শরীর ও স্বাস্থ্য
 

 টিটেনাস

আমরা জানি কাচে বা জং ধরা লোহায় শরীরে কোনও জায়গা কেটে গেলে টিনেনাস রোগের ব্যাকটেরিয়া দেহে প্রবেশ করে। এমন ভাবনা মোটেই সঠিক নয়। যে কোনও ধরনের কাটাছেঁড়া বা পোড়া থেকেও এই ব্যাকটেরিয়া শরীরে ঢোকার আশঙ্কা থেকে যায়। আর শুধু একটা ইঞ্জেকশনে টিটেনাসের ব্যাকটেরিয়া মরে না। এই ভ্যাকসিন নেওয়ার নির্দিষ্ট নিয়ম আছে। সেগুলো জানা ছোট-বড় সবার কর্তব্য। পরামর্শে বিশিষ্ট জেনারেল ফিজিশিয়ান ডাঃ আশিস মিত্র।



টিটেনাস কী?
একটি মারাত্মক ব্যাকটেরিয়াজনিত সংক্রমণ (ব্যাকটেরিয়াল ইনফেকশন) হল টিটেনাস। এই রোগে শরীরের স্নায়ুতন্ত্র আক্রান্ত হয়ে শরীরের পেশিগুলি শক্ত হয়ে যায়। পেশিতে খিঁচ বা টান ধরে। বাংলায় এই রোগের নাম ধনুষ্টংকার। আসলে এই রোগে আক্রান্ত বহু রোগীর পেশিতে টান লেগে শরীর ধনুকের ন্যায়ে বেঁকে যায়। এখান থেকেই এই নামের উৎপত্তি। আবার প্রাথমিকভাবে এই রোগে শরীরের ঘাড় এবং চোয়ালের পেশিগুলিকে শক্ত করে আনে। তাই ইংরেজি ভাষায় এই রোগের অপর নাম ‘লক জ’।
কতটা ক্ষতিকর এই ব্যাকটেরিয়া?
এই সংক্রমণ এতটাই মারাত্মক হতে পারে যে জীবন নিয়ে টানাটানি পরে যাওয়াও আশ্চর্যের কিছু নয়। কোনও ব্যক্তির জীবনে এই রোগ সবসময়ই চিকিৎসাজনিত জরুরি অবস্থা তৈরি করে। তবে আশার কথা হল, মাত্র ১০ থেকে ২০ শতাংশ ক্ষেত্রেই সংক্রমণই এমন মারাত্মক আকার ধারণ করতে পারে।
সাধারণত সব বয়সের এবং সব লিঙ্গের মানুষের এই সংক্রমণ হতে পারে। তবে ছোটদের মধ্যে, নির্ধারিত করে বললে সদ্যোজাতদের (নিওনেটাল টিটোনাস) মধ্যে এই রোগ ভয়ঙ্কর রূপ নেয়।
টিটেনাস রোগের নেপথ্যে
‘ক্লস্ট্রিডিয়াম টিটানি’ নামক এক ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণে টিটেনাস রোগটি হয়। এই ব্যাকটেরিয়ার স্পোরস আমাদের আশেপাশেই ছড়িয়ে রয়েছে। এক্ষেত্রে স্পোরস হল ব্যাকটেরিয়ার অতিবক্ষুদ্র জন্মদায়ক অংশ। স্পোরসগুলি বিভিন্ন প্রতিকূল আবহাওয়ায় বেঁচে থাকতে পারে। সাধারণত মাটি, ধুলো-ময়লা, পশুর মল-মূত্র ইত্যদির মধ্যে এই ব্যাকটেরিয়া থাকে।
