বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
সিনেমা
 

ঘুমভাঙার গান

নতুন একটি বাংলা ছবির জন্য শীর্ষসঙ্গীত রেকর্ডিং করলেন নচিকেতা চক্রবর্তী। ছবির নাম ‘সেদিন কুয়াশা ছিল’, পরিচালক অর্ণব মিদ্যা। রণজয় ভট্টাচার্যের কথায় ও সুরে ‘সেইদিন কুয়াশা ছিল, ঘুমভাঙা স্বপ্ন ছিল’ গানটির রেকর্ডিংয়ে সঙ্গীত পরিচালক ও গায়ক।

এক টুকরো কলকাতাই প্রাপ্তি
বব বিশ্বাস

অয়নকুমার দত্ত: কালীয়দমনের পর শ্রীকৃষ্ণ কালীয়নাগকে প্রশ্ন করেছিলেন, তোমার মধ্যে শুধুই বিষ! আর কিচ্ছুটি নেই? এর জবাবে সে বলেছিল, প্রভু, তুমি তো আমার মধ্যে বিষ ছাড়া আর কিছুই দাওনি। যেমন বব বিশ্বাসের মধ্যে ঈশ্বর যেন শুধুই নৃশংসতা ভরে দিয়েছেন। ঠান্ডা মাথায়, হাসি মুখে মানুষ মারতে তার হাত কাঁপে না। ‘কাহানি’র পার্শ্বচরিত্র ববকে নিয়ে পরিচালক দিয়া অন্নপূর্ণা ঘোষ তৈরি করে ফেলেছেন আস্ত একটা ছবি।
আট বছর কোমায় থাকার পর স্মৃতিভ্রষ্ট হয়ে পরিবারে ফিরছে বব (অভিষেক)। স্ত্রী (চিত্রাঙ্গদা সিং) বা সন্তানরা আজ তার কাছে অচেনা। মুছে গিয়েছে অপরাধের স্মৃতিগুলোও। কিন্তু ওই যে মানুষ যাকে ‘নিয়তি’, ‘ভাগ্য’ বা ‘ভবিতব্য’ বলে, সে ববকে ফের টেনে আনে অপরাধের পথে মানে নরমেধ যজ্ঞে। ছায়াকে তো মানুষ এড়িয়ে চলতে পারে না। আর মানুষ খুন যেন তার কাছে সাঁতার কাটা বা সাইকেল চালানোর মতো। সব ভুলে গেলেও ‘কাজে ফিরতে’ কোনও সমস্যা হয় না। আসলে ‘নৃশংসতা’ই যেন বব চরিত্রটার সাবলীলতা। তাই একটা বাচ্চাকে হুমকি দিতে নিরীহ খরগোশকে ঘাড় মটকে সে অবলীলায় মেরে দিতে পারে!  যদিও উচিত-অনুচিতের দ্বন্দ্বে বার বার ক্ষত-বিক্ষত হয়েছে চরিত্রটি। এটা না থাকলে হিন্দি ছবির মার্কমারা ভিলেন ছাড়া ববকে আর কিছুই মনে হতো না। তার সঙ্গে গল্পে এসেছে সর্বনাশা ড্রাগের নেশায় যুবসমাজের বিপথে যাওয়ার অনুষঙ্গ।
চিত্রানট্য, অভিনয়, আবহসঙ্গীত, ক্যামেরা প্রথাগত আলোচনার আগে বাংলার দর্শকদের জন্য এই ছবি নিয়ে একটা অতিরিক্ত অনুচ্ছেদ যুক্ত না করলে অনুচিত হবে। সেটা হল— বাংলা তথা কলকাতার প্রাপ্তি। পুরো ছবিটিই কলকাতায় শ্যুটিং। হাওড়া ব্রিজ বা ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়ালকে বাদ দিয়েও যে কল্লোলিনী তিলোত্তমাকে তুলে ধরা যায়, তা করে দেখিয়েছেন পরিচালক। এর জন্য তাঁর বাবা সুজয় ঘোষেরও নিঃসন্দেহে প্রশংসা প্রাপ্য। পাটুলির ভাসমান বাজার, উড়ালপুলের উপর দিয়ে ছুটে চলা মেট্রো রেল বা সেন্ট পলস ক্যাথিড্রাল— টুকরো চেনা ছবিগুলো দেখলে এখানকার দর্শক নিজের শহরটাকে রিলেট করতে পারবেন। কৌশিক চক্রবর্তী, পরাণ বন্দ্যোপাধ্যায়, রজতাভ দত্ত, দিতিপ্রিয়া রায়, কাঞ্চন মল্লিক, বরুণ চন্দ, নিমাই ঘোষ— একঝাঁক টলিউড শিল্পীকে একটি হিন্দি ছবিতে পেয়ে বেশ ভালোই লাগবে। সকলেই নিজের সেরাটা দেওয়ার চেষ্টা করেছেন। টুকরো টুকরো বাংলা সংলাপ বিশেষ করে কালীদার (পরাণ) মুখে বাংলা-হিন্দি মেশানো ডায়লগের মজা বাংলা জানা দর্শক বেশ তারিয়ে তারিয়ে উপভোগ করতে পারবেন।
ছবিটি ‘কাহানি’র বব বিশ্বাস চরিত্রটিকে নিয়ে স্পিন অফ। তাই অবধারিতভাবে অরিজিনাল বব মানে শাশ্বত চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে এই ছবির বব অভিষেক বচ্চনের তুলনা চলে আসবেই। হয়তো অনেকে আশাহতও হবেন। তবে, বিষয়টিকে সেভাবে না দেখে এই ছবিটিকে ইন্ডিভিজ্যুয়াল একটি ছবি ভেবে অভিষেকের অভিনয়টা উপভোগ করা যায়। এ ক্ষেত্রে চরিত্রের দ্বন্দ্বটা অনুভব করার মতো। টান টান থ্রিলার যাঁরা আশা করবেন, এই ছবি কিন্তু তেমন নয়। ক্লাইম্যাক্সও খুব সাদামাটা। বরঞ্চ, গোটা ছবি জুড়ে যে, মজার মুহূর্ত বা সংলাপগুলি ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে, সেটা সত্যিই উপভোগ্য। আর এক টুকরো কলকাতাকে পেতে হলে ‘বব বিশ্বাস’ দেখাই যায়।

3rd     December,   2021
কলকাতা
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