বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
বিনোদন
 

বাস্তবের দলিল হয়ে
উঠতে পারল কই?

সন্দীপ রায়চৌধুরী: ২৬ নভেম্বর, ২০০৮। বাণিজ্যনগরী মুম্বইকে এক লহমায় তছনছ করে দিয়েছিল ঘণ্টা খানেকের ভয়ঙ্কর সন্ত্রাসবাদী হামলা। সেই ঘটনাই পর্দায় ‘মুম্বই ডায়েরিজ ২৬/১১’ ওয়েব সিরিজে পুনর্নির্মাণ করেছেন দুই নিখিল।  পরিচালক নিখিল আদবানি আর নিখিল গঞ্জালভেজ। মুম্বইয়ের এক সরকারি হাসপাতালের প্রেক্ষাপটে বিস্তার লাভ করেছে কাহিনি। যে হাসপাতাল কি না পরবর্তীকালে রূপান্তরিত হয়েছে চিকিৎসক, পুলিস আর সন্ত্রাসবাদীদের যুদ্ধক্ষেত্রে। 
২৬/১১ তারিখের ভয়াবহ ঘা আম মুম্বইকরের স্মৃতিতে এখনও দগদগে। সীমান্তের ওপার থেকে আরবসাগরের নোনা জল পেরিয়ে আসা আচমকা আঘাত বিখ্যাত মুম্বই স্পিরিটকেই ভেঙে গুঁড়িয়ে দিয়েছিল। এই ধরনের সন্ত্রাসের ভয়াবহ রূপ কেমন হতে পারে, তা একমাত্র যে বা যারা ওই পরিস্থিতির মধ্যে পড়েছে তার পক্ষেই উপলব্ধি করা সম্ভব। যতই ক্যামেরা এবং ভিএফএক্সের কারিকুরি থাকুক, পর্দায় সন্ত্রাসের সত্য ঘটনা হুবহু  ফুটিয়ে তোলা কার্যত অসম্ভব। দুই পরিচালক তবু শুরুটা করেছিলেন আশা জাগিয়েই। প্রাণচঞ্চল শহরের ক্যাফে, স্টেশন, হোটেলে ছড়িয়ে পড়ছে জঙ্গিরা। মুম্বই পুলিসের জিপ লক্ষ্য করে চলছে অবিরাম গুলিবর্ষণ। সিরিজ যত এগিয়েছে, এই ধরনের ভিজ্যুয়াল অসংখ্যবার এসেছে। সত্যি ঘটনার সঙ্গে কল্পনার উপাদান মিশিয়ে নিখিল গঞ্জালভেজ, অনুষ্কা মেহরোত্রা আর যশ ছেতিজা সাজিয়েছেন চিত্রনাট্য। আর এখানেই সিরিজটির সর্বনাশ করেছেন।
শহরের ব্যস্ত হাসপাতালে চিকিৎসক ও কর্মীরা নানা প্রয়োজনীয় সরঞ্জামের অভাব সত্ত্বেও নিজেদের দায়িত্ব পালন করছেন। হাসপাতালের নামকরা ডাক্তার কৌশিক ওবেরয় (মোহিত রায়না) নিয়মকানুনের ধার ধারে না। রোগীর জীবন বাঁচাতে জেনারেল ওয়ার্ডের মধ্যেও অনেক সময় অপারেশন করে। এই হাসপাতালের সঙ্গেই যুক্ত চিকিৎসক-সমাজকর্মী চিত্রা দাস (কঙ্কনা)। তার বৈবাহিক জীবনের তিক্ত অভিজ্ঞতা সে কিছুতেই ভুলতে পারে না। এমনভাবে সিরিজের প্রত্যেকটি পর্বের নামকরণ করা হয়েছে, যেন একেকটা ডায়েরির পাতা। ডায়াগোনসিস দিয়ে শুরু। কমপ্লিকেশন্স, অ্যানাটমিসহ সাত ধাপ পেরিয়ে কাহিনির শেষ রিকভারি পর্বে। ডায়েরি লেখা যাঁদের অভ্যাস তাঁরা জানেন, পাতা ওল্টাতে ওল্টাতে স্মৃতি কীভাবে জীবন্ত হয়ে ওঠে। এই সিরিজের পাতা উল্টে সেই স্মৃতিই উস্কে দেওয়ার চেষ্টা