কলকাতা

হুগলি, মগরা-১ পঞ্চায়েত: জরাজীর্ণ দশা আমোদঘাটা প্রকল্পের, তীব্র জলসঙ্কটে ভুগছেন জয়পুরের মানুষ 

নিজস্ব প্রতিনিধি, চুঁচুড়া: আমোদঘাটা জলপ্রকল্পের বয়স হয়েছে। ফলে দ্রুত কাজ করতে পারছে না সে। কখনও জলের গতি কমে যায়। কখনও জলই আসে না। ফলে হুগলির মগরা এক নম্বর ব্লকের জয়পুর গ্রামের প্রায় দু’হাজার পরিবার জলসঙ্কটের কবলে। শুধু জয়পুর নয়, মগরা দুই নম্বর ব্লকের একাধিক এলাকাতেও আমোঘাটা প্রকল্পের সমস্যার কারণে জলসঙ্কট তৈরি হয়েছে।
গ্রামবাসীদের অভিযোগ, সরকারি জলপ্রকল্পের মাধ্যমে পানীয় জল ঠিকমতো মিলছে না। বিশেষ করে গরমের মরশুমে তীব্র সঙ্কট তৈরি হয়েছে। অসহায় অবস্থায় দিন কাটছে মানুষের। সমস্যার কথা জেনে সম্প্রতি জনস্বাস্থ্য কারিগরি দপ্তর জল সরবরাহ করেছে। কিছুটা সুরাহা হলেও তাতে সার্বিক জলসঙ্কটের সমাধান হয়নি। মগরা এক নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েতের উপপ্রধান রঘুনাথ ভৌমিক বলেন, ‘সমস্যা আছে এটা সত্য। আমরা এ নিয়ে জনস্বাস্থ্য কারিগরি দপ্তরের সঙ্গে কথা বলেছি। তারপর জলের ট্যাঙ্ক দিয়ে গরমের মরশুমে মানুষকে কিছুটা সাহায্য করা গিয়েছে। তবে এই প্রকল্প বহু পুরনো। জনস্বাস্থ্য দপ্তর প্রকল্পটি নতুন করে তৈরি করতে রাজ্যের কাছে প্রস্তাব পাঠিয়েছে। দ্রুত সমস্যা মিটে যাবে।’ জনস্বাস্থ্য কারিগরি দপ্তর এই বিষয়ে সরাসরি মন্তব্য করতে চায়নি। তবে দপ্তর সূত্রে জানা গিয়েছে, প্রকল্পটিতে বহুবার বহু পরিবর্তন করা হয়েছে। ফলে নতুন করে প্রকল্প তৈরি করা ছাড়া সমস্যা মেটানো কঠিন। আর হুগলির জেলা পরিষদের সভাধিপতি রঞ্জন ধাড়া বলেন, ‘বিষয়টি আমার জানা নেই। তবে স্থানীয় পঞ্চায়েত কর্তাদের সঙ্গে কথা বলে অবিলম্বে পদক্ষেপ নেব।’
স্বপন দে নামে জয়পুরের প্রামাণিক পাড়ার এক বাসিন্দা বলেন, ‘আমোদঘাট জলপ্রকল্প থেকে বেশিরভাগ সময়ই সঠিকভাবে জল মেলে না। এ নিয়ে আমরা বহুবার অভিযোগ করেছি। অস্থায়ীভাবে সমস্যা মিটিয়ে দেওয়া হলেও স্থায়ী সমাধান হয়নি।’ রবীন্দ্রনাথ রায় নামে জয়পুরের মালিবাগানের এক বাসিন্দা বলেন, ‘এই গরমে সুতোর মতো ধারায় জল পড়ছে। বিরাট সমস্যার মুখে আমরা। গরমে পানীয় জলের যখন বেশি প্রয়োজন পড়ে তখন জল না মেলায় গ্রামে ক্ষোভ তৈরি হয়েছে।’
প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে, ১৯৮৯ সালে এই প্রকল্প তৈরি হয়। তখন রাস্তার ধারের স্ট্যান্ড পোস্টের মাধ্যমে জল সরবরাহ হতো। এরপর ২০১৫ সালে প্রকল্পটির বিস্তার ঘটিয়ে বাড়ি বাড়ি জল দেওয়ার পরিকল্পনা নেওয়া হয়। ২০১৭ সাল থেকে এই প্রকল্পের মাধ্যমে মগরা এক ও দুই নম্বর পঞ্চায়েতে বাড়ি বাড়ি জল দেওয়া শুরু হয়। তবে ইতিমধ্যে জনবসতি বহরে বেড়েছে। ফলে জলের চাহিদাও বেড়েছে। কিন্তু পুরনো প্রকল্প ও তার পুরনো কারিগরি ব্যবস্থা সেই চাহিদা মেটাতে পারছে না। তার ফলেই তৈরি হচ্ছে জলসঙ্কট। 
28d ago
রাজ্য
দেশ
বিদেশ
খেলা
বিনোদন
ব্ল্যাকবোর্ড
শরীর ও স্বাস্থ্য
বিশেষ নিবন্ধ
সিনেমা
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
আজকের দিনে
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
mesh

বিকল্প উপার্জনের নতুন পথের সন্ধান লাভ। কর্মে উন্নতি ও আয় বৃদ্ধি। মনে অস্থিরতা।...

বিশদ...

এখনকার দর
ক্রয়মূল্যবিক্রয়মূল্য
ডলার৮৩.২৩ টাকা৮৪.৩২ টাকা
পাউন্ড১০৬.৮৮ টাকা১০৯.৫৬ টাকা
ইউরো৯০.০২ টাকা৯২.৪৯ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
*১০ লক্ষ টাকা কম লেনদেনের ক্ষেত্রে
21st     July,   2024
দিন পঞ্জিকা