বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
দক্ষিণবঙ্গ
 

ঝাড়গ্রাম, দুই মেদিনীপুরে শুরু
দ্বিতীয় পর্যায়ের দুয়ারে রেশন

নিজস্ব প্রতিনিধি ও সংবাদদাতা: রবিবার থেকে দুই মেদিনীপুর ও ঝাড়গ্রাম জেলায় দ্বিতীয় পর্যায়ের দুয়ারে রেশন কর্মসূচি শুরু হল। এদিন তিন জেলায় মোট ১১৫২ জন এমআর ডিলার ওই কর্মসূচিতে অংশ নেন। এর আগে সেপ্টেম্বর মাসে তিন জেলায় ১৫ শতাংশ এমআর ডিলার দুয়ারে রেশন কর্মসূচির ট্রায়াল রানে অংশ নিয়েছিলেন। দ্বিতীয় পর্যায়ে প্রতিটি জেলায় মোট ডিলার সংখ্যার অর্ধেক ওই কর্মসূচিতে শামিল হয়েছেন। আগামী ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত দ্বিতীয় পর্যায়ে দুয়ারে রেশন কর্মসূচি চলবে। নিম্নচাপের জেরে দুই মেদিনীপুরের বিভিন্ন জায়গায় এদিন বৃষ্টি হয়েছে। সেজন্য বিভিন্ন স্কুল, ক্লাব এবং বারোয়ারি তলায় ক্যাম্প করে অনেক ডিলার রেশনসামগ্রী বিতরণ করেছেন।দ্বিতীয় পর্যায়ে দুয়ারে রেশন কর্মসূচিতে পূর্ব মেদিনীপুর জেলায় ৪২১ জন, পশ্চিম মেদিনীপুরে ৫৫১ জন এবং ঝাড়গ্রাম জেলায় ১৮০ জন ডিলার অংশ নেন। প্রতিটি জেলায় ৫০ শতাংশ ডিলারকে এই কর্মসূচিতে যোগ দিতে হবে বলে খাদ্য ও সরবরাহ বিভাগ থেকে নির্দেশ ছিল। সেইমতো জেলা খাদ্য নিয়ামকরা তালিকা সংগ্রহ করে ওই কর্মসূচিতে অংশ নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছিলেন। পূর্ব মেদিনীপুরের ২৫টি ব্লক ও পাঁচটি পুরসভায় সর্বত্র দুয়ারে রেশন কর্মসূচি নেওয়া হয়। পশ্চিম মেদিনীপুরের ২১টি ব্লক ও সাতটি পুরসভা এবং ঝাড়গ্রাম জেলায় আটটি ব্লক ও একটি পুরসভা এলাকায় দুয়ারে রেশন কর্মসূচি রূপায়ণ করা হয়।
এদিন নন্দীগ্রাম-১ ব্লকের মনুচক সমবায় সমিতির কর্মীরা পঞ্চমখণ্ড জালপাই গ্রামের তিনটি বুথে গিয়ে প্রায় ৪০জন গ্রাহকের হাতে রেশনসামগ্রী তুলে দেন। স্থানীয় পঞ্চায়েত সদস্যা জয়শ্রী বেরা, তৃণমূলের বুথ সভাপতি বুদ্ধদেব মাজি সহ আরও অনেকেই ছিলেন। শহিদ মাতঙ্গিনী ব্লকে এদিন মোট ২০ জন ডিলার এই কর্মসূচিতে যোগ দেন। এমআর ডিলাররা বাড়ি বাড়ি ই পস মেশিন এবং ভ্যানে রেশন সামগ্রী নিয়ে পৌঁছে যান। বিল কেটে রেশন সামগ্রী গ্রাহকের হাতে তুলে দেওয়া হয়।
পূর্ব মেদিনীপুরের জেলা খাদ্য নিয়ামক সৈকত চক্রবর্তী বলেন, জেলায় মোট ৪২১ জন এমআর ডিলার দ্বিতীয় পর্যায়ের দুয়ারে রেশন কর্মসূচিতে অংশ নিয়েছেন। এমআর ডিলার্স অ্যাসোসিয়েশনের জেলা সম্পাদক মাধব পাঁজা বলেন, প্রথম পর্যায়ের দুয়ারে রেশন কর্মসূচির পর ডিলারদের অসুবিধা খাদ্য নিয়ামকের নজরে আনা হয়েছিল। কিন্তু, সেসব নিয়ে কোনও আলোচনা হয়নি। এর মধ্যে ৫০ শতাংশ ডিলারকে নিয়ে দ্বিতীয় পর্যায়ের কর্মসূচি শুরু হয়ে গেল। এখনও পর্যন্ত দুয়ারে রেশন নিয়ে কোনও লিখিত নির্দেশিকা আমাদের দেওয়া হয়নি। সবটা‌ই মৌখিকভাবে করানো হচ্ছে। বাড়ি বাড়ি রেশন পৌঁছে দেওয়ার জন্য যে খরচ, আগে তার নিশ্চয়তা দরকার। কিন্তু, সেসব না করে আমাদের উপর সিদ্ধান্ত চাপিয়ে দেওয়া হচ্ছে।পশ্চিম মেদিনীপুর জেলায় সবং, পিংলা, ডেবরা, খড়্গপুর, মেদিনীপুর সহ সর্বত্র বাড়ি বাড়ি গিয়ে দুয়ারে রেশন দেওয়া হয়। জেলা খাদ্য নিয়ামক অরবিন্দ সরকার বলেন, এর আগে ১৫ শতাংশ ডিলার বাড়ি বাড়ি গিয়ে রেশন সামগ্রী বিলি করেছেন। দ্বিতীয় পর্যায়ে তার সঙ্গে আরও ৩৫ শতাংশ ডিলারকে যুক্ত করা হয়েছে।

18th     October,   2021
 
 
কলকাতা
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
 
হরিপদ
 
31st     May,   2021
30th     May,   2021