বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
দক্ষিণবঙ্গ
 

ভাণ্ডারে টাকা না ঢুকলে
ত্রুটি খুঁজে সমাধান শুরু
পঃ মেদিনীপুরে প্রশাসনিক
সিদ্ধান্তে খুশি মহিলারা

সৌম্য বন্দ্যোপাধ্যায় ,মেদিনীপুর : লক্ষ্মীর ভাণ্ডার প্রকল্পে আবেদন অনুমোদন করে পাঠিয়ে দেওয়া হলেও ত্রুটি থাকায় অনেকে মেসেজ পাননি। এরফলে প্রকল্পের টাকা অনেকের অ্যাকাউন্টেই ক্রেডিট হয়নি। এবার সেইসব ত্রুটি খতিয়ে দেখে সংশোধনের কাজ শুরু হল পশ্চিম মেদিনীপুর জেলায়। পাশাপাশি যেসব আবেদন অসম্পূর্ণ থেকে গিয়েছিল, সেগুলি খতিয়ে দেখার কাজ শুরু হল। এই উদ্যোগে খুশি মহিলারা।  জেলাশাসক রশ্মি কমল বলেন, অসম্পূর্ণ আবেদনগুলি খতিয়ে দেখে পাঠিয়ে দেওয়া হবে। প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে, জেলায় এই প্রকল্পে ৯ লক্ষ ৩৫ হাজার আবেদন জমা পড়েছিল। এরমধ্যে আগেই ৭ লক্ষ ৫৮ হাজার ৭৪৬টি আবেদন অনুমোদন করে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। প্রায় ৮০০ আবেদন বাতিল করা হয়েছে। ১ লক্ষ ৭৫ হাজার ৫০০ আবেদন অসম্পূর্ণ থেকে যায়। পরবর্তীকালে অবশ্য আরও কিছু আবেদন অনুমোদন করে পাঠানো হয়। তবুও প্রায় ১ লক্ষ ৪২ হাজার আবেদন অসম্পূর্ণ থেকে গিয়েছে। সম্প্রতি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এই প্রকল্পে কিছু নিয়ম শিথিল করার কথা ঘোষণা করেন। ফলে অসম্পূর্ণ থাকা আবেদনকারীদের অনেকেই এই প্রকল্পের সুবিধা পাবেন। এরকম নির্দেশ আসার পর সোমবার থেকে সেই কাজ শুরু হল। তবে কিছু ব্লকে পুজোর ছুটির মধ্যেও এই কাজ এগিয়ে রাখা হয়েছে। তবে শুধু অসম্পূর্ণ আবেদনই নয়, এমন অনেকে রয়েছেন, যাঁদের আবেদন অনুমোদন করে পাঠিয়ে দেওয়া পরও তাঁরা কোনও মেসেজ পাননি। অনেকের অ্যাকাউন্টে টাকাও আসেনি। ফলে তাঁদের মধ্যে এনিয়ে উৎকন্ঠা দেখা দিয়েছে। জেলা প্রশাসনের এক আধিকারিক বলেন, আবেদন জমা দেওয়ার ক্ষেত্রে হয়তো কিছু ত্রুটি থেকে যাওয়ার জন্য এই সমস্যা দেখা দিয়েছে। ওইসব আবেদনগুলি খতিয়ে দেখে ত্রুটি সংশোধনের কাজও শুরু করা হয়েছে। ফলে যাঁরা এখনও মেসেজ পাননি বা টাকা আসেনি তাঁরাও দ্রুত টাকা পেয়ে যাবেন। কেশপুরের বিডিও দীপক ঘোষ বলেন, যে সব আবেদন অসম্পূর্ণ আছে সেগুলি খতিয়ে দেখার কাজ প্রায় অনেকটাই পুজোর ছুটির সময় আমরা এগিয়ে রেখেছি। বাকি কাজও দ্রুত করা হচ্ছে। যাঁদের এই সমস্যা হয়েছে, তাঁদের তালিকা তৈরি করে দেখা করতে বলেছি। যেসব ত্রুটি আছে সেগুলি সংশোধন করে আবার পাঠিয়ে দেওয়া হবে। তিনি বলেন, এরকম আমাদের ব্লকে ১৫০০ জন রয়েছেন। সবংয়ের বিডিও তুহিনশুভ্র মোহান্তি বলেন, আবেদন খতিয়ে দেখা ও সংশোধনের কাজ শুরু হয়েছে। সেগুলি ঠিক করে দ্রুত পাঠিয়ে দেওয়া হবে। জানা গিয়েছে, দ্রুত কাজ শেষ হয়ে গেলে ওইসব আবেদনকারীরা নভেম্বর মাসে একসঙ্গে তিন মাসের টাকা হাতে পাবেন। সাধারণ মহিলারা তিন মাসের জন্য দেড় হাজার এবং এসসি ও এসটি মহিলারা তিন মাসের জন্য তিন হাজার টাকা পাবেন। প্রসঙ্গত, জেলায় এই প্রকল্প ঘিরে মহিলাদের মধ্যে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনা দেখা দেয়। দীর্ঘ লাইন দিয়ে তাঁরা হাসি মুখে আবেদন জমা দিয়েছেন। অতি বড় সমালোচকদেরও লাইনে দাঁড়িয়ে আবেদন জমা দিতে দেখা গিয়েছে। এখন ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে টাকা আসতে শুরু হওয়ায় সবাই খুশি। সকলের মুখেই মুখ্যমন্ত্রীর প্রশংসা শোনা যাচ্ছে।
 

26th     October,   2021
 
 
কলকাতা
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
 
হরিপদ
 
31st     May,   2021
30th     May,   2021