বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
বিজ্ঞান-প্রযুক্তি
 

মারণ করোনা 

ভাইরাসটির গায়ে থাকা স্পাইক মানুষের শরীরের অবস্থিত রিসেপটরের সঙ্গে খাপে খাপ আটকে যায়। যার জেরেই এই মৃত্যুমিছিল বলে মনে করছেন বিজ্ঞানী-গবেষকেরা। লিখছেন কল্যাণকুমার দে...

করোনা ভাইরাসের দাপটে তটস্থ তামাম বিশ্ব। মারাত্মক এই চীনা ভাইরাসের পুরো নাম — নোভেল করোনা ভাইরাস বা ২০১৯-এনসিওভি। চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহরে প্রথম মানুষের শরীরে এই নয়া সংস্করণের করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ নজরে আসে। তারপর চীনের প্রায় ১৪টি প্রদেশে ছড়িয়ে পড়েছে করোনা সংক্রমণ। এমনকী থাইল্যান্ড, সিঙ্গাপুর, দক্ষিণ কোরিয়া, তাইওয়ান, মালয়েশিয়াতেও করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রাণ হারিয়েছেন বেশ কিছু মানুষ। শুধুমাত্র চীনেই ইতিমধ্যে মৃত্যু হয়েছে প্রায় ৭০০ জনের।
করোনা আক্রান্ত রোগীর প্রাথমিক লক্ষণগুলি হল, গলাব্যথা, জ্বর, মাথাব্যথা, ভয়ানক শ্বাসকষ্ট ইত্যাদি। অনেকটা নিউমোনিয়ার মতো। আসলে চেনা উপসর্গের আড়ালেই ঘাপটি মেরে থাকে করোনা ভাইরাস। এর কামড় ভয়াবহ। সংক্রমণের সঙ্গে সঙ্গেই বোঝা যায় না। উপসর্গগুলি প্রকট হতে ২ থেকে ১৪ দিন সময় লাগে। এই ভাইরাসের মোকাবিলার উপায় বিজ্ঞানে এখনও অধরা।
ভাইরাস কী: ভাইরাস একপ্রকার আনুবীক্ষণিক বস্তু বা কণা। আর পাঁচটা জীবাণুদের মতো নয়। এরা অকোষীয়। স্বাধীন অবস্থায় জড় বস্তুর মতো আচরণ করে। অকোষীয় প্রকৃতির জন্যই ভাইরাস বাধ্যতামূলক পরজীবী যারা সুনির্দিষ্ট ব্যাকটেরিয়া, উদ্ভিদ ও মানুষসহ নানান প্রাণীর দেহে কতিপয় গুরুত্বপূর্ণ ও সংক্রামক রোগের জন্যে দায়ী। এরা স্বাধীন প্রজননে অক্ষম। অথচ জীবকোষে ঢুকলে এরা সজীব এবং স্ব-জননে সক্ষম হয়ে ওঠে। শেষে সংহার মূর্তি ধারণ করে পোষক কোষকে ধ্বংস করে দেয়।
করোনার বিশেষত্ব: প্রত্যেক ভাইরাস প্রোটিনের একটি আঁটসাঁট বহিরাবরণ দ্বারা পরিবৃত। একে ক্যাপসিড বলে। ক্যাপসিডের মোড়কের মধ্যে থাকে নিউক্লিক অ্যাসিড — ডিএনএ অথবা আরএনএ। করোনা ভাইরাসের ক্ষেত্রে ক্যাপসিডের মধ্যে থাকে একটি একতন্ত্রী, পজিটিভ আরএনএ, যা কুণ্ডলীর মতো পাকিয়ে থাকে। আরএনএ থাকে বলে একে রেট্রোভাইরাসও বলে। করোনা ভাইরাসের জিনোমের আকৃতি মোটামুটিভাবে ২৬ থেকে ৩২ কিলেবেস। করোনা ভাইরাস কথাটি ল্যাতিন শব্দ থেকে এসেছে। করোনা নামটির অর্থ হল ‘মুকুট’ বা ‘সূর্যের জ্যোতির্বলয়’। কারণ ইলেকট্রন মাইক্রোস্কোপে এদের চেহারাটা সেইরকমই দেখায়। চীনের নব্য প্রজাতির বা স্টেনের করোনা ভাইরাসটির নাম দেওয়া হয়েছে ‘২০১৯ এনসিওভি। এর অর্থ হল, ২০১৯ সালে এই ভাইরাসের অস্তিত্বের কথা জানা গিয়েছে। ‘এন’ বা নোভেল যার অর্থ হল, নতুন বা অভিনব, ‘সিও’র অর্থ করোনা এবং ‘ভি’ হল ভাইরাস।
