বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
শরীর ও স্বাস্থ্য
 

সাদা চায়ের 
আশ্চর্য স্বাস্থ্যগুণ!

পরামর্শে আরজি স্টোন ইউরোলজি অ্যান্ড ল্যাপারোস্কোপি হাসপাতালের পুষ্টিবিদ শ্রীপর্ণা চক্রবর্তী।

বাঙালি তো বটেই, সমগ্র বিশ্ববাসীর কাছেই পানীয় হিসেবে চায়ের বিশেষ কদর রয়েছে। পৃথিবীর মোট জনসংখ্যার দুই তৃতীয়াংশ মানুষ চা পান করেন। চা গাছ থেকে পাতা কখন তোলা হচ্ছে, কীভাবে তোলা হচ্ছে এবং প্রক্রিয়াকরণ পর্যায় কতখানি দীর্ঘ— তার উপরে নির্ভর করে চায়ের স্বাদগন্ধ এবং রং। মোটামুটি ছয় ধরনের চা পাওয়া যায়—

হোয়াইট টি • গ্রিন চা • ইয়েলো টি • ওলং টি • ব্ল্যাক টি • ডার্ক টি। 
প্রতিটি চায়ের ভিন্ন ধরনের স্বাস্থ্যগুণ রয়েছে। সবচাইতে স্বাস্থ্যকর চা হল হোয়াইট এবং গ্রিন টি। 
সাদা চা তৈরির জন্য পাতা সংগ্রহ করা হয় চা গাছ বেড়ে ওঠার সময়ে। অন্যান্য ধরনের চায়ের তুলনায় সাদা চায়ের প্রক্রিয়াকরণের জন্য সময় অনেক কম ব্যয় করা হয়। ফলে সাদা চা পাতায় অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সহ অন্যান্য উপকারী উপাদান খুব বেশি নষ্ট হয় না। 

কীভাবে শরীরের উপকারে আসে সাদা চা?
১. কোষের নানা কার্যকলাপের ফলে একধরনের বর্জ্য তৈরি হয় যার নাম ফ্রি র‌্যাডিকেলস। শরীরে ফ্রি র‌্যাডিকেলস-এর মাত্রা বাড়লে ত্বক দ্রুত বুড়িয়ে যায়, প্রদাহ বাড়ে, রোগ প্রতিরোধক ক্ষমতা হ্রাস পায়। ক্ষতিকর ফ্রি র‌্যাডিকেলসকে নষ্ট করে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট।
২. সাদা চায়ে রয়েছে ‘পলিফেনল’। যা অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের মতো কাজ করে। রক্তবাহী নালীকে নমনীয় রাখতে পলিফেনলের বিশেষ ভূমিকা আছে। রক্তবাহী নালী সরু ও শক্ত হওয়াও প্রতিহত করে পলিফেনল। ফলে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ সম্ভব হয়। হার্টের নানা অসুখও দূরে থাকে।
৩. ফ্যাটের মেটাবলিজমে বা দেহে অতিরিক্ত মাত্রায় চর্বি থাকলে তা পোড়াতেও (ফ্যাট বার্ন) সাহায্য করে সাদা চা। কারণ সাদা চায়ে থাকে এপিগ্যালো ক্যাটেচিন গ্যালেট নামক বিশেষ যৌগ। এই যৌগটি সরাসরি শরীরের বিভিন্ন অংশে ফ্যাট বার্ন-এ সাহায্য করে। ফলে নিয়মিত সাদা চা পান করলে তা ওজনও ঝরাতেও সাহায্য করে।
৪. প্রচুর পরিমাণে ফ্ল্যাভোনয়েড, ক্যাটেচিন এবং ট্যানিন থাকে সাদা চায়ে। এই তিন উপাদান একযোগে দাঁতের স্বাস্থ্য রক্ষা করতেও বিশেষ ভূমিকা নেয়। ব্যাকটেরিয়ার সঙ্গেও লড়ে। ফলে দাঁতে ক্যাভিটি তৈরি হওয়া প্রতিরোধ করা যায়।
৫. বিভিন্ন ক্যান্সার কোষ ধ্বংস করার ক্ষেত্রে অনুঘটকের কাজ করে সাদা চা।
৬. ইনসুলিন রেজিস্ট্যান্সের ঝুঁকি কমায় ও ইনসুলিনের কার্যকারিতাও বাড়ায় এই চা। ফলে ডায়াবেটিস প্রতিরোধ করা যায়। রক্তে সুগারের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে আনতেও সাহায্য করে সাদা চা।
৭. পার্কিনসনস এবং অ্যালঝাইমার্স-এর মতো স্নায়ুরোগ প্রতিরোধ করতে পারে।
৮. ফ্রি র‌্যাডিকেলস এবং দীর্ঘদিনের প্রদাহ বাড়িয়ে দেয় অস্টিওপোরোসিস নামে অস্থিরোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা। কারণ প্রদাহ এবং ফ্রি র‌্যাডিকেলস হাড়ের বৃদ্ধির অন্তরায় হয়ে দাঁড়ায়। সাদা চা পানে ক্ষতিকর ফ্রি র‌্যাডিকেলস ধ্বংস হয়। 
৯. প্রাকৃতিকভাবেই ব্যাকটেরিয়া ও ভাইরাসকে ধ্বংস করতে পারে সাদা চা। বিভিন্ন জীবাণু এবং রোগের বিরুদ্ধেও প্রতিরক্ষা গড়ে তুলতে সক্ষম।
১০. খাদ্য হজমেও সাহায্য করে সাদা চা। সারাদিনে বারতিনেক পান করা যায় এই চা।

