কলকাতা

বিপজ্জনক বাড়ি ভাঙার পুর-নোটিস, কাজে বাধার অভিযোগ বরো চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা : বিপজ্জনক বাড়ি চিহ্নিত করে তা ভাঙার নোটিস জারি করেছিল কলকাতা পুরসভা। সেই কাজে বাধা দিচ্ছেন খোদ বরো চেয়ারম্যান। দলবল নিয়ে চড়াও হয়ে তিনি বিপজ্জনক বাড়ি ভাঙার কাজ আটকে দিয়েছেন বলে অভিযোগ। পুলিস গেলেও ধমকে-চমকে ভাগিয়ে দিয়েছেন। এমনই অভিযোগে হাইকোর্টের দ্বারস্থ হন বাড়ি মালিক। 
কলকাতা পুরসভার ১৩৩ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলার তথা ১৫ নম্বর বরো চেয়ারম্যান রঞ্জিত শীলের বিরুদ্ধেই যাবতীয় অভিযোগ বাড়ি মালিক মনোজ তেওয়ারির। তিনি দাবি করেন, ২৯ এপ্রিল মেটিয়াবুরুজ থানা এলাকার পাহাপুর রোডে অবস্থিত তাঁর মালিকানাধীন বাড়িটি বিপজ্জনক হিসাবে চিহ্নিত করে ভাঙার নোটিস জারি করে কলকাতা পুরসভা। বুধবার বিচারপতি অমৃতা সিনহার এজলাসে মামলার শুনানিতে মামলাকারীর আইনজীবী কৌস্তভ বাগচী দাবি করেন, পুরসভার নোটিস অনুযায়ী তিনি বাড়ি ভাঙার কাজ শুরু করলে সেখানে দলবল নিয়ে হাজির হন বরো চেয়ারম্যান। বাড়ি ভাঙার কাজ আটকে দেন। কৌস্তভের আরও অভিযোগ, সেখানে পুলিস উপস্থিত হলেও কিছু করতে পারেনি। চেয়ারম্যানের দল তাদের সেখান থেকে ভাগিয়ে দেয়। এই বক্তব্যের প্রেক্ষিতে রাজ্যের তরফে পাল্টা দাবি করা হয়, ওই সম্পত্তি নিয়ে একটি দেওয়ানি বিবাদ রয়েছে। তাছাড়া ওই বাড়িতে একটি স্কুলও চলছে। বিষয়টি নিয়ে থানায় একাধিক অভিযোগও জমা পড়েছে। 
ওই বিপজ্জনক বাড়ি লাগোয়া আরেকটি বাড়ি রয়েছে। শুনানিতে তাদের তরফে দাবি করা হয়, ওই বিপজ্জনক বাড়ি লাগোয়া একটি যৌথ দেওয়াল রয়েছে। মামলাকারী ওই দেওয়ালটিও ভেঙে দিতে চাইছে। সবপক্ষের বক্তব্য শোনার পর বিচারপতি সিনহা জানান, পুলিসি রিপোর্টে স্পষ্ট যে ওই বিপজ্জনক বাড়িতে যে স্কুলটি চলছিল তা স্থানান্তর করা হয়েছে। ফলে সুরক্ষার তাগিদেই বাড়িটি ভেঙে ফেলতে হবে। যদি যৌথ দেওলের কোনও ক্ষতি হয় তার দায়িত্ব নিতে হবে মামলাকারীকেই। এরপরই বিচারপতি সিনহা নির্দেশে জানিয়ে দেন, বিপজ্জনক বাড়িটি ভেঙে ফেলতে হবে। এই কাজে যাতে এলাকায় যাতে কোনও শান্তি বিঘ্নিত না হয় তা নিশ্চিত করতে হবে মেটিয়াবুরুজ থানাকে। 
হাইকোর্টেক এই নির্দেশের প্রেক্ষিতে ১৩৩ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলার তথা ১৫ নম্বর বরো চেয়ারম্যান রঞ্জিত শীল জানিয়েছেন, পুরসভার তরফে এমন কোনও নোটিস জারি করা হয়েছে তা তাঁর জানা নেই। তিনি আরও বলেন, ‘ওই বাড়িতে যে স্কুল চলছিল, সেই স্কুল কর্তৃপক্ষ আমার কাছে এসেছিলেন। আমি তাঁদের থানার যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছি। আমি এমন কোনও বাধা দিইনি। আদালত নির্দেশ দিলে সেই মতো কাজ হবে।’ 
অন্যদিকে, অবৈধ বলে কলকাতা পুরসভা যে নির্মাণ ভেঙে দিয়েছিল, তা আবার নতুন করে গড়ে তোলা হচ্ছে বলে অভিযোগ ওঠেছে। ১০৫/৩সি কড়েয়া রোডে ওই অবৈধ নির্মাণ হচ্ছে। পুরসভা প্রথমে অভিযোগ পেয়ে ওই বেআইনি নির্মাণ ভেঙেছিল। কিন্তু, হাইকোর্ট ভাঙার উপর স্থগিতাদেশ দেয়। এরপর অভিযুক্ত নির্মাণকারী আইনের ফাঁক গলে ফের নির্মাণ করছিল। পুরসভার বিল্ডিং বিভাগের এক কর্তা বলেন, আদালত গত ৮ জুলাই পর্যন্ত বাড়ি ভাঙায় স্থগিতাদেশ দিয়েছিল। তারপর শুনানিতে নতুন করে কোনও স্থগিতাদেশ দেয়নি। স্থগিতাদেশ উঠে যাওয়ার পর এদিন ওই নির্মাণ পুরোপুরি ভাঙা হয়েছে। অন্য একটি ঘটনায় এদিন ৮৯ নম্বর ওয়ার্ডের ৭৫ নং প্রিন্স রাহিমুদ্দিন লেনের ঠিকানায় একটি বেআইনি নির্মাণ ভাঙতে গিয়ে মহিলা ইঞ্জিনিয়ার সহ তিন জন ইঞ্জিনিয়ার বাধার সম্মুখীন হন বলে অভিযোগ।
10d ago
রাজ্য
দেশ
বিদেশ
খেলা
বিনোদন
ব্ল্যাকবোর্ড
শরীর ও স্বাস্থ্য
বিশেষ নিবন্ধ
সিনেমা
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
আজকের দিনে
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
mesh

বিকল্প উপার্জনের নতুন পথের সন্ধান লাভ। কর্মে উন্নতি ও আয় বৃদ্ধি। মনে অস্থিরতা।...

বিশদ...

এখনকার দর
ক্রয়মূল্যবিক্রয়মূল্য
ডলার৮৩.২৩ টাকা৮৪.৩২ টাকা
পাউন্ড১০৬.৮৮ টাকা১০৯.৫৬ টাকা
ইউরো৯০.০২ টাকা৯২.৪৯ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
*১০ লক্ষ টাকা কম লেনদেনের ক্ষেত্রে
দিন পঞ্জিকা