অন্যান্য প্রাণী ভাইরাসের মতো করোনা ভাইরাসে ক্যাপসিডে একটি অতিরিক্ত প্রোটিন-লিপিড-এর আবরণ বা এনভেলপ থাকে। এই আবরণের বাইরের দিকে ছোট ও বড় দু’ধরনের কাঁটার বা আলপিনের মতো অভিক্ষেপ থাকে। একে স্পাইক বলে। বড় স্পাইকগুলি গ্লাইকো প্রোটিন যৌগ দিয়ে তৈরি। ছোট স্পাইকগুলি হিমোগ্লুটিনিন প্রোটিন দিয়ে তৈরি। এই প্রোটিন অ্যান্টিজেন রূপে কাজ করে এবং মানুষের শরীরে প্রবেশের পর রক্তের লোহিত কণিকাগুলিকে পিণ্ডে পরিণত করে।
কীভাবে হানাদারি: প্রাণী ভাইরাসদের মধ্যে করোনা ভাইরাস ও তার অনেক আত্মীয়স্বজন মিলে তৈরি করে একটি বড় করোনা ভিরিডি পরিবার। তাদের প্রত্যেকেই কোনও না কোনও প্রাণীর দেহকে পোষক হিসাবে ব্যবহার করে নিজেদের প্রয়োজনে বংশবৃদ্ধির কাজটা সেরে নেয়। ভাইরাস কেবল সুনির্দিষ্ট পোষক কোষকেই আক্রমণ করে। এই বৈশিষ্ট্য ভাইরাসের ডিএনএ বা আরএনএ-তে অবস্থিত জিনের দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়।
এখানে প্রশ্ন, করোনা ভাইরাস কীভাবে এক সুনির্দিষ্ট প্রাণীদেহ থেকে সম্পর্কহীন নতুন প্রাণীদেহে বা মানুষের দেহে প্রবেশ করে? এর পিছনে রয়েছে ভাইরাসের পরিব্যক্তি। পরিবেশের নানান অবস্থায় ভাইরাসেরা অনুভূতিশীল এবং এই কারণেই তারা পরিবেশের পরিবর্তিত অবস্থার সঙ্গে নিজেদের খাপ খাওয়াতে পারে। ভাইরাসের এই ধর্মকেই বলা হয় পরিব্যক্তি। বিজ্ঞানীদের ধারণা, এই পরিব্যক্তিই করোনা ভাইরাসকে মনুষ্যমুখী অভিযোজনে সাহায্য করেছে। এই ঘটনার সঙ্গে জড়িয়ে রয়েছে জিনের কারসাজিও।
জিনগত পরিবর্তন বা মিউটেশন: করোনা ভাইরাসের পোষক বদল এবং ঘাতক হয়ে ওঠার পিছনে তাদের জিনগত পরিবর্তনটা অত্যন্ত আবশ্যিক। উদ্দেশ্য কিন্তু একটাই। নতুনই হোক বা পুরনো, ভাইরাস পোষক কোষের পরিকাঠামোকেই জবরদখল বা ছিনতাই করে। এরা নিজেদের প্রয়োজনে বংশবৃদ্ধির কাজটা সেরে নেয়। জিনগত পরিবর্তনই ভাইরাসের নানারকম গঠনগত পরিবর্তন ঘটায়। বিজ্ঞানীদের ধারণা, এই পরিবর্তনের ফলে ভাইরাসের অভিক্ষেপেরও পরিবর্তন ঘটে।
সবরকম চারিত্রিক বৈশিষ্ট্যকে নিয়ন্ত্রণ করে জিন। একাধিক জিনের একটি নির্দিষ্ট সজ্জাক্রম থাকে। এই সজ্জাক্রমের বা জিনের মূল ক্ষারীয় উপাদানের সূক্ষ্মাতিসূক্ষ্ম পরিবর্তনের ফলে ঘটে যায় জিনগত পরিবর্তন এবং জীবের চরিত্রের রদবদল। করোনার ক্ষেত্রে জিনগত পরিবর্তনের আশঙ্কা কেন? পোষক পরিবর্তনের সূত্র ধরেই এসে পড়েছে করোনার জিনগত পরিবর্তনের বিষয়টা। বিশেষ করে প্রাণী ভাইরাসের ক্ষেত্রে জিনের পরিবর্তন অহরহই ঘটে। এই পরিবর্তনশীল এবং পরিব্যক্তিশীল ভাইরাসের জিনোম রহস্যই বিজ্ঞানীদের রীতিমতো মাথা ঘুরিয়ে দিচ্ছে।