কোনও ব্যক্তির কাটা স্থান বা ক্ষতর মধ্য দিয়ে এই ব্যাকটেরিয়া শরীরে প্রবেশ করে। এরপর রক্তে মিশে এই ব্যাকটেরিয়া মানব শরীরের স্নায়ুতন্ত্র বা নিখুঁতভাবে বললে সেন্ট্রল নার্ভাস সিস্টেমের উপর আক্রমণ করে। শরীরের এই অংশে একধরনের টক্সিন তৈরি করে এই ব্যাকটেরিয়া। টক্সিনের নাম—টেটানোস্প্যাসমিন। এই টক্সিন সুষুম্নাকাণ্ড থেকে পেশিতে প্রেরিত বার্তাগুলি যাওয়ার পথে বাধার সৃষ্টি করে। স্নায়ু থেকে পেশিতে বার্তা না পৌঁছানোর জন্যই বিভিন্ন সমস্যার উৎপত্তি হয়।
শরীরে এই ব্যাকটেরিয়ার প্রবেশ
এই বিষয়টি নিয়ে আমাদের মধ্যে বেশ কিছু ভুল ধারণা রয়েছে। আমরা বেশিরভাগই জানি, শুধুমাত্র কাচে বা লোহায় লেগে শরীরে কোনও স্থান কেটে গেলে টিনেনাস রোগের ব্যাকটেরিয়া দেহে প্রবেশ করে। তবে এমনটা ভাবা একদমই ঠিক নয়। বিভিন্নভাবে এই ব্যাকটেরিয়া শরীরে প্রবেশ করতে সক্ষম হয়। যেমন—
 শরীরের কোনও অংশ পুড়ে গেলে  শরীরের কোনও অংশ কেটে গেলে। এখানে কেটে যাওয়া বলতে শুধু লোহা বা কাচে কেটে যাওয়াকে বোঝানো হচ্ছে না। কাঠ, প্ল্যাস্টিক প্রভৃতি যাবতীয় কিছুতে কেটে যাওয়াকে বোঝানো হচ্ছে  কোনও প্রাণীর কামড়  শরীরে ট্যাটু  ইঞ্জেকশন  সার্জারি  ফুট আলসার  দাঁতের সংক্রমণ ইত্যাদির মাধ্যমে এই ব্যাকটেরিয়া শরীরে প্রবেশ করতে পারে।
তবে বলে রাখি, টিটেনাস কিন্তু কোনও ছোঁয়াচে রোগ নয়। তাই রোগীর সঙ্গে দূরত্ব বজায় রাখার কোনও প্রশ্নই আসে না।
রোগ লক্ষণ
শরীরে জীবাণু প্রবেশের পর থেকে ২১ দিনের মধ্যে রোগের লক্ষণ প্রকট হয়ে ওঠে। তবে ১৪ দিন পর থেকেই রোগের প্রাথমিক লক্ষণ সামনে আসতে শুরু করে দেয়ে।
এক্ষেত্রে এই রোগের লক্ষণগুলি হল— শরীরের বিভিন্ন অংশের মাংসপেশির শক্ত হয়ে গিয়ে খিঁচ ধরা। আসলে আমাদের শরীরের বিভিন্ন পেশিগুলিকে নিয়ন্ত্রণ করার জন্য অসংখ্য স্নায়ুর জাল রয়েছে। টিটেনাস রোগে এই স্নায়ুগুলি ভীষণভাবে আক্রান্ত হয়ে নিজেদের কর্মক্ষমতা হারায়। ফলে শরীরের বিভিন্ন পেশি শক্ত হয়ে যায়। প্রধানত চোয়াল,ঘাড়, তলপেট, পিঠ, বুক ইত্যাদি অংশের পেশিগুলি বেশি মাত্রায় ক্ষতিগ্রস্থ হয়।
