রাজ্য

মোদি সরকারের আইনের সুযোগেই বেড়েছে বিদ্যুৎ খরচ, তবু বাংলায় প্রতিবাদী বিজেপি!

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: গ্রাহকদের বিদ্যুতের খরচ বাড়িয়েছে সিইএসসি। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও এই ব্যাপারে প্রকাশ্যে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। এদিকে পরিস্থিতির সুযোগ নিয়ে ঘোলাজলে মাছ ধরতে নেমে পড়েছে বিজেপি। কেন দাম বাড়ানো হল, তা নিয়ে সরব হয়েছে বিরোধীরা। বিজেপির এই বিষয়ে প্রশ্ন তোলার নৈতিক অধিকার নিয়েই প্রশ্ন উঠছে। বিদ্যুৎ গ্রাহকদের সংগঠন অল বেঙ্গল ইলেকট্রিসিটি কনজিউমার্স অ্যাসোসিয়েশনের (অ্যাবেকা) বক্তব্য, যে আইনকে সামনে রেখে সিইএসসি খরচ বাড়িয়েছে, সেই আইন এনেছে কেন্দ্রের মোদি সরকার। এক্ষেত্রে রাজ্য বিজেপির প্রতিবাদের কোনও নৈতিকতাই নেই, দাবি তাদের।    
অ্যাবেকার সাধারণ সম্পাদক সুব্রত বিশ্বাস বলেন, ফুয়েল অ্যান্ড পাওয়ার পার্চেজ অ্যাডজাস্টমেন্ট সারচার্জ (এফপিপিএএস) শিরোনামে অতিরিক্ত টাকার বোঝা গ্রাহককে চাপাচ্ছে সিইএসসি। তাদের সেই সুযোগ করে দেওয়া হয় কেন্দ্রের ইলেকট্রিসিটি অ্যামেন্ডমেন্ট রুল ২০২২-কে সামনে রেখে। ৩০ জুনের নোটিসে সিইএসসি জানিয়েছে, বিলের উপর ৫.৭ শতাংশ হারে এই চার্জ ধার্য হবে। অথচ এখানে বিজেপি বলছে, দাম বাড়ানো চলবে না। 
সুব্রতবাবুর কথায়, গ্রাহকদের সঙ্কটের সুযোগ নিয়ে যে রাজনীতি করতে চাইছে বিজেপি, তার কোনও নৈতিক অধিকার তাদের নেই। পাশাপাশি তিনি বলেন, এই রুলে বলা আছে, কেন্দ্রীয় আইন কার্যকর করা হলেও এক্ষেত্রে রাজ্য বিদ্যুৎ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের অনুমোদন নিতে হবে। তা যদি না নেওয়া হয়, তাহলে আইনি বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন ওঠা উচিত। 
এদিকে কলকাতা পুরসভার কাউন্সিলার সজল ঘোষের নেতৃত্বে সিইএসসির খরচ বৃদ্ধির বিরুদ্ধে সরব হয় বিজেপি। তাদের বিরুদ্ধে তোলা অভিযোগ নিয়ে সজলবাবুর জবাব, বেশিরভাগ ক্ষেত্রে কেন্দ্রীয় আইনই সর্বত্র কার্যকর হয়। আমাদের প্রশ্ন, সিএএসসি কেন ২০২২ সালের আইন ২০২৪ সালে কাজে লাগাল? লোকসভার ভোট মিটতেই কেন গ্রাহকের উপর কোপ পড়ল? গ্রাহকদের কেন বিষয়টি যথাযথভাবে জানানো হল না, প্রশ্ন তুলেছেন সজলবাবু। পাশাপাশি তাঁর অভিযোগ, রাজ্য সরকার কেবলমাত্র একটি সংস্থাকেই বিদ্যুৎ সরবরাহের সুযোগ করে দিয়েছে। কেন একাধিক সংস্থাকে সেই সুযোগ দিয়ে প্রতিযোগিতার বাজার তৈরি হবে না, প্রশ্ন তুলেছেন তিনি। সজলের যুক্তি, এতে গ্রাহক আর্থিক সুবিধা পাবেন। তিনি পছন্দসই সংস্থা বেছে নিতে পারবেন। এই বিষয়ে সিইএসসি’র এগজিকিউটিভ ডিরেক্টর অভিজিৎ ঘোষ বলেন, কেন্দ্র যে বিধি এনেছে, তাকে ইতিমধ্যেই দেশের ৩৬টি বিদ্যুৎ বণ্টন সংস্থা মান্যতা দিয়েছে। আমরাও তাকে মান্যতা দিতে বাধ্য। এটি গ্রাহকের উপর মাশুল চাপিয়ে দেওয়া নয়। আমরা গত সাতবছর মাশুল বাড়াইনি। এটি ফুয়েল ও পাওয়ার কেনার খরচ ‘অ্যাডজাস্টমেন্ট’, যা প্রতিমাসে পরিবর্তিত হয়। আমরা এটি চালুর আগে বিধি খুঁটিয়ে দেখেছি। এটি চালু হওয়ার পরও দেশের অন্যান্য বড় শহরের তুলনায় এখানে ইউনিট প্রতি বিদ্যুৎ খরচ কম।
10d ago
কলকাতা
দেশ
বিদেশ
খেলা
বিনোদন
ব্ল্যাকবোর্ড
শরীর ও স্বাস্থ্য
বিশেষ নিবন্ধ
সিনেমা
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
আজকের দিনে
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
mesh

বিকল্প উপার্জনের নতুন পথের সন্ধান লাভ। কর্মে উন্নতি ও আয় বৃদ্ধি। মনে অস্থিরতা।...

বিশদ...

এখনকার দর
ক্রয়মূল্যবিক্রয়মূল্য
ডলার৮৩.২৩ টাকা৮৪.৩২ টাকা
পাউন্ড১০৬.৮৮ টাকা১০৯.৫৬ টাকা
ইউরো৯০.০২ টাকা৯২.৪৯ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
*১০ লক্ষ টাকা কম লেনদেনের ক্ষেত্রে
দিন পঞ্জিকা