বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
শরীর ও স্বাস্থ্য
 

সবার জন্য সহজ যোগ
জন্ম থেকে মৃত্যু সবটাই যোগ

পরামর্শে বিশিষ্ট যোগ বিশারদ তুষার শীল।

জন্ম থেকে মৃত্যুর চক্রে আসন-প্রাণায়াম ভিন্ন আমাদের গতি নেই! ফিরে যাই উৎসে। মাতৃগর্ভে শিশুরা যে ভঙ্গিতে থাকে তা আসলে এক বিশেষ ধরনের ‘আসন’। এই আসনের নাম গর্ভাসন। জন্মের পর শিশুরা ১৭-১৮ ঘণ্টা ঘুমিয়ে কাটিয়ে দেয়। এই সময় বাচ্চারা কখনও চিৎ হয়ে কখনও বা উপুড় হয়ে শুয়ে থাকে। এও এক ধরনের আসন। এরপর ঘুম কমতে থাকে। বাচ্চাটির বয়স দুই থেকে আড়াই মাস হলেই পা ভাঁজ করে চাপ দিয়ে বিছানার উপরে ওঠার চেষ্টা করতে থাকে। আবার পায়ে চাপ দিয়ে নীচে নেমে যায়। এই হল শয়ন উৎকটাসন। বর্হিজগত সম্পর্কে জ্ঞানহীন শিশুটি প্রকৃতির খেয়ালেই করে চলে এই আসন যাতে তার শিরদাঁড়া, ঘাড় শক্তিশালী হয়ে ওঠে। জন্মের পর বাচ্চার মেরুদণ্ডে সেভাবে ভাঁজ থাকে না। ধীরে ধীরে নানা শারীরিক কসরতের মাধ্যমেই তার শিরদাঁড়ায় তৈরি হয় ‘কার্ভ’। একইসঙ্গে পায়ের পেশিগুলি দৃঢ় হয়। আবার, বাচ্চা চিৎ হয়ে শুয়ে নিজের পায়ের বুড়ো আঙুল চোষে। প্রকৃতির নির্দেশে এভাবেই বাচ্চা করে পবনমুক্তাসন। এরপ বাচ্চা পাশ ফিরতে শেখে। ধীরে ধীরে দেখা যায়, উপুড় অবস্থাতে শিশু দুই হাতে ভর দিয়ে বুক থেকে মাথাকে উপরে তুলে তাকিয়ে দেখছে পৃথিবীকে। এই হল শিশুর সহজাত ভুজঙ্গাসনের অভ্যেস। তার এই সরল ব্যায়ামে ঘাড়ের সার্ভাইক্যাল স্পাইন, কোমরের লাম্বার স্পাইনের ভাঁজ তৈরি হয়। মজবুত হয় মেরুদণ্ড। এরপর বাচ্চা আপনা থেকেই নীলডাউন-এর ভঙ্গিতে বসতে শেখে। এই ভঙ্গি কিন্তু মণ্ডুকাসনের অনুরূপ। এরপর হামাগুড়ি দিতে শেখে চতুষ্পদাসন। হাত সহ সারা শরীরের পেশিগুলির ক্ষমতা বাড়ে উপরিউক্ত যোগাসনে। এরপর বাচ্চা দাঁড়ানোর চেষ্টা করে। একবার দাঁড়ায় আবার হাঁটু ভাঁজ করে বসে পড়ে। এইভাবে বৈঠক করার মতো করে সেরে ফেলে উৎকটাসন। অতএব আমরা যদি শিশুদের যদি অনুসরণ করি তাহলেই শিখে যাব যোগাসন। দরকার শুধু একটু পরিপূর্ণতার। কারণ শরীরের বৃদ্ধির সঙ্গে খাদ্যগ্রহণের মাত্রাও বাড়ে। ফলে বড়দের ক্ষেত্রে ব্যায়ামের পর্যায়ও খানিক বাড়ানো প্রয়োজন।
তাহলে আমরা কী করতে পারি? দেখা যাক—
শলভাসন: এই ব্যায়ামও করতে হবে উপুড় হয়ে শুয়ে। চিবুক থাকবে মাটি স্পর্শ করে। শরীরের দুই পাশে টানটান করে হাত রাখুন। হাতের তালু থাকবে মাটি স্পর্শ করে। তালুর উপর চাপ দিয়ে কোমর থেকে দু’টি পা তুলে দিন উপরে।
