সম্পাদকীয়
 

  অবাঞ্ছিত রাজনীতিমুক্ত শিক্ষাঙ্গন

কলেজ হল উচ্চশিক্ষায় প্রবেশের দ্বার। সেখানে যারা পড়তে যায় তারা আমাদেরই ঘরের ছেলে কিংবা মেয়ে। তারা কলেজে প্রবেশ করে একটা স্বপ্ন বা লক্ষ্য নিয়ে। আশা করা হয় যে, সেখানে তারা এমন কিছু শিখবে যা এতদিন শেখার সুযোগ পায়নি। যে শিক্ষা তাদের মনকে ও মানকে একসঙ্গে উন্নত করবে। তাদের মনে জাগিয়ে তুলবে আরও ভালো কিছু, নতুন কিছু শেখার স্পৃহা। তাদের কাছে উন্মুক্ত হবে চিন্তার নতুন জগৎ। কলেজ থেকেই তৈরি হবে নামী কোনও বিশ্ববিদ্যালয় এবং গবেষণা প্রতিষ্ঠানে প্রবেশের ভিত। চাকরি, ব্যাবসা কিংবা অন্য কোনও স্বাধীন পেশা বেছে নেওয়ার যোগ্যতাও তৈরি হবে কলেজের গণ্ডী থেকে। শিল্প, কলা, সংস্কৃতি ক্ষেত্রেও অগ্রগমনের রাস্তা পাকা করে দিতে পারে উপযুক্ত কলেজে শিক্ষার ঐতিহ্য। এমনকী ভবিষ্যতে যারা সংসদীয় রাজনীতি কিংবা মানবাধিকার নিয়েও বৃহৎ ক্ষেত্রে এগনোর স্বপ্ন দেখে তাদের জন্যও বিশেষ সহায়ক হতে পারে তাদের কলেজের সুশিক্ষার পরিবেশটি। সোজা কথায়, ছেলেমেয়েদের এত স্বপ্ন এত আশা ভরসা সবকিছুর স্থল হল কলেজ বা উচ্চ শিক্ষাঙ্গন। এই স্বপ্ন আশা ভরসা তাদের বাবা-মা, অভিভাবক, শুভাকাক্ষ্মীদেরও। শিক্ষার পরিবেশ বজায় রাখার মাধ্যমে এবং তার ক্রমোন্নতিই মানুষের স্বপ্ন সাকার করতে পারে। আর কলেজের শিক্ষার পরিবেশ কোনওভাবে বিপন্ন কিংবা বিনষ্ট হলেই চুরমার হয়ে যায় এতজনের স্বপ্ন আশা আকাঙ্ক্ষা। বৃহৎ অর্থে একটি সমাজের স্বপ্নভঙ্গ হয়।
আমাদের সংসদীয় রাজনৈতিক ব্যবস্থায় রাজ্য বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীন কলেজগুলির উপর রাজ্য সরকারের নিয়ন্ত্রণ স্বীকৃত। কিন্তু, যখন যে দল বা রাজনৈতিক জোট রাজ্যে ক্ষমতাসীন থাকে তখন রাজ্য সরকারের বকলমে সংশ্লিষ্ট শাসক দল বা জোটই কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়গুলির উপর কর্তৃত্ব কায়েম করার জন্য্য মরিয়া হয়ে ওঠে। কলেজে কলেজে শাসক দলের মাতব্বরি কায়েম করা হয় একাধিক উপায়ে—নিয়ন্ত্রিত ছাত্র সংসদকে উসকে দিয়ে, পরিচালন কমিটিতে শাসক দলের অনুগত দাপুটে কর্তাব্যক্তি ঢুকিয়ে রেখে এবং স্থানীয় দলীয় এমপি, এএমএলএ, পুর চেয়ারম্যান/পঞ্চায়েত প্রধানকে সামনে রেখে। রাজ্যবাসী অভিজ্ঞতা থেকে দেখেছে, বেশিরভাগ কলেজ কর্তৃপক্ষই জলে বাস করে কুমিরের সঙ্গে লড়াই করার মতো সৌখিন নন। বরং শাসক দল কিংবা তাদের সবচেয়ে শক্তিশালী কোনও গোষ্ঠীপতির ‘ইয়েস ম্যান’ হিসাবেই চাকরিজীবন কাটিয়ে দেওয়ার কৌশল নেন বেশিরভাগ কলেজ অধ্যক্ষ। তবে সবকিছুর মতোই দু-চারটি ব্যতিক্রমী কলেজ কর্তৃপক্ষও থাকেন সবসময়। তাঁরা আদর্শচ্যুত হওয়ার কথা ভাবতে পারেন না। তাঁরা যে-কোনও মূল্যে কলেজে শিক্ষার পরিবেশ বজায় রাখার চেষ্টা চালিয়ে যান। গোল বাধে তাঁদের নিয়েই।
