগুপ্ত। স্বাতীলেখা নান্দীকারের সদস্য, আর আমি তখন নান্দীকারের সম্পাদক। তখন শোয়াইক-এর রিহার্সালে আমি মাঝে মাঝে স্বাতীদির সঙ্গে যেতাম। কখন যে ঐ বিরাট মানুষটি আমার কাছে শুধুই বিভাসদা হয়ে গেলেন বুঝতেই পারলাম না। সেই থেকে বিভাসদার সঙ্গে আমার ঘনিষ্ঠতা। বিভাসদা মাটির মানুষ, যার সঙ্গে একটু আলাপেই খুব কাছে চলে আসা যায়।
১৯৮৮ সাল। আমি নান্দীকার ছেড়ে দিলাম। আমার সঙ্গে সোমনাথ, বিমল, পাঁচু, দীপঙ্কর, কল্যাণ, রিঙ্কু আরও অনেকে। আমরা নতুন দল তৈরি না করে নীলাভদের নান্দীপটেই যোগ দেওয়া মনস্থ করলাম। নাটক তৈরি হলো, কার্ত্তিক লাহিড়ীর লেখা ‘মঙ্গলসূত্র’। বিমল (চক্রবর্তী) তখন ‘সঙ্গীত নাটক অ্যাকাডেমি’ থেকে যুব নির্দেশক হিসাবে কিছু টাকা পেয়েছিল নতুন প্রযোজনা করার জন্য। আমরা সবাই খুবই পরিশ্রম করে নাটকটি করলাম। বিভাসদাকে অনুরোধ করলাম নাটকটি দেখার জন্য। গিরিশ মঞ্চে বিভাসদা এলেন, নাটক দেখলেন। নাটক দেখার পর কৌতুহল বশতঃ জিজ্ঞেস করলাম , ‘কেমন লাগল?’ উনি বললেন, ‘তোমাদের অনেকের বেশ ক্ষমতা আছে অভিনয় করার, গান গাওয়ার, শরীরও ভালো। তবে এরকম বাজে নাটক করো কেন? ভালো নাটক করতে পারো না?’ আমরা বললাম ভালো নাটক পাচ্ছি না তো! শুনে উনি বললেন, পড়াশোনা করো না তো। ভালো নাটক পাবে কী করে? আমার কাছে একটা নাটক আছে, কাল এসে নিয়ে যাবে আর পড়বে।’ সেই অনুযায়ী পরেরদিন বিভাসদার বাড়ি গেলাম। উনি নাটক দিলেন ‘শ্বেত সন্ত্রাস’। নাট্যকার ক্যারেল চাপেক, অনুবাদক আসিতবরন দে। আমরা পড়লাম। তারপর বিভাসদা জানতে চাইলেন, ‘পড়েছ’? আমরা বললাম, হ্যাঁ, খুব ভালো লেগেছে। উনি বললেন, তাহলে শুরু করে দাও। আমরা বললাম, আপনি যদি নির্দেশনা দেন তো আমরা করতে পারি। উনি বললেন, এই প্রযোজনা করতে অনেক খরচ হবে, তোমরা পারবে? জানতে চাইলাম, কত খরচ হবে। উনি বললেন তা প্রায় ষাট হাজার টাকা। দলে তখন টাকা নেই। কিন্তু বিভাসদা আমাদের সঙ্গে কাজ করবেন এই আনন্দে আমরা রাজী হয়ে গেলাম। সবাই টাকা ধার করে নেমে পড়লাম। বিভাসদা নাটকটি সম্পাদনা করলেন, শুরু হলো মহলা। সেই সময় সামনে থেকে দেখলাম একজন বড় মাপের পরিচালকের কাজ। কীভাবে একটু একটু করে একটা প্রযোজনা তৈরি করতে হয়। উনি বললেন, মিউজিক হবে স্টক থেকে। চলো একদিন কল্যাণের বাড়ি যাই। কল্যাণদার (চৌধুরী) কাছে বহু বিদেশী মিউজিকের রেকর্ড ছিল। একদিন রেকর্ড শুনে উনি কিছু রেকর্ড বেছে রাখলেন। বললেন, রেকর্ডিংয়ের দিন এগুলো নিয়ে এস। রেকর্ডিং শুরু হলো মৌলালিতে গোবিন্দবাবুর স্টুডিওতে। মাত্র তিন ঘণ্টায় রেকর্ডিং শেষ। বিভাসদা চলে গেলেন। সেদিন আমাদের খুব মন খারাপ হয়েছিল। কারণ, এর আগে দেখেছি মিউজিক রেকর্ডিং করতে কত সময় লাগে। আজ বলতে বাধা নেই যে সেদিন