বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
উত্তরবঙ্গ
 

দুর্যোগের প্রভাব পড়ল ভ্রমণে, মালদহে
রেলের টিকিট বাতিলের হিড়িক

সংবাদদাতা, মালদহ: প্রাকৃতিক দুর্যোগের প্রভাব পড়ল এবার ভ্রমণের ক্ষেত্রেও। বিশেষ করে রেলের টিকিট বাতিল করার ঢল পড়েছে বিভিন্ন ক্ষেত্রে। ব্যাপক বৃষ্টি ও ধসের কারণে অনেকেই ঝুঁকি না নিয়ে টিকিট বাতিল করার সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন। তবে এরপরেও যাঁরা কয়েকটা দিন পরিবার সহ পাহাড়ে ছুটি কাটাবেন বলে ঠিক করেছিলেন, তাঁদের কেউ কেউ গন্তব্য পরিবর্তন করে সমতলেরই অন্য কোনও জায়গায় বেড়াতে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন। অন্যদিকে, কলকাতামুখী ট্রেনগুলিতে আসন পাওয়াই দুষ্কর হয়ে দাঁড়াচ্ছে। কারণ পাহাড়ে ধসের কারণে অনেকেই যত দ্রুত সম্ভব ছুটি কমিয়ে বাড়ি ফিরতে চাইছেন।আগের বছরও করোনা আতঙ্কের জেরে অনেকেই পুজোর ছুটিতে বেড়াতে যাওয়া বাতিল করেছিলেন। এর পরে করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের ধাক্কা কাটিয়ে ভ্রমন পিপাসুরা ভেবেছিলেন নিকটজনদের নিয়ে বেড়িয়ে পড়বেন। বেড়াতে যাওয়ার ক্ষেত্রে পাহাড় অনেকেরই প্রথম পছন্দ। তাই বহু আগে থেকেই টিকিট করে রেখেছিলেন দার্জিলিং, সিকিম কিংবা উত্তরাখণ্ডে বেড়াতে যাওয়ার জন্য। কিন্তু পুজোর পর থেকে ব্যাপক বৃষ্টি এবং ধসের কারণে  তাঁরা ভ্রমণ বাতিলের সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন।
মালদহ শহরের ট্র্যাভেল এজেন্ট মনমোহন সারদা বলেন, প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের পরে প্রতিদিন গড়ে ২০ থেকে ২৫টি টিকিট বাতিল হচ্ছে। বিশেষ করে যাঁরা মালদহ থেকে দার্জিলিং মেইল বা পদাতিক এক্সপ্রেস ধরে এনজেপি থেকে পাহাড়ের উদ্দেশে রওনা দেবেন ঠিক করেছিলেন তাঁরা সিদ্ধান্ত পাল্টে টিকিট বাতিল করছেন। আসলে প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের সময় কেউই সম্ভবত নতুন করে পাহাড়ি এলাকাগুলিতে বেড়াতে যাওয়ার ঝুঁকি নিতে চাইছেন না। তাই হয়ত এই টিকিট বাতিলের হিড়িক পড়েছে। এমনকী যাঁরা দিল্লি হয়ে উত্তরাখণ্ডে যাওয়ার টিকিট কেটেছিলেন, তাঁদেরও অনেকেই টিকিট বাতিল করে নিচ্ছেন। ফলে পাহাড়ি এলাকাগুলিতে বেড়াতে যাওয়ার জন্য ট্রেনের টিকিট বাতিলের সংখ্যা ক্রমশ বাড়ছে।
একই কথা শোনা গিয়েছে মালদহের চিফ রির্জাভেসন সুপারভাইজার মানস কুমার ঘোষের কাছ থেকেও।.তিনি বলেন, বিভিন্ন কারণে মানুষ রেলের টিকিট কেটেও বাতিল করেন। আমার কাউন্টার থেকে প্রতিদিন গড়ে কাজের দিনে ৬০ থেকে ৮০টি টিকিট বাতিল হয়। পুজোর পরে টিকিট বাতিলের সংখ্যা প্রায় দ্বিগুণ হয়ে গিয়েছে। গড়ে ১৫০ থেকে ১৮০টি করে টিকিট বাতিল হচ্ছে। আসলে যাঁরা পাহাড়ে বেড়াতে যাবে ভেবেছিলেন, পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে তাঁরা বেড়াতে যেতে না চাওয়ার কারণেই হয়ত টিকিট বাতিলের সংখ্যা এক লাফে অনেকটাই বেড়ে গিয়েছে বলে ধারণা ওই রেল কর্মীর।
উল্টো ছবি কলকাতামুখী ট্রেনগুলিতে। মালদহ থেকে কলকাতাগামী ট্রেনগুলিতে ওয়েটিং লিস্টের টিকিটও অন্তত আট থেকে ১২টি নিশ্চিত হয়ে যায় স্বাভাবিক অবস্থায়। কিন্তু পাহাড় ছেড়ে অনেকেই শিলিগুড়ি হয়ে রেলপথে কলকাতা ফেরা শুরু করে দেওয়ায় টিকিটের চাহিদা বেড়ে গিয়েছে অনেকটাই। ফলে ওয়েটিং লিস্টের টিকিটও কনফার্মড হচ্ছে না সহজে। ইংলিশবাজারের এক নাগরিক বলেন, কলকাতা যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু এখন ওয়েটিং লিস্টের এক নম্বর টিকিটও কনফার্ম হচ্ছে না। সব মিলিয়ে করোনা বিষন্নতা কাটাতে বেড়াতে গিয়ে নির্ভেজাল ছুটির আনন্দে বাদ সেধেছে সাম্প্রতিক প্রাকৃতিক দুর্যোগ।

26th     October,   2021
 
 
কলকাতা
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
 
হরিপদ
 
31st     May,   2021
30th     May,   2021