সিপিএম জমানায় এই ধরনের কলেজ কর্তৃপক্ষের কপালে ‘পানিশমেন্ট’ ছাড়া কিছু জোটেনি। তাই অনেক কলেজ অধ্যক্ষ ন্যায়পথে চলার সাহসটাই হারিয়ে বসেছেন। অতীতের সরকার যদি একজনও নীতিনিষ্ঠ সাহসী অধ্যক্ষের পাশে দাঁড়াবার দৃষ্টান্ত রাখতে পারত তবে হয়তো পরিস্থিতিটা অন্যরূপ নিত। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার যেন বাম জমানার সেই পাপের প্রায়শ্চিত্ত করতে নেমেছে। নদীয়ার হরিণঘাটা কলেজে অন্যায় দাপট দেখাতে চেয়েছিলেন শাসক দলের সেখানকার দু-একজন কেষ্টবিষ্টু। ওই কলেজের সাহসী অধ্যক্ষ তা বোবা কালা মেরুদণ্ডহীনের মতো মেনে নেননি। তিনি বিষয়টি নিয়ে সরাসরি অভিযোগ জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী ও শিক্ষামন্ত্রীর কাছে। সরকারও তাতে যথাযথ গুরুত্ব দিয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ করতে কুণ্ঠিত হয়নি—দ্রুত ওই কলেজ পরিচালন সমিতি ভেঙে দিয়ে সেখানে সরকারি প্রশাসক বসিয়ে দেওয়া হয়েছে। যে-কোনও কলেজ কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে ছাত্র, অভিভাবক, অধ্যাপক, অশিক্ষক কর্মী কিংবা জনপ্রতিনিধিদের হাজার অভিযোগ থাকতে পারে। সেসব অভিযোগের আইনসংগত নিষ্পত্তিই কাম্য। কিন্তু, অভিযোগ নিষ্পত্তির দাবিতে কিংবা কোনওভাবে প্রতিবাদ জানানোর নামে কলেজের শিক্ষার পরিবেশ বানচাল করে দেওয়ার রীতিটি অবাঞ্ছিত। প্রতিবাদ, দাবি আদায় সবই করা উচিত কলেজ বা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মূল উদ্দেশ্য যে শিক্ষা, তার সুষ্ঠু পরিবেশটি অক্ষুণ্ণ রেখে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার সেই লক্ষ্যেই হস্তক্ষেপ করার যে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে তা সত্যিই প্রশংসনীয়। আশা করা যায়, এরপর রাজ্যের বাকি কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় এবং অন্যসকল উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠান, গবেষণা কেন্দ্র প্রভৃতি এর থেকে যথার্থ বার্তাটিই পাবে। বাংলা ফিরে পাবে অবাঞ্ছিত রাজনীতিমুক্ত শিক্ষার পরিবেশটি। সেটি ধীরে ধীরে হলেও নিঃসন্দেহে হবে এক বিরাট পাওনা।
03rd  August, 2017
  শিক্ষকদেরও সংযম প্রার্থনীয়

