কলকাতা

‘দাদার বাড়িটা কোনদিকে?’ চরকিপাক অদ্রীশের

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা ও সংবাদদাতা, বিষ্ণুপুর: আট বছরের কাঞ্চন বাড়ি থেকে পালিয়েছিল ১৯২৯ সালে। ২০২৪ সালে পালাল অদ্রীশ হালদার। ছোটবেলার রোমান্টিক মন বাংলার এই ধারাবাহিকতা বয়েই চলেছে। ফলে বাংলায় বাড়ি থেকে পালিয়ে নিয়ে গল্প লেখা হয়। সিনেমা হয়। কাঞ্চন পালিয়ে পৌঁছেছিল তার এল ডোরাডো দেশ, কলকাতায়। অদ্রীশও এল কলকাতায়, তার স্বপ্নের নায়ককে একবার চোখের দেখা দেখবে বলে। সে রথের মেলার জন্য পাওয়া হাতখরচের টাকা জমিয়েছিল। সে টাকা দিয়ে একা একা ট্রেনের টিকিট কাটল। চেপে বসল। তারপর গাছপালা-খেত-খামার দেখতে দেখতে বাঁকুড়া থেকে অচেনা পথে সোজা এসে পৌঁছল কলকাতা। তারপর...। 
গত সোমবারের রাত। ঘড়ির কাঁটায় ১০টা। বেহালা চৌরাস্তায় ঘুরছে এক বালক। হলুদ হাফ হাতা গেঞ্জি আর হাফ প্যান্ট। ধোপদুরস্ত পোশাক। রাস্তায় যাকেই দেখছে তাকেই জিজ্ঞেস করছে, ‘সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের বাড়িটা কোন দিকে, বলবে? আমি একবার দেখা করব।’ বিষয়টি নজরে আসে চৌরাস্তা মোড়ে থাকা এক ট্রাফিক সার্জেন্টের। তিনি শিশুটির সঙ্গে কথা বলেন। তারপর বেদম চমকে যান। ভারতীয় ক্রিকেট দলের প্রাক্তন অধিনায়ককে এক পলক দেখবে বলে বাঁকুড়া থেকে সটান কলকাতায় চলে এসেছে শিশুটি। তার বয়স ১২ বছর। নাম, অদ্রীশ হালদার। বাবা-মা জানতে পারলে আসতে দিতেন না। ফলে বাড়ি থেকে পালিয়ে চলে এসেছে কলকাতা।   
বাঁকুড়ার কোতুলপুর থানা এলাকাতে বাড়ি অদ্রীশদের। সে ক্লাস সেভেনে পড়ে। মেধাবী। আর ছোট থেকে ক্রিকেটের ভয়ঙ্কর নেশা। দেশের হয়ে ক্রিকেট খেলবে বলে স্বপ্ন দেখে। খুব পছন্দ বিরাট কোহলি আর রোহিত শর্মাকে। আর বাবার কাছে ন্যাটওয়েস্ট সিরিজের কথা শুনেছে। তারপর থেকে মহারাজ সৌরভকে জীবনের একমাত্র নায়ক বানিয়ে ফেলেছে। সেই আকর্ষণে সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের সঙ্গে দেখা করতে কলকাতায় আসা। এ শহরের গড়ের মাঠে ক্রিকেট খেলতেও চায় সে। বাচ্চা ছেলে বলে তার কথায় তেমন আমল দেননি বাবা শিবরাম হালদার। অগত্যা সাধ পূরণে বাড়ি থেকে পালিয়েছে সে। 
রবিবার ছিল রথ। সেদিন নিজের রথ ঘুরিয়ে কিছু প্রণামী পেয়েছিল অদ্রীশ। আর মেলা ঘোরার জন্য কিছু হাতখরচ দিয়েছিলেন বাবা। সে টাকা রেখে দিয়েছিল। সোমবার সকালে বাড়ি থেকে বেরয়। তারপর ট্রেন ধরে হাওড়া। জীবনে প্রথমবার এত বড়ো শহরে এসে কাঞ্চনের মতোই হতবাক অদ্রীশ। হরিদাস নেই বলে বুলবুল ভাজা খাওয়া হয়নি তার। তবে দুপুর অবধি ঘোরাঘুরি করেছে। সে বলে, ‘সৌরভের বাড়ি কীভাবে যায় আমি তো জানি না। তাই স্টেশনের বাইরে একটা খাবারের দোকানে জিজ্ঞেস করি। ওরা বাসে উঠে বেহালা চৌরাস্তা নামার কথা বলে। কিন্তু বাসে উঠে আমি চৌরাস্তার কথা ভুলে গিয়েছিলাম। কন্ডাক্টর কাকু এক জায়গায় নামিয়ে দেয়। তারপর এক কাকুকে জিজ্ঞেস করে রাতে চৌরাস্তায় আসি।’   
এদিকে রাজ্যজুড়ে যখন ছেলেধরা গুজবে সরগরম তখন অদ্রীশের জন্য পাগল হয়ে গিয়েছিলেন তার বাবা-মা। তাঁরা কোতুলপুর থানায় মিসিং ডায়েরি করেন। খোঁজাখুঁজি শুরু করে বাঁকুড়া পুলিস। বেহালায় তাকে দেখেছিলেন ডায়মন্ডহারবার ট্রাফিক গার্ডের সার্জেন্ট কৃষ্ণ দাস। তিনি অফিসার ইন-চার্জ অমলেন্দু চক্রবর্তীকে দ্রুত ঘটনাটি জানান। অদ্রীশকে নিয়ে আসা হয় ট্রাফিক গার্ডের অফিসে। খবর দেওয়া হয় কোতুলপুর থানায়। গভীর রাতে কলকাতায় ছুটে আসেন শিবরামবাবু। তারপর ভোররাতে ছেলেকে বুকে জড়িয়ে বাঁকুড়া ফেরেন। 
কাঞ্চনকে নায়ক করে ‘বাড়ি থেকে পালিয়ে’ লিখেছিলেন শিবরাম চক্রবর্তী। তার তিন দশক পর সে লেখা নিয়ে সিনেমা তৈরি করেছিলেন ঋত্বিক ঘটক। ২০২৪ সালে পালাল অদ্রীশ। ঘটনাচক্রে তার বাবার নাম, শিবরাম।  
14d ago
রাজ্য
দেশ
বিদেশ
খেলা
বিনোদন
ব্ল্যাকবোর্ড
শরীর ও স্বাস্থ্য
বিশেষ নিবন্ধ
সিনেমা
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
আজকের দিনে
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
mesh

চল্লিশের ঊর্ধ্ব বয়সিরা সতর্ক হন, রোগ বৃদ্ধি হতে পারে। অর্থ ও কর্ম যোগ শুভ। পরিশ্রম...

বিশদ...

এখনকার দর
ক্রয়মূল্যবিক্রয়মূল্য
ডলার৮৩.১৭ টাকা৮৪.২৬ টাকা
পাউন্ড১০৬.৯৩ টাকা১০৯.৬০ টাকা
ইউরো৯০.০০ টাকা৯২.৪৪ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
*১০ লক্ষ টাকা কম লেনদেনের ক্ষেত্রে
দিন পঞ্জিকা