বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
দক্ষিণবঙ্গ
 

মতিরুলের গতিবিধি সম্পর্কে ঘাতক বাহিনীকে খবর
করিমপুরের তৃণমূল নেতা খুনে ধৃত ১

নিজস্ব প্রতিনিধি, বহরমপুর ও সংবাদদাতা, চাপড়া: করিমপুরের তৃণমূল নেতা মতিরুল ইসলামকে খুনের ঘটনায় একজনকে গ্রেপ্তার করল নওদা থানার পুলিস। শনিবার ভোরে নদীয়া থেকে অভিযুক্তকে পাকড়াও করা হয়। পুলিস সূত্রে জানা গিয়েছে, ধৃতের নাম ইসরাফিল মণ্ডল ওরফে কিতাব। বাড়ি থানারপাড়ার টোপলায়। ধৃতকে শনিবার বহরমপুর আদালতে তোলা হলে সাতদিন পুলিসি হেফাজতের নির্দেশ দেন বিচারক। ধৃত ব্যক্তিও তৃণমূল কর্মী। সে জমির কারবার করে বলে স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে।
মুর্শিদাবাদের পুলিস সুপার সুরিন্দর সিং বলেন, নওদায় খুনের ঘটনায় নদীয়া থেকে একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। বাকিদের খোঁজে তল্লাশি চলছে। 
বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ছেলেকে দেখে বাড়ি ফেরার পথে নওদায় রাস্তা আটকে বোমা ছুড়ে গুলি চালিয়ে মতিরুলকে খুন করা হয়। শুক্রবার বহরমপুর পুলিস মর্গে দেহের ময়নাতদন্তের পর পরিবারের হাতে তুলে দেয় পুলিস। ঘটনার পরই ওইদিন রাতে মতিরুলের দেহরক্ষী এক কনস্টেবল নওদা থানায় অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তির নামে অভিযোগ জানান। পুলিস খুনের মামলা রুজু করে তদন্ত শুরু করে। ঘটনার পরদিন সকালে মৃতের স্ত্রী নওদা থানায় গিয়ে আরও একটি অভিযোগ জানান। সেখানে ১০ জনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে। বেশ কয়েকজন তৃণমূল নেতার নাম অভিযোগপত্রে রয়েছে। মূল অভিযোগের সঙ্গে মৃতের স্ত্রীর অভিযোগ একসঙ্গে করে পুলিস তদন্ত শুরু করে। কিন্তু এদিন গ্রেপ্তার হওয়া ইসরাফিলের নাম অভিযোগপত্রে নেই। 
সূত্রের খবর, ইসরাফিল গোটা ঘটনার কথা জানত। এমনকী মতিরুলের গতিবিধি সম্পর্কে খুনিদের তথ্য দিয়েছিল সে। তাই পুলিস তাকে গ্রেপ্তার করে জিজ্ঞাসাবাদ করে খুনিদের ব্যাপারে জানতে চাইছে। খুনের ঘটনায় যুক্ত থাকার অভিযোগে পুলিস আরও একজনের খোঁজ পেয়েছে বলেই জানা গিয়েছে। তাকেও গ্রেপ্তার করা হবে বলে পুলিস জানিয়েছে। ধৃতের স্ত্রী জামেলা বিবির অভিযোগ, তাঁর স্বামীকে ফাঁসানো হয়েছে। জামেলা বলেন, আমার স্বামী মতিরুলের সঙ্গেই থাকত। একসময় তাঁর সঙ্গেই রাজনীতি করত। 
যদিও তাঁর দাবি উড়িয়ে দিয়ে মতিরুল ঘনিষ্ঠ তৃণমূলের সংখ্যালঘু সেলের নেতা আজিজুল হক শাহ বলেন, কিতাব গত বিধানসভা নির্বাচনে দলের বিরুদ্ধে গিয়ে প্রচার করেছিল। ওর সঙ্গে আমাদের কোনও সম্পর্ক নেই। ও বিরোধী গোষ্ঠীর ঘনিষ্ঠ। 
মৃতের স্ত্রী তথা নারায়ণপুর-২ পঞ্চায়েতের প্রধান রীনা বিশ্বাস বলেন, সিবিআই বা সিআইডি যেই তদন্ত করুক, আমি চাই দ্রুত দোষীদের গ্রেপ্তার করে শাস্তি দেওয়া হোক।  শনিবার বিকেলে মৃতের পরিবারের সঙ্গে দেখা করেন নদীয়া উত্তর সাংগঠনিক জেলা তৃণমূলের সভাপতি কল্লোল খাঁ, মন্ত্রী উজ্জ্বল বিশ্বাস, তেহট্টের বিধায়ক তাপস সাহা, করিমপুরের বিধায়ক বিমলেন্দু সিংহরায় সহ তৃণমূলের নেতা- কর্মীরা। তাঁরা মৃতের পরিবারের পাশে থাকার আশ্বাস দিয়েছেন। 
    ধৃতকে আদালতে তোলা হচ্ছে। নিজস্ব চিত্র

27th     November,   2022
 
 
কলকাতা
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