বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
দক্ষিণবঙ্গ
 

একই ছবি ধর্মস্থান, ফেরিঘাট, স্টেশন সর্বত্র
মাস্ক নিয়ে অনিহা, চিন্তা
বাড়াচ্ছে পুজোর বাজার

সংবাদদাতা, নবদ্বীপ: দোরগোড়ায় কড়া নাড়ছে বাঙালির শ্রেষ্ঠ উৎসব। করোনা পরিস্থিতি পুরোপুরি নির্মূল হয়নি। এবারের পুজো কেমন যাবে তা নিয়ে সংশয় রয়েছে সাধারণ মানুষ থেকে শুরু করে পুজো উদ্যোক্তাদেরও। কয়েকদিনের বৃষ্টিতে পুজোর বাজার নিয়ে চিন্তায় ছিলেন ব্যবসায়ীরা। আকাশ একটু পরিষ্কার হতেই নবদ্বীপের রাস্তায় দেখা গেল পুজোর কেনাকাটার ভিড়। অবশ্য মাস্ক ছাড়াই চলছে কেনাকাটা। নবদ্বীপের পোড়ামাতলা, বাজাররোড, রাধাবাজার, তাঁতকাপড় হাট, ফেরিঘাট, স্টেশন সর্বত্রই একই ছবি। এমনকী মাস্ক পরে নেই অনেক দোকানদারও। রাস্তাঘাট, মন্দিরেও দর্শনার্থীদের মধ্যেও মাস্ক পরার প্রবণতা লক্ষ্য করা যাচ্ছে না। এই প্রবণতা দেখে অনেকেই চিন্তিত। শুধু কেনাকাটার বাজারেই নয়, পোড়ামা মন্দির, গৌরাঙ্গ মহাপ্রভুর মন্দির, জন্মস্থান আশ্রম সহ বিভিন্ন মন্দির, ফেরিঘাট, স্টেশন কোথাও মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্যবিধি। পোড়ামা মন্দিরের ফুল ব্যবসায়ী, স্টেশনারি দোকান সহ শহরের অধিকাংশ দোকানগুলোতেও দেখা যাচ্ছে এক শ্রেণির ক্রেতা-বিক্রেতার মুখে মাস্ক নেই। যদিও দোকানের সামনে ঝুলছে ‘নো মাস্ক, নো সেল’ বোর্ড। সচেতনতার এমন নমুনা দেখে এক শ্রেণির চাইছেন, মাস্ক ছাড়া কেউ রাস্তায় বের হলেই তাদের ক্ষেত্রে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হোক। করা হোক জরিমানা। প্রশাসন কঠোরভাবে পদক্ষেপ নিয়ে মাস্ক পরতে বাধ্য করুক। 
বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিজিক্যাল এডুকেশন ও স্পোর্টস সায়েন্সের ছাত্রী প্রজ্ঞাপারমিতা সাহা বলেন, মাকে নিয়ে পুজোর কেনাকাটা করতে গিয়েছিলাম। রাস্তাঘাটে যথেষ্ট ভিড় ছিল। মাস্ক ছাড়া অনেককে ঘুরতে দেখে একটু ভয়ই লাগছিল। নতুন জামা কাপড়ের পাশাপাশি মাস্কও কিনেছি। কেন না এখনও করোনা নির্মূল হয়নি। আমরা মনে হয়, এব্যাপারে সকলেরই একটু নিজে থেকে সচেতন হওয়ার প্রয়োজন। তা নাহলে এই রোগ প্রতিরোধ করা সম্ভব নয়।
প্রাক্তন প্রবীণ শিক্ষক শান্তিরঞ্জন দেব বলেন, এখনও করোনার প্রকোপ কমেনি। সরকারিভাবে বারবার বলা হচ্ছে, প্রয়োজন না হলে বাড়ির বাইরে বেরবেন না, মাস্ক অবশ্যই পড়ুন, ২ মিটার দূরত্ব বজায় রেখে চলুন। কিন্তু অনেকেই সেটা মানছেন না। তার ফল ভোগ করতে হবে। প্রশাসনের একার পক্ষে ক্ষমতা প্রয়োগ করে সচেতনতা আনা সম্ভব নয়। মানুষকেই সচেতন হতে হবে। 
নবদ্বীপ ব্যবসায়ী সমিতির সম্পাদক নিরঞ্জন দাস বলেন, কেনাকাটার জন্য মানুষ রাস্তায় বের হচ্ছেন। কিন্তু মাস্ক পরা মানুষ খুঁজে বের করা মুশকিল। গ্রামগঞ্জের মানুষ কেনাকাটার জন্য নবদ্বীপে আসছেন। এখনও আমাদের অনেকটাই সচেতনতার অভাব। ব্যবসায়ী সমিতির পক্ষ থেকে প্রশাসনের কাছে অনুরোধ, প্রশাসন যদি দু’একদিন একটু সক্রিয় হয়। বিশেষ করে নবদ্বীপে ঢোকার প্রবেশ পথগুলো যেমন, ফেরিঘাট, নবদ্বীপধাম স্টেশন, বিষ্ণুপ্রিয়া হল্ট ইত্যাদি জায়গায় একটু নজরদারি করে। প্রত্যেক মানুষকে অবশ্যই মাস্ক পরার জন্য বলা উচিত। 
নবদ্বীপ পুরসভার প্রশাসক মণ্ডলীর চেয়ারম্যান বিমানকৃষ্ণ সাহা বলেন, পুজো সামনে, স্বাভাবিকভাবে প্রত্যেকেই কমবেশি কেনাকাটা করেন। সেকারণে বাজারহাট রাস্তাঘাটে একটু ভিড় হয়। পুরসভার পক্ষ থেকে দোকানদার, ক্রেতা প্রত্যেকের কাছে আবেদন করব, অবশ্যই মাস্ক ব্যবহার করুন। এখনও করোনা সম্পূর্ণরূপে চলে যায়নি। যতক্ষণ না পর্যন্ত আমাদের মুখ্যমন্ত্রী এ বিষয়ে কোনও বার্তা দিচ্ছেন, ততক্ষণ আমরা প্রত্যেকেই মাস্ক ব্যবহার করব। 

23rd     September,   2021
 
 
কলকাতা
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
 
হরিপদ
 
31st     May,   2021
30th     May,   2021