মনে হয়েছিল, উনি তো আমাদের দলের নন, তাই বেশি সময় দিলেন না। কিন্তু অবিশ্বাস্য ভাবে স্টেজ রিহার্সালে দেখলাম কী সুন্দরভাবে মিউজিক নাটকের সঙ্গে মিশে যাচ্ছে! সেদিন বুঝেছিলাম বিভাসদার মাথাটা কম্পিউটার। ‘শ্বেতসন্ত্রাস’ নাটকে মুখ্য চরিত্রে কল্যাণ সরখেল। সেই প্রথম ওর বড় চরিত্রে অভিনয়। কিন্তু বিভাসদার হাতে পড়ে কী সুন্দর অভিনয় করল... এবং অভিনেতা হিসাবে প্রতিষ্ঠিত হলো। শ্বেতসন্ত্রাস নাটক দেখতে শম্ভু মিত্র এলেন রবীন্দ্রসদনে। খুব প্রশংসা করলেন প্রযোজনার। প্রায় আধ ঘণ্টা উনি আমাদের সঙ্গে কথা বলেছিলেন। উনি চলে যাওয়ার পরে, যখন আমরা সেটের সমস্ত মালপত্র তুলে বেরতে যাব, দেখি বাইরে তখনও দাঁড়িয়ে আছেন অসিত মুখোপাধ্যায়, সলিল বন্দ্যোপাধ্যায় আর দ্বিজেন বন্দ্যোপাধ্যায়। ওঁরা অপেক্ষা করছেন আমাদের সঙ্গে কথা বলবেন বলে। শম্ভুদা ছিলেন বলে এতক্ষণ ভিতরে যাননি। ওঁরা বললেন, তোমরা কী করে এইরকম একটা প্রযোজনা করতে পারলে? আমরা মুগ্ধ হয়ে গিয়েছি, আর সেটা তোমাদের জানাব বলেই এতক্ষণ দাঁড়িয়ে আছি। নান্দীপটকে তখন তেমন কেউ চিনত না। আমাদেরও তেমন কোনও পরিচয় ছিল না। কিন্তু এতসব দিকপাল মানুষদের প্রশংসায় আমরা বাকরূদ্ধ হয়ে গেলাম। বললাম, সবই বিভাসদার কৃতিত্ব, আমরা শুধু তাঁর আদেশ পালন করেছি। সেই প্রথম নান্দীপট পায়ের তলায় মাটি পেল, বিভাসদার পরিশ্রমে।
এরপর ১৯৯৪ সাল। বাবরি মসজিদ ধ্বংস হলো। বিভাসদা আমাদের ডেকে বললেন, ‘স্যাস’ পত্রিকায় ‘তীর্থযাত্রা’ নাটক ছাপা হয়েছে, সেটা পড়তে। নাটকটা আমরা পড়লাম। সেটাকে নাটক না বলে প্রবন্ধ বলা যায়, লিখেছেও নতুন একটি ছেলে, শেখর সমাদ্দার। উনি বললেন, চলো, এই নাটকটা করব। প্রচুর ছেলেমেয়ে দরকার। বিভাসদার নাম শুনে বহু ছেলেমেয়ে নান্দীপটে আসতে শুরু করল, শুরু হলো ‘তীর্থযাত্রা’ নাটকের রিহার্সাল। একদিন উনি বললেন, শোনো, তোমাদের দেশভাগের ইতিহাসটা জানতে হবে, শুধু সংলাপ বললে হবে না। সময়কে জানতে হবে। উনি যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাসের শিক্ষক ডঃ অমলেন্দু দে মহাশয়কে আমাদের দলের ঘরে নিয়ে এলেন। দুদিন উনি আমাদের ক্লাস নিয়েছিলেন। হিন্দু-মুসলমানের মধ্যে দাঙ্গার ইতিহাস, স্বাধীনতার ইতিহাস, দেশভাগের কথা উনি আমাদের পড়ালেন। তখন যেন নাটকটা অন্য একটা মাত্রা পেয়ে গেল আমাদের কাছে। বুঝলাম, নাটক করতে গেলে পড়াশোনাটা কত জরুরি। খুব সাফল্য পেয়েছিল সেই নাটক। অসিত মুখোপাধ্যায় নাটক দেখে বলেছিলেন, ‘এই প্রযোজনা বিভাসের পক্ষেই করা সম্ভব। আমরা কেউই এটা করতে পারতাম না।’