এছাড়াও হৃদপিণ্ডের গ঩তি বেড়ে যায়, জ্বর আসে, প্রচুর ঘাম হয় এবং রক্তচাপ বেড়ে যাওয়ার মতো বিভিন্ন উপসর্গ এই রোগের সঙ্গে জড়িত।
রোগ নির্ণয়
সাধারণত রোগীর শারীরিক নিরিক্ষণের মাধ্যমেই রোগ সম্বন্ধে ধারণা করা যায়। একজন চিকিৎসক রোগীর লক্ষণগুলি সঠিকভাবে পর্যবেক্ষণ করেই রোগটির বিষয়ে নিশ্চিত হন। সাধারণত অন্যান্য রোগের মতো এক্ষেত্রে কোনও টেস্টের দরকার পরে না। তবে টেস্ট যে একদমই করতে হয় না, এমন কিন্তু নয়। প্রায় একইরকম লক্ষণ যুক্ত অন্যান্য অসুখের (ম্যানিনজাইটিস, র‌্যাবিস ইত্যাদি) সঙ্গে পার্থক্য করে রোগ সম্বন্ধে নিশ্চিত হতে অনেকসময়ই টেস্টের প্রয়োজন হয়।
রোগের সঙ্গে জড়িত সমস্যা
এই রোগের কবলে পড়লে রোগীর বিভিন্ন শারীরিক সমস্যা হয়। তবে রোগের তীব্রতা অনুযায়ী এই সমস্যা কম বেশি হয়ে থাকে। রোগের তীব্রতা বেশি হলে—শ্বাস নিতে সাহায্য করে এমন পেশিগুলি শক্ত হয়ে টান ধরে। এতে শ্বাস-প্রশ্বাসে সমস্যা হয় পর্যাপ্ত অক্সিজেন গ্রহণ না করার জন্য মস্তিষ্ক আক্রান্ত হয়  হৃদগতি অনিয়ন্ত্রিত হয়ে পড়ে  পেশিগুলিতে তীব্র টানের জন্য হাড় ভেঙে যায়  পাশাপশি নিউমোনিয়ার মতো সংক্রমণও হতে পারে।
রোগ চিকিৎসা
রোগীর অসুখের তীব্রতা অনুযায়ী চিকিৎসা করা হয়। বিভিন্ন ধরনের থেরাপি এবং ওষুধের সমন্বয়ে এই রোগের চিকিৎসা করা হয়। যেমন—
 শরীরের কেটে যাওয়া অংশ বা ক্ষতটিকে সারিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করা হয়। এক্ষেত্রে প্রধান উদ্দেশ্য থাকে ব্যাকটেরিয়ার উৎসস্থলটিকে নষ্ট করে দেওয়া। অনেকসময় ডিব্রাইডমেন্ট নামক সার্জারিরও সাহায্য নেওয়া হয়। এই অপারেশনে ব্যাকটেরিয়ায় দ্বারা আক্রান্ত কোষগুলিকে শরীরের বাইরে বের করে দেওয়া হয়।
 অ্যন্টিবায়োটিক ব্যবহার করে ব্যাকটেরিয়া নিধনের চেষ্টা করা হয়।
 এই ব্যাকটেরিয়ার মাধ্যমে শরীরে সৃষ্ট টক্সিনকে নষ্ট করতে টিটেনাস ইমিউন গ্লোবিউলিন’এর (টিআইজি) ব্যবহার করা হয়।
 পেশির টান বা খিঁচুনি রোধ করতে ‘মাশল রিলাক্সারের’ সাহায্য নেওয়া হয়।
 রোগীর শ্বাস-প্রশ্বাসে সমস্যা হলে অবশ্যই ব্রিদিং টিউব বা ভেন্টিলেটরের (এই যন্ত্রের ব্যবহারে সরাসরি ফুসফুসে অক্সিজেন দেওয়া নেওয়া করা সম্ভব) ব্যবস্থা করা হয়।