 স্কুলে গিয়ে শিক্ষক শিক্ষিকার দু-চার ঘা বেতের বাড়ি আর কানমলা খায়নি এমন ছাত্রছাত্রী দু-এক দশক আগে অবধিও বিরলপ্রায় ছিল। কানধরে ওঠবস করা কিংবা একপায়ে দাঁড়ানোর অভিজ্ঞতাও হয়েছে অনেকের। পড়া না-করা, মুখস্থ বলতে না-পারা, ক্লাসে অমনোযোগী হয়ে পড়া, ক্লাসে মাত্রারিক্ত দুষ্টুমি করা, সহপাঠীদের সঙ্গে মারামারি করা প্রভৃতি নানাবিধ কারণেই এসব শাস্তি জুটত।
বিশদ

অসাধু প্রোমোটারদের শাস্তিদানের উদ্যোগ স্বাগত

সাধারণ মানুষের স্বপ্ন ছোট একটুকু বাসা। সেই স্বপ্নকে বাস্তব করে তুলতে মানুষ সারাজীবন পরিশ্রম করে। আগেরকার দিনে মানুষ সারাজীবন তিল তিল করে সঞ্চয় করে জীবনের শেষে বাড়ি তৈরি করত। এখন সেই ধারণা পাল্টেছে। এখন ব্যাংক গৃহঋণের জন্য অনেকটাই উদারহস্ত।
বিশদ

15th  August, 2017
  কার বাসযোগ্য এ পৃথিবী?

 উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ এখন নিজেকে প্রশ্ন করতেই পারেন, তিনি কোনও জায়গা পরিদর্শন করে গেলেই কেন তা খবরের শিরোনামে চলে আসে! এর আগেও তো শহিদ পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে যাওয়ার পর রীতিমতো বিতর্ক হয়েছিল।
বিশদ

14th  August, 2017
পাশ-ফেল ফেরানোর উদ্যোগ

পশ্চিমবঙ্গে শিক্ষাক্ষেত্রে বামফ্রন্ট সরকারের কয়েকটি ‘মহান’ কীর্তির অন্যতম ছিল প্রাথমিক স্তর থেকে ইংরেজি এবং পাশ-ফেল প্রথা তুলে দেওয়া। ভারতের মতো একটি বহু ভাষাভাষীর দেশে সংযোগকারী ভাষা হিসেবে এখনও ইংরেজি বিকল্পহীন। উচ্চতর শিক্ষার ক্ষেত্রেও তাই। এই সত্যটি বাম শিক্ষাবিদদের অজানা ছিল বলে মনে হয় না। তবু, মূলত তাঁদের সুপারিশেই সরকার অমন মহান কর্মটি করেছিল।
বিশদ

13th  August, 2017
বিজেপি নেতার ছেলের কাণ্ড!

 নেতার ছেলে বলেই সাত খুন মাফ। আইন তার সামনে অসহায়। তার উপর সেই ছেলে যদি শাসক দলের কোনও প্রভাবশালী নেতা কিংবা কেষ্টবিষ্টুর ছেলে হয় তাহলে তো কথাই নেই। পুলিশ-প্রশাসন তাকে এতটাই সমীহ করে যে অন্যায় করেও সে পার পেয়ে যায় অনায়াসে।
বিশদ

12th  August, 2017
  রাজনীতি নয়, গড়ে উঠুক জাতীয়তাবোধ

 দিন কয়েক পরেই স্বাধীনতা দিবস। কত জাঁকজমকের সঙ্গে পালিত হবে এই দিনটি। কত স্বপ্ন, কত ভাবনা। কিন্তু, সত্যিই যদি কোনও সাধারণ ভারতবাসীকে জাতি-ধর্ম-বর্ণ-দল নির্বিশেষে প্রশ্ন করা হয়, আপনি ভালো আছেন? তাহলে অনেকেই হয়তো বলবেন এদেশে আমরা ভালো নেই।
বিশদ

11th  August, 2017
অমৃতে অরুচি

 বোধহয় একেই বলে অমৃতে অরুচি। বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীন বেশিরভাগ বি এড কলেজ ছাত্র পাচ্ছে না! পূর্ব ও পশ্চিম বর্ধমান, হুগলি, বাঁকুড়া ও বীরভূম জেলায় এই বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে ১৩৭টি বি এড কলেজে প্রায় ১৪ হাজার জনকে ভরতি নেওয়ার সুযোগ রয়েছে।
বিশদ