বেশ কিছু বছর পর আবার বিভাসদার শরণাপন্ন হলাম। নাটক করব, গিরিশ কারনাডের লেখা বিভাসদার অনুবাদ ‘অগ্নিজল’। বিভাসদা বেশ কয়েকটা রিহার্সালে এলেন। তখন আমাদের দলে ছেলেমেয়ে অনেক কমে গিয়েছে। কিছুদিন পর বিভাসদা বললেন, না, তোমাদের দিয়ে ‘অগ্নিজল’ নাটক করা যাবে না। তোমাদের দলে সেই ছেলেমেয়ে নেই। আমরা মাথায় হাত দিয়ে বসলাম। এবার তবে আমরা কী করব? আবার মুশকিল আসান হলেন বিভাসদা স্বয়ং। সাতদিনের মধ্যে উনি ইতালীর নাট্যকার দারিও ফো-র নাটক ‘আক্সিডেন্টাল ডেথ অব অ্যানার্কিস্ট’ রূপান্তর করে নিয়ে এলেন। আমাদের দলের সৌমিত্র , বিভাসদার বাড়ি গিয়ে নাটকটা লিখত। শুরু হলো ‘মৃত্যু না হত্যা’-র মহলা। বিভাসদা যে কী ভীষণ পরিশ্রম করেছিলেন তা বলার নয়। প্রত্যেকটা চরিত্র উনি অভিনয় করে দেখিয়েছিলেন। উনি যা দেখিয়েছিলেন, তার হয়তো ৬০-৭০ ভাগ আমরা করতে পেরেছিলাম আর তাতেই দর্শক মুগ্ধ হয়ে গিয়েছিল। নাটকের রূপসজ্জা, মঞ্চসজ্জা, আলোর ব্যবহার সব উনি নিজে সাজিয়েছিলেন। এমনকি পোশাকের কাপড় কিনতেও আমাদের সঙ্গে দোকানে দোকানে ঘুরেছিলেন। দলে তখন ছেলেমেয়ে বেশি নেই, প্রত্যেকেই অভিনয় করছে। আমার স্ত্রী রিঙ্কু সেই প্রথম বড় চরিত্রে অভিনয় করবে। আমি ভীষণ নার্ভাস। কী করবে? ঠিকমতো করতে পারবে তো? বারবার বলতাম, দেখো, বিভাসদার নাম ডুবিও না যেন। এই কথা আবার বিভাসদাকে বলে দিল রিঙ্কু। উনি খুব বকলেন, বললেন নাটকের নির্দেশক কে? আমি বলছি তুমি পারবে। সত্যিই ঐ নাটকে রিঙ্কু ভালোই অভিনয় করল। নান্দীপটও একজন অভিনেত্রী পেয়ে গেল।
তার বহুদিন পর, আবার বিভাসদা আমাদের দলে নির্দেশনা দিলেন। এবারের নাটক ‘শৃন্বন্তু কমরেডস’। কী পরিশ্রম করে উনি নাটকটার নির্দেশনা দিলেন, তা লিখে বোঝানো যাবে না। সোমনাথ মুখোপাধ্যায় নাটকটি অনুবাদ করেছিলেন। বিভাসদা সম্পাদনা করলেন আর কবি সুভাষ মুখোপাধ্যায়কে দিয়ে নাটকের গান লেখালেন। আর সেই গানে সুর দিয়ে নিজেই গাইলেন সুমন মুখোপাধ্যায়। ওই সময় এই নাটকটি খুব প্রয়োজনীয় ছিল।
বিভাসদা নান্দীপটের শুধু কয়েকটা নাটকের নির্দেশক ছিলেন না। তিনি কতভাবে যে আমাকে বা নান্দীপটকে সাহায্য করেছেন, তা এই অল্প পরিসরে লিখে শেষ করা যাবে না। ২০০৪ সালে নান্দীপটের রজতজয়ন্তী বর্ষ। আয়োজন করা হলো ‘যুব নাট্য উৎসব’। উদ্বোধন করার কথা ছিলো তাপস সেনের। কিন্তু উদ্বোধনের দিন সকালে জানতে পারলাম যে, তাপসদা অসুস্থ আসতে পারবেন না। অগত্যা আবার শরণাপন্ন হলাম বিভাসদার এবং উনি রাজী হলেন এবং উদ্বোধন করলেন। কিন্তু উদ্বোধক –এর জন্য আমাদের যা যা উপহার সামগ্রী ছিল সব তাপসদার বাড়িতে পৌঁছে দিলেন। বললেন এগুলি সব তাপসদার প্রাপ্য, আমি তো প্রক্সি দিয়েছি। এই হলেন বিভাসদা।