 সর্বোপরি এইসকল চিকিৎসার পাশাপশি রোগীকে টিটেনাস ভ্যাকসিন দেওয়া হয়।
রোগ প্রতিরোধের পথ
এই রোগ প্রতিরোধের একমাত্র উপায় হল টিকাকরণ বা ভ্যাকসিনেশন। এখন শিশুর জন্মের পরপরই ‘ডিপিটি’ বা ডিপথেরিয়া, পারটুশিস এবং টিটেনাস রোগের টিকা দেওয়া হয়। এটা বাচ্চাদের ‘ইমিউনাইজেশন ভ্যাকসিনেশন শিডিউল’এর অঙ্গ। তবে আমাদের দেশে সচেতনতার অভাব টিকাকরণের ক্ষেত্রে এক বিশেষ অন্তরায়। অনেক অভিভাবকই এই টিকাকরণের শিডিউল সঠিকভাবে মেনে চলেন না। সেক্ষেত্রে বাচ্চার টিকাকরণের বিষয়টি বিশেষভাবে নজর দিলে এই ধরনের অনেক জটিল সমস্যা এড়িয়ে চলা সম্ভব।
যাই হোক, ভ্যাকসিনের শিডিউল মেনে চললে শেষবারের মতো ১২ বছর বয়সে এই টিকা দেওয়া হয়। এই শেষ টিকার প্রভাব ৫ বছর থাকে। বয়সের হিসাবে বললে, ১৭ বছরের পর কারও কেটে গেলে অবশ্যই আমার আপনার ভাষায় টিটেনাস ইঞ্জেকশন বা বিজ্ঞানসম্মতভাবে ‘টিটেনাস টক্সোয়েড’ নামক ভ্যাকসিনটি নিতে হবে। সেক্ষেত্রে কাটা,ক্ষত, পোড়া ইত্যাদি ঘটলে ইঞ্জেকশন নেওয়া বাঞ্ছনীয়। প্রথম ভ্যাকসিনটি কেটে যাওয়ার পরপর যত শীঘ্র সম্ভব নিতে হয়। তবে এই ভ্যাকসিন নিয়ে একটি ভুল ধারণা আমাদের মধ্যে চালু রয়েছে। অনেকেই ভাবেন কেটে যাওয়ার পর একবার ভ্যাকসিন নিলেই কেল্লাফতে। তবে এমন ধারণা সম্পূর্ণ অবৈজ্ঞানিক। এক্ষেত্রে প্রথম ভ্যাকসিন নেওয়ার ঠিক ৬ সপ্তাহ পর একটি এবং ঠিক ৬ মাস পর একটি ভ্যাকসিন নিতে হবে। এটাই টিটেনাস ভ্যাকসিন নেওয়ার আদর্শ শিডিউল। টিকা নেওয়ার সময় এই দিনকালের হিসাবগুলি খুবই জরুরি। যথাযথ সময়ে টিটেনাস নেওয়া হলে আগামী ৫ বছরের জন্য সুফলভোগ করা সম্ভব।
পাশাপাশি জেনে রাখুন, বড় কোনও দুর্ঘটনার জন্য ক্ষত সৃষ্ট হলে তখন শুধু এই ভ্যাকসিন দিয়ে কাজ চলে না। চিকিৎসকের পরামর্শ মতো ইমিউন গ্লোবিউলিন’এর ব্যবহার করা হয়। সঙ্গে অবশ্য পরামর্শমতো একটি টিটেনাস ভ্যাকসিন দেওয়া হয়ে থাকে। তাই শরীরে বড় আঘাত লাগলে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।
লিখেছেন : সায়ন নস্কর
11th  May, 2017
প্রকাশিত হল ডাঃ সরোজ গুপ্ত রচনাসংগ্রহ

আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন ক্যানসার বিশেষজ্ঞ ও ঠাকুরপুকুর ক্যানসার হসপিটালের প্রাণপুরুষ ডাঃ সরোজ গুপ্তর স্মরণে সম্প্রতি নন্দন-৪ প্রেক্ষাগৃহে দে’জ পাবলিশিং থেকে এই প্রথম প্রকাশিত হল অঞ্জন গুপ্ত ও ডাঃ অর্ণব গুপ্ত সম্পাদিত একটি গল্পের বই ‘ডাঃ সরোজ গুপ্ত রচনাসংগ্রহ’।
বিশদ

25th  May, 2017
ছেলেমেয়ের মন বুঝবেন কীভাবে?

ছেলেবেলা পেরিয়ে কৈশোর। মাঝবেলায় যৌবনের ছায়া। দেখতে দেখতে কেটে যায় অনেকটা সময়। এমন বাড়ন্ত বেলার ছেলেমেয়েদের চলাফেরা, ভাবনা-চিন্তার সঙ্গে অভিভাবকের তীব্র মতান্তর সৃষ্টি হওয়ার ঘটনা এখন ঘরে ঘরে। এই সময় ছেলেমেয়ের মনের নাগাল পাওয়া বেজায় ভার। কিন্তু কীভাবে মালুম হবে তাদের ইচ্ছা-অনিচ্ছার তারতম্য? কেমনভাবে খোঁজ মিলবে ওদের লুকিয়ে রাখা অনুভূতি? জানালেন পিজি হাসপাতালের ইনস্টিটিউট অব সাইকিয়াট্রি বিভাগের ডিরেক্টর ডাঃ প্রদীপ সাহা।
বিশদ

25th  May, 2017
দুর্গাপুরে বিরল রোগের চিকিৎসা

ফুফফুসের বিরল রোগ ‘হাইপারসেনসিটিভিটি নিউমোনাইটিস’ আক্রান্ত রোগীকে সুস্থ করেল দুর্গাপুরের আইকিউ সিটি নারায়াণা মাল্টিস্পেশালিটি হাসপাতাল। বয়স ৩২-এর শায়িদা তারানাম একসপ্তাহ ধরে তীব্র শ্বাসকষ্টে ভুগছিলন। চিকিৎসকরা পরীক্ষা করে দেখেন, স্বাভাবিকের তুলনায় অনেক কম পরিমাণ অক্সিজেন শারিদার রক্তে রয়েছে।
বিশদ

18th  May, 2017
কুসুমদেবী ডেন্টালের দন্ত পরীক্ষা শিবির

বারাকপুরের স্টেম ওয়ার্ল্ড স্কুলে সম্প্রতি নিখরচায় দন্ত পরীক্ষা শিবিরের আয়োজন করেছিল কুসুমদেবী সুন্দরলাল দুগার জৈন ডেন্টাল কলেজ ও হাসপাতাল। বিদ্যালয়ের ২৫০ ছাত্র এবং তাদের অভিভাবকের মুখগহ্বরের পরীক্ষা করেন হাসপাতালের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা।
বিশদ

18th  May, 2017
বন্ধ্যাত্বের কারণগুলি কী কী?

সন্তানহীনতার সমস্যা যখন ক্রমবর্ধমান, যার বীজ রোপন হয় শৈশবেই। আধুনিক জীবনযাত্রা অনেকটাই দায়ী এর জন্য। তবে হতাশ হবেন না, আধুনিক চিকিৎসা বিজ্ঞানের উন্নতিতে সম্ভব হয়েছে ইনফার্টিলিটি সমস্যার সমাধান। পরামর্শে উর্বরা আইভিএফ এর ল্যাপারোস্কোপিক গাইনোকলজিস্ট অ্যান্ড আইভিএফ স্পেশালিস্ট ডঃ ইন্দ্রাণী লোধ।
বিশদ

18th  May, 2017
 ওষুধের ব্যবহার নিয়ে আলোচনা

  অ্যাসোসিয়েশন অব ফিজিশিয়ান অব ইন্ডিয়া’র (এপিআই) পশ্চিমবঙ্গ শাখার তরফে কলকাতায় শিক্ষামূলক চিকিৎসা বিষয়ক এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছিল। মূলত বিভিন্ন অসুখ সারানোর ওষুধগুলির সাম্প্রতিকতম ব্যবহার নিয়ে আলোচনা করাই ছিল এই সভার উদ্দেশ্য।
বিশদ

