মাটির থানেই পুজো শুরু, কলার থোড় দিয়ে চাকা বানিয়ে রথ গড়ায় মাটিগাড়ায়
পবিত্র বর্মন, শিলিগুড়ি

 

শুরুটা হয়েছিল কলাগাছের থোড়ের চাকা বানিয়ে রথ টানা। এলাকার বাসিন্দারা সেই রথেই জগন্নাথ, বলরাম ও সুভদ্রাকে মাসির বাড়ি পাঠিয়েছিলেন। সে তিন দশক আগের কথা। এখন রীতিমতো লোহার চাকা লাগানো রঙিন কাঠের রথে মাসি গুন্ডিচার বাড়ি যান তাঁরা। রথের উচ্চতা প্রায় ১৫ ফুট। মাটিগাড়া ভাঙাপুলের রথযাত্রা এবার বত্রিশ বছরে পড়ল। এবারও স্থানীয়রা জগন্নাথদেবের পুজোর শামিল হয়েছেন। পুলিস প্রশাসন থেকে দমকল সবার অনুমতি নিয়ে পুজো করে আয়োজক কমিটি। 
সালটা ১৯৯২। মাটিগাড়া ভাঙাপুলে জনবসতি তখন ফাঁকা ছিল। মাটিগাড়া রেল স্টেশনের পাশে এলাকার মানুষ জগন্নাথ, বলরাম, সুভদ্রাকে নিজেদের মতো করে পুজো করা শুরু করেন মাটির থান বানিয়ে। তখনও মন্দির হয়নি। টিনের চালা বানিয়ে মাটির তিনটি থানে নিয়মিত পুজো হতো জগন্নাথদেবের। এখন অবশ্য কাঠের সুন্দর তিনটি মূর্তি রয়েছে। মন্দিরে প্রতিদিন পুজোর্চনা করে সত্যেন বর্মনের পরিবার। এলাকার অন্যরাও পুজো দেন। মন্দিরের উল্টোদিকে বাড়ি রথযাত্রা আয়োজক কমিটির সম্পাদক সত্যেনের। জানালেন, গ্রামের সবাই মিলে হঠাৎ রথযাত্রা শুরু করেন তাঁরা। প্রথমে কলার থোড় কেটে চাকা বানিয়ে রথ তৈরি করা হয়েছিল। ধীরে ধীরে কাঠের রথ বানানো হয়। মন্দির তৈরি হয়। কাঠের সুন্দর মূর্তিও বসানো হয়েছে। 
এখন রথযাত্রার দিন এবং উল্টোরথে মেলা বসে ভাঙাপুলে। প্রচুর ভক্তবৃন্দ আসেন রথের দিন। রথের দিন মন্দিরে পুজো দিয়ে জগন্নাথ, বলরাম ও সুভদ্রাকে একটি রথে তোলা হয়। কীর্তন সহযোগে রথযাত্রা শুরু হয় মন্দির থেকে। আসে মাটিগাড়া মোড় পর্যন্ত। রথের রশি টানতে ভিড় জমান পুণ্যার্থীরা। 
আয়োজক কমিটির সদস্য অতুল দাস, খোকন সাহা, জিতেন সরকার, দীনেশ দাস, রতন বর্মনের বক্তব্য, আড়ম্বর করে হয়তো পুজো হয় না। তবে জগন্নাথদেবের পুজোয় কোনও খামতি থাকে না তাঁদের। জগন্নাথদেবকে আপন করে নিয়েছেন তাঁরা। স্থানীয়রা বলছেন, জগন্নাথকে প্রথম দিকে মাটির থানে পুজো করা হতো। অনেকটা লৌকিক দেবতার মতো। পুজো কমিটির সম্পাদক সত্যেন বলছেন, ঠাকুর তো আমাদের মতোই। আমরা নিজেদের মতো করে জগন্নাথদেবের পুজো করি। 
তবে আয়োজনে কোনও খামতি রাখেনি আয়োজক কমিটি। রথযাত্রার মেলা বসছে। নাগরদোলা থেকে জিনিসপত্রের নানা স্টল বসেছে মেলায়। রথযাত্রায় আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি থেকে প্রশাসনের কর্তাদের। তাঁদের হাত ধরে রথের উদ্বোধন হবে। 
14d ago
কলকাতা
রাজ্য
দেশ
বিদেশ
খেলা
বিনোদন
ব্ল্যাকবোর্ড
শরীর ও স্বাস্থ্য
বিশেষ নিবন্ধ
সিনেমা
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
আজকের দিনে
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
mesh

গুরুজনের থেকে অর্থকড়ি লাভ হতে পারে। স্বার্থান্বেষী আত্মীয়-স্বজনের সঙ্গে দূরত্ব রেখে চলুন। মনে চাঞ্চল্য।...

বিশদ...

এখনকার দর
ক্রয়মূল্যবিক্রয়মূল্য
ডলার৮৩.২৩ টাকা৮৪.৩২ টাকা
পাউন্ড১০৬.৮৮ টাকা১০৯.৫৬ টাকা
ইউরো৯০.০২ টাকা৯২.৪৯ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
*১০ লক্ষ টাকা কম লেনদেনের ক্ষেত্রে
দিন পঞ্জিকা