বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
দক্ষিণবঙ্গ
 

ভুয়ো পরীক্ষার্থীর ‘সাপ্লায়ার’ বিহারের নামী কোচিং সেন্টার
২-৩ লক্ষ টাকার চুক্তিতে বিক্রি হচ্ছে মেধা

সুমন তেওয়ারি  আসানসোল : বিহারের কোচিং সেন্টার থেকে সরবরাহ করা হচ্ছে মেধাবী ভুয়ো পরীক্ষার্থী। সরকারি পরীক্ষায় পাশ করানোর জন্য কোচিং সেন্টারে যোগাযোগ করলেই মিলবে সুরাহা। রীতিমতো সরকারি চাকরির জন্য প্রস্তুতি নেওয়া পড়ুয়া আবেদনকারীর হয়ে ভাড়াটিয়া পরীক্ষার্থী হিসেবে পরীক্ষা কেন্দ্রে পাঠিয়ে দেওয়া হবে। তবে, তার জন্য গুনতে হবে মোটা টাকা। রবিবার রাজ্য পুলিসের কনস্টেবল নিয়োগের পরীক্ষায় বিহারের ভুয়ো পরীক্ষার্থীকে জিজ্ঞাসাবাদ করে এমনই চাঞ্চল্যকর তথ্য জানা গিয়েছে। শিল্পাঞ্চলে এদের নেটওয়ার্ক কাজ করছে। লোকাল এজেন্টরাই আবেদনকারীদের সঙ্গে কোচিং সেন্টারের যোগাযোগ করিয়ে দিচ্ছে। পুলিসের হাতে ভুয়ো পরীক্ষার্থীর পাশাপাশি একজন কোচিং সেন্টার চালানো অঙ্কের শিক্ষকও ধরা পড়েছে। পুলিস সূত্রে জানা গিয়েছে, আসানসোল যে দুই ভুয়ো পরীক্ষার্থী ধরা পড়েছে তাদের মধ্যে একজন ব্যাঙ্কের চাকরির লিখিত পরীক্ষায় পাশ করেছে। অন্যজন বিহার পুলিসের সাব ইন্সপেক্টরের লিখিত পরীক্ষায় পাশ করেছে। তাদের একজন বেনারস হিন্দু বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ৭০ শতাংশের বেশি নম্বর পেয়ে স্নাতক। এসিপি তথাগত পাণ্ডে বলেন, কোচিং সেন্টার থেকেই বেশ কিছু ভুয়ো পরীক্ষার্থী সরবরাহ করা হয়। আমরা অভিযুক্তদের নিজেদের হেফাজতে নিয়ে পুরো চক্রটি ধরার চেষ্টা করছি।রবিবার পরীক্ষা এক ঘণ্টা হয়েছে। ঠিক সেই সময় পুলিসের কাছে খবর আসে, অর্জুন সিং বাদলের নাম করে এক ভুয়ো পরীক্ষার্থী পরীক্ষা দিচ্ছে। পুলিস দ্রুত ওই কেন্দ্রে গিয়ে জানতে পারে, সেই পরীক্ষার্থী এক ঘণ্টার মধ্যে সব প্রশ্নের উত্তর দিয়ে বেরিয়ে গিয়েছে। পুলিস দ্রুত পরীক্ষা কেন্দ্র আসানসোল বেঙ্গলি গার্লস ডে স্কুলের মেন গেটে একজনকে পালাতে দেখে। পুলিস তাকে ধরে জিজ্ঞাসাবাদ করতেই স্বীকার করে, অর্জুন সিং বাদলের নামে সে পরীক্ষা দিচ্ছিল। পুলিসি জিজ্ঞাসাবাদে উঠে আসে আরও চাঞ্চল্যকর তথ্য। ছেলেটির নাম অমরনাথ প্যাটেল। বিএইচইউ থেকে ৭০ শতাংশ নম্বর নিয়ে পাশ করার পাশাপাশি বিহার পুলিসের সাব ইন্সপেক্টর পদের লিখিত পরীক্ষাও পাশ করেছে। অথচ যার জন্য সে পরীক্ষা দিতে এসেছিল তাকে ঩চেনে না। বিহারের পাটনার এক কোচিং সেন্টার থেকেই তাকে ২০ হাজার টাকার বিনিময়ে এই পরীক্ষা দিয়ে দিতে বলা হয়। তার কথার সূত্র ধরেই উঠে আসে কোচিং সেন্টারের শিক্ষক বিমলেন্দু কুমার ওরফে বিপিনের নাম। পাটনার কোচিং সেন্টার চালানো এই অঙ্কের শিক্ষক একাধিক বিহারের পড়ুয়াকে পরীক্ষা দিতে এনেছে বলে জানায় সে। ঘটনাচক্রে রানিগঞ্জ থানার হাতেও ভুয়ো পরীক্ষার্থী হিসেবে গ্রেপ্তার হয় গুপ্তেশ কুমার সিং। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করেও উঠে আসে বিপিনের নাম। এরপরই বিপিনকে গ্রেপ্তার করে পুলিস। 
পুলিস জেনেছে, এই শিক্ষকই একাধিক ভুয়ো পরীক্ষার্থীকে বিহার থেকে এখানে এনেছিল। প্রায় তিন লক্ষ টাকা করে চুক্তি হয়েছিল। যদিও তার কোচিং সেন্টারে পড়া এই মেধাবী পড়ুয়াদের মাত্র ২০ হাজার টাকা করে দেওয়ার কথা হয়েছিল। শুধু ভুয়ো পরীক্ষার্থী নয়, যাতে পরীক্ষাকেন্দ্রে এরা ধরা না পড়ে সেজন্য ভুয়ো অ্যাডমিট কার্ডও বানিয়েছিল। এই চক্রটির পাশাপাশি আসানসোল দক্ষিণ থানার পুলিস বিহারের বীরেন্দ্র কুমার নামে বিহারের আরএক ভুয়ো পরীক্ষার্থীকে গ্রেপ্তার করেছে। সে এমএসসি পড়ছে। সে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কের লিখিত পরীক্ষায় পাশ করেছে। সেখানেও ধৃত যুবক জানিয়েছে, এক মধ্যস্থতাকারীর মাধ্যমেই অন্যের হয়ে পরীক্ষা দিতে এসেছিল সে।

28th     September,   2021
 
 
কলকাতা
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
 
হরিপদ
 
31st     May,   2021
30th     May,   2021