11th  May, 2017
 হ্যানিম্যানের হোমিওপ্যাথি বিতর্ক সভা

  ভক্তদের দাবি, হোমিওপ্যাথিই যে কোনও রোগের সঠিক চিকিৎসা পদ্ধতি। খুব ধীরে ধীরে অসুখ নিরাময় করে। কিন্তু মানুষ চান দ্রুত নিরাময়। তাই স্বাভাবিক নিয়মেই উঠে এসেছে একটি প্রশ্ন। হোমিওপ্যাথি কি আদৌ বিজ্ঞানসম্মত? এই দাবির কতটা সত্যতা আছে?
বিশদ

11th  May, 2017
সোয়াইন ফ্লু সতর্কতা প্রয়োজন
ডাঃ দ্বৈপায়ন মজুমদার

ছোটবেলায় আমরা সর্দি, জ্বর, কাশিকে তেমন পাত্তাই দিতাম না । সর্দি, জ্বর মানে স্কুল থকে কয়েকদিনের মুক্তি, আর বড় হলে অফিসে কিছু দিনের ছুটি । কিন্তু বছর কয়েক আগে ‘সোয়াইন ফ্লু’ নামটা শোনার পর থেকে ব্যাপারটা আর অত সহজ সরল থাকল না । ফ্লু শব্দটির সঙ্গে আমরা অনেকে পরিচিত হলেও ‘সোয়াইন ফ্লু’ নামটা আমাদের কাছে নতুন ছিল । কিছুটা গুজব, কিছুটা বাস্তব থেকে জন্ম নিল আতঙ্ক । ২০০৯ এ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা অসুখের ব্যাপকতা লক্ষ করে একে প্যানডেমিক ঘোষণা করেছিল ।
বিশদ

04th  May, 2017
 কখন কতটা জল খাবেন?

দৈনিক কতটা জল প্রত্যেকের পান করা উচিত?
সাধারণত দিনে প্রত্যেকের তিন থেকে সাড়ে তিন লিটার জল পান করা উচিত। অবশ্য কে কোন ধরনের জলবায়ুতে বাস করছেন, কেমন ধরনের কাজ করছেন তার ওপরে জলপানের অভ্যাস ও পরিমাণ নির্ভর করে। গ্রীষ্মপ্রধান দেশে মানুষের ঘাম হয় বেশি। ফলে অনেকটা জল শরীর থেকে বেরিয়ে যায়। অন্যদিকে যারা শীতপ্রধান দেশে বাস করেন, তাঁদের ঘাম হয় কম। 
বিশদ

04th  May, 2017
জীবনদায়ী ওআরএস

  ওআরএস কী?
 ওর‌্যাল রিহাইড্রেশন সল্ট সলিউশন বা ওআর এস-এর ব্যবহার চলে আসছে বহুকাল ধরেই। বিভিন্ন দেশের চিকিৎসাশাস্ত্রে, খ্রিস্টজন্মের আগে, এমনকী আমাদের প্রাচীন ভারতীয় চিকিৎসায়ও উল্লেখ মিলেছে এর।
 কখন দরকার পড়ে ওআরএস?
বিশদ

27th  April, 2017



একনজরে
 সংবাদদাতা, আলিপুরদুয়ার: ছিঁচকে চোরের উপদ্রবে আলিপুরদুয়ার জংশনের রেল কোয়ার্টারের আবাসিকরা অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছেন। রাতে তো বটেই দিনের বেলাতেও ফাঁকা কোয়ার্টারে ঢুকে ছিঁচকে চোররা অত্যন্ত গোপনে অপারেশন করে চোখের নিমেষে বেপাত্তা হয়ে যাচ্ছে। ...