প্রাণী ভাইরাসের ক্ষেত্রে ভাইরাস যখন পোষক কোষকে আক্রমণ করে, তখন ভাইরাস অভিক্ষেপের সাহায্যে পোষক-কোষের আবরণীতে অবস্থিত রিসেপটারের সঙ্গে আবদ্ধ হয়। পোষক বদলের সময় ভাইরাসের অভিক্ষেপের গঠন না বদলালে নতুন পোষক কোষের রিসেপটারের সঙ্গে আটকাবে না। ফলে ব্যর্থ হবে নতুন পোষক কোষে ঢোকার প্রচেষ্টা। কিন্তু সফল হলে আক্রমণ জোরদার হবে। এই সাফল্যই ভাইরাসকে ক্রমশ অচেনা করে তুলছে। করোনা তার বদলে যাওয়া গ্লাইকোপ্রোটিনের স্পাইকের সাহায্যে কোষপর্দায় অবস্থিত ‘অ্যানজিওটেনসিন কনভার্টিং এনজাইম ২’ বা এসিই-২ নামক রিসেপটরের সঙ্গে খাপে খাপ আটকে যায়। এই বিষয়টি ভাইরাসের পোষক কোষের ভিতরে প্রবেশ করাকে সুবিধা করে দেয়। পোষক কোষে আটকানোর পর ইনজেকশন প্রক্রিয়ায় ভাইরাস তার শুধুমাত্র আরএনএ কোষের ভেতরে পাঠিয়ে দেয় অথবা এন্ডোসাইসিস প্রক্রিয়ায় আস্ত ভাইরাসই ঢুকে যায়। পরে ক্যাপসিড অংশ অপসারিত হয়। এরপর একতন্ত্রী পজিটিভ আরএনএ থেকে একতন্ত্রী নেগেটিভ আরএনএ তৈরি হয়। সেটাকেই ছাঁচ হিসেবে ব্যবহার করে পোষক কোষের সমন্বয়ী কৌশলকে কাজে লাগিয়ে ফোটোকপির মতো অসংখ্য পজিটিভ একতন্ত্রী আরএনএর প্রতিলিপি তৈরি করে।
একইসঙ্গে নতুন ক্যাপসিড প্রোটিনও উৎপন্ন হয়। অবশেষে নতুন ক্যাপসিড এবং নতুন আরএনএ একত্রিত হয়ে নতুন ভাইরাস তৈরি করে। পরিণত ভাইরাস কণাগুলি পোষক কোষ থেকে বের হয়ে আবার অন্য কোষগুলিকে আক্রমণ করে। আক্রমণের মাত্রা যত বাড়তে থাকে তত পোষকের দেহে রোগের উপসর্গগুলি প্রকাশ পায়।
করোনার ইতিহাস: ২০০২-২০০৩ সালে ‘সিভিয়ার অ্যাকিউট রেসপিরেটরি সিনড্রোম’ (এসএআরএস) বা সার্স-এর সংক্রমণে দুনিয়াজুড়ে প্রায় ৮০০ জনের মৃত্যু হয়েছিল। তার পিছনেও ছিল করোনা ভাইরাস। চীনের এই ভয়ঙ্কর নয়া করোনা ভাইরাস সেই সাবেক করোনা ভাইরাসেরই এক নতুন সংস্করণ বা জ্ঞাতি। তারই দাপটে ছড়াচ্ছে এই বিশ্বত্রাস। তাই সার্স-এর তুতোভাই বলে ভাবা হচ্ছে হালের করোনা ভাইরাসকে। আপাতত এটিকে ‘২০১৯-এনসিওভি’ নামে ডাকা হচ্ছে। তবে এখনই নয়া ভাইরাসটিকে ‘সার্স’-এর মতো বিপজ্জনক ভাবার কোনও কারণ নেই বলেই মনে করছেন চিকিৎসসকেরা। কিন্তু এদের গঠন, বৈশিষ্ট্য, অভিযোজন ক্ষমতা বা সংক্রমণের মাধ্যমের মতো বিষয়গুলো পরিষ্কারভাবে জানা নেই। আর এখানেই আশঙ্কা। কারণ কীভাবে এই ভাইরাসের প্রকোপকে ঠেকানো যাবে, তা নিয়ে অন্ধকারে চিকিৎসক-গবেষকরা।