10th  August, 2017
আত্মরক্ষার কৌশল

 আত্মবিশ্বাস, উপস্থিত বুদ্ধি ও সাহসিকতা পারে অনেক অসম্ভবকে সম্ভব করতে। এখন মেয়েদের মধ্যে এই তিনটি বিষয় থাকাটা অত্যন্ত জরুরি। মহিলারা এখন আর অন্তঃপুরচারিণী নন, তাঁদের ঘরে বাইরে সমানতালে কাজ করতে হয়। তাঁদের অবলা ভাবাটাও ভুল।
বিশদ

09th  August, 2017
রেশন নিয়ে ধীরে পা ফেলা দরকার

এই ব্যবস্থা গ্যাসে চালু হয়েছে আগেই। ভরতুকিযুক্ত গ্যাস কিনতে হলে গ্রাহককে শুরুতেই ভরতুকিহীন গ্যাসের দাম মেটাতে হয়। অর্থাৎ একটু বেশিই পয়সা পকেট থেকে খরচ করতে হয়। পরে সেই বাড়তি ভরতুকির টাকা চলে যায় তাঁর ব্যাংক অ্যাকাউন্টে। রেশনেও এই ব্যবস্থা চালু করার জন্য উঠেপড়ে লেগেছিল কেন্দ্রীয় সরকার।
বিশদ

08th  August, 2017
দূরপাল্লার সমীকরণ

ভারতের নতুন উপরাষ্ট্রপতি পদে অভিষিক্ত হয়েছেন বেঙ্কাইয়া নাইডু। বর্ষীয়ান বিজেপি নেতা, সংঘ পরিবারের ভিত, বছরের পর বছর রাজ্যসভার সদস্য। কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন ১৮ দলের বিরোধী জোট যখন রামনাথ কোবিন্দের রাষ্ট্রপতি নির্বাচন থেকে শিক্ষা নিয়ে তড়িঘড়ি গোপালকৃষ্ণ গান্ধীর নাম উপরাষ্ট্রপতি পদের জন্য ঘোষণা করে দিল, তখনও বিচলিত হননি নরেন্দ্র মোদি। এবং, অবশ্যই অমিত শাহ।
বিশদ

07th  August, 2017
নারীর সুরক্ষায় শুভ উদ্যোগ

 বিজ্ঞান, প্রযুক্তি প্রভৃতি বিষয়ে দেশ দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলেছে। সাক্ষরতা থেকে সামরিক শক্তি, মানবসম্পদ উন্নয়ন থেকে মহাকাশ গবেষণা—প্রায় প্রতিটি ক্ষেত্রেই বিশ্বের দরবারে গত কয়েক দশক ধরেই ভারতের স্থানটি যথেষ্ট উজ্জ্বল। কিন্তু এরই পাশাপাশি বেশ কয়েকটি বিষয়ে দেশের চিত্রটি রীতিমতো লজ্জাজনক। বিশদ

06th  August, 2017
  আবু দুজানা ও তার পাকিস্তান যোগ

 বুরহান ওয়ানির পর আবু দুজানা। দু’জনেই তরতাজা ঝকঝকে যুবক। বয়স ২৩ থেকে ২৬-২৭-এর মধ্যে। আরও হাজারটা যুবকের মতো এই দু’জনকেও মগজধোলাই করে ভারতের মাটিতে রক্তগঙ্গা বইয়ে দেওয়ার নোংরা চক্রান্ত করেছিল পাকিস্তান। সেইমতো ওরা কাজও করছিল।
বিশদ