প্যারিস, ২৮ মে: ফরাসি ওপেনের শুরুতেই ইন্দ্রপতন! রোলাঁ গারোঁর প্রথম রাউন্ড থেকেই ছিটকে গেলেন মেয়েদের শীর্ষ বাছাই জার্মানির অ্যাঞ্জেলিক কেরবার। ফরাসি ওপেনের ইতিহাসে যা রেকর্ড। ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: প্রচুর বিদেশি মুদ্রা ও মোবাইল ফোনসহ রবিবার রাজারহাট থানার পাড়খড়িবাড়ি থেকে রোকিয়া বিবি নামে এক মহিলা পকেটমারকে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে। ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, নয়াদিল্লি, ২৮ মে: জেশপ কারখানার পুনরুজ্জীবনের দাবিতে রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়ের দ্বারস্থ হলেন সংস্থার কর্মীরা। রাষ্ট্রপতির সঙ্গে দেখা করে জেশপের আইএনটিটিইউসি প্রভাবিত শ্রমিক-কর্মচারী সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক শ্রীকুমার বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় গত বছরের ২৬ ফেব্রুয়ারি জেশপ অধিগ্রহণ করেছিলেন। ...


আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

কর্মপ্রার্থীদের ক্ষেত্রে শুভ। যোগাযোগ রক্ষা করে চললে কর্মলাভের সম্ভাবনা। ব্যাবসা শুরু করলে ভালোই হবে। উচ্চতর ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮৮৩- স্বাধীনতা সংগ্রামী বিনায়ক দামোদর সাভারকারের জন্ম
১৯২৩- রাজনীতিক ও তেলুগু দেশম পার্টির প্রতিষ্ঠাতা এনটি রামা রাওয়ের জন্ম
২০১০- পশ্চিমবঙ্গে জ্ঞানশ্বেরী এক্সপ্রেস দুর্ঘটনায় অন্তত ১৪১জনের মৃত্যু

28th  May, 2017



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৩.৭৪ টাকা ৬৫.৪২ টাকা
পাউন্ড ৮১.৭৫ টাকা ৮৪.৭২ টাকা
ইউরো ৭১.০৭ টাকা ৭৩.৬০ টাকা
27th  May, 2017
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ২৯,৩৪৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ২৭,৮৪০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ২৮,২৬০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪০,৪০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪০,৫০০ টাকা
28th  May, 2017

দিন পঞ্জিকা

১৫ জ্যৈষ্ঠ, ২৯ মে, সোমবার, চতুর্থী দিবা ১১/৭, পুনর্বসুনক্ষত্র দিবা ১/২৫, সূ উ ৪/৫৫/৫৯, অ ৬/১১/৪৭, অমৃতযোগ দিবা ২/২৮-১০/১৪ রাত্রি ৯/৪-১১/৫৫ পুনঃ ১/২১-২/৪৭, বারবেলা ৬/৩৬-৮/১৫ পুনঃ ২/৫২-৪/৩২, কালরাত্রি ১০/১৩-১১/৩৪।
১৪ জ্যৈষ্ঠ, ২৯ মে, সোমবার, চতুর্থী অপরাহ্ণ ৪/১৫/৪৭, পুনর্বসুনক্ষত্র সন্ধ্যা ৬/৩৬/১০, সূ উ ৪/৫৪/৫০, অ ৬/১২/১৫, অমৃতযোগ দিবা ৮/২৭/২৯-১০/১৩/৪৮ রাত্রি ৯/৩/৩৬-১১/৫৪/৫৮, ১/২০/৩৮-২/৪৬/১৯, বারবেলা ২/৫২/৫৪-৪/৩২/৩৪, কালবেলা ৬/৩৪/৩১-৮/১৪/১১, কালরাত্রি ১০/১৩/১৩-১১/৩৩/৩৩।
২ রমজান

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
উত্তর দিনাজপুরের ইসলামপুরে ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়কে দাঁড়িয়ে থাকা ট্রাকে গাড়ির ধাক্কা, মৃত ৩ 
উত্তর দিনাজপুরের ইসলামপুরে দাঁড়িয়ে থাকা ট্রাকে গাড়ির ধাক্কায় তিনজনের মৃত্যু হল। জখম হয়েছেন একজন। রবিবার রাতে ঘটনাটি ঘটে ইসলামপুরের রামগঞ্জে ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়কের উপর। 

