বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
বিনোদন
 

ওয়েব সিরিজ সমালোচনা
জটিল কাহিনির মেডিক্যাল থ্রিলার
হিউম্যান

সোহম কর: কোভিড পরবর্তী সময়ে একটি ধুঁকতে থাকা ওষুধ প্রস্তুতকারী সংস্থা নতুন ওষুধ বাজারে নিয়ে আসতে চলেছে। তার জন্য প্রয়োজন হিউম্যান ট্রায়াল। এই ট্রায়ালটি আইনসম্মত পথে করা হচ্ছে না। গল্পের প্রেক্ষাপট ভোপাল। ‘হিউম্যান’ ওয়েব সিরিজটি বহু গল্পের সমন্বয়ে তৈরি হয়েছে। তার মধ্যে একটি গল্প হল এই হিউম্যান ট্রায়াল। দ্বিতীয় গল্প হল, হার্টের চিকিত্সক সায়রা সাব্রেওয়ালের (কীর্তি কুলহরি) জীবনকাহিনি। তৃতীয়, চিকিত্সক গৌরী নাথের (শেফালি শাহ) হাসপাতাল মন্থন এবং তার উচ্চাকাঙ্খা। এই তিন মূল গল্পের সঙ্গে শাখা গল্প হল এক গরিব পরিবার, রাজনৈতিক অসততা, পারিবারিক জটিলতা এবং অবশ্যই সম্পর্ক। এতগুলো ডাল-পালা, পাতা-ফুল নিয়ে তৈরি হয়েছে দশটি পর্বের দীর্ঘ থ্রিলার ওয়েব সিরিজ। 
প্রথমেই বলতে হয়, এই সিরিজের সম্পদ হল অভিনয়। শেফালি, কীর্তি, বিশাল জাটুয়া, রাম কাপুর, সীমা বিশ্বাস, ইন্দ্রনীল সেনগুপ্ত—এঁরা প্রত্যেকেই অসামান্য। দেখা যায়, গৌরীর হাসপাতালে চিকিত্সক হয়ে যোগ দিয়েছে সায়রা। সে অত্যন্ত কর্মনিষ্ঠ। স্বাভাবিকভাবেই কার্ডিওলজি বিভাগের প্রধানের বিরাগভাজন হয় সায়রা। কিন্তু মালিক গৌরীর খুব কাছের মানুষ হয়ে ওঠে এই নব্য চিকিৎসক। প্রধানের ডানা ছাঁটার ব্লুপ্রিন্ট তৈরি হয়। গোটাটাই সায়রার অজান্তে। পিছনে রয়েছে গৌরী ও তাঁর স্বামী প্রতাপ (রাম কাপুর)-এর বৃহত্তর ষড়যন্ত্র। সায়রার আবার পারিবারিক সমস্যা রয়েছে। বাবা-মায়ের সঙ্গে তার সম্পর্ক ভালো নয়। তার স্বামী নীল (ইন্দ্রনীল) চিত্রসাংবাদিক। আফগানিস্তানে থাকে। হঠাত্ একদিন কাজ নিয়ে ভোপালে চলে আসে সে। 
অন্যদিকে, হিউম্যান ট্রায়ালের নাম করে গরিব মানুষকে গিনিপিগের মতো ব্যবহার করতে থাকে ওই ওষুধের সংস্থা। মানুষ মরতে থাকে। এমনই এক গরিব বাড়ির ছেলে মঙ্গু (বিশাল জাটুয়া) টাকার বিনিময়ে ওই সংস্থার হয়ে ট্রায়ালের জন্য মানুষ খুঁজতে থাকে। সে তার নিজের বাবা-মাকেও ছাড়ে না। একদল অল্পবয়সি মহিলাকে ওষুধ দিয়ে ঘোরের মধ্যে রাখা হয়। তারাই এই ট্রায়াল দিতে আসা অসুস্থ মানুষদের সেবা-যত্ন করে। এই সমস্ত গল্পকে সিরিজের ক্রিয়েটরদ্বয় বিপুল অমৃতলাল শাহ ও মোজেস সিং শেষে গিয়ে এক সুতোতে বেঁধেছেন। থ্রিলার সিরিজ কাজেই নৃসংশতা রয়েছে। টান টান উত্তেজনাও রয়েছে। তবে গোটা গল্পটা দেখে মনে হয়, এই রকম ঘটনার সঙ্গে বাস্তবের মিল থাকতে পারে না। অবশ্য বাস্তবতার দাবি তো আর নির্মাতারা করেননি। কাজেই সিরিজটি দেখতে মন্দ লাগে না। নিখাদ বাণিজ্যিক থ্রিলার। তবে, মূল বক্তব্য থেকে সরে গিয়ে কোথাও কোথাও অবান্তর সম্পর্কের জটিলতার কাহিনি দেখানো হয়েছে বলে মনে হল। এগুলি বাদ দিলে সিরিজটি মোটের উপর মন্দ নয়। 

18th     January,   2022
কলকাতা
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