১৯৯২ সালে আমার বন্ধু সোমনাথ চট্টোপাধ্যায়ের সাহায্যে ‘পদ্মা-গঙ্গা উৎসব’ করার সুযোগ পেল নান্দীপট। সোমনাথ তখন ভি এস টি কোম্পানির অফিসার। প্রচুর সাহায্য করেছিল আমাদের। বিভাসদাই এই উৎসবের নামকরণ করলেন ‘পদ্মা-গঙ্গা উৎসব’। দুই বাংলার নাটক, চলচ্চিত্র, গান নিয়ে হয়েছিল এই উৎসব। উৎসব উদ্বোধন করতে রাজি হলেন স্বয়ং শম্ভু মিত্র। উদ্বোধনের দিন মঞ্চসজ্জার দায়িত্ব ছিল আমাদের দলের সুমনের উপর। অনুষ্ঠান শুরুর আগে বিভাসদাকে মঞ্চে এনে দেখালাম যে সব ঠিক আছে কি না। মঞ্চে মাঝখানে ছিল দুটি বড় বেতের চেয়ার। উনি বললেন দুটি চেয়ার কেন? আমরা বললাম একটি শম্ভুদার আর অন্যটি আপনার। শুনেই উনি প্রচন্ড রেগে গেলেন। বললেন তোমাদের কি বোধবুদ্ধি সব হারিয়েছে? শম্ভুদা আর আমি একই চেয়ারে বসবো!! এখনই একটা চেয়ার সরিয়ে দাও। বলে উনি নিজেই শিশির মঞ্চের গ্রিন রুম থেকে একটা টিনের চেয়ার এনে মঞ্চের এককোণে রাখলেন। এইভাবে উনি অগ্রজকে সম্মান জানালেন আর আমাদেরও বোঝালেন কীভাবে অগ্রজকে সম্মান জানাতে হয়। এই ঘটনার বছর দুয়েক পরের কথা। সেদিন আমাদের দলের ঘরে ‘তীর্থযাত্রা’ নাটকের রিহার্সাল ছিল। উনি আমাকে বললেন, তুমি সাড়ে পাঁচটায় তথ্যকেন্দ্রের দোতলায় চলে আসবে, তুমি এলে আমি চলে আসব। যথারীতি আমি সাড়ে পাঁচটায় গিয়ে দাঁড়িয়ে আছি। উনি মিটিং থেকে বেরিয়ে আমাকে বললেন, ‘কিছু মনে কোরো না, একটু দাঁড়াও। আমার আরও দশ মিনিট সময় লাগবে’। আমি তো দাঁড়িয়েই থাকতাম। কিন্তু উনি আমার মতো একজন সাধারণ নাট্যকর্মীকে এইভাবে সম্মান জানালেন।
বিভাস চক্রবর্তী যে কত বড় মাপের নির্দেশক, অভিনেতা, নাট্যকার তা আপনারা আমার থেকে অনেক বেশী জানেন। তা নিয়ে আলোচনা করবেন বিদগ্ধ মানুষেরা। বিভাসদা যে কতবড় সংগঠক তার দু-একটা উদাহরণ দিই। তিনি নান্দীকার থেকে বেরিয়ে থিয়েটার ওয়ার্কশপ তৈরি করলেন। আবার থিয়েটার ওয়ার্কশপের চূড়ান্ত সাফল্যের পর তিনি প্রতিষ্ঠা করলেন ‘অন্য থিয়েটার’। সেখানে শুধু নাট্য প্রযোজনাই নয়, তৈরী করলেন ‘অন্য থিয়াটার ভবন’। খুব বড় মাপের সংগঠক না হলে করা সম্ভব! তিনি শুধু নাট্যদল নয়, তৈরী করলেন ‘বঙ্গ নাট্য সংহতি’। দুঃস্থ, অসুস্থ নাট্যকর্মীদের সাহায্যের জন্য। এই সংস্থা এখনও পর্যন্ত নাট্যকর্মীদের জন্য প্রায় ৪০ লক্ষ টাকা সাহায্য করতে পেরেছে। এইসব করা সম্ভব হয়েছে বিভাসদার নেতৃত্বে। এইরকম বহু ঘটনা বলা যায়, যা এই সল্প পরিসরে লেখা গেল না।
এসবই বিভাসদার থেকে শেখা। বিভাসদার থেকে আমি ব্যক্তিগতভাবে অনেক কিছু শিখেছি। অনেককিছু পেয়েছে আমার নাট্যদল নান্দীপটও। বিভাসদাকে পাশে না পেলে নান্দীপট আজ এই জায়গায় পৌঁছাতে পারত না। ২৩শে সেপ্টেম্বর বিভাসদার জন্মদিন। জন্মদিনে বিভাসদাকে প্রণাম। আপনি এইভাবে আমাদের পাশে থাকুন, সুস্থ থাকুন, এই কামনা করি।
21st  September, 2019
গিরিশ মঞ্চে সাজাহান 

