বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
দক্ষিণবঙ্গ
 

মুর্শিদাবাদে প্রায় ৮০ লক্ষ
ভ্যাকসিন দিল স্বাস্থ্যদপ্তর
দেওয়া হয়েছে ১৬ হাজার বুস্টার ডোজও

নিজস্ব প্রতিনিধি, বহরমপুর: মুর্শিদাবাদ জেলায় ৮০লক্ষ করোনার টিকা পেয়েছেন বাসিন্দারা। কো-উইন ওয়েবসাইটে দেওয়া তথ্য অনুসারে টিকার প্রথম ডোজ পেয়েছেন ৫১লক্ষ ৬০হাজার ১৯২ জন। দ্বিতীয় ডোজ পেয়েছেন ২৮ লক্ষ ৫৪ হাজার ২৮৬ জন। প্রিকশন অর্থাৎ বুস্টার ডোজ নিয়েছেন ১৬ হাজার ৫৩জন চিকিৎসক, নার্স, স্বাস্থ্যকর্মী সহ প্রথম সারির কোভিড যোদ্ধা। সোমবার সন্ধ্যা পর্যন্ত মোট ৮০লক্ষ ৩০ হাজার ৫৩১ টিকা দিয়েছে জেলা স্বাস্থ্যদপ্তর। 
জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক সন্দীপ সান্যাল বলেন, ৮০লক্ষের বেশি টিকাকরণ করা হয়েছে। এখন দ্বিতীয় ডোজের পাশাপাশি অনেকে প্রথম ডোজের টিকাও নিচ্ছেন। টিকাকরণের জোর দেওয়ার জন্য একাধিক পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। যেমন মোবাইল ভ্যাকসিনেশন চালু হয়েছে। যার মাধ্যমে প্রতিটি এলাকায় পৌঁছে যাচ্ছে আমাদের টিকার ভ্যান। সেখান থেকে প্রথম ও দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া হচ্ছে। নিয়মমাফিক কিশোর-কিশোরীদের টিকাকরণের দিকেও জোর দেওয়া হচ্ছে। 
করোনার ঊর্ধ্বমুখী সংক্রমণের মধ্যেও এই টিকাকরণের পরিসংখ্যান যথেষ্ট স্বস্তি দিচ্ছে স্বাস্থ্যকর্তাদের। জেলা স্বাস্থ্যদপ্তর সূত্রে খবর, বেশ কিছু এলাকায় ১০০ শতাংশ টিকাকরণ হলেও জেলার সর্বত্র ছবিটা এক নয়। জেলায় টিকার প্রথম ডোজ ও দ্বিতীয় ডোজের মধ্যে ফারাক অনেক। এখনও পর্যন্ত ২৩ লক্ষ ৫ হাজার ৯০৬ জন টিকার দ্বিতীয় ডোজ নেননি। দ্বিতীয় ডোজ প্রাপকদের দ্রুত টিকাকরণের উদ্যোগ নিয়েছে স্বাস্থ্যদপ্তর। জেলা স্বাস্থ্যদপ্তরের এক আধিকারিক বলেন, এই মুহূর্তে টিকার কোনও ঘাটতি নেই। জেলায় প্রায় পাঁচ লক্ষ টিকা মজুত আছে। ২৩ লক্ষের বেশি মানুষ এখনও দ্বিতীয় ডোজ নিতে বাকি আছেন। তাঁদের টিকা নিয়ে নেওয়ার জন্য প্রচার করা হচ্ছে। অনেকের টিকার দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার সময় পার হয়ে গেলেও তাঁরা টিকা নেননি। তাঁদের দ্রুত টিকা দেওয়ার জন্য ভ্যাকসিন ভ্যান বিভিন্ন এলাকায় ঘুরছে।
টিকাকরণের বর্ষপূর্তি পার হলেও এখনও শহরের অনেক বাসিন্দা যে টিকা নেননি সেই দৃশ্য অবাক করছে স্বাস্থ্য আধিকারিকদের। দুয়ারে ভ্যাকসিন পেয়ে টিকা নেওয়ার সুযোগ হাতছাড়া করেননি এতদিন অনীহা থাকা ব্যক্তিরা। টিকা নেওয়ার জন্য জেলা প্রশাসনের তরফ থেকে বিভিন্ন ব্লক এবং পঞ্চায়েতে প্রচার করা হচ্ছে। গ্রামের অনেক মানুষ টিকার দ্বিতীয় ডোজের দিনক্ষণ মনে রাখতে পারেননি এবং অনেকেই কোভিড কমে যাওয়ার জন্য দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ায় অনীহা দেখাচ্ছিলেন। তাই স্বাস্থ্যকর্মীদের বাড়িতে পাঠিয়ে খোঁজ নেওয়া শুরু হচ্ছে। ফলে দ্বিতীয় ডোজ দেওয়ার সংখ্যা বাড়ছে। জেলায় আক্রান্তের সামান্য কমলেও এক সপ্তাহের পজিটিভিটি রেট কিছুটা চিন্তায় রেখেছে স্বাস্থ্য অধিকারিকদের। গত এক সপ্তাহের পজিটিভিটি রেট ২০.১৫শতাংশ। ফলে বেশি সংখ্যক টিকা দেওয়ার চেষ্টা করছেন স্বাস্থ্যকর্মীরা। সোমবার ৯৭হাজার ৭৫১জন মানুষ টিকা নিয়েছেন। ৬৪৮টি টিকাকরণ কেন্দ্র থেকে গোটা জেলায় টিকাদান কর্মসূচি চালিয়ে যাচ্ছে জেলা স্বাস্থ্যদপ্তর। এদিকে গত ২৪ঘণ্টায় জেলায় নতুন করে ২৩৫ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। তবে টেস্ট কম হওয়ার জন্য সংক্রমণের সংখ্যা কিছুটা কমেছে বলেই দাবি বিশেষজ্ঞদের। এদিন মাত্র ৩৫১ জনকে আরটিপিসিআর এবং ২৫০ জনকে র‌্যাপিড অ্যান্টিজেন টেস্ট করা হয়েছে।টেস্ট কম হওয়া নিয়ে ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরী। তিনি বলেন, করোনা সংক্রমণের যে সংখ্যাটা প্রকৃতপক্ষে জানা যাচ্ছে সেটা আসল সংখ্যা নয়। আসলে ঠিকভাবে টেস্ট করা হচ্ছে না বলেই এইরকম সংক্রমণের সংখ্যা কম। আসলে যে পরিমাণ মানুষ আক্রান্ত হচ্ছেন সেই সংখ্যা সরকার সামনে আনতে চাইছে না, তাই টেস্ট করতে এত অনীহা।

18th     January,   2022
 
 
কলকাতা
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