২০১২ সালের মিডল-ইস্ট রেসপিরেটরি সিনড্রোম বা ‘মার্স’ নামে এক ধরনের শ্বাস-প্রশ্বাস ঘটিত রোগ ধরা পড়ে সৌদি আরবে। এ রোগের মূলেও ছিল করোনা ভাইরাস। পশ্চিম এশিয়ার দেশগুলিতে এই রোগের প্রাদুর্ভাব বেশি বলে, একে মিডল ইস্ট রেসপিরেটরি সিনড্রোম বলা হয়। মানুষজন ও মাল বহনকারী উটেরাই ছিল এই ভাইরাসের বাহক।

চীনের উহানের এক রিপোর্টে পর্যটকদের সতর্ক করে বলা হয়েছে, অসুস্থ মানুষদের থেকে দূরে থাকুন, বিশেষ করে যাঁদের মধ্যে এ ধরনের লক্ষণ দেখা যাচ্ছে। যদি আপনি সফর করেন, তবে নিউমোনিয়া বা সর্দি, নাক থেকে জল পড়ছে, কাশি হচ্ছে এমন মানুষ থেকে দূরে থাকুন। সম্ভবত হাঁচি বা কাশি থেকে বাতাসে ছড়িয়ে পড়তে পারে করোনা ভাইরাস। কিন্তু এর প্রতিরোধে মাস্ক ব্যবহার করলেই মুক্তি পাওয়া যাবে না। তবে ‘এন-৯৫’ মাস্ক ব্যবহার করলে ভাইরাল সংক্রমণে কিছুটা লাগাম টানা যেতে পারে।
এ ব্যাপারে ‘সেন্টার্স ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন’ (সিভিসি) এবং ‘ওয়ার্ল্ড হেলথ অর্গানাইজেশন’ (হু)-এর মতো স্বাস্থ্য সংস্থাগুলি পরামর্শ দিয়েছে, হাত না ধুয়ে কেউ যেন তাঁদের নাক, চোখ, মুখে যেন হাত না দেয়। সাবান ও জল দিয়ে কমপক্ষে ২০ সেকেন্ড হাত রগড়ে পরিষ্কার করা উচিত। খামার ও জীবিত পশুদের থেকে দূরে থাকুন।
নোভেল করোনা ভাইরাসের প্রতিরোধে ইতিমধ্যে আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরগুলিতে চীন থেকে আসা যাত্রীদের জন্যে অভিবাসন জায়গায় থার্মাল ক্যামেরা বসানো হয়েছে। এর সাহায্যে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ব্যক্তিদের শণাক্ত করা হচ্ছে। সমস্ত সজীব বস্তুর দেহ থেকে অবলোহিত শক্তি বা তাপ নির্গত হয়। থার্মাল ক্যামেরার ভেতরে যে তাপ সেন্সর থাকে তা মুহূর্তের মধ্যে সেই তাপমাত্রা মেপে নিয়ে ডিসপ্লে স্ক্রিনে তার একটি তাপচিত্র দেখিয়ে দেয়। সেই তাপমাত্রা যদি দেহের স্বাভাবিক তাপমাত্রার থেকে বেশি হয় তাহলে বোঝা যাবে কোনও সংক্রমণের দরুণ শরীরে জ্বর বা তাপমাত্রার বৃদ্ধি ঘটেছে। এভাবেই দেহের তাপমাত্রার ভিত্তিতে অসুস্থ মানুষকে আলাদা করা হয় এবং পরবর্তী চিকিৎসার মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি করোনা আক্রান্ত কিনা সে বিষয়ে সিদ্ধান্তে আসা যায়। তবে, এ রোগে অ্যান্টিবায়োটিক কাজ করে না। নির্দিষ্ট কোনও চিকিৎসা নেই, নেই কোনও ভ্যাকসিনও।
(লেখক হুগলি মহসিন কলেজের প্রফেসর, ডব্লুবিএসইএস) 

9th     February,   2020
 
 
কলকাতা
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