কীভাবে তৈরি করবেন?
একটি পাত্রে জল গরম করতে দিন। জল গরম হয়ে মোটামুটি ৭৫ থেকে ৮০ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় পৌঁছে গেলে আর গরম করবেন না। এবার উষ্ণ জলে সাদা চা পাতা ফেলে দিন। একটি ঢাকনা দিয়ে পাত্র ঢাকা দিন। ৭ থেকে ৮ মিনিট অপেক্ষা করুন। ছেঁকে নিন। হালকা হরিদ্রাভ এবং স্বাদেগন্ধে অপূর্ব তরলটিই হল সাদা চা।    

মনে রাখবেন
সাদা চা না পেলে পান করতে পারেন ‘গ্রিন টি’। এই চায়েরও রয়েছে একাধিক স্বাস্থ্যগুণ—
ক. সবুজ চায়ে রয়েছে এমন কিছু উপাদান যা ক্যান্সার এবং হার্ট অ্যাটাক প্রতিরোধ করতে পারে।
খ. হৃদযন্ত্র, ব্রেনের রক্তবাহী নালী, রেটিনার আর্টারি, মহাধমনী, পায়ের শিরা, কিডনির ধমনীর নানা সমস্যাও প্রতিরোধ করে গ্রিন টি। রক্তে টোটাল কোলেস্টেরল এবং খারাপ কোলেস্টরলের (এলডিএল) মাত্রাও কমায়।  গ. পেটের মেদ ঝরাতে সাহায্য করে গ্রিন টি। ঘ. গ্রিন টি রক্তে ব্লাড সুগারের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করে। ঙ. ডিমেনশিয়া, পার্কিনসনস, স্ট্রোক প্রতিরোধ করে। চ. গ্রিন টি-এ থাকা ক্যাটেচিন মুখগহ্বরের স্বাস্থ্য উন্নত করে। ছ. বিভিন্ন ধরনের প্রদাহ কমাতে ও প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে। 
অতএব চা পান কখনওই খারাপ নয়। তবে চা পান করতে হবে দুধ এবং চিনি ছাড়া। তবেই চায়ের প্রকৃত স্বাস্থ্যগুণ পাওয়া যাবে।

লিখেছেন সুপ্রিয় নায়েক 
 

21st     July,   2022
 
 
কলকাতা
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