গোপীমোহন সব পেয়েছিল আসর সম্প্রতি গিরিশ মঞ্চে দ্বিজেন্দ্রলাল রায়ের লেখা সাজাহান নাটকটি মঞ্চস্থ করল। উপলক্ষ ছিল তাদের ৬৬তম বর্ষ উদযাপন। সাজাহানের চরিত্রে অভিনয় করেন সুব্রত ভট্টাচার্য।  বিশদ

14th  March, 2020
রামধনু নাট্যোৎসব 

বরানগর রামধনু নাট্যোৎসব এবার তৃতীয় বর্ষে পা রাখল। আগামী শুক্রবার ২০ মার্চ বরানগর রবীন্দ্রভবনে দুপুর ১২টায় এই উৎসবের উদ্বোধন করবেন বর্ষীয়ান নাট্যব্যক্তিত্ব গৌতম মুখোপাধ্যায়। নাট্যোৎসবটি চলবে ২২ মার্চ পর্যন্ত। মোট ১৬টি নাট্যদল এবার এই উৎসবে অংশ নিচ্ছে, তারমধ্যে বেশিরভাগই মফস্সলের। 
বিশদ

14th  March, 2020
পুশকিনের জীবন নিয়ে নাটক 

আগামী ২১ মার্চ বিশ্ব কবিতা দিবস। দু’শো বছর আগে ওইদিনই জন্ম হয়েছিল বিশ্ববন্দিত রাশিয়ান কবি আলেকজান্দার পুশকিনের। আর তাঁর জীবনদীপ নেভে মাত্র ৩৭ বছর বয়সে। জারের রাজকর্মচারী দান্তেসের সঙ্গে ডুয়েল লড়তে গিয়ে নিহত হন পুশকিন। অনেকে বলেন মৃত্যু, অনেকে বলেন হত্যা।  
বিশদ

14th  March, 2020
আনন্দজীবন নাট্যোৎসব

দিনাজপুর কৃষ্টি আয়োজিত সাতদিনের আনন্দজীবন নাট্যোৎসব হয়ে গেল কুশমন্ডিতে। ২০ থেকে ২৬ জানুয়ারি এই উৎসবে মোট আটটি দল অংশগ্রহণ করে। প্রতিদিনই দিনাজপুরের পাশাপাশি অন্যান্য জেলা থেকে আগত দলগুলির একটি করে নাটক মঞ্চস্থ হয়। উৎসবের প্রথমদিনে স্থানীয় বিধায়ক নর্মদা রায় প্রদীপ জ্বালিয়ে শুভ সূচনা করেন।  
বিশদ

