মানবাজারের পাথরমহড়ার রাজবাড়ির রথযাত্রা ২০০ বছরেরও বেশি পুরনো
বাপ্পা রায়, মানবাজার

মানবাজারের পাথরমহড়ার রাজবাড়ির রথযাত্রাকে কেন্দ্র করে উন্মাদনা তুঙ্গে। সাধারণ মানুষও তাকিয়ে আছেন রথযাত্রার দিকে। এই রথ ২০০ বছরের বেশি পুরনো বলে জানা গিয়েছে। প্রতি বছর সেখানকার মন্দির থেকে ধুমধাম করে রথ বের হয়। মানবাজার হাটতলার মাসির বাড়ি পর্যন্ত যায় রথ। রথে চেপে জগন্নাথ দেব, বলরাম, সুভদ্রা হাটতলার মাসি বাড়ি যান। রথ দেখার জন্য পাথরমহড়া থেকে হাটতলা পর্যন্ত লাইন দিয়ে মানুষ দাঁড়িয়ে থাকেন। রথের দড়ি ধরে টান দিতে ভক্তদের মধ্যে উৎসাহ লক্ষ্য করা যায়।
রাজ বাড়ির এই রথ প্রসঙ্গে জানা গিয়েছে, রাজবাড়ির সদস্যরা ইংরেজ আমলে রাজস্থানের মোহব্বা থেকে পুরুলিয়ার পুঞ্চা থানার বুধপুর গ্রামে প্রথম এসেছিলেন। তারপর সেখান থেকে মানবাজারে হাটতলায় এসে আশ্রয় নেন। ইংরেজ বাহিনী কামানের সাহায্যে হাটতলার রাজপ্রাসাদ উড়িয়ে দেয়। পরে রাজ পরিবার আশ্রয় নেয় মানবাজারের পাথরমহড়া গ্রামে। সেখানেই তৈরি হয় তখনকার দিনে মন্দির ও বিগ্রহ মূর্তি। তখন থেকেই মানবাজারের হাটতলায় পুরাতন রাজবাড়ির মাসির বাড়িতে আনা হয় জগন্নাথ, বলরাম ও সুভদ্রাকে।
জানা গিয়েছে, রথের দিন সকাল থেকেই মন্দির চত্বরে উন্মাদনা চোখে পড়ে রাজবাড়ির সদস্য থেকে স্থানীয় মানুষদের। সকাল থেকেই মন্দির চত্বরে হরিনাম সংকীর্তন হয়। রথের দিন সকালে প্রভু জগন্নাথ দেবকে কাঁঠাল সহ বিভিন্ন ফলমূল দিয়ে বাল্য ভোগ দেওয়া হয়। দুপুর ১২ টার সময় দেওয়া হয় মহাপ্রসাদ। সেখানে সমাগম ভক্তদের খিচুড়ি প্রসাদ খাওয়ানো হয়। এদিন প্রায় পাঁচ হাজারের বেশি ভক্তকে খিচুড়ি প্রসাদ বিলি করা হয়। সমস্ত ক্রিয়া-কলাপ হয়ে যাওয়ার পর বিকেলে মাসির বাড়ির উদ্দেশে জগন্নাথদেব রথে রওনা দেন। স্থানীয় লোকজন ছাড়াও আশেপাশের বিভিন্ন গ্রামের মানুষ রথ দেখার জন্য ভিড় করেন। এদিন রথযাত্রাকে কেন্দ্র করে পুলিসের নজরদারিও থাকে। মানবাজারের হাটতলা মাসির বাড়ি রথ পৌঁছনোর পর সেখানে জগন্নাথ, বলরাম, সুভদ্রা ন’দিন মাসির বাড়িতে থাকেন। তারপর আবার পাথমহড়া মন্দিরে ফিরে আসেন।
পাথরমহড়ার রাজবাড়ির সদস্য পুরুষোত্তম নারায়ণ দেব বলেন, ২০০ বছরের বেশি সময় থেকে রথযাত্রা হয়ে আসছে। রথযাত্রাকে কেন্দ্র করে মানুষের উন্মাদনা চোখে পড়ার মতো থাকে। রথে পুরোহিতের কোলে চেপে জগন্নাথ, বলরাম, সুভদ্রা হাটতলায় মাসির বাড়ি যান। ন’দিন পর আবার ফিরে আসেন। এদিন প্রশাসনের নজরদারিও থাকে। 
কাজল নারায়ণ দেব জানান, প্রতিবছরেই রথযাত্রাকে কেন্দ্র করে প্রচুর মানুষের সমাগম হয়। স্থানীয় মানুষজন ছাড়াও আশেপাশের গ্রামগুলি থেকে ভক্তরা রথ দেখার জন্য আসেন। 
পাথরমহড়া গ্রামের রাধু বাগদি বলেন, এদিন সকাল থেকে মানুষের ভিড় হয়। আমরা সকাল থেকেই রথযাত্রা উপলক্ষ্যে বিভিন্ন আয়োজনের কাজে হাত মেলায়।
14d ago
কলকাতা
রাজ্য
দেশ
বিদেশ
খেলা
বিনোদন
ব্ল্যাকবোর্ড
শরীর ও স্বাস্থ্য
বিশেষ নিবন্ধ
সিনেমা
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
আজকের দিনে
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
mesh

গুরুজনের থেকে অর্থকড়ি লাভ হতে পারে। স্বার্থান্বেষী আত্মীয়-স্বজনের সঙ্গে দূরত্ব রেখে চলুন। মনে চাঞ্চল্য।...

বিশদ...

এখনকার দর
ক্রয়মূল্যবিক্রয়মূল্য
ডলার৮৩.২৩ টাকা৮৪.৩২ টাকা
পাউন্ড১০৬.৮৮ টাকা১০৯.৫৬ টাকা
ইউরো৯০.০২ টাকা৯২.৪৯ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
*১০ লক্ষ টাকা কম লেনদেনের ক্ষেত্রে
দিন পঞ্জিকা