বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
খেলা
 

এটিকে মোহন বাগানই এগিয়ে

জো পল আনচেরি : শনিবারের ডার্বিতে আমার বাজি এটিকে মোহন বাগানই। হাবাসের দলে ম্যাচ উইনারের সংখ্যা বেশি। গত কয়েক বছর ধরে প্রায় একই দল ধরে রেখেছে তারা। বোঝাপড়া খুবই মসৃণ। কোচের ‘চ্যাম্পিয়ন্স লাক’ রয়েছে। ফলে সবুজ-মেরুন উত্তাপে পুড়তে পারে লাল-হলুদ বাহিনী। গতবার আইএসএলে ডার্বিই ছিল দুই প্রধানের প্রথম ম্যাচ। এবার দ্বিতীয় রাউন্ডে মুখোমুখি কলকাতার দুই প্রধান। রয় কৃষ্ণারা প্রথম ম্যাচে জিতলেও হোঁচট খেয়েছে এসসি ইস্ট বেঙ্গল। শেষ মুহূর্তে দল গড়লে বোঝাপড়ার সমস্যা থাকা স্বাভাবিক। তবে দেখলাম, লাল-হলুদ বিদেশিদের গড় উচ্চতা বেশ ভালো। অনেকে বলছেন, সবুজ-মেরুন রক্ষণ কমজোরি। এসসি ইস্ট বেঙ্গলের মাঝমাঠ ও আক্রমণে দুর্বলতা রয়েছে। আমি এখনই সেই বক্তব্যের সঙ্গে সহমত নই। কয়েকটা ম্যাচ খেলার পর দু’দলের গভীরতা বিশ্লেষণ করা যাবে। ইস্ট বেঙ্গলে খেলেছি এক বছর (২০০১)। মোহন বাগানে ছিলাম ১৯৯৪ থেকে ৯৮। এরপর ২০০৪ সালে ফের সবুজ-মেরুন জার্সি পরেছি। বড় ম্যাচে দু’টি দলের জার্সিতেই গোল রয়েছে আমার। যা অবশ্যই তৃপ্তির। কিন্তু কোনও বড় দলকেই নেতৃত্ব দেওয়ার সুযোগ পাইনি। পরে এফসি কোচিনের অধিনায়ক হলেও সেই আক্ষেপ এখনও আছে। স্মরণীয় ডার্বির কথা বলতে গিয়ে দু’টি ম্যাচের কথা এই মুহূর্তে মনে পড়ছে। ১৯৯৪  ডুরান্ড কাপে ইস্ট বেঙ্গলকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিলাম। আর লাল-হলুদ জার্সিতে ডার্বি জিতে আইএফএ শিল্ড চ্যাম্পিয়ন হওয়ার মুহূর্ত কোনওদিন ভুলব না। দু’টি ম্যাচেই আমার ফিল্ড গোল ছিল। অথচ ফুটবলপ্রেমীরা ফ্রি-কিক থেকে করা গোলগুলিই বেশি মনে রেখেছেন। বড় ম্যাচ মানেই দু’জন ফুটবলারের নাম স্মৃতিতে ভেসে ওঠে। ক্রিস্টোফার ও সত্যদা (সত্যজিৎ চ্যাটার্জি)। ক্রিস্টো না ফেরার দেশে চলে গিয়েছে। ওর লড়াকু ফুটবল জীবনের শেষদিন পর্যন্ত মনে রাখব। আর সত্যদা অনবদ্য লিডার। মিডফিল্ড জেনারেল। বড় দাদার মতো আমাদের আগলে রাখতেন।

26th     November,   2021
 
 
কলকাতা
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
 
হরিপদ
 
31st     May,   2021
30th     May,   2021