14th  March, 2020
এ নাটক এক সমকালীন দলিল যা দর্শককে ভাবায় 

সময়টা বড়ই ভয়ঙ্কর। ধর্মের সুড়সুড়ি দিয়ে রাজনীতির কারবারিরা যে যার মত করে ঘুঁটি সাজাতে তৎপর। ধর্ম নামক বস্তুটিকে সামনে রেখে চলছে গরিব-বড়লোকের শ্রেণীবিন্যাস আর চিরকালীন সংঘাত। ঠিক এই সময়ে দাঁড়িয়ে ‘কালিন্দী নাট্যসৃজন’-এর নতুন প্রযোজনা ‘মন সারানি’ চমকে দেয়।
বিশদ

14th  March, 2020
কমলকুমারের গল্পের দুঃসাহসিক মঞ্চায়ন 

কমলকুমার মজুমদারকে ‘দুঃসাহসী লেখক’ বলে অভিহীত করেছিলেন সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়। তাঁর বাক্যগঠন, শব্দ, ক্রিয়াপদ, কমা, পূর্ণচ্ছেদের ব্যবহার সবই ছিল চলতি রীতির থেকে আলাদা। এমনকী আলাদা ছিল তাঁর ভাষাও। সাধুভাষার ব্যবহার, অপ্রচলিত শব্দের ব্যবহার তাঁর লেখাকে করে তুলেছিল অন্য সবার থেকে আলাদা, ফলে হয়তো দুরূহও।  
বিশদ

14th  March, 2020
নান্দীকারের নাট্যোৎসব একটি প্রতিবেদন 

অ্যাকাডেমি অব ফাইন আর্টস মঞ্চে নান্দীকারের ছত্রিশতম নাট্যমেলা অনুষ্ঠিত হল গত ডিসেম্বর মাসের ষোলো থেকে পঁচিশ তারিখ পর্যন্ত। নান্দীকারের সুনাম অক্ষুণ্ণ রেখেই সমাপ্ত হল তাদের এই নাট্যোৎসব। 
বিশদ

07th  March, 2020
প্রসেনিয়ামের থিয়েটার ফেস্টিভ্যাল 

প্রসেনিয়াম’স আর্ট সেন্টার ও বিভাবন যৌথ উদ্যোগে গত ১৩ থেকে ১৭ নভেম্বর এক থিয়েটার উৎসবের আয়োজন করে। তাদের নিজস্ব সেন্টারে আয়োজিত এই উৎসবে ১১টি নাট্যদলের থিয়েটার মঞ্চস্থ হয়। 
বিশদ

07th  March, 2020
দ্বাদশ থিয়েলাইট নাট্যোৎসব 

থিয়েলাইট নাট্যদলের নাট্যোৎসব এবছর বারোয় পা দেবে। বিগত বছরগুলিতে এই উৎসব ঘুরিয়ে ফিরিয়ে বিভিন্ন জেলায় করা হতো। এবছর সেই ধারায় ব্যতিক্রম ঘটতে চলেছে। এবছর উৎসব হবে কলকাতাতেই।  
বিশদ

07th  March, 2020
সাথী হারা ভালোবাসা ফিরিয়ে দেয় যাত্রার স্বাদ 

২৪তম যাত্রা উৎসব হয়ে গেল ফণীভূষণ বিদ্যাবিনোদ মঞ্চে। এই উৎসবের উল্লেখযোগ্য যাত্রাপালা ছিল বিশ্বভারতী অপেরার প্রযোজনায় ‘সাথী-হারা ভালোবাসা’। আর পাঁচটি প্রেম কাহিনীর মতোই একটি রোমান্টিক প্রেমের গল্প এটি। ভালোবাসার জন্য একজন মানুষ সবকিছুই করতে পারে।  
বিশদ

07th  March, 2020
গা ছমছম কী হয় কী হয়!
রহস্য নাটকের সার্থক মঞ্চায়ন

সময়টা দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধোত্তর পশ্চিমবঙ্গ। প্রচণ্ড ঝড়জলের এক রাত। কার্শিয়াংয়ের এক সদ্য চালু হওয়া হোটেল ড্রিমল্যান্ডে একে একে জড়ো হয় রহস্যময় কয়েকজন বোর্ডার। একজন নাকউঁচু মহিলা মিস কাজল দত্ত, যিনি অবসরপ্রাপ্ত সরকারি অফিসার। 
বিশদ