করেছিলেন দুই পরিচালক। সন্ত্রাস কখনও জীবনের গতি রোধ করতে পারে না। স্বজন হারানোর কান্না, গুলির শব্দ, পাল্টা গুলির লড়াই এত কিছুর মধ্যেও আর একটা লড়াই চলতে থাকে। জীবন বাঁচানোর লড়াই। লড়াই হার না মানা মানসিকতার। যে মনের জোরে ভর করে কিছু অকুতোভয় পুলিস আধিকারিক, চিকিৎসক বা হোটেল কর্মী তাদের শেষ রক্তবিন্দু উজাড় করে দিয়েছিল সেদিন।  
এই সিরিজের কাণ্ডারী হতে পারত অভিনয়। বেশির ভাগ শিল্পী অভিনয়টা মন্দ করেননি। মোহিত তো অনবদ্য কিন্তু তার ব্যাকস্টোরি ও সম্পর্কজনিত সমস্যা জোর করে ঢুকিয়ে দেওয়া হয়েছে। হাসপাতালের তিন জুনিয়র চিকিৎসকের চরিত্রে নাতাশা ভরদ্বাজ (দিয়া পারেখ), ম্রুন্ময়ী দেশপাণ্ডে (সুজাতা) ও সত্যজিৎ দুবেও (আহান মির্জা) মানানসই। কৌশিকের স্ত্রী, প্যালেস হোটেলের কর্মী অনন্যা ঘোষের চরিত্রে টিনা দেশাই ও হাসপাতাল কর্মী সমর্থের ভূমিকায় পুষ্করাজ চিরপুতকরও ভালো। তবে বাঙালি হওয়ার সূত্রে টিনার অনাবশ্যক বাংলায় কথা বলাটা বেমানান। হাসপাতাল সুপার ডাঃ মণি সুব্রহ্মণ্যমের ভূমিকায় প্রকাশ বেলাওয়াড়ি সেভাবে জায়গা পাননি। গোটা সিরিজে ‘টাইম অব ডেথ’ বলা ছাড়া তাঁর যেন কিছু করার নেই! কঙ্কনার মতো শক্তিশালী অভিনেত্রীকে কার্যত নষ্ট করা হয়েছে। সব অভিনেতার স্ক্রিন প্রেজেন্স যথেষ্ট কিন্তু তা অনেক সময়তেই অপ্রয়োজনীয়। টেলিভিশন সাংবাদিক মানসী হিরানির চরিত্রে শ্রেয়া ধন্বন্তরি রিপিটেটিভ— যেন একই দৃশ্য তিনি বারবার অভিনয় করছেন। একই কথা বলা যায় তার বসের চরিত্রে অভিনয় করা বসুন্ধরা কল সম্পর্কেও। পরিচালকদের মিডিয়াকে ক্যারিকেচার করে দেখানোর এই প্রবৃত্তিটার এবার শেষ হওয়া দরকার। 
এরকম একটা ঘটনার পরতে পরতে যে টেনশন আর সাসপেন্স থাকা আবশ্যক, বেশিরভাগ সময় এই সিরিজে সেটা অনুপস্থিত। সাবপ্লট আর বিভিন্ন চরিত্রের আগমনের যাঁতাকলে পড়ে খেই হারিয়েছে গল্প। একটা সময়ের পর অসংখ্য চরিত্রের ব্যক্তিগত সমস্যার ট্র্যাক রাখাই মুশকিল হয়ে দাঁড়ায়। অতিরিক্ত মশলা যোগ করতে গিয়ে পুলিস আধিকারিকদের মৃত্যুবরণের মতো সত্যি ঘটনাও আরোপিত মনে হয়। রক্তক্ষয়ী অ্যাকশনে ভরপুর, নাটকীয় ঘটনায় সমৃদ্ধ এক সত্যি ঘটনা হওয়া সত্ত্বেও ‘মুম্বই ডায়েরিজ’ তাই বাস্তবের দলিল হয়ে উঠতে পারেনি।

15th     September,   2021
 
 
কলকাতা
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
 
হরিপদ
 
31st     May,   2021
30th     May,   2021