বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
অমৃতকথা
 

মোক্ষলাভ

যে অধিকারী সাধক মোক্ষলাভকে জীবনের একমাত্র উদ্দেশ্যরূপে গ্রহণ করেন, এবং বিষয়াসক্তি নিঃশেষে বর্জনপূর্বক সকল সকাম কর্ম পরিত্যাগ করেন এবং সৎ-স্বরূপ ব্রহ্মে বিশ্বাসপরায়ণ হইয়া গুরু ও শাস্ত্রমুখে বেদান্তবাক্য শ্রবণ করিয়া উহার বিচার ও ধ্যানে নিরত হন, তিনি বুদ্ধির রজঃস্বভাব অর্থাৎ বহির্মুখী বৃত্তির বিনাশসাধনে সমর্থ হন।
মনোময় কোষ যে-হেতু উৎপত্তি ও বিনাশশীল, পরিণামী, দুঃখময় এবং জ্ঞানের বিষয়, সেই হেতু ইহা কিছুতেই পরমাত্মা হইতে পারে না। দ্রষ্টা কখনই দৃশ্যবস্তুরূপে কাহারও জ্ঞানের বিষয় হন না। বুদ্ধি যখন পঞ্চজ্ঞানেন্দ্রিয়ের সহিত যুক্ত, অহংকারাদি বৃত্তির এবং ‘আমি কর্তা’ এই অনুভবের সহিত বর্তমান থাকে, তখন তাহা বিজ্ঞানময়-কোশ নামে অভিহিত হয়। এই বিজ্ঞানময়-কোশই জীবের সংসার-বন্ধনের কারণ।
চিৎ-শক্তির প্রতিবিম্বের সহিত বর্তমান, প্রকৃতির বিকার, জ্ঞান ও ক্রিয়াশক্তিসম্পন্ন বিজ্ঞানময়-কোশ [স্বভাবতঃ জড় হইলেও চৈতন্য-প্রতিবিম্বিত হওয়ার জন্য] সর্বদা সম্পূর্ণরূপে দেহ ও ইন্দ্রিয়সমূহ ‘আমি’ এইরূপ জ্ঞান করিয়া থাকে। অহংবোধের আশ্রয়, উৎপত্তিরহিত, বিজ্ঞানময়কোশ-রূপ এই জীব লৌকিক ও বৈদিক সকল কর্মের অনুষ্ঠান করিয়া থাকে। পূর্ববাসনা দ্বারা পরিচালিত হইয়া ইহা সৎ ও অসৎ কর্মসমূহের অনুষ্ঠান করে এবং সুখদুঃখাদিরূপ ঐ সকল কর্মের ফল ভোগ করিয়া থাকে।
বিজ্ঞানময়কোশরূপী এই জীব নানা যোনিতে জন্মগ্রহণ করিয়া কখনও ঊর্ধ্বগতি কখনও অধোগতি প্রাপ্ত হয়। জাগ্রতস্বপ্নাদি অবস্থার অনুভব এবং সুখদুঃখাদিরও অনুভব এই বিজ্ঞানময় জীবেরই হইয়া থাকে। অত্যন্ত-প্রকাশস্বভাব এই বিজ্ঞানময়-কোশ শুদ্ধ আত্মার অত্যন্ত সন্নিহিত হওয়ার জন্য দেহাদিকে আশ্রয় করিয়া বর্তমান এবং আশ্রমবিহিত ধর্মকর্মগুণাদি ‘আমারই সব’—এই প্রকার অভিমান করিয়া থাকে। এই কারণে বিজ্ঞানময়-কোশও শুদ্ধ আত্মার আর একটি উপাধি। ভ্রমবশতঃ ‘এই বিজ্ঞানময়-কোশই আমি’ এইরূপ অনুভব করিয়া আত্মা জন্মমরণাদির অনুভব করিয়া থাকে। যে বিজ্ঞানময়-কোশের বিষয় বর্ণনা করা হইতেছে, সেই বিজ্ঞানময় সকল কর্মেন্দ্রিয়ে, জ্ঞানেন্দ্রিয়ে এবং বুদ্ধিতে প্রকাশ পায়। চৈতন্যস্বরূপ আত্মা স্বরূপতঃ নির্বিকার হইলেও উপাধির সহিত সম্বন্ধবশতঃ কর্তা ও ভোক্তা বলিয়া নিজেকে মনে করেন। অজ্ঞ ব্যক্তি যেমন ঘটকে মৃত্তিকা হইতে ভিন্ন বস্তু বলিয়া মনে করিয়া থাকে, শুদ্ধ আত্মা সর্বাত্মক হইলেও মিথ্যাস্বরূপ বিজ্ঞানময়-কোশের সঙ্গে নিজেকে অভিন্ন মনে করার ফলে বুদ্ধির দোষে দূষিত হইয়া নিজেকে স্ব-স্বরূপ হইতে পৃথক্‌ দেহধারী জীবরূপে কল্পনা করিয়া থাকেন। আত্মা স্বভাবতঃ উপাধিসমূহ হইতে ভিন্ন এবং পরিবর্তনরহিত হইলেও (নামরূপাদি) উপাধিসমূহের সহিত সম্বন্ধবশতঃ উপাধিসমূহের গুণ-অবলম্বনে প্রকাশ পান। (কিরূপে ইহা সম্ভব হয় তাহার দৃষ্টান্ত)। অগ্নির গোল, লম্বা প্রভৃতি আকার না থাকিলেও তাহাতে নিক্ষিপ্ত বিভিন্ন আকারের লৌহখণ্ডের ভিতরে প্রবেশ করিয়া অগ্নি যেমন বিভিন্ন আকারে প্রকাশ পায়, উপাধি-অবলম্বনে আত্মাও সেইরূপ উপাধিমান্‌রূপে প্রকাশ পান। শিষ্য বলিলেন—শুদ্ধ আত্মার জীবভাব-স্বীকার ভ্রমবশতঃ হউক বা অন্য যে কারণেই হউক, তিনি যে উপাধি অবলম্বন করেন, সেই অবিদ্যারূপ উপাধি অনাদি বলিয়া স্বীকার করা হইয়া থাকে। আর অনাদি বস্তুর নাশ তো সম্ভব হয় না। উপাধি অনাদি বলিয়া দেহাভিমানী আত্মার জীবভাবেরও নিবৃত্তি হইতে পারে না। 
শঙ্করাচার্যের ‘বিবেকচূড়ামণি’ থেকে

25th     May,   2022
 
 
কলকাতা
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