07th  March, 2020
এনএসডি-র আদিরঙ মাতিয়ে দিল দ্বারোন্দা 

ইউক্যালিপটাসের সুউচ্চ গাছগুলোর মাথায় মেঘমুক্ত পশ্চিমাকাশে ধ্রুবতারাটা জ্বলজ্বল করছিল। শেষ লগ্নে এসেও শীত তার দাপট জানান দিচ্ছে তীব্র হিমেল হাওয়ায়। তবু বোলপুরের দ্বারোন্দা গ্রামের মুক্ত প্রান্তরে মানুষের ভিড় কম নয়। চলছে দিল্লির ন্যাশনাল স্কুল অব ড্রামা (এনএসডি) আয়োজিত ‘আদিরঙ’ অর্থাৎ আদিবাসী রঙ্গোৎসব।  
বিশদ

22nd  February, 2020
প্রেমের ঘেরাটোপে শয়তানের পদচারণা 

আ কনফেশন অব সাইকোফেনিক— আলোচনাটা এভাবে শুরু করা যায়। জালের ঘেরাটোপের মধ্যে শুরু হয় নাটক। একটি অন্তরঙ্গ ঘরে, কুলকুল জলের শব্দে, জালের মধ্যে গাঢ় বেগুনি আলোয় ভেসে ওঠে কতকগুলি বিমূর্ত হাত। একপাশে যুগল অন্তরঙ্গ হয়ে চুম্বনরত ও তাদের ঘিরে পুলিসবেশী ডাক্তার ও নার্সের পদচারণা।  
বিশদ

22nd  February, 2020
ভাষা দিবসে এনআরসি বিরোধী নাট্য 

শুধুমাত্র মাতৃভাষার জন্য আন্দোলন করতে গিয়ে একটা দেশ স্বাধীনতার স্বাদ উপলব্ধি করতে পেরেছিল। তারই স্বীকৃতি স্বরূপ ইউনেসকো ২১ ফেব্রুয়ারি দিনটিকে বিশ্ব মাতৃভাষা দিবস হিসেবে চিহ্নিত করে। যা গোটা বিশ্বে পালিত হয়। 
বিশদ

22nd  February, 2020
একনজরে
করাচি: বিশ্বকাপের মত টুর্নামেন্টে ভারতের বিপক্ষে একবারও জয়লাভ করতে পারেনি পাকিস্তান। এর কারণ তুলে ধরলেন পাক দলের প্রাক্তন তারকা বোলার ওয়াকার ইউনিস। কেন আইসিসির বৃহত্তম মঞ্চে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীদের কাছে তাঁর দেশ বারবার ব্যর্থ হয়, তা বিশ্লেষণ করতে গিয়ে প্রাক্তন তারকা পেসারটি ...

 অকল্যান্ড: শপিং মলে ঘোরার নেশা। আর সেই তারণাতেই অকল্যান্ডের এক কোয়ারেন্টাইন সেন্টার থেকে পালিয়ে গেলেন করোনা পজিটিভ এক রোগী (৩২)। সম্প্রতি তিনি ভারত থেকে ...

সুমন তেওয়ারি, ঝাঁঝরা: ভারত-চীন সীমান্তে চড়ছে উত্তেজনার পারদ। অথচ তার এতটুকু আঁচ পড়েনি দুর্গাপুরের ঝাঁঝরায়। উৎপাদনের নিরিখে দেশের এই সর্ববৃহৎ ভূগর্ভস্থ কয়লা খনি প্রকল্পে হাতে হাত মিলিয়ে কাজ করছেন দুই দেশের কর্মীরা। ...