05th  August, 2017
  মমতার ‘স্বাস্থ্যসাথি’ বিপদ ডেকে আনবে বিরোধীদের

 একটার পর একটা জনকল্যাণকর প্রকল্প ঘোষণা করে রাজ্যের মানুষের মনে ‘মমতাময়ী’ জননেত্রী হিসাবে ইতিমধ্যেই স্থান করে নিয়েছেন আমাদের মুখ্যমন্ত্রী। গ্রামবাংলার গরিব মানুষের মুখে তাঁর একের পর এক জনমুখী নীতির কারণে হাসি ফুটে উঠেছে।
বিশদ

04th  August, 2017



একনজরে
 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: গত পাঁচ বছরে বিদ্যুতের দাম ইউনিট প্রতি ৮৫ পয়সা বেড়েছে বলে বিধানসভায় বিবৃতি দিলেন বিদ্যুৎমন্ত্রী শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়। বুধবার বিধানসভায় প্রথমে বিদ্যুতের দাম ...

সংবাদদাতা, আলিপুরদুয়ার: অতিবর্ষণের জেরে আলিপুরদুয়ারের চারটি ব্লকের বিস্তীর্ণ এলাকার আমন ও সবজি খেত জলের তলায় চলে যাওয়ায় কমপক্ষে ৪০ হাজার চাষি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। মঙ্গলবার পর্যন্ত কৃষি দপ্তর ক্ষয়ক্ষতির যে হিসাব নবান্নে পাঠিয়েছে তাতে জেলার ছ’টি ব্লকের মধ্যে ফালাকাটা ও আলিপুরদুয়ার-১ ...

 বেঙ্গালুরু, ১৬ আগস্ট (পিটিআই): তামিলনাড়ুতে ‘আম্মা ক্যান্টিন’ ব্যাপক জনপ্রিয় পাওয়ার পরে এবার কর্ণাটক সরকার চালু করল ‘ইন্দিরা ক্যান্টিন’। বুধবার বেঙ্গালুরুতে কংগ্রেসের সহ-সভাপতি রাহুল গান্ধী এই ...

 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: সম্প্রতি দুর্গাপুর পুরসভা নির্বাচনে নিরাপত্তার প্রশাসনিক আশ্বাস সত্ত্বেও ব্যাপক হাঙ্গামা হয়েছে। ভোট লুট হয়েছে। পুলিশ মার খেয়েছে। নির্বাচন কমিশন ভোট চলাকালীন অভিযোগ জানানোর রাস্তা বন্ধ রেখেছিল। ...


আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

সঠিক বন্ধু নির্বাচন আবশ্যক। কর্মরতদের ক্ষেত্রে শুভ। বদলির কোনও সম্ভাবনা এই মুহূর্তে নেই। শেয়ার বা ... বিশদ



ইতিহাসে আজকের দিন

১৯৩২: ব্রিটিশ সাহিত্যিক ভি এস নাইপলের জন্ম
১৯৮৮: দুর্ঘটনায় মৃত পাক প্রেসিডেন্ট মহম্মদ জিয়া-উল-হক
২০০৮: ওলিম্পিকসে আটটি সোনা জিতে রেকর্ড মার্কিন সাঁতারু মাইকেল ফেল্পসের


ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৩.৪৫ টাকা ৬৫.১৩ টাকা
পাউন্ড ৮১.৩৭ টাকা ৮৪.১৮ টাকা
ইউরো ৭৪.০৮ টাকা ৭৬.৬৯ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ২৯,১৭০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ২৭,৬৭৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ২৮,০৯০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৩৮,৫০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৩৮,৬০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৩২ শ্রাবণ, ১৭ আগস্ট, বৃহস্পতিবার, দশমী দিবা ১২/৪৩, মৃগশিরানক্ষত্র রাত্রি ১০/৫৯, সূ উ ৫/১৭/৫১, অ ৬/৩/৩৯, অমৃতযোগ রাত্রি ১২/৪৮-৩/৩, বারবেলা ২/৫২-অস্তাবধি, কালরাত্রি ১১/৪১-১/৫।
 ৩১ শ্রাবণ, ১৭ আগস্ট, বৃহস্পতিবার, দশমী ১০/৫৫/৫২, মৃগশিরানক্ষত্র রাত্রি ১০/২৩/৫৭, সূ উ ৫/১৫/৩৩, অ ৬/৫/২৫, অমৃতযোগ রাত্রি ১২/৪৭/৩০-৩/১/৩১, বারবেলা ৪/২৯/১১-৬/৫/২৫, কালবেলা ২/৫২/৫৭-৪/২৯/১১, কালরাত্রি ১১/৪০/২৯-১/৪/১৫।
২৪ জেল্কদ