উত্থানপদাসন: চিৎ হয়ে শুয়ে পড়ুন। শরীরের দু’পাশে হাত রাখুন। তালু থাকবে মাটি স্পর্শ করে। এবার একসঙ্গে দুই পা একযোগে কোমর থেকে উর্ধ্বপানে তুলে দিন। পা মোটামুটি মাটি থেকে ১ ফুট উপরে উঠলেই চলবে। দুই পা একসঙ্গে তুলতে না পারলে একবার ডান পা আর একবার বাম পা তুলেও আসনটি করা যায়।
পবনমুক্তাসন: চিৎ হয়ে শুয়ে পড়ুন। এবার ডান পা ভাঁজ করে পায়ের থাই অংশটি যুক্ত করুন পেটের সঙ্গে। দুই হাত দিয়ে আলিঙ্গন করার মতো হাঁটুশুদ্ধ পা দু’টিকে জড়িয়ে থাকুন। এই অবস্থায় ১০-১৫ বার দম নিন ও ছাড়ুন। এরপর ডান পা সোজা করে বাম পা ভাঁজ করে পেটের সঙ্গে যুক্ত করুন। আগের মতোই দুই হাত দিয়ে ভাঁজ করা পা চেপে ধরে শ্বাসক্রিয়া চালান। একটু অভ্যেস হয়ে গেলে একসঙ্গে দুই হাঁটু ভাঁজ করে পেটের উপর চেপে ধরুন ও শ্বাসক্রিয়া চালান।  প্রতিটি আসন শেষ হলে ৩০ সেকেন্ড শবাসন করুন। এছাড়াও করুন ভুজঙ্গাসন।
মনে রাখবেন, যে আসনই অভ্যেস করুন না কেন, প্রতিবার আসন অবস্থায় থেকে ১০ থেকে ১৫ বার লম্বা লম্বা শ্বাস গ্রহণ ও ত্যাগের ক্রিয়া চালিয়ে যান। প্রতিদিন ৩০ মিনিট যোগাসন ও প্রাণায়াম অভ্যেস করা জরুরি। সাধারণত সকালে খালি পেটে যোগাসন করা উচিত। দিনের অন্যান্য সময়ে যেমন বিকেলেও যোগাসন করা যায়। তবে যোগাসন করার সময় যেন পেট ভর্তি না থাকে। আর হ্যাঁ, যোগাসনের সঙ্গে প্রাণায়াম করাও দরকার।
কোন প্রাণায়াম করবেন?
সবার জন্য উপযুক্ত প্রাণায়ামটি হল অনুলোম বিলোম। এই প্রাণায়াম করা যেতে সহজ যেতে পারে সহজ সরলভাবে। হাঁটুতে ব্যথা, কোমরে ব্যথা? বজ্রাসনে বসা সম্ভব হচ্ছে না? পরোয়া নেই। হাতল ছাড়া চেয়ারে শিরদাঁড়া সোজা করে বসুন। এবার ডান হাতের অনামিকা দিয়ে বাম নাক চেপে ধরুন। ডান নাক খোলা রাখুন। খোলা পথ দিয়ে লম্বা শ্বাস নিন। এবার ডানহাতের বৃদ্ধাঙ্গুলি দিয়ে ডান নাক চেপে ধরুন। ও বাম নাক থেকে অনামিকার চাপ সরান। বাম নাক দিয়ে শ্বাস ছাড়ুন। এবার বামদিকের নাকের রন্ধ্র দিয়ে শ্বাস নিয়ে বাম নাক বন্ধ করুন। ডান নাকের উপর থেকে চাপ সরিয়ে শ্বাস ছাড়ুন। ৫-৭ মিনিট করুন এই শ্বাসের ব্যায়াম। চাইলে সময় বাড়াতেও পারেন। 
উপকার কী? 
নিয়মিত যোগাসনে ত্বক টানটান থাকে। পেটে বায়ু জমা, ক্ষুদামান্দ্য, অম্বল, অজীর্ণ থেকে মেলে মুক্তি। ফুসফুসের জোর বাড়ে। বাতরোগ দূরে থাকে। রক্তে সুগার, কোলেস্টেরলের মাত্রা থাকে নিয়ন্ত্রণে। রক্তচাপ বাড়ে না। উদ্বেগের সঙ্গে লড়া সহজ হয়। অতএব সুস্থ-সবল থাকতে সহজ যোগাসন করুন।
লিখেছেন সুপ্রিয় নায়েক

23rd     June,   2022
 
 
কলকাতা
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