বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
দক্ষিণবঙ্গ
 

পঞ্চায়েত ভোটের আগে কোন্দল চরমে
পূর্ব বর্ধমানে বিজেপির
বিদ্রোহীদের গণইস্তফা

 

নিজস্ব প্রতিনিধি, বর্ধমান: বর্ধমানে বিজেপির বিদ্রোহী নেতারা গণইস্তফা দিতে শুরু করলেন। বুধবার তফসিলি মোর্চার সাধারণ সম্পাদক তথা ওই সংগঠনের রাজ্য কমিটির সদস্য রাজু পাত্র সহ চারজন পদত্যাগপত্র পাঠিয়েছেন। বৃহস্পতিবার মণ্ডল সভাপতি সহ আরও কয়েকজন পদত্যাগ করবেন বলে বিদ্রোহীদের দাবি। পদত্যাগকারীরা এদিন জেলা নেতৃত্বকে তুলোধনা করেন। পদত্যাগী রাজু পাত্র বলেন, কয়েকজন মিলে পার্টি অফিসটাকে ক্লাবে পরিণত করেছেন। সাংগঠনিক কোনও বিষয়ে সেখানে আলোচনা হয় না। জেলার কয়েকজন নেতা সেখানে বসে নিজেদের আখের গোছানোর ব্লু প্রিন্ট ঠিক করেন। এরা কেউই দলের ভালো চায় না। আর যাই হোক একজন প্রমোটার দল চালাতে পারে না। যুব সংগঠনের কোনও কর্মসূচি নেই। যুবমোর্চার নেতারা ফূর্তি করতে ব্যস্ত রয়েছেন।
দলীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, বর্ধমান সাংগঠনিক জেলা নিয়ে রাজ্য নেতৃত্বও হাল ছেড়ে দিয়েছে। রাজ্যের নেতারা দ্বন্দ্ব মেটানোর জন্য একাধিকবার পদক্ষেপ নিয়েছিলেন। কিন্তু তারপরেও কোন্দল মেটেনি। উল্টে তা আরও বেড়ে গিয়েছে। সেই কারণে রাজ্য নেতৃত্বও এই জেলা নিয়ে খুব বেশি আশাবাদী নয়। কয়েকদিন আগে সংগঠনের এক নেতার সঙ্গে দলের জনপ্রতিনিধির ফোনে বাকবিতণ্ডা চরমে ওঠে। ওই জনপ্রতিনিধি ফোনে নেতাকে জানিয়ে দেন, তাঁর জয়ের জন্য দলের কারও অবদান নেই। টাকা ও বিরোধীদের একাংশের জন্যই তিনি জয়ী হয়েছিলেন। ওই জনপ্রতিনিধির এমন মন্তব্যর পরেই দলে পদত্যাগ পর্ব শুরু হয়ে যায়। 
বিজেপির পদত্যাগী আরএক নেতা বলেন, গত লোকসভা নির্বাচনে মানুষ বিজেপিকে ভোট দিয়েছিল। এখন নেতারা বলছেন তাঁরা নাকি টাকার জোরে জিতেছেন। সামনেই লোকসভা নির্বাচন রয়েছে। মানুষ ওই নেতাকে এবার শিক্ষা দেবেন। তবে আমরা পদ ছাড়লেও দল ছাড়ছি না। প্রয়োজনে যেসব সিপিএমের হার্মাদরা পার্টিঅফিসে বসে রয়েছে তাঁদের বের করে দেব। পার্টিঅফিসে বসে আমরা সংগঠনের কাজ করব। তা না হলে অফিসে তালা ঝোলানো হবে। দলের ভাবমূর্তি আমরা নষ্ট হতে দেব না। 
বিজেপির মুখপাত্র সৌম্যরাজ বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, রাজ্য নেতৃত্ব পুরো বিষয়টির উপর নজরদারি করছে। আচমকা কেন ওঁরা পদত্যাগ করছেন তা দেখা হবে। বিজেপি একটি পরিবার। যাঁরা পদত্যাগ করছেন তাঁরা পরিবারের সদস্য। সুতরাং সব দিকটাই দল দেখবে। 
বিজেপি সূত্রে আরও জানা গিয়েছে, বিদ্রোহের জেরে পঞ্চায়েত নির্বাচনে সব আসনে প্রার্থী দেওয়া নিয়েই নেতৃত্ব চিন্তায় রয়েছে। শহরের পাশাপাশি গ্রামীণ এলাকার নেতারা পদত্যাগ করেছেন। তাঁরা দীর্ঘদিন ধরেই দলের সঙ্গে যুক্ত রয়েছেন। তাই এলাকার সংগঠনের রাশ তাঁদের হাতেই ছিল। ওই নেতারা পদ থেকে সরে আসায় প্রার্থী পাওয়াই বিজেপির কাছে চ্যালেঞ্জ হয়ে উঠেছে। দলের এক নেতা বলেন, রাজ্য নেতারা জেগে ঘুমাচ্ছেন। জেলার দু’জন নেতার জন্যই এসব কিছু হচ্ছে। অথচ তাঁদেরই পদে বসিয়ে রাখা হয়েছে। ওই দুই নেতাকে সরিয়ে দিলে সংগঠনের ক্ষতি হবে না। সেটা রাজ্য নেতারা কেন বুঝতে পারছেন না, তা বোঝা যাচ্ছে না। দলীয় সূত্রে আরও জানা গিয়েছে, বৃহস্পতিবার আরও সাত থেকে আটজন নেতা পদ থেকে সরে আসতে পারেন।

23rd     March,   2023
 
 
অক্ষয় তৃতীয়া ১৪৩১
 
কলকাতা
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