01:32:00 AM

রায়গঞ্জ জেলা হাসপাতালে রোগী উধাও, উত্তেজনা 
এক রোগীর বেপাত্তা হয়ে যাওয়াকে কেন্দ্র করে ব্যাপক উত্তেজনা রায়গঞ্জ জেলা হাসপাতালে। হাসপাতালের অ্যাসিসট্যান্ট সুপারকে হেনস্তার অভিযোগে আটক করা হয়েছে তিনজনকে। 

28-05-2017 - 09:24:00 PM

আমেরিকার মিসিসিপিতে বন্দুকবাজের হামলায় মৃত কমপক্ষে ৮, অভিযুক্ত ধৃত 

28-05-2017 - 08:57:00 PM

ম্যাঞ্চেস্টারে আত্মঘাতী বিস্ফোরণের ঘটনায় ব্রিটেনে ধৃত ২৫ বছরের এক যুবক 

28-05-2017 - 08:55:00 PM

শ্রীলঙ্কায় বন্যা: ত্রাণসামগ্রী নিয়ে কলম্বো পৌঁছাল ভারতীয় নৌসেনা জাহাজ আইএনএস শার্দূল

28-05-2017 - 03:21:58 PM

পার্কস্ট্রিটে কর্পোরেশন ব্যাংকে আগুন, ঘটনাস্থলে ৪টি দমকলের ইঞ্জিন
রবিবার দুপুরে পার্কস্ট্রিটে কর্পোরেশন ব্যাংকে আগুন। ঘটনাস্থলে ৪টি দমকলের ইঞ্জিন। এখনও আগুন জ্বলছে ব্যাংকে ভিতরে। এলাকায় ব্যাপক ধোঁয়া। প্রায় ৪০ মিনিট ধরে আগুন জ্বলছে। দমকল ও পুলিশ কর্মীরা ব্যাংকের শাটার খোলার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। ঘটনাস্থলে কলকাতা পুলিশের ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্ট টিমের আধিকারিকরা। যদিও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে বলে দাবি করা হয়েছে দমকলের পক্ষ থেকে। দমকল কর্মীদের অনুমান কর্পোরেশন ব্যাংকের সার্ভার রুম থেকে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনাটি ঘটেছে।

28-05-2017 - 03:20:24 PM






বিশেষ নিবন্ধ
 লালবাজার অভিযান: মমতার চালে বিজেপি মাত!
শুভা দত্ত: সিপিএমের নবান্ন অভিযানের ধাঁচে লালবাজার অভিযান করে রাজ্যবাসীকে চমকে দিতে চেয়েছিল রাজ্য বিজেপি। ...
 হুট বলতে ফুট কাটার অসুখ
 সৌম্য বন্দ্যোপাধ্যায়: আমার এক বন্ধু প্রায়ই ভারী অদ্ভুত অদ্ভুত কথা বলে। যেমন, জ্বর-জ্বালা, বুক ধড়ফড়ানি, ...
নদী তুমি কার
বিশ্বজিৎ মুখোপাধ্যায়: ১৯৪৭ সালে দ্বিখণ্ডিত স্বাধীনতা কেবলমাত্র মানুষকে ভাগ করেনি, প্রাকৃতিক সম্পদেও ভাঙনের সাতকাহন সূচিত ...
চীন, পাকিস্তান বেজিংয়ে ফাঁকা মাঠ পেয়ে গেল ভারতের কূটনৈতিক ভুলের কারণে
কুমারেশ চক্রবর্তী: মাত্র কিছু দিন আগে বিশ্ব ক্রিকেটের নিয়ামক সংস্থা আইসিসি’র এক ভোটে ৯-১ ভোটে ...
ভুলে যাওয়ার রাজনীতি
 সমৃদ্ধ দত্ত: আমাদের প্রিয় গুণ হল ভুলে যাওয়া। রাজনৈতিক নেতানেত্রীরা সেটা জানেন। তাই তাঁদের খুব ...