তেহট্টে দেড়শো বছরের প্রাচীন রথযাত্রায় সম্প্রীতির মেলবন্ধন
সৌরভ ভট্টাচার্য, তেহট্ট

তেহট্টের কৃষ্ণরায়ের রথের সঙ্গে এলাকার মানুষের আবেগ জড়িয়ে রয়েছে। প্রায় দেড়শো বছরের প্রাচীন এই রথ ঘিরে সম্প্রীতি লক্ষ্য করা যায়। এই রথ সারা তেহট্ট পরক্রমা করে। সেইসঙ্গে রথযাত্রা ঘিরে মন্দির চত্বরে মেলা বসে। মেলায় বিভিন্ন গ্রামের মানুষ তাঁদের পসরা সাজিয়ে বসেন। মেলায় কয়েক হাজার মানুষের সমাগম হয়। 
স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, কৃষ্ণরায়ের মন্দির তিনশো বছরের বেশি পুরনো। সেই মন্দির দোচালা। এই মন্দিরে অধিষ্ঠান করেন এক মাত্র কৃষ্ণ। রাই না থাকলেও এলাকার বাসিন্দারা তাঁকে কৃষ্ণরায় বলে থাকেন। সেই কৃষ্ণরায়ের রথযাত্রা শুরু হয়েছিল দেড়শো বছর আগে। এলাকার বাসিন্দাদের দাবি, তেহট্ট মহকুমায় সবচেয়ে পুরানো রথযাত্রা এই কৃষ্ণরায়ের। আগের রথ নষ্ট হয়ে যাওয়ায় এখন নতুন রথ তৈরি হয়েছে। সেই রথ নিম, শাল সেগুন কাঠ দিয়ে তৈরি। এই রথের রশি টানার জন্য মানুষ অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করে থাকেন। রথযাত্রার দিন বিগ্রহ মন্দির থেকে বের করে রথের উপর বসানো হয়। তারপর সেই রথ মন্দির থেকে বেরিয়ে বাজার, হাউলিয়া পার্ক মোড়, পিডব্লুডি হয়ে আবার মন্দিরে আসে। তারপর সেখানে কিছুক্ষণ থাকার পর বিগ্রহ রথ থেকে নামিয়ে অভিষেক করে আবার মন্দিরে প্রতিষ্ঠা করা হয়। সারা রাস্তায় কাতারে কাতারে বহু মানুষ দাঁড়িয়ে থাকেন। শুধু হিন্দু নয়, রথের রশি ছোঁয়ার জন্য অন্য সম্প্রদায়ের মানুষজন দাঁড়িয়ে থাকেন। সব সম্প্রদায়ের মানুষ এই মন্দিরে ও রথের দিন পুজো দেন। এখানে মাসির বাড়ি না থাকায় মন্দিরেই রথ প্রবেশ করে। আবার উল্টোরথে মন্দির থেকে ঠাকুর বেরিয়ে পিডব্লুডি হাউলিয়া পার্ক মোড়, বাজার হয়ে মন্দিরে প্রবেশ করে। 
মন্দির কমিটির সম্পাদক ও প্রধান সেবাইত কাজলকুমার চট্টোপাধ্যায় বলেন, আমাদের এই রথ প্রায় দেড়শো বছর ধরে হয়ে আসছে। এই রথযাত্রা উৎসবে সকল ধর্মের মানুষ অংশগ্রহণ করেন। রথযাত্রা ঘিরে মেলা বসে। সেখানে সব ধরনের দোকান বসে। জিলিপি-পাঁপড় থেকে রকমারি সামগ্রীর দোকান বসে। মেলায় কয়েক হাজার মানুষ ভিড় করেন। মেলা ঘিরে বা রথযাত্রা ঘিরে বিশৃঙ্খলা এড়াতে প্রশাসনের সঙ্গে মন্দির কমিটি একযোগে কাজ করে। 
মন্দিরের পুরোহিত সৈকত ভট্টাচার্য বলেন, কৃষ্ণরায়কে এলাকার মানুষ জাগ্রত বলে বিশ্বাস করেন। তাই রথযাত্রায় খুব কাছ থেকে বিগ্রহ দেখার জন্য মানুষের উৎসাহ থাকে। স্নানযাত্রার পর বিগ্রহের অঙ্গরাগ হওয়ার জন্য বেশ কয়েকদিন মন্দিরে বিগ্রহ থাকে না। সেকারণে রথে ঠাকুর দেখার জন্য মানুষ উৎসুক হয়ে থাকে। 
14d ago
কলকাতা
রাজ্য
দেশ
বিদেশ
খেলা
বিনোদন
ব্ল্যাকবোর্ড
শরীর ও স্বাস্থ্য
বিশেষ নিবন্ধ
সিনেমা
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
আজকের দিনে
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
mesh

গুরুজনের থেকে অর্থকড়ি লাভ হতে পারে। স্বার্থান্বেষী আত্মীয়-স্বজনের সঙ্গে দূরত্ব রেখে চলুন। মনে চাঞ্চল্য।...

বিশদ...

এখনকার দর
ক্রয়মূল্যবিক্রয়মূল্য
ডলার৮৩.২৩ টাকা৮৪.৩২ টাকা
পাউন্ড১০৬.৮৮ টাকা১০৯.৫৬ টাকা
ইউরো৯০.০২ টাকা৯২.৪৯ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
*১০ লক্ষ টাকা কম লেনদেনের ক্ষেত্রে
দিন পঞ্জিকা