বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
বিনোদন
 

কুয়াশায় ঢাকা ছবি

 অপরাজিত ছবিটার পর এমন একটি চরিত্র খুঁজছিলাম যেখানে অভিনয়ের দারুণ সুযোগ থাকবে। আবার চরিত্রটাও এমন হওয়া দরকার ছিল যা গল্পে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

এই মুহূর্তে ‘অপরাজিত’ ছবি নিয়ে জিতু কমল বিদেশে। সেখানকার দর্শকও উপভোগ করছেন সত্যজিৎ রায়ের ভূমিকায় অভিনয় করে চলচ্চিত্র জগতে পা রাখা এই অভিনেতার কাজ। আর এদিকে দেশে তাঁর দ্বিতীয় ছবির পরিচালক প্রস্তুত হচ্ছেন আবার তাঁকে দর্শকের সামনে নিয়ে আসার। ইতিমধ্যে দ্বিতীয় ছবির শ্যুটিং শেষ করে ফেলেছেন জিতু। ছবির নাম ‘সেদিন কুয়াশা ছিল।’ পরিচালক অর্ণব মিদ্যা। এই ছবিতে যেন দ্বিতীয়ের সমাবেশ। জিতুর যেমন এটি দ্বিতীয় ছবি, তেমনই ‘অন্দরকাহিনী’র পর অর্ণবেরও এটি দ্বিতীয় ছবি। দ্বিতীয় ছবি অবন্তিকা বিশ্বাসেরও। ‘রসগোল্লা’র পর আবার ক্যামেরার সামনে ক্ষীরোদমণি দেবী। 
পরিচালকের প্রথম ছবিতে একজন নারীই ছিলেন সারা ছবি জুড়ে। সেখানেও ছিল সম্পর্কের টানাপোড়েন। এবার অবশ্য শিল্পীদের তালিকা লম্বা। এই ছবিতেও তিনটে গল্প রয়েছে, যা শেষমেশ বাঁধা পড়বে এক সুতোয়। প্রথম গল্পটি মূলত স্বাধীনতার পূর্বের ঘটনা। এক মহিলা, তার স্বামী ও এক বিপ্লবীর সম্পর্কের গল্প। অভিনয় করেছেন অর্ণ মুখোপাধ্যায়, সৌরসেনী মৈত্র ও সবুজ বর্ধন।  বাবা, মা ও তাদের সন্তানের সম্পর্ক নিয়ে দ্বিতীয় ছবি। কাজের সূত্রে একমাত্র ছেলে শহরে থাকে। বাবা-মা থাকে প্রত্যন্ত গ্রামে। এই ছবিতে প্রথম জুটি বেঁধেছেন পরাণ বন্দ্যোপাধ্যায় ও লিলি চক্রবর্তী। আগে তাঁরা একসঙ্গে কাজ করলেও কখনও জুটিতে অভিনয় করেননি। তাঁদের পুত্র ও পুত্রবধূর চরিত্রে অভিনয় করেছেন জিতু ও সায়ন্তনী গুহঠাকুরতা। আর একমাত্র নাতনির ভূমিকায় পৃথা বন্দ্যোপাধ্যায় যে আবার বাস্তবেও পরাণের পৌত্রী। ‘লিলিদির সঙ্গে অভিনয়ের সুযোগ তো বটেই। গল্পের মেজাজটা ভালো লেগেছে বলেই রাজি হই’, বলছেন পরাণ। আর জিতু বলছিলেন, ‘অপরাজিত ছবিটার পর এমন একটি চরিত্র খুঁজছিলাম যেখানে অভিনয়ের দারুণ সুযোগ থাকবে। আবার চরিত্রটাও এমন হওয়া দরকার ছিল যা গল্পে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। এই চরিত্রটা সেরকমই। অপরাজিত ছবিতে দর্শক ভালোবাসা উজাড় করে দিয়েছেন। এটুকু বলতে পারি এই ছবিতেও তাঁদের নিরাশ করব না। পরাণদা, লিলিদির মতো শিল্পীর সঙ্গে কাজ করাও একটা বিরাট পাওনা। অর্ণবদাও খুব ঠান্ডা মাথার পরিচালক। সবকটা শট সুন্দর ছকা থাকে। সবমিলিয়ে কাজটা উপভোগ করেছি।’
তৃতীয় গল্পটি তিন বন্ধুর। এই গল্পের কাহিনিসূত্র শুচিস্মিতা দেবের একটি ছোটগল্প অবলম্বনে লেখা। বছর ত্রিশ আগে এই তিন বন্ধুর শেষ দেখা। এতদিন পরে কি তারা আবার বন্ধু হয়ে উঠতে পারবে? এই গল্পের তিন চরিত্রে আছেন খরাজ মুখোপাধ্যায়, দেবশঙ্কর হালদার ও জয় সেনগুপ্ত। ‘আমরা সম্পর্কে বাঁচি। সম্পর্কের সঙ্গে জড়িয়ে থাকা দায়িত্ববোধ, কর্তব্যবোধ আমাদের আষ্টেপৃষ্ঠে বেঁধে রাখে। অনেকসময় সেই কর্তব্য করতে না পারার অপরাধবোধ আমাদের নাড়িয়ে দেয়। সেরকমই কিছু ঘটনাপ্রবাহ নিয়ে এই ছবি। প্রত্যেকটা গল্পের ক্লাইম্যাক্স গায়ে কাঁটা দেবে’, বলছেন পরিচালক। 
কলকাতা, হুগলি, সুন্দরগ্রাম জুড়ে ছবির শ্যুটিং হয়েছে। সঙ্গীত পরিচালনায় রণজয় ভট্টাচার্য। স্যান্ড আর্ক মিডিয়া প্রোডাকশন নিবেদিত ছবিটি এখন সম্পাদনার টেবিলে। মুক্তি সম্ভবত পুজোয়।
 

7th     July,   2022
কলকাতা
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