 নয়াদিল্লি: সংক্রমণের নিরিখে ইতিমধ্যেই চীন, স্পেন, ইতালি, রাশিয়াকে ছাড়িয়ে গিয়েছে। মহামারী কবলিত বিশ্বের তৃতীয় দেশ হিসেবে উঠে এসেছে ভারত। প্রতিদিনই ২০ হাজারের বেশি মানুষ নতুন করে সংক্রামিত হচ্ছেন। ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

মেষ: পঠন-পাঠনে আগ্রহ বাড়লেও মন চঞ্চল থাকবে। কোনও হিতৈষী দ্বারা উপকৃত হবার সম্ভাবনা। ব্যবসায় যুক্ত ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৯২৫: অভিনেতা গুরু দত্তের জন্ম
১৯৩৮: অভিনেতা সঞ্জীব কুমারের জন্ম
১৯৫৬: মার্কিন অভিনেতা টম হ্যাংকসের জন্ম
১৯৬৯: ক্রিকেটার বেঙ্কটপতি রাজুর জন্ম
১৯৬৯: ভারতের জাতীয় পশু হল রয়্যাল বেঙ্গল টাইগার 



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭৪.১৯ টাকা ৭৫.৯১ টাকা
পাউন্ড ৯২.৫৯ টাকা ৯৫.৯১ টাকা
ইউরো ৮৩.১৭ টাকা ৮৬.২৩ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪৯,৭৬০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৪৭,২১০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪৭,৯২০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৫০,৩৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৫০,৪৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

২৫ আষাঢ় ১৪২৭, ৯ জুলাই ২০২০, বৃহস্পতিবার, চতুর্থী ১২/৫৩ দিবা ১০/১২। শতভিষা ৫৫/১৭ রাত্রি ৩/৯৷ সূর্যোদয় ৫/২/১৯, সূর্যাস্ত ৬/২১/৭৷ অমৃতযোগ দিবা ৩/৪১ গতে অস্তাবধি, রাত্রি ৭/৪ গতে ৯/১২ মধ্যে পুনঃ ১২/৩ গতে ২/১১ মধ্যে পুনঃ ৩/৩৬ গতে উদয়াবধি। বারবেলা ৩/১ গতে অস্তাবধি। কালরাত্রি ১১/৪১ গতে ১/১ মধ্যে। 
২৪ আষাঢ় ১৪২৭, ৯ জুলাই ২০২০, বূহস্পতিবার, চতুর্থী দিবা ১০/১৩। শতভিষা নক্ষত্র রাত্রি ৩/৫৩। সূযোদয় ৫/২, সূর্যাস্ত ৬/২৩। অমৃতযোগ দিবা ৩/৪২ গতে ৬/২৩ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/৪ গতে ৯/১৩ মধ্যে ও ১২/৪ গতে ২/১২ মধ্যে ও ৩/৩৭ গতে ৫/২ মধ্যে। কালবেলা ৩/৩ গতে ৬/২৩ মধ্যে। কালরাত্রি ১১/৪৩ গতে ১/২ মধ্যে। 
১৭ জেল্কদ 

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
কর্ণাটকে করোনা পজিটিভ আরও ২,০৬২, মোট আক্রান্ত ২৮,৮৭৭ 

08-07-2020 - 08:49:35 PM

মহারাষ্ট্রে করোনা পজিটিভ আরও ৬,৬০৩, মোট আক্রান্ত ২,২৩,৭২৪ 

08-07-2020 - 08:31:12 PM

বাতিল এশিয়া কাপ 
করোনা আবহে এখনও ঝুলে রয়েছে টি-২০ বিশ্বকাপের ভাগ্য। তার মধ্যেই ...বিশদ

08-07-2020 - 07:48:40 PM

করোনা:বাংলায় ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত ৯৮৬

২৪ ঘণ্টায় রাজ্যে ২৩ জন করোনা রোগী প্রাণ হারালেন। তার ...বিশদ

08-07-2020 - 07:40:14 PM

হাওড়ার কন্টেইনমেন্ট জোনের পূর্ণাঙ্গ তালিকা
প্রকাশিত হল হাওড়ার বৃহত্তর কন্টেইনমেন্ট জোনের সম্পূর্ণ তালিকা। আগামীকাল বিকেল ...বিশদ

08-07-2020 - 05:55:45 PM

কন্টেইনমেন্ট জোনের পূর্ণাঙ্গ তালিকা: উত্তর ২৪ পরগনা 
প্রকাশিত হল উত্তর ২৪ পরগনা জেলার বৃহত্তর কন্টেইনমেন্ট জোনের সম্পূর্ণ ...বিশদ

08-07-2020 - 05:55:00 PM