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
  খানাকুলে বৃষ্টির জমা জল নামতেই উদ্ধার কঙ্কাল, চাঞ্চল্য
আরামবাগের খানাকুলের সবলসিংহপুর এলাকায় বৃষ্টির জমা জল নামতেই এক অপরিচিত মহিলার কঙ্কাল উদ্ধার হয়েছে। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে।

05:44:00 PM

এবার চড়াম চড়াম করে জয়ঢাক বাজবে পঞ্চায়েতেও: অনুব্রত

 আজ নলহাটিতে ১নং ওয়ার্ড ও ৮ নং ওয়ার্ডে তৃণমূলের পরাজয়ের পর, হারের কারণ অনুসন্ধান করতে এসে অনুব্রত মন্ডল মৎসমন্ত্রী চন্দ্রনাথ সিনহা ও পরিকল্পনা তদারকি ও পরিসংখ্যান দপ্তরের মন্ত্রী আশিষ বন্দ্যোপাধ্যায়সহ আরও দুই তৃণমূল নেতার দায়িত্ব পালনে অসন্তোষ প্রকাশ করেন। তিনি জানান, ওঁদের উপর পুরো দায়িত্ব ছেড়ে দেওয়াটা ভুল হয়েছলি, ওঁদের এতটা বিশ্বাস করাটাও ভুল হয়েছিল। এবার থেকে সব বিষয়টা তিনি নি঩জেই দেখবেন বলেও জানান। পাশাপাশি এদিন সাংবাদিক বৈঠক করে পঞ্চায়েত দখলের ডাকও দেন অনুব্রতবাবু। তিনি বলেন, এবার পঞ্চায়েতও চড়াম চড়াম করে জয়ঢাক বাজবে।

05:20:10 PM

এই জয় মানুষের জয়: মুখ্যমন্ত্রীর

 মানুষের জয়, যারা তৃতীয় ও চতুর্থ হওয়ার জন্য লম্ফ-ঝম্ফ করেছিল, আমি দেখলাম তারা ০.১% ভোট পেয়েছে। মানুষকে কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি। আজ ৭ পুরসভা জয়ের পর এভাবেই নিজের প্রতিক্রিয়া জানালেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

05:13:08 PM

উত্তরবঙ্গে দুর্গতদের উদ্ধারে ন্যায্যমূল্যে বিমান সংখ্যা বাড়ানোর আর্জি কেন্দ্রকে

 যেহেতু উত্তরবঙ্গের সঙ্গে দক্ষিণবঙ্গের সড়ক ও রেল যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে, সেই সুযোগে বেশিরভাগ বিমান সংস্থা তাদের ভাড়া বাড়িয়ে দিয়েছে। সরকারের পক্ষ থেকে রাজ্যের মুখ্যসচিব কেন্দ্রকে এই দুর্যোগের সময় দুর্গতদের উদ্ধারে ন্যায্য মূল্যে বিমানের সংখ্যা বাড়াতে অনুরোধ জানিয়েছে।

05:06:00 PM

মদন তামাং হত্যা মামালা: গুরুংকে অব্যহতি

 মদন তামাং হত্যা মামলায় বিমল গুরুংয়ের বিরুদ্ধে কোনও তথ্য প্রমানাদি না মেলায় তাঁকে এই মামলা থেকে অব্যহতি দিল বিশেষ আদালত

05:02:00 PM

 দুর্গাপুরে পুরভোটে তৃণমূল ৭৬.২৬%, বামফ্রন্ট ১২.৩%, বিজেপি ৭.৮৯%, কংগ্রেস ২.৫৩% এবং নির্দল ০.৯% ভোট পেয়েছে

04:39:00